মাদক মামলায় নাসির ও অমি ৭ দিনের রিমান্ডে

নিজস্ব প্রতিবেদক

মাদক মামলায় নাসির ও অমি ৭ দিনের রিমান্ডে

মাদক মামলায় উত্তরা ক্লাব লিমিটেডের সাবেক সভাপতি নাসির ইউ মাহমুদ ও তার সহযোগী তুহিন সিদ্দিক অমির সাত দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। 

আজ বিকেলে ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট নিভানা খায়ের জেসি এ আদেশ দেন। এছাড়াও আদালত একই মামলায় অন্য তিন আসামি লিপি আক্তার (১৮), সুমি আক্তার (১৯) ও নাজমা আমিন স্নিগ্ধাকে (২৪) তিন দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

আদালত সূত্র জানায়, আজ আসামিদের আদালতে হাজির করে ১০ দিন রিমান্ডে নেওয়ার আবেদন করে পুলিশ। উভয় পক্ষের শুনানি নিয়ে আদালত এই আদেশ দেন।

এর আগে পুলিশ নাসির ইউ মাহমুদসহ পাঁচজনের বিরুদ্ধে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে রাজধানীর বিমানবন্দর থানায় মামলা করে। এই মামলায় লিপি আক্তার (১৮), সুমি আক্তার (১৯) ও নাজমা আমিন স্নিগ্ধাকে (২৪) গ্রেপ্তার দেখানো হয়। 

আরও পড়ুন:


গাজীপুরে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কে ভয়াবহ যানজট, প্রভাব রাজধানীতেও

স্নাতক পাসে ঢাকায় নিয়োগ দেবে কেয়ার নিউট্রিশন

এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষা নিয়ে যা বললেন শিক্ষামন্ত্রী

সিলেটের জকিগঞ্জে দেশের ২৮তম গ্যাসক্ষেত্রের সন্ধান!


উল্লেখ্য, পরীমণিকে ধর্ষণচেষ্টা ও হত্যাচেষ্টার ঘটনায় গতকাল সাভার থানায় মামলা দায়ের হয়। মামলায় নাসির ইউ মাহমুদ ও অমির নাম উল্লেখ করে এবং অজ্ঞাতনামা আরও চার জনকে আসামি করা হয়েছে। এরপর দুপুরে উত্তরার ১ নম্বরের একটি বাসায় অভিযান চালিয়ে নাসির ইউ মাহমুদ ও তুহিন সিদ্দিকী অমিসহ পাঁচ জনকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। এ সময় ১ হাজার ইয়াবা বড়ি ও বিদেশি মদ উদ্ধার করা হয়।

news24bd.tv নাজিম

পরবর্তী খবর

পল্লবী থেকে অস্ত্রসহ দুই ডাকাত গ্রেপ্তার

অনলাইন ডেস্ক

পল্লবী থেকে অস্ত্রসহ দুই ডাকাত গ্রেপ্তার

পল্লবীর সেকশন-১২ এলাকা থেকে অস্ত্রসহ দুই ডাকাতকে গ্রেপ্তার করেছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) পল্লবী থানা-পুলিশ। গ্রেপ্তাররা হলো- মো. শাকিল ও মো. সুজন।

পল্লবী থানার অফিসার ইনচার্জ মো. পারভেজ এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

আরও পড়ুন:


করোনায় ঝালকাঠির আদালতের বিচারকের মৃত্যু!

নরসিংদীতে ডেঙ্গু প্রতিরোধে মশক নিধন স্প্রে

মমেক হাসপাতালে ৫০ টি অক্সিজেন সিলিন্ডার দিলেন সিটি মেয়র ও চেম্বার সভাপতি


news24bd.tv তৌহিদ

পরবর্তী খবর

গ্রামীণফোনকে হু্মায়ূন পরিবারের আইনি নোটিশ

অনলাইন ডেস্ক


গ্রামীণফোনকে হু্মায়ূন পরিবারের আইনি নোটিশ

প্রয়াত কথাসাহিত্যিক হুমায়ূন আহমেদের সৃষ্টি জনপ্রিয় চারটি চরিত্র অনুমতি ছাড়াই বাণিজ্যিকভাবে ব্যবহার করায় মোবাইল অপারেটর কোম্পানি গ্রামীণফোনের কাছে ৩ কোটি টাকা ক্ষতিপূরণ চেয়ে একটি আইনি নোটিশ পাঠানো হয়েছে।

হুমায়ূন আহমেদের স্ত্রী মেহের আফরোজ শাওনসহ পরিবারের সদস্যদের পক্ষ থেকে রোববার (২৫ জুলাই) ওই নোটিশ পাঠানো হয় বলে জানিয়েছেন তাদের আইনজীবী ব্যারিস্টার হামিদুল মিজবাহ। 

সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী হামিদুল মিজবাহ জানান, প্রয়াত  হুমায়ূন আহমেদের পরিবারের ৬ সদস্যের পক্ষে এ নোটিশ প্রেরণ করা হয়েছে।

তারা হলেন, হুমায়ূন আহমেদের স্ত্রী মেহের আফরোজ শাওন, কন্যা নোভা আহমেদ, শীলা আহমেদ ও বিপাশা আহমেদ, পুত্র নুহাশ হুমায়ূন এবং ভাই জাফর ইকবাল।

আরও পড়ুন:


এবার তিউনিসিয়ার প্রতিরক্ষামন্ত্রীকে বহিষ্কার করলেন প্রেসিডেন্ট

মাহফুজ আনামের অনৈতিক কর্মকাণ্ডের প্রতিবাদে সম্পাদক পরিষদ থেকে নঈম নিজামের পদত্যাগ


তিনি বলেন, গ্রামীণফোন নিবেদিত ‘কেমন আছেন তারা’ শীর্ষক কয়েক পর্বে একটি ধারাবাহিক প্রমোশনাল অনুষ্ঠান গ্রামীণফোনের ফেসবুক পেজ ও ইউটিউব চ্যানেল থেকে প্রচারিত হয়। 

হুমায়ূন আহমেদ রচিত বাকের ভাই, এলাচি বেগম, সোবহান সাহেব ও তৈয়ব আলী-জনপ্রিয় এই চার চরিত্র কোনো ধরনের অনুমতি ছাড়াই বাণিজ্যিকভাবে ব্যবহার করেছে গ্রামীণফোন। এতে মেধাস্বত্ব আইন লঙ্ঘিত হয়েছে। 

নোটিশে ওই পর্বগুলো তিন দিনের মধ্যে অপসারণ করতে এবং মেধাস্বত্ব আইন লঙ্ঘন করায় ১৫ দিনের মধ্যে হুমায়ূন আহমেদের পরিবারের সদস্যদের প্রায় সোয়া তিন কোটি টাকা ক্ষতিপূরণ দিতে বলা হয়েছে। অন্যথায় গ্রামীণফোনের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলেও নোটিশে উল্লেখ করা হয়েছে।

news24bd.tv নাজিম

পরবর্তী খবর

ছাত্রীকে যৌন হয়রানি: জামিন পাননি স্কুলশিক্ষক

অনলাইন ডেস্ক

ছাত্রীকে যৌন হয়রানি: জামিন পাননি স্কুলশিক্ষক

প্রাইভেট পড়ানোর সময় অস্টম শ্রেণির এক স্কুলছাত্রীকে যৌন হয়রানির অভিযোগের মামলায় গত ২৩ মে পুলিশ স্কুলশিক্ষক কিরণ চন্দ্র মন্ডলকে (৬২) গ্রেপ্তার করে। তার আগের দিন ২২ মে ওই শিক্ষকের বিরুদ্ধে মামলা হয়। 

এদিকে সেই মামলায় খুলনার স্কুলশিক্ষক কিরণ চন্দ্র মন্ডলকে জামিন দেননি হাইকোর্ট।

বিচারপতি জে বি এম হাসানের হাইকোর্ট বেঞ্চ আজ মঙ্গলবার এ আদেশ দেন। শিক্ষকের পক্ষে আইনজীবী ছিলেন ব্যারিস্টার রুহুল কুদ্দুস কাজল ও জি এম নজরুল ইসলাম। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল তুষার কান্তি রায়।

আসামিকে গ্রেপ্তারের পরদিন ২৪ মে হাসপাতালে ওই শিক্ষার্থীর স্বাস্থ্য পরীক্ষা করা হয়। যদিও এই পরীক্ষায় ধর্ষণের কোনো আলামত পাননি চিকিৎসক। সেই মেডিক্যাল রিপোর্ট আদালতে উপস্থাপন করে ওই শিক্ষকের জামিন আবেদন করা হয় হাইকোর্টে। আদালত জামিন নামঞ্জুর করে তার আবেদন কার্যতালিকা থেকে বাদ দিয়েছেন।

news24bd.tv/এমিজান্নাত

পরবর্তী খবর

তিন বছর ধরে শাশুড়ি ও শ্যালিকাকে ধর্ষণ : গ্রেফতার মেয়ে জামাই

অনলাইন ডেস্ক

তিন বছর ধরে শাশুড়ি ও শ্যালিকাকে ধর্ষণ : গ্রেফতার মেয়ে জামাই

টানা তিন বছর নিজের শাশুড়ি ও শ্যালিকাকে ধর্ষণ ও সেই কর্মকাণ্ডের ভিডিও ধারণ এবং সেসব দৃশ্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দেয়ার অভিযোগ উঠেছে জামাইয়ের বিরুদ্ধে। জামাইয়ের বিরুদ্ধে মা ও মেয়ের পৃথক দুটি মামলায় সেই জামাইকে গ্রেফতার করেছে র্যাব।

গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জে এই ঘটনা ঘটে। মামলার পর জামাই রুহুল আমিন সরকার আপেলকে (২৬) রোববার (২৫ জুলাই) সন্ধ্যায় উপজেলার কাটাখালি বালুয়া বাজারের মুক্তিযোদ্ধা ময়েজ উদ্দিন সুপার মার্কেট থেকে গ্রেফতার করে র্যাব।সোমবার (২৬ জুলাই) অভিযুক্ততে গোবিন্দগঞ্জ থানায় সোপর্দ করে র‌্যাব। 

মামলা সূত্রে জানা গেছে, রুহুল আমিন তার শ্বশুরবাড়ি প্রায়ই যাতায়াত করতেন। সেই সুবাধে একদিন শাশুড়ির গোসলের আপত্তিকর দৃশ্য মোবাইলে ধারণ করেন। পরে ধারণকৃত ওই দৃশ্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দেয়ার ভয় দেখিয়ে শাশুড়ির ইচ্ছার বিরুদ্ধে তার সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক করেন। শারীরিক সম্পর্কের ঘটনাও গোপনে ধারণ করেন রুহুল আমিন। এরপর গত ২০১৮ সাল থেকে ৭ জুলাই, ২০২১ সাল পর্যন্ত বিভিন্ন সময় রুহুল আমিন ইচ্ছার বিরুদ্ধে তার শাশুড়িকে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। রুহুল আমিন তার স্ত্রীকে কালো কাপর দিয়ে মুখ বেঁধে নগ্ন ছবি তুলে শাশুড়ির মোবাইলে পাঠাতো এবং ফোনে রেখে মেয়েকে মারপিট ও নির্যাতন করতো।

অন্যদিকে, রুহুল আমিন তার শ্যালিকার সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক করতে বিভিন্ন কৌশল অবলম্বন করেন। শ্যালিকাকে গাইবান্ধার পলাশপাড়ার বাসায় ও গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার তালুক কানুপুর ইউনিয়নের সমসপাড়ায় ফুফাতো বোনের বাড়ি নিয়ে ধর্ষণের চেষ্টা চালায়। শ্যালিকার ধর্ষণ চেষ্টার ও অশ্লীল দৃশ্য ফেসবুকে প্রকাশ করেন।

রুহুল আমিন সরকার গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার তালুক কানুপুর ইউনিয়নের সমসপাড়া গ্রামের আব্দুল মজিদের ছেলে। তার বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন, পর্নোগ্রাফি নিয়ন্ত্রণ আইন ও ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে ভুক্তভোগী মা-মেয়ে বাদী হয়ে গোবিন্দগঞ্জ থানায় পৃথক দুটি মামলা (৩৭ ও ৩৮) করেছেন। দুটি মামলায় সোমবার বিকেলে রুহুল আমিনকে গোবিন্দগঞ্জ সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হাজির করা হলে আদালত তাকে জেলহাজতে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

আরও পড়ুনঃ


দ. কোরিয়ার কোন গালিও দেয়া চলবে না উত্তর কোরিয়ায়

তালেবানের হাত থেকে ২৪ জেলা পুনরুদ্ধারের দাবি

কাছাকাছি আসা ঠেকাতে টোকিও অলিম্পিকে বিশেষ ব্যবস্থা


 

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই আরিফুল ইসলাম জানান, আসামি রুহুল আমিনকে পৃথক দুই মামলায় ৫ দিনের রিমান্ড আবেদনসহ আদালতে উপস্থিত করা হয়। এসময় তাকে কারাগারে প্রেরণের নির্দেশ দেন এবং রিমান্ড শুনানির জন্য পরবর্তী দিন ধার্য করেন আদালত।

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

জরুরি অবস্থা জারি করতে রাষ্ট্রপতির নিকট আইনজীবীর আবেদন

অনলাইন ডেস্ক

জরুরি অবস্থা জারি করতে রাষ্ট্রপতির নিকট আইনজীবীর আবেদন

করোনা সংক্রমণ প্রতিরোধে  দেশের জনগণের জীবন রক্ষায় সারাদেশে জরুরি অবস্থা জারির জন্য রাষ্ট্রপতির প্রতি আবেদন পাঠিয়েছেন সুপ্রিম কোর্টের এক আইনজীবী।  

আবেদনে বলা হয়,করোনার বর্তমান পরিস্থিতিতে সংবিধানের ১৪১ (ক) অনুচ্ছেদ অনুযায়ী, রাষ্ট্রপতির ক্ষমতাবলে ১২০ দিনের জন্য জরুরি অবস্থা জারি করা হলে দেশ ও জাতি আসন্ন বিপর্যয় থেকে রক্ষা পেতে পারে বলে আবেদনে উল্লেখ করা হয়।

ন্যাশনাল লইয়ার্স কাউন্সিলের চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট এস এম জুলফিকার আলী জুনু মঙ্গলবার বিকালে ই-মেইল যোগে এ আবেদন পাঠান। 

এতে বলা হয়, বিদেশি  ক্রেতারা পোশাক খাতের ক্রয় আদেশ বাতিল করার ফলে দেশের অর্থনীতির মারাত্মক ক্ষতি হচ্ছে। এই পরিস্থিতিতে সংবিধানের ১৪১ (ক) অনুচ্ছেদ অনুযায়ী, রাষ্ট্রপতির ক্ষমতাবলে ১২০ দিনের জন্য জরুরি অবস্থা জারি করা হলে দেশ ও জাতি আসন্ন বিপর্যয় থেকে রক্ষা পেতে পারে বলে আবেদনে উল্লেখ করা হয়।

এতে বলা হয়, করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মধ্যে হাজার হাজার মানুষ মৃত্যুবরণ করেছেন। বিশ্বের বিভিন্ন উন্নত দেশ এই ভাইরাস নিয়ন্ত্রণে হিমশিম খাচ্ছে। করোনার সংক্রমণ থেকে দেশের মানুষকে রক্ষায় যুক্তরাষ্ট্র, অস্ট্রেলিয়া, ইতালি, স্পেন, কানাডা ও বেলজিয়ামে জাতীয় এবং আঞ্চলিক পর্যায়ে জরুরি অবস্থা ঘোষণা করেছিল। জরুরি অবস্থা পালনের ফলে দেশগুলো করোনার সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণ করতে অনেকাংশেই সফল হয়। ফলে অনেক উন্নত দেশে এখন আর লকডাউনের প্রয়োজন হচ্ছে না। সেসব দেশের মানুষ স্বাভাবিক জীবন অতিবাহিত করছে। 

আবেদনে আরও বলা হয়, বাংলাদেশ সরকার ও করোনার সংক্রমণ  থেকে  দেশবাসীকে রক্ষার আপ্রাণ চেষ্টা চালাচ্ছে। দফায় দফায় লকডাউন দিতে হচ্ছে। কিন্তু দিন দিন করোনার সংক্রমণ বৃদ্ধি পাচ্ছে, বাড়ছে মৃত্যু হার। লকডাউন পালনে দেশের অনেক মানুষের মাঝে উদাসীনতা লক্ষ্য করা যাচ্ছে। করোনার ভয়াল সংক্রমণ ও মৃত্যুহার কোনোভাবেই নিম্নমুখী করা যাচ্ছে না। 

আরও পড়ুনঃ


দ. কোরিয়ার কোন গালিও দেয়া চলবে না উত্তর কোরিয়ায়

তালেবানের হাত থেকে ২৪ জেলা পুনরুদ্ধারের দাবি

কাছাকাছি আসা ঠেকাতে টোকিও অলিম্পিকে বিশেষ ব্যবস্থা


 

এছাড়া, করোনা আক্রান্তরা অনেকেই তথ্য গোপন করে জনসম্মুখে ঘুরে বেড়াচ্ছে কোনভাবেই কোয়ারেন্টাইন ও আইসোলেশনে বাধ্য করা যাচ্ছে না না। ফলে করোনাভাইরাসের এই ভয়াল সংক্রমণ থেকে  দেশ ও জাতিকে কোনোভাবেই রক্ষা কারা যাচ্ছে না। এছাড়া সরকার বিদেশ ফেরতদের হোম কোয়ারেন্টিনে থাকার নির্দেশ দিয়েছে। কিন্তু অনেকেই নিয়ম না মেনে জনসম্মুখে ঘুরে বেড়াচ্ছে। 

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর