দেশে ৫-জি স্মার্টফোন আনতে একসঙ্গে কাজ করবে ইভ্যালি-রিয়েলমি

অনলাইন ডেস্ক

দেশে ৫-জি স্মার্টফোন আনতে একসঙ্গে কাজ করবে ইভ্যালি-রিয়েলমি

পঞ্চম প্রজন্মের মোবাইল নেটওয়ার্ক তথা ফাইভ-জি সমর্থিত স্মার্টফোন দেশের বাজারে আনতে একসঙ্গে কাজ করবে ইভ্যালি ও রিয়েলমি। কৌশলগত অংশীদার হিসেবে দেশে ফাইভ-জি’র প্রসার ঘটাতে গ্রাহকদের জন্য দেশীয় ই-কমার্স মার্কেটপ্লেস ইভ্যালি এবং বিশ্বের সবচেয়ে দ্রুত বর্ধনশীল স্মার্টফোন ব্র্যান্ড রিয়েলমি একসাথে সুলভমূল্যে ফাইভ-জি স্মার্টফোন নিয়ে আসবে।

নিত্যদিনের অনুষঙ্গ ফাইভ-জি স্মার্টফোন হবে বাংলাদেশের সবার জন্য- এই মূলমন্ত্রকে সামনে রেখে একযোগে কাজ করবে তরুণদের পছন্দের স্মার্টফোন ব্র্যান্ড রিয়েলমি এবং ইভ্যালি। ইতোমধ্যে ক্যানালিসের প্রতিবেদন অনুসারে, রিয়েলমি দেশের শীর্ষ তিন মোবাইল ব্র্যান্ডের একটিতে পরিণত হয়েছে। এরই ধারাবাহিকতায় দেশের বাজারে সুলভমূল্যে ফাইভ-জি স্মার্টফোন নিয়ে আসার লক্ষ্যে সম্প্রতি ইভ্যালি কার্যালয়ে রিয়েলমি এবং ইভ্যালির মধ্যে কৌশলগত সমঝোতা স্মারক সই হয়েছে।

চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে ইভ্যালির চেয়ারম্যান শামীমা নাসরিন এবং রিয়েলমির ব্যবস্থাপনা পরিচালক টিম শাও নিজ নিজ প্রতিষ্ঠানের পক্ষে স্বাক্ষর করেন।

চুক্তি স্বাক্ষর উপলক্ষে ইভ্যালির ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ রাসেল বলেন, আমরা ইভ্যালি এবং রিয়েলমি একত্রে একে অপরকে সহযোগিতা করবো বাংলাদেশে ফাইভ-জি এর বিস্তার ও পরিধি বাড়ানোর জন্য। এর জন্য সব থেকে বেশি যেটা জরুরি সেটা হচ্ছে ফাইভ-জি সমর্থিত স্মার্টফোনের দাম গ্রাহকদের নাগালে নিয়ে আসা। এই কাজটিই করবে ইভ্যালি ও রিয়েলমি।

অন্যদিকে এই অংশীদারিত্ব ও সমঝোতা চুক্তি নিয়ে রিয়েলমি এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক টিম শাও বলেন, আগামী দুই বছরের মধ্যে রিয়েলমি যেসব স্মার্টফোন নিয়ে আসবে, তার মধ্যে ৭০ শতাংশই হবে ফাইভ-জি স্মার্টফোন। আর প্রযুক্তিকরণের এই অগ্রগতিতে নেতৃত্ব দিবে রিয়েলমি। রিয়েলমি স্থানীয় বাজারে ফাইভ-জি স্মার্টফোনের অগ্রদূত হিসেবে কাজ করবে। এই লক্ষ্য অর্জনে সহযোগী হিসেবে ইভ্যালির সাথে একযোগে কাজ করবো আমরা। রিয়েলমির ফাইভ-জি স্মার্টফোন হবে ট্রেন্ডি, ফ্যাশনেবল এবং দুর্দান্ত স্পেসিফিকেশন সম্বলিত। আমরা নিয়ে আসবো প্রতিটি প্রাইজরেঞ্জে সবার জন্য ফাইভ-জি রিয়েলমি স্মার্টফোন।

আরও পড়ুন:


বাব-মা-বোনকে হত্যার পর ৯৯৯-এ ফোন দিয়ে যা বলেছিলো মেহজাবিন

দুর্লভ আবাসিক পাখি ‘জল ময়ূর’

কাপুরুষোচিত হামলা চালিয়ে ইসরাইলি সেনাদের মনোবল চাঙ্গা হবে না: হামাস

বিবস্ত্র করা ছবি তুলে ফাঁদে ফেলে প্রবাসীর স্ত্রী, মামলায় আ.লীগ নেতাও আসামি


চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে ইভ্যালির চীফ মার্কেটিং অফিসার আরিফ আর হোসেন, চীফ অপারেটিং অফিসার এইচ এম তারিকুল কামরুলসহ উভয় প্রতিষ্ঠানের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন ।

উল্লেখ্য, রিয়েলমি ২১টি দেশে ১৪টি মডেলের ফাইভ-জি ডিভাইস উন্মোচন করেছে। সম্প্রতি রিয়েলমি; জিএসএম, কাউন্টারপয়েন্ট রিসার্চ এবং কোয়ালকমের এর সহযোগিতায় বিশ্বব্যাপী ফাইভ-জি শীর্ষক সম্মেলনের আয়োজন করেছে। রিয়েলমি আগামী তিন বছরের মধ্যে ১০ কোটি তরুণ গ্রাহকদের জন্য ফাইভ-জি স্মার্টফোন নিয়ে আসবে। এ লক্ষ্যে রিয়েলমি বিশ্বজুড়ে সাতটি গবেষণা ও উন্নয়ন কেন্দ্র স্থাপনের কাজ করছে। একই সাথে বিশ্বজুড়ে ফাইভ-জি প্রযুক্তির প্রসারে ২০২১ সালে এই প্রযুক্তির গবেষণা ও পণ্যের উন্নয়নের ৩০ কোটি মার্কিন ডলার বিনিয়োগের পরিকল্পনাও রয়েছে রিয়েলমির।

news24bd.tv নাজিম

পরবর্তী খবর

ডুমুরিয়ায় গড়ে তোলো হলো হাইজেনিক সুপার মার্কেট

অনলাইন ডেস্ক

নেদারল্যান্ডস সরকারের আর্থিক সহায়তায় বাংলাদেশর সরকারের সরাসরি তত্বাবধানে খুলনায় ডুমুরিয়ায় প্রত্যন্ত গ্রামে গড়ে তোলা হয়েছে হাইজেনিক সুপার মার্কেট। 

যেখানে পণ্য নিয়ে সরাসরি উপস্থিত হন কৃষকেরা। আর ন্যায্য মূল্য পেয়ে ভাগ্য বদল করছে বহু খামারি। 

আরও পড়ুন:


এবার তিউনিসিয়ার প্রতিরক্ষামন্ত্রীকে বহিষ্কার করলেন প্রেসিডেন্ট

মাহফুজ আনামের অনৈতিক কর্মকাণ্ডের প্রতিবাদে সম্পাদক পরিষদ থেকে নঈম নিজামের পদত্যাগ

গ্রামীণফোনকে হু্মায়ূন পরিবারের আইনি নোটিশ


news24bd.tv নাজিম

পরবর্তী খবর

মেহেরপুরে ঢেঁড়সের বাম্পার ফলন, বাজার দরও বেশ চড়া

মেহেরপুর প্রতিনিধি:

মেহেরপুরে এবার ঢেঁড়সের বাম্পার ফলন হয়েছে। বাজার দরও বেশ চড়া। এতে আর্থিকভাবে লাভবান হচ্ছেন কৃষকরা। এ কারণে জেলার অন্যান্য চাষিদের মাঝে আগ্রহ বাড়ছে ঢেঁড়স চাষে। 

মেহেরপুর জেলায় চাষীদের কাছে এখন অর্থকরী একটি ফসল ঢেঁড়স। মৌসুমী সবজি হলেও মেহেরপুরে এর উৎপাদন হয় বছর জুড়ে।

আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় মেহেরপুর জেলায় চলতি বছর বিঘাপ্রতি ৪৫-৫০ মণ ঢেঁড়সের ফলন হয়েছে। বর্তমানে জেলার চাষিরাও এখন ঢেঁড়স তোলা ও বিক্রির কাজে ব্যস্ত সময় পার করছেন। বাজার মূল্য ভালো পাওয়ায় অনেক চাষিও এখন ঢেঁড়স চাষে ঝুঁকছেন।

অর্থকরী ফসল হিসেবে ঢেঁড়সের চাহিদা বেশি জানিয়ে বিভিন্ন পরামর্শের কথা জানালেন কৃষি কর্মকর্তা।
কৃষি বিভাগের হিসেবে জেলায় এবার প্রায় ৯০ হেক্টর জমিতে ঢেঁড়সের চাষ হয়েছে।

আরও পড়ুন:


করোনায় ঝালকাঠির আদালতের বিচারকের মৃত্যু!

আগস্ট মাসের দুই দিন বন্ধ থাকবে ব্যাংক

বিভিন্ন জেলায় করোনায় প্রায় দেড় শতাধিক মৃত্যুর

সিলেট বিভাগে করোনায় শনাক্ত ও মৃত্যু নতুন রেকর্ড


news24bd.tv / কামরুল 

পরবর্তী খবর

করোনা : দুদিন সব ব্যাংক বন্ধ থাকবে

অনলাইন ডেস্ক

করোনা : দুদিন সব ব্যাংক বন্ধ থাকবে

দেশে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ অব্যাহতভাবে বাড়তে থাকায় আগামী রোববার ও বুধবার (১ ও ৪ আগস্ট) দেশের সব ব্যাংক বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। এছাড়া আগামী ৫ আগস্ট পর্যন্ত ব্যাংকিং কার্যক্রমের নতুন সময়সূচি নির্ধারণ করা হয়েছে।

আরও পড়ুনঃ


দ. কোরিয়ার কোন গালিও দেয়া চলবে না উত্তর কোরিয়ায়

তালেবানের হাত থেকে ২৪ জেলা পুনরুদ্ধারের দাবি

কাছাকাছি আসা ঠেকাতে টোকিও অলিম্পিকে বিশেষ ব্যবস্থা


 

বুধবার (২৮ জুলাই) বাংলাদেশ ব্যাংকের ডেপুটি গভর্নর আবু ফরাহ মো. নাছের এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

করোনায় বিপাকে নিম্ন ও মধ্যবিত্তরা, বাড়ছে কেবল ঋণের বোঝা

কাজী শাহেদ, রাজশাহী

করোনায় বিপাকে নিম্ন ও মধ্যবিত্তরা, বাড়ছে কেবল ঋণের বোঝা

করোনা প্রভাবে নতুন করে দারিদ্রসীমার নীচে বড় সংখ্যক মানুষ। কর্ম হারিয়ে মানবেতর জীবনযাপন করছেন তারা। এসব মানুষের জীবন-জীবিকা চালিয়ে নেয়ার স্বার্থে নানামুখী উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। 

কিন্তু অর্থনীতিবিদরা বলছেন, দেশে দরিদ্র মানুষের সঠিক কোনো তথ্য ভাণ্ডার না থাকায় বেশিরভাগ মানুষই থেকে যাচ্ছে সহায়তা বলয়ের বাইরে। যা সামনের দিনগুলোয় সমস্টিক অর্থনীতিকে দিতে পারে বড় ধাক্কা।

গাছের ফাঁক গলিয়ে দিনের প্রথম কিরণ ঝিলিক দিয়েছে পূর্ব দিগন্তে। অনাদায়ি ঘুম হিসাবের খাতায় ক্রমশ বাড়ছে। কিন্তু ফুরসৎ নেই নিলুফার কাছে। লকডাউনেও কাজের সন্ধানে তাই গ্রাম ছেড়ে ছুটে আসা শহরে।

ততক্ষণে সূর্যমামা সম্পূর্ণ চোখ মেলেছে। পূর্ণ দৃষ্টিতে সে জগৎ ছুঁয়েছে। কাজের সন্ধানে ছুটে আসা মানুষগুলোর অপেক্ষা পথের ধারে। লকডাউনে নেই কাজ। সংসার চলে না, হাত পাততেও দ্বিধা। অকপট স্বীকারোক্তি কষ্টে চলা মানুষগুলোর।

করোনার প্রভাবে দারিদ্র্যের হার ও মাত্রা দুটোই বেড়েছে। সংক্রমণ রোধে লকডাউন চলতে থাকায় অপ্রাতিষ্ঠানিক খাতে বেকারত্বের হার বেড়েছে।

২০১৬ সালে দারিদ্রের হার ছিল ২৯.৯০ শতাংশ (বিবিএস)। আর ২০২০ সালে তা বেড়ে হয়েছে ৫৫.৫০ শতাংশ (সানেম)। করোনার প্রভাবে এমন পার্থক্য বলছেন, অর্থনীতিবিদরা।

আরও পড়ুন:


কক্সবাজারের উখিয়ায় পাহাড় ধসে ৫ রোহিঙ্গা নিহত

৫ অতিরিক্ত সচিবকে বদলি 

ভারত সফর বাতিল করলেন আফগান সেনাপ্রধান

একজন আইনজীবির মৃত্যু ও আমাদের জন্য বার্তা


সরকার নানা উদ্যোগ নিয়ে পাশে থাকলেও দারিদ্র্যের সঠিক তথ্য ভাণ্ডার না থাকায় বরাদ্দ নিয়েও বৈষম্য তৈরি হচ্ছে। দীর্ঘমেয়াদে কীভাবে পাশে থাকা যায়, এনিয়ে সরকারকে পরিকল্পনা নেয়ার পরামর্শ অর্থনীতিবিদদের।

টিকার নিবন্ধনের মতো, কারা এসময়ে দরিদ্র হয়েছেন, তার একটি ডাটাবেজ তৈরির উদ্যোগ সরকার নিতে পারে-মত অর্থনীতিবিদদের।

news24bd.tv নাজিম

পরবর্তী খবর

রপ্তানি হচ্ছে গরু-মহিষের নাড়ি-ভুঁড়ি

নয়ন বড়ুয়া জয়, চট্টগ্রাম

চট্টগ্রাম বন্দর দিয়েই চীন, হংকং, থাইল্যান্ড ও ভিয়েতনামে রপ্তানি হচ্ছে ওমাসম বা গরু-মহিষের নাড়ি ভুঁড়ি। চট্টগ্রামের একদল তরুণ উদ্যোক্তা ওমাসম বিক্রি করেই এখন আয় করছে কোটি কোটি টাকা। কারণ এক টন ওমাসম বিশ্ববাজারে বিক্রি হয় আট হাজার ডলারে। 

একই সাথে গরুর পিজল যাচ্ছে আমেরিকাসহ চীনে ,যা ককুরের খাদ্য হিসেবে ব্যবহার করছে তারা। প্রতি টন পিজল বিক্রি হয় আট থেকে সাড়ে আট হাজার ডলারে। আর গরুর হাড় ও শিং দিয়েই তৈরি হচ্ছে বোতামসহ বিভিন্ন ধরণের শোপিস। 

গরুর তৃতীয় পাকস্থলীর স্থানীয় নাম সাতপাল্লা। যা চীনসহ বিশ্ববাজারে ওমাসম নামে পরিচিত।গরু জবাইয়ের পর এক সময় নদী খালে ফেলে দেওয়া হতো এসব উচ্ছিষ্ট। যা পরিবেশও দূষণ করতো। কিন্তু বিশ্বের বিভিন্ন দেশে এসব পণ্যের কদর রয়েছে জেনে এখন নিয়মিত রপ্তানি করছেন চট্টগ্রামের তরুণ উদ্যোক্তারা।

আরও পড়ুন:


করোনায় জাবি অধ্যাপকের মৃত্যু

মর্মান্তিক মৃত্যুর ঠিক আগ মুহূর্তে ছবি তোলেন তিনি

সিলেট-৩ আসনের উপনির্বাচনে ভোটগ্রহণ স্থগিত


এক টন ওমাসম রপ্তানিতে আয় হয় আট হাজার ডলার। গরুর পেনিস বা পিজলের চাহিদাও বেড়েছে আমেরিকা ,চীনসহ আরো কয়েকটি দেশে। প্রক্রিয়াজাত  প্রতি টন পেনিস বিশ্ববাজারে বিক্রি হচ্ছে আট থেকে সাড়ে আট হাজার ডলারে।

এদিকে, গরুর হাড় শিং দিয়েই দেশে তৈরি হচ্ছে বোতামসহ নানান ধরণের শোপিস। এসব পণ্য রপ্তানি হওয়ার পাশাপাশি হাড় শিংও যাচ্ছে বিদেশে। করোনা সংকটেও গেল অর্থবছরে ৩২০ কোটি টাকার ওমাসম রপ্তানি করেছে বাংলাদেশ।

news24bd.tv নাজিম

পরবর্তী খবর