মদ পানে গভীর রাতে যুবক-যুবতী নিয়ে ক্লাবে যেতেন পরীমনি

নিজস্ব প্রতিবেদক

মদ পানে গভীর রাতে যুবক-যুবতী নিয়ে ক্লাবে যেতেন পরীমনি

প্রায়শই মাঝ রাতে রাজধানীর বিভিন্ন ক্লাবে যেতেন বর্তমানের আলোচিত চিত্রনায়িকা পরীমনি। কিন্তু মানতেন না কোনো নিয়ম কানুন। নিজের খেয়াল খুশিমত গভীর রাতে বিভিন্ন যুবক-যুবতী নিয়ে মদ্যপান করতেন।  

পুলিশ ও গোয়েন্দারা জানিয়েছেন, পরীমনি তার কস্টিউম ডিজাইনার জিমিসহ কয়েকজন যুবক-যুবতী নিয়ে প্রায়রাতেই অভিজাত ক্লাব ও তারকা হোটেলে ঘুরে বেড়াতেন। তাদের সঙ্গে নিয়ে মদ পান করতেন মধ্যরাত পর্যন্ত। এক্ষেত্রে প্রায় রাতেই তার কারণে ক্লাবের আইন ভাঙা হতো। বিশেষ করে হাফপ্যান্ট পড়ে তার সঙ্গী হওয়া জিমি ড্রেসকোডের তোয়াক্কা করতেন না কখনোই। এক ক্লাবে সময় কাটিয়ে তিনি যেতেন আরেক ক্লাবে।

ঢাকা বোট ক্লাবের ঘটনার আগের রাতে রাজধানীর হাতিরঝিলের পুলিশ প্লাজা সংলগ্ন অল কমিউনিটি ক্লাবে ভাঙচুরের অভিযোগ পাওয়া গেছে। 

বুধবার (১৬ জুন) রাত সাড়ে ৭টার দিকে অল কমিউনিটি ক্লাবের সভাপতি কে এম আলমগীর গণমাধ্যমকর্মীদের কাছে ৮ জুন রাতে পরী মনির ভাঙচুরের ঘটনা তুলে ধরেন।

ক্লাবের সভাপতি বলেন, নিয়ম অনুযায়ী রাত ১১টায় ক্লাব বন্ধ করে দেওয়া হয়। কিন্তু রাত প্রায় ১টা ৪০ মিনিটের দিকে পরী মনি এক সদস্যের মাধ্যমে ক্লাবের বারে প্রবেশ করে মদ অর্ডার করেন। মদের একটি বোতল তার টেবিলেও দেওয়া হয়। কিন্তু ওয়েটাররা পরিবেশন করতে রাজি না হওয়ায় ক্ষীপ্ত হয়ে ওঠেন পরীমনি। এক পর্যায়ে ১৫টি গ্লাস, ৯টি স্ট্রে ও বেশ কিছু গ্লাস ভাঙচুর করে বেরিয়ে যান। এ সময় তার সঙ্গে দুইজন পুরুষ ও একজন নারী ছিলেন।

বুধবার (১৬ জুন) অল কমিউনিটি ক্লাবে ভাঙচুরের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন গুলশান বিভাগের উপকমিশনার (ডিসি) সুদীপ কুমার চক্রবর্তী।

তিনি বলেন, পরীমণি ওই ক্লাবের সদস্য নন। ৮ জুন (মঙ্গলবার) রাতে তিনি ক্লাবে অনুপ্রবেশ করেন। তারপর ক্লাবের সদস্যদের সঙ্গে তার বাগবিতণ্ডা ও তর্কবিতর্ক হয়। ঘটনাস্থল থেকে একজন জরুরি সেবা ৯৯৯ এ ফোন দেয়। ফোন পেয়ে ঘটনাস্থলে যায় পুলিশ।

তিনি আরও বলেন, ৯৯৯ থেকে গুলশান থানায় ফোন করলে সেখানে পুলিশ পাঠানো হয়। পুলিশ গিয়ে তাদের মধ্যে বাকবিতণ্ডা দেখতে পায়। এরপর পুলিশ থানায় ফিরে এসে সাধারণ ডায়েরি (জিডি) আকারে গোটা বিষয়টি থানায় অবগত করে।

গুলশান থানা জানায়, সাধারণত ৯৯৯ থেকে কোনো ডাক পেলে সেই ঘটনাস্থলে গিয়ে পুলিশ কী পেল না পেল ইত্যাদি অবগত করতে হয়। তার অংশ হিসেবেই সেদিনের ক্লাবের ঘটনাটি পুলিশ জিডি আকারে লিখে রাখে।

জানতে চাইলে পরীমনি বলেন, এটা ফালতু একটা অভিযোগ। এত দিন পরে কেন এই অভিযোগ?

গুলশান থানার পরিদর্শক (তদন্ত) আমিনুল ইসলাম বলেন, ৭ জুন গভীর রাতে ৯৯৯–এর একটি কলে গুলশান থানা-পুলিশের একটি দল অল কমিউনিটি ক্লাবে যায়। সেখানে গিয়ে দেখা যায়, কথা-কাটাকাটির জেরে ক্লাবে গ্লাস ভাঙচুর করেছেন পরীমনি। পরে আর এ ঘটনায় কেউ অভিযোগ করেননি।

৮ জুন পরীমনি ঢাকা বোট ক্লাবে গেলে সেখানে তাকে ধর্ষণ ও হত্যার চেষ্টা হয় বলে অভিযোগ করেন। এই ঘটনায় গত সোমবার ৬ জনকে আসামি করে মামলা করেন ঢাকাই সিনেমার আলোচিত এই নায়িকা। মামলার পর পুলিশ প্রধান দুই আসামিকে গ্রেপ্তার করেছে।

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

মদ্যপ অবস্থায় গাড়ি চালিয়ে দুর্ঘটনার শিকার অভিনেত্রী, বান্ধবীর মৃত্যু

অনলাইন ডেস্ক

মদ্যপ অবস্থায় গাড়ি চালিয়ে দুর্ঘটনার শিকার অভিনেত্রী, বান্ধবীর মৃত্যু

মাতাল অবস্থায় গাড়ি চালানো সব সময়ই বিপদজনক। আর মদ্যপ অবস্থায় গাড়ি চালিয়ে ভয়াবহ দুর্ঘটনার শিকার হতে হল ভারতের দক্ষিণী অভিনেত্রী যশিকা আনন্দকে। গুরুতর আহত হয়ে আশঙ্কাজনক অবস্থায় হাসপাতালে চিকিৎসাধীন তিনি। এ ঘটনায় তার এক বান্ধবীর মৃত্যু হয়েছে।

অতিরিক্ত মদ পান করে ভারতের মহাবলিপুরমের ইস্ট কোস্ট রোডে গাড়ি চালাচ্ছিলেন যশিকা। আর এতেই ঘটে এই ভয়াবহ দুর্ঘটনা। প্রাথমিক তদন্তের পর পুলিশের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, মদ্যপ অবস্থায় গাড়ি চালানোর জন্যই এই দুর্ঘটনা ঘটেছে।

দক্ষিণী চলচ্চিত্র তামিল ও তেলুগু সিনেমার জনপ্রিয় অভিনেত্রী যশিকা। সিনেমায় নিজের ক্যারিয়ার শুরু করেছিলেন জিভা অভিনীত তামিল ছবি ‘কাভালাই ভেন্দম’-এর মাধ্যমে। পরে বিজয় দেবেরকোন্ডা অভিনীত ‘নোটা’ সিনেমায় নজর কাড়েন তিনি। ধীরে ধীরে তামিল ও তেলুগু ইন্ডাস্ট্রির পরিচিত মুখ হয়ে ওঠেন। পরে কমল হাসান সঞ্চালিত বিগ বস তামিলে অংশ নিয়েছিলেন অভিনেত্রী।

Me Too আন্দোলনে সরব ছিল যশিকা আনন্দ। সে সময় তিনি অভিযোগ করেছিলেন, এক পরিচালক নাকি সিনেমায় অভিনয়ের বদলে তার সঙ্গে শারীরিক সম্পর্কে লিপ্ত হতে চেয়েছিলেন।

জানা গেছে, গত ২৫ জুলাই রাতে সড়ক দুর্ঘটনার শিকার হন যশিকা। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, প্রচণ্ড গতিতে গাড়ি চালাচ্ছিল যশিকা। আচমকা নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে উল্টে যায়। প্রায় দুমড়েমুচড়ে গিয়েছে গাড়িটি। যশিকা ছাড়াও তার তিনজন বন্ধু ছিল গাড়িতে।

আরও পড়ুন


আবারও মা হতে যাচ্ছেন ঐশ্বরিয়া?

নেত্রকোনায় গেল ২৪ ঘণ্টায় ৩ জনের মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ৯৫

‘ইরানের বিরুদ্ধে ট্রাম্পের চাপ প্রয়োগের নীতি শোচনীয়ভাবে ব্যর্থ হয়েছে’

বাগেরহাটে করোনায় আরো ২ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ১০১


সূত্রের খবর, ঘটনাস্থলেই যশিকার এক বান্ধবীর মৃত্যু হয়েছে। বাকিদের উদ্ধার করতে ঘটনাস্থলে ছুটে গিয়েছিলেন স্থানীয়রা। কিন্তু গাড়ির ভিতরে তারা এমনভাবে আটকে ছিলেন, পুলিশ কিংবা দমকল ছাড়া উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি।

আহতদের স্থানীয় হাসপাতালে পাঠানো হয়েছিল। সেখানেই আপাতত প্রত্যেকের চিকিৎসা চলছে বলে জানা গিয়েছে।

প্রাথমিক তদন্তের পর পুলিশের অনুমান, মদ্যপান করে গাড়ি চালানোর জন্যই এই দুর্ঘটনা ঘটেছে।

প্রসঙ্গত, এই প্রথম নয় ২০১৯ সালেও এমন ঘটনা ঘটেছিল। সেই সময়ও বন্ধুদের সঙ্গে গাড়িতে করে যাচ্ছিলেন যশিকা। এক ডেলিভারি বয়কে ধাক্কা মেরেছিল গাড়িটি। তখনও মদ্যপ অবস্থায় গাড়ি চালানোর অভিযোগ উঠেছিল এ অভিনেত্রীর বিরুদ্ধে।

news24bd.tv এসএম

পরবর্তী খবর

দাম্পত্য বিষাক্ত হতে শুরু করলে বেরিয়ে আসা উচিত: নুসরাত

অনলাইন ডেস্ক

দাম্পত্য বিষাক্ত হতে শুরু করলে বেরিয়ে আসা উচিত: নুসরাত

নারী অধিকার নিয়ে এবার সরব হলেন টালিউড অভিনেত্রী নুসরাত জাহান। জবাব দিলেন তাকে নিয়ে ব্যঙ্গ, বিদ্রুপ ও ঘৃণার।

এই অভিনেত্রী-সাংসদ আনন্দবাজারকে বলেন, দাম্পত্য বিষাক্ত হতে শুরু করলে সেখান থেকে বেরিয়ে আসা উচিত। তার মতে, কেবলমাত্র সমাজের চোখরাঙানির ভয়ে প্রতিবাদ না করলে নিজে ভাল থাকা যাবে না। সম্প্রতি নারীদের ক্ষমতায়ন নিয়ে কথা বললেন নুসরাত।

নুসরাত বললেন, ‘‘আমার লড়াই আমাকেই লড়তে হবে। কেউ কারও হয়ে গলা তুলবে না। এখন যদি লোককে দেখানোর জন্য ছলনার আশ্রয় নিয়ে মিথ্যে জীবন যাপন করি, স্বামী অত্যাচার করলেও সমাজের ভয়ে চুপ থাকি, লোকের সামনে স্বামীর ভাবমূর্তি রক্ষা করার জন্য আওয়াজ না তুলি, তবে নিজের জীবনটা কোথাও যেন হারিয়ে যাবে। নিজেদের ক্ষতগুলোকে লুকিয়ে রাখতে রাখতে মহিলারা নিজস্বতা হারিয়ে ফেলবে।’’


আরও পড়ুন:

অবশেষে ঘুচলো ৯৭ বছরের সোনার আক্ষেপ

রাজশাহী মেডিকেলে করোনায় ১০ ও উপসর্গে ১১ জনের মৃত্যু

কখন লকডাউন বাড়ানো লাগবে না জানালেন তথ্যমন্ত্রী

১০ আগস্ট থেকে বিদেশি মুসল্লিদের জন্য চালু হচ্ছে পবিত্র ওমরাহ


পিতৃতান্ত্রিক সমাজের দায়ভারের কথাও বললেন নুসরাত। নুসরাতের মতে, পুরুষরা মহিলাদের সম্মান করবেন কিনা, তার প্রাথমিক শিক্ষা আসা উচিত পরিবার থেকে। মা-বাবারা যদি তাদের ছেলেদের এই শিক্ষা দেন, তা হলে সমাজে অনেক কিছুই সংশোধনের দিকে যাবে। তেমনই ভাবে অভিভাবকদেরকে নুসরতের পরামর্শ, কন্যাসন্তান হলে তাকে বোঝানো উচিত, সমাজের ভয়ে মাথা নত করা ঠিক নয়।

news24bd.tv/ নকিব

পরবর্তী খবর

আবারও মা হতে যাচ্ছেন ঐশ্বরিয়া?

অনলাইন ডেস্ক

আবারও মা হতে যাচ্ছেন ঐশ্বরিয়া?

বলিউড সুন্দরী ঐশ্বরিয়া রাই বচ্চন। নিজের সৌন্দর্য আর অভিনয় দক্ষতায় জয় করেছেন কোটি দর্শকের হৃদয়। সম্প্রতি খুব বেশি সিনেমায় দেখা না গেলেও এই বলি কুইনের নাম মাঝে মধ্যেই উঠে আসে শিরোনামে।

এবার বি-টাউনের এই সুন্দরীকে নিয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে গুঞ্জন উঠেছে ফের মা হতে চলেছেন ঐশ্বরিয়া রাই বচ্চন। নেট ‍দুনিয়ায় এনিয়ে চলছে আলোচনা।

ঐশ্বরিয়া গত রোববার নিজের ফেসবুকে পেজে বেশ কয়েকটি ছবি পোস্ট করেছেন। মূলত তার পর থেকেই অভিনেত্রীর অন্তঃসত্ত্বা হওয়ার গুঞ্জন শুরু হয়েছে। তাকে রীতিমতো শুভেচ্ছা জানাতে শুরু করেছেন ভক্তরা।

তবে মা হওয়ার বিষয়ে এখনও কোনো মন্তব্য করেননি ঐশ্বরিয়া। 

জানা গেছে, তামিল পরিচালক মণি রত্নমের ‘পননিয়ান সেলভান’-এর কাজ শুরু হয়েছে। সেখানে সিনেমার দুই কেন্দ্রীয় নারী ঐশ্বরিয়া রাই ও লক্ষ্মী তামিলনাড়ুর পন্ডিচেরিতে সেটে যোগ দিয়েছেন।

এ সিনেমায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকায় রয়েছেন শরৎ কুমার। সম্প্রতি অভিষেক বচ্চন সিনেমাটির শুটিং সেটে যান। সেখানে শরৎ কুমার এবং তার মেয়ে বড়লক্ষ্মী ও পূজার সঙ্গে ছবি তোলেন তারকা দম্পতি।

আরও পড়ুন


নেত্রকোনায় গেল ২৪ ঘণ্টায় ৩ জনের মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ৯৫

‘ইরানের বিরুদ্ধে ট্রাম্পের চাপ প্রয়োগের নীতি শোচনীয়ভাবে ব্যর্থ হয়েছে’

বাগেরহাটে করোনায় আরো ২ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ১০১

ঢাকায় এতো যে ‘ড্রাই ক্লিনার্স’ সেগুলোর কাপড় ধোওয়া হয় কোথায়?


সেই ছবি ভাইরাল হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে ঐশ্বরিয়ার অন্তঃসত্ত্বা হওয়ার গুঞ্জন শুরু হয়। ভক্তরা ভাবছেন, ঐশ্বরিয়া দ্বিতীয় সন্তানের মা হতে চলেছেন। তাদের চোখে নাকি হালকা বেবি বাম্পও ধরা পড়েছে। কেউ কেউ তো আগ বাড়িয়ে অভিনন্দনও জানিয়েছেন।

এর আগেও অন্তঃসত্ত্বার গুঞ্জনে শিরোনাম হয়েছিলেন ঐশ্বরিয়া। গোয়া ভ্রমণের সময় তার দ্বিতীয় বার অন্তঃসত্ত্বা হওয়ার গুঞ্জন ওঠে। যদিও পরে তার মুখপাত্র জানান, ছবি তোলার অ্যাঙ্গেলের কারণেই এমনটা মনে হয়েছে, গুঞ্জন সত্য নয়।

২০০৭ সালে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন ঐশ্বরিয়া ও অভিষেক। ২০১১ সালে তাদের কন্যাসন্তান আরাধ্যার জন্ম হয়। সূত্র: বলিউড বাবল। 

news24bd.tv এসএম

পরবর্তী খবর

নির্মাতাকে বাসায় ডেকে সাইনিং মানি ফেরত দিলেন পূর্ণিমা

অনলাইন ডেস্ক

নির্মাতাকে বাসায় ডেকে সাইনিং মানি ফেরত দিলেন পূর্ণিমা

প্রতি ঈদেই একাধিক নাটকে দেখা যায় জনপ্রিয় চিত্রনায়িকা পূর্ণিমাকে। তবে এর ব্যতিক্রম ঘটেছে এবারের ঈদুল আজহায়।

এই ঈদে ৩-৪টি নাটকে কাজ করার কথা থাকলেও শেষ পর্যন্ত নাটকগুলোতে অভিনয় করতে পারেননি তিনি। এমনকি একটি নাটকে অভিনয়ের জন্য অগ্রিম হিসেবে নেয়া সাইনিং মানিও নির্মিতাকে বাসায় ডেকে ফেরত দিয়েছেন। 

এ বিষয়ে পূর্ণিমা বলেছেন, ‘জুলাইয়ের প্রথম বা দ্বিতীয় সপ্তাহে আমার যুক্তরাষ্ট্রে বেড়াতে যাওয়ার কথা ছিল। আর সে কারণেই ঈদুল আজহায় ৩-৪টি নাটকে কাজ করার কথা থাকলেও তা থেকে সরে আসি। 

 

তিনি বলেন,  নাটকগুলোর একটির জন্য সাইনিং মানিও নেয়া ছিল। এমনকি সময় দিতে পারব না দেখে ঈদের সপ্তাহ দুয়েক আগে এক পরিচালককে বাসায় ডেকে সাইনিং মানি ফেরত দিয়ে দেই। বাকিদের কাছেও সরি বলেছি। 


আরও পড়ুন:

অবশেষে ঘুচলো ৯৭ বছরের সোনার আক্ষেপ

রাজশাহী মেডিকেলে করোনায় ১০ ও উপসর্গে ১১ জনের মৃত্যু

কখন লকডাউন বাড়ানো লাগবে না জানালেন তথ্যমন্ত্রী

১০ আগস্ট থেকে বিদেশি মুসল্লিদের জন্য চালু হচ্ছে পবিত্র ওমরাহ


তবে যুক্তরাষ্ট্রে যাওয়ার জন্য নাটকে অভিনয় না করলেও করোনা পরিস্থিতিতে সেখানে যেতে পারেননি তিনি। 

news24bd.tv/ নকিব

পরবর্তী খবর

যারা নাটক বানাচ্ছেন তাদেরকে আরও সচেতন হতে হবে: দিলরুবা ইয়াসমিন রুহি

দিলরুবা ইয়াসমিন রুহি

যারা নাটক বানাচ্ছেন তাদেরকে আরও সচেতন হতে হবে: দিলরুবা ইয়াসমিন রুহি

আমি সব সময় সুন্দর কাজ দেখলে আমার ওয়ালে শেয়ার করি সেটা আমার নিজের কাজ হোক বা অন্য কারো কাজ হোক। ভালো কাজ হলে যেমন প্রশংসা হবে, খারাপ কাজ হলে তেমন সমালোচনা হবে। এটাই স্বাভাবিক।

আমার নিজস্ব অভিজ্ঞতা থেকে বলছি। আমারই ব্যাচমেট একজন ডক্টর বন্ধু, তার একটি মাত্র সন্তান এবং সেটি অটিস্টিক সন্তান। তার সন্তানকে নিয়ে সারাক্ষণই ব্যস্ত সময় কাটায় যেহেতু অটিস্টিক বাচ্চাদের স্পেশল কেয়ার দরকার হয়। ডক্টর বন্ধুটি তার পেশাগত জীবন ত্যাগ করেছে শুধুমাত্র এই বাচ্চাটির জন্য। বাচ্চাকে নিয়ে অনেক সময় সে কোন সামাজিক অনুষ্ঠানে যেতে পারে না। কিন্তু তার এ নিজের বন্ধুবান্ধবরা আড়ালে আবডালে অনেক সময় বাচ্চাকে নিয়ে অনেক ধরনের কথা বলে। এমনকি আমার বন্ধুটির সাথে এ ব্যাপারটা নিয়ে কথা বলে এবং তাকে খোঁচা দিয়ে দেখা গেছে অনেক সময় অনেক ধরনের কথা বলে। বাচ্চাটার জন্য তাকে তার পেশাগত জীবন, সামাজিক জীবন, বন্ধু-বান্ধব অনেক কিছুই ত্যাগ করতে হয়েছে এবং বাচ্চাটির জন্য তার পরিশ্রম, চিকিৎসা ও পড়াশোনার জন্য যে ধরনের আয়োজন করা দরকার তাতেই তার জীবন ব্যস্ত। নিজের জন্য তার আসলে আর কোন আয়োজন বা প্রস্তুতি নেই। এমনকি সে আরেকটি বাচ্চা নেওয়ার কথাও চিন্তা করতে পারে না এই ভেবে যে তাহলে তার এই সন্তানটিকে কে দেখবে।

আমার আরেক বন্ধু তার সন্তান হয়নি। দীর্ঘ ১০ বছর সংসারে তার কোনো সন্তান হয়নি। তাকে নিয়েও আমার বন্ধুবান্ধবদের মধ্যে অনেক কথাবার্তা আছে। একটি সন্তান হয়তোবা তার সকল সমস্যার সমাধান হতে পারে আর। এই সমস্যার সমাধান না হওয়া পর্যন্ত সে তার বন্ধুবান্ধব সামাজিকতা সব কিছুকে বিসর্জন দিয়ে চলছে। একটি বাচ্চা যেন তার আশীর্বাদ হতে পারে।

আরেকজন পরিচিত মানুষকে চিনি যার দু’টো বাচ্চা অটিস্টিক। তাদের দেখে রাখতে হয় বলে তার নিজস্ব পেশাগত জীবনের কোনো অগ্রগতি হয়নি। এবং বাচ্চাদের জন্য তিনি অটিস্টিক স্কুলে চাকরি করেন, যাতে তিনি তার বাচ্চাদের চোখের সামনে রাখতে পারেন। এভাবেই তার জীবন কাটাতে হচ্ছে।

আরও পড়ুন:

পবিত্র কোরআনুল কারিমে বর্ণিত নবীজির নামসমূহ

যে তিনটি কারণে জাহান্নাম অবধারিত

আবারও মুখোমুখি হতে পারে আর্জেন্টিনা-ব্রাজিল

এবার আমার কথা বলি আমি যখন বিয়ে করি এবং ফ্যামিলি প্ল্যান করি- তখন কিন্তু আমার ক্যারিয়ার একদম পিক এ ছিলো। আমি পরপর দু’টো সন্তান নেই এবং তাদের আমার নিজের হাতেই লালন-পালন করি। পুরো পাঁচ-ছয় বছর আমি কোন ধরনের কাজ করতে পারিনি। আমার কোন হেল্পিং হ্যান্ডও ছিল না। আমার শাশুড়ি তার পরিবারের কেউই আমাকে হেল্প করেনি। পেশাগত জীবনের কথা বাদই দিলাম, আমার নিজেরই যত্ন হয়নি। অনেকেই আমাকে বলার চেষ্টা করেছে আমি পেশাগত জীবনে পিছিয়ে পড়েছি। আমার সন্তানদের জন্য আমার অ্যাফোর্ড, সেক্রিফাইসকে অনেকেই এপ্রিশিয়েট করতে পারে না। অনেকের কাছে এগুলো আননেসেসারি।

এই ঘটনাগুলো বলার পেছনে একটাই কারণ প্রত্যেকটা বাবা-মায়ের কিন্তু নিজস্ব একটা জার্নি রয়েছে। কিন্তু স্পেশাল চাইল্ড এর জন্য জার্নিটাতো আরো অনেক কষ্টকর। এগুলো নিয়ে কারো মজা করা, বাজে কথা বলা বা সেভাবে উপস্থাপন করাটা কোনভাবেই উচিত নয়। এগুলো তাদেরকে কষ্ট দেয়। অবশ্য এসব ইস্যু নিয়ে কাজ হবে কিন্তু সেগুলো হতে পারে সচেতনতামূলক, হতে পারে অনেক কিছু সমাধানমূলক, অনেক ধরনের ইনফরমেশন আমরা দিতে পারি। শিল্পী হিসেবে, পরিচালক হিসেবে, লেখক হিসেবে অনেক কিছু করার সুযোগ রয়েছে। সামাজিক কুসংস্কার দূর করা, তাদের প্রপার চিকিৎসা বা শিক্ষাব্যবস্থার সহজ পদ্ধতি জানানো এবং সামাজিক চিন্তা-চেতনা পরিবর্তন করার সুযোগ আমাদের রয়েছে। আমাদের সেদিকে নজর দিতে হবে। যারা নাটক বানাচ্ছেন বা লিখছেন তাদেরকে অনেক সচেতন হতে হবে। এমন কোন কিছুই করা ঠিক নয়, যেটা আমাদের সমাজকে একটা খারাপ প্রভাব দেবে বা আরো দুইটা খারাপ উদাহরণ তৈরি করবে। শিল্পী হিসেবে আমি পেশাগত কাজটা করব কিন্তু যে কাজটা করছি সেটা ঠিক করছি কিনা বা উল্টাপাল্টা মেসেজ দিচ্ছে কিনা- সেটার দিকে আমার খেয়াল রাখতে হবে।

(ফেসবুক থেকে সংগৃহীত)

news24bd.tv রিমু

পরবর্তী খবর