হুইপ সামশুলের পরিবারের কাছে পটিয়ার মাটি-বালিও নিরাপদ নয়: নাছির

নিজস্ব প্রতিবেদক

হুইপ সামশুলের পরিবারের কাছে পটিয়ার মাটি-বালিও নিরাপদ নয়: নাছির

পটিয়ার মাটি বালিও হুইপ সামশুল হক চৌধুরীর পরিবারের কাছে নিরাপদ নয় বলে মন্তব্য করেছেন চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সংস্কৃতি বিষয়ক সম্পাদক ও বিজিএমইএ’র সাবেক সহ-সভাপতি মোহাম্মদ নাছির।

শুক্রবার (১৮ জুন) রাত সাড়ে ৯টায় পটিয়ার একটি রেস্টুরেন্টে পটিয়া উপজেলায় কর্মরত সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে এ কথা বলেন তিনি।

মোহাম্মদ নাছির বলেন, হুইপ পরিবার পটিয়া উপজেলাকে দেশের একটি বির্তকিত উপজেলায় পরিণত করেছে। পটিয়াতে আওয়ামী লীগ সরকার চারদিকে উন্নয়নের জন্য বরাদ্দ দিচ্ছে। কিন্তু হুইপ পরিবার উন্নয়নের প্রতিটি কাজে দুর্নীতি ও দুর্বৃত্তায়ন করছে। পটিয়ার ১ হাজার ১৫৬ কোটি টাকার উন্নয়ন প্রকল্পটি সেনাবাহিনীর তত্ত্বাবধানে বাস্তবায়ন করার দাবি পটিয়াবাসীর।

তিনি বলেন, রাজনীতিতে ভিন্নমত থাকতে পারে। তাই বলে এই নয় যে, পটিয়ার মাটিতে আর কেউ আওয়ামী লীগের রাজনীতি করতে পারবে না। পটিয়াজুড়ে হুইপ পরিবারের বিরুদ্ধে মানুষ সোচ্চার হয়েছে। তাদের পরিবারের অনিয়ম দুর্নীতির বিরুদ্ধে মাঠে ঘাটে আন্দোলন হচ্ছে। পটিয়াকে যারা কলঙ্কিত করেছে তাদের কখনো পটিয়াবাসী ক্ষমা করবে না। আজ পটিয়ার মানুষ পরিবর্তন চায়।
 
পটিয়ার বীর মুক্তিযোদ্ধারা নিরাপত্তায়হীনতায় ভুগছেন জানিয়ে নাছির বলেন, জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান বীর মুক্তিযোদ্ধারা সবসময় শ্রদ্ধার পাত্র। হুইপ পরিবারের কাছে জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান মুক্তিযোদ্ধারা পর্যন্ত নিরাপদ নয়। পটিয়াতে আওয়ামী লীগের রাজনীতির নামে দুর্বৃত্তায়ন চলছে। পটিয়া আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা শামসুদ্দিন আহমেদকে হুইপ পরিবার থেকে লুঙ্গি খুলে পেটানোর হুমকি দেওয়া হয়েছে। মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মান দেওয়া আমাদের নৈতিক দায়িত্ব। কেউ যদি তাদের অসম্মান করে তার প্রতিবাদ করাও প্রতিটি জনগণের নৈতিক দায়িত্বের মধ্যে পড়ে। অবিলম্বে মুক্তিযোদ্ধা শামসুদ্দিন আহমদকে হুমকি দাতাদের আইনের আওতায় এনে শাস্তির ব্যবস্থা করতে হবে।  

পটিয়া উপজেলার সাংবাদিকদের কন্ঠরোধ করা হয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, যেকোন অনিয়ম দুর্নীতি ও দুর্বৃত্তায়নের বিরুদ্ধে পটিয়ার সাংবাদিকদের কলম ধরার জন্য অনুরোধ জানাই। পটিয়াতে কর্মরত সাংবাদিকদের ভয়কে দূর করে যেকোনো অনিয়মের বিরুদ্ধে সংবাদ করতে হবে। সাংবাদিক রোজিনা ইসলাম কারো প্রলোভনে না পড়ে অনিয়ম দুর্নীতির বিরুদ্ধে কলম ধরেছিলেন। তাকেও কণ্ঠরোধ করার অপচেষ্টা করেছে। কিন্তু সাংবাদিক সমাজ সোচ্চার এবং সাহসী প্রতিবাদ করায় জেল থেকে মুক্তি পেয়েছেন। বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকার মিডিয়াবান্ধব, তাই আপনাদের যেকোনো প্রয়োজনে পাশে থাকতে চাই। সর্বোপরি পাঠকদের রুচি এবং প্রত্যাশা অনুযায়ী স্বাধীনতা বজায় রেখে সংবাদ পরিবেশনের প্রত্যাশা রইল।

এসময় আরও উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের প্রবীণ নেতা এম এ জাফর, মাস্টার সিরাজুল ইসলাম, মোজাহেরুল ইসলাম চৌধুরী, মুক্তিযোদ্ধা মোজাম্মেল হক, জেলা আওয়ামী লীগ নেতা সেলিম নবী, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মো. নাছির উদ্দীন, নাজিম উদ্দীন ও মহিউদ্দিন মহিসহ প্রমুখ।

news24bd.tv নাজিম

পরবর্তী খবর

পটিয়ায় যুবলীগ নেতা বদিউল আলমের উদ্যোগে ত্রাণ বিতরণ

অনলাইন ডেস্ক

পটিয়ায় যুবলীগ নেতা বদিউল আলমের উদ্যোগে ত্রাণ বিতরণ

পটিয়া উপজেলাের কুসুমপুরা ইউনিয়নের তিন ওয়ার্ডে ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ করেছেন কেন্দ্রীয় যুবলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মুহাম্মাদ বদিউল আলম।

আজ শোকাবহ আগস্টের চতুর্থ দিন। ১৫ ই আগস্টের শহীদের আত্মার মাগফেরাত কামনায় ও করোনার আপদকালীন সময়ে ধারাবাহিক ত্রাণ সহায়তায় অংশ হিসেবে পটিয়ার কুসুমপুরা ইউনিয়নের ৭/৮/৯নং ওয়ার্ডের জনসাধারণের মাঝে ত্রাণ সহায়তা প্রদান করেন কেন্দ্রীয় যুবলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মুহাম্মাদ বদিউল আলম।

এসময় উপস্থিত জনগণের উদ্দেশ্যে মুহাম্মদ বদিউল আলম বর্তমান সরকারের বিভিন্ন উন্নয়নের বিষয় তুলে ধরে বলেন, রাষ্ট্র নায়ক শেখ হাসিনার উন্নায়ন বান্ধব নীতির কারণে বাংলাদেশ আজ বিশ্বের রোল মডেলে পরিণত হয়েছে। এক সময় তলাবিহীন ঝুড়ি বলে যে দেশ কে কটাক্ষ করা হতো সেই দেশের রিজার্ভ আজ ৪০বিলিয়ন ডলার ছাড়িয়েছে। নানামুখী ষড়যন্ত্র উপেক্ষা করে পদ্মা সেতু আজ বাস্তবে রূপ নিয়েছে। আপনারা জানেন করোনা ভাইরাসের প্রকোপে সারা পৃথিবীর অর্থনীতি যখন বিপর্যস্ত, তার মধ্যে ও বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে। আপদকালীন একটা সময় পার করছে পুরো পৃথিবী। এই আপদকালীন সময়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনায় বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা জনগণের সেবায় জনগণের পাশে আছে।

বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের চেয়ারম্যান শেখ পরশ মহোদয়ের সার্বিক নির্দেশনয়ায় আমি বিগত ডিসেম্বর মাসের প্রথম দিন থেকেই আমি চট্টগ্রামের বিভিন্ন উপজেলার ইউনিয়ন ওয়ার্ড় পর্যায়ে যুবলীগের নেতা কর্মীদের নিয়ে মানুষের পাশে থেকে মানুষের জন্য কাজ করে যাচ্ছি।

কুসুমপুরা ইউনিয়নের  ৭, ৮ ও ৯নং ওয়ার্ড়ের জনগণের মাঝে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য সহ ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ করা হয়।

পটিয়া উপজেলা যুবলীগ নেতা মো. শাহাবুদ্দীন সাদির সভাপতিত্বে এতে বিশেষ অতিথি ছিলেন পটিয়া উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ও আওয়ামী লীগ নেতা মোহাম্মদ সাহাব উদ্দিন, আওয়ামী লীগ নেতা শাহজাহান চৌধুরী, যুবলীগ নেতা ডিএম জমির উদ্দিন, কৃষক লীগ নেতা মুহাম্মাদ আবু সৈয়দ, মৎস্যজীবী লীগ নেতা সাইফুল ইসলাম, শ্রমিক লীগ নেতা মোহাম্মদ ইসহাক, যুবলীগ নেতা রিটন বড়ুয়া, ছাত্রলীগ নেতা আজিজুল হক মানিক, মোহাম্মদ সাইফুল ইসলাম জুয়েল, সাজ্জাদ হোসাইন। 

পরবর্তী খবর

নোয়াখালীতে ১২’শ পরিবহণ শ্রমিককে ত্রাণ বিতরণ

নোয়াখালী প্রতিনিধি:

নোয়াখালীতে ১২’শ পরিবহণ শ্রমিককে ত্রাণ বিতরণ

চলমান লকডাউনে কর্মহীন হয়ে পড়া নোয়াখালীর ১২’শ পরিবহন শ্রমিকদের মাঝে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পক্ষ থেকে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেছে জেলা প্রশাসন। বুধবার দুপুরে জিলা স্কুল মিলনায়তনে শ্রমিকদের মাঝে এ খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেন জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ খোরশেদ আলম খান।

জেলা প্রশাসক জানান, লকডাউন যতদিন চলবে ততদিন কর্মহীনদের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করা হবে। এ ছাড়া ৩৩৩ এর মাধ্যমে সহায়তা দিচ্ছে জেলা প্রশাসন। এর বাহিরে প্রত্যেক উপজেলা নির্বাহী অফিসারের মাধ্যমে কর্মহীনদের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ অব্যাহত রয়েছে। 

এ সময় উপস্থিত ছিলেন, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) মো. নাজিমুল হায়দার, সদর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা ফারহানা জাহান উপমা, সদর উপজেলার সহকারি কমিশনার (ভূমি) ফাতিমা সুলতানা, জেলা তথ্য কর্মকর্তা আবদুল্লাহ আল মামুন, জেলা প্রশাসনের সহকারি কমিশনার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট দেবাশীষ অধিকারী প্রমুখ।

আরও পড়ুন:


পরিমনির সরাসরি লাইভ দেখুন

চিত্রনায়িকা পরীমণি আটক হচ্ছেন!

পরীমণির বাসায় অজ্ঞাত ব্যক্তিদের হামলার দাবি, আতঙ্কে নায়িকা

পরীমণির বাসায় র‍্যাবের অভিযান, লাইভ শেষ


news24bd.tv / কামরুল 

পরবর্তী খবর

জামিনে থাকা আসামিকে খুন!

অনলাইন ডেস্ক

জামিনে থাকা আসামিকে খুন!

জমি নিয়ে বিরোধের জেরে দুই পক্ষের মধ্যে মারামারির ঘটনায় এক পক্ষ অপর পক্ষের বিরুদ্ধে হত্যাচেষ্টার মামলায় ১২ জনকে অভিযুক্ত করা হয়। এর প্রায় তিন মাস পর জামিনে থাকা  দুই নম্বর অভিযুক্ত সুমন আকন্দকে (৩০) খুন করে বাদী পক্ষের লোক। 

আজ বুধবার সকালে ময়মনসিংহের নান্দাইল উপজেলা রসুলপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে । খবর পেয়ে থানা থেকে পুলিশ গিয়ে দুপুর আড়াইটার দিকে নিহতের বাড়ি থেকে লাশ উদ্ধার করে নিয়ে যায়।

আরও পড়ুন

প্রসূতিদের টিকা নিয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নতুন তথ্য

আর্থিক সংকট মেটাতে বাড়ি ভাড়া দিচ্ছে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী

চিত্রনায়িকা পরীমণি আটক হচ্ছেন!

পরীমণির বাসায় অজ্ঞাত ব্যক্তিদের হামলার দাবি, আতঙ্কে নায়িকা

news24bd.tv/এমিজান্নাত 

পরবর্তী খবর

নরসিংদীতে সাংবাদিক পরিচয়ে মুক্তিযোদ্ধাকে হুমকি, প্রতিবাদে মানববন্ধন

মো. হৃদয় খান, নরসিংদী

নরসিংদীতে সাংবাদিক পরিচয়ে মুক্তিযোদ্ধাকে হুমকি, প্রতিবাদে মানববন্ধন

নরসিংদীর মনোহরদীতে সাংবাদিক পরিচয়ে আব্দুল মান্নান ঢালী নামে এক যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধার ভাতা বন্ধ করে দেওয়ার হুমকী এবং সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সম্মানহানীর প্রতিবাদে মানববন্ধন করা হয়েছে।

বুধবার উপজেলার বড়চাপা ইউনিয়নের চরতারাকান্দী বাজারে মানববন্ধনের আয়োজন করেন মুক্তিযোদ্ধা, মুক্তিযোদ্ধা প্রজন্ম ও এলাকাবাসী। মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মান্নান বড়চাপা ইউনিয়নের চরতারাকান্দী গ্রামের বাসিন্দা।

তিনি স্বাধীনতা যুদ্ধের গ্রুপ কমান্ডার এবং উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার ছিলেন। কথিত ওই সাংবাদিকের নাম কাজী শরিফুল ইসলাম শাকিল। সে নাম সর্বস্ব একটি অনলাইন পোর্টালের সম্পাদক বলে জানা গেছে।

এসময় বক্তারা বলেন, কথিত সাংবাদিক শাকিল একজন প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধাকে ভূয়া মুক্তিযোদ্ধা বলে অসম্মান ও অপমান করেছে। সে তার ভাতা বন্ধ করে দেওয়ার হুমকী দিয়েছে। সে একজন রাজাকারের ছেলে। আমরা তার দৃষ্টান্তমূলক বিচার চাই।

মানববন্ধনে বক্তব্য দেন- বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মান্নান ঢালী, বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুস সাত্তার, মুক্তিযোদ্ধার সন্তান কাউসার রশিদ বিপ্লব, স্থানীয় ইউপি সদস্য জুলহাস উদ্দিন প্রমূখ।

এর আগে এ ঘটনায় মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মান্নান ঢালী নরসিংদী জেলা প্রশাসকের কাছে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। পুলিশ সুপার, জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের কমান্ডার ও নরসিংদী প্রেসক্লাবে এই অভিযোগের অনুলিপি দেওয়া হয়েছে।

এ বিষয়টি মনোহরদীসহ নরসিংদীতে প্রধান আলোচ্য বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে। বিভিন্ন মহলে তীব্র ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অভিযুক্ত সাংবাদিকের বিচার দাবি করেছেন নেটিজেনরা।

অভিযোগে আব্দুল মান্নান ঢালী উল্লেখ করেন, ১৫ জুলাই দুপুরে কাজী শরিফুল ইসলাম শাকিলের ব্যক্তিগত মুঠোফোন থেকে মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মান্নান ঢালীর মুঠোফোনে একটি কল আসে। এ সময় শাকিল বলে, আপনার (মান্নান ঢালী) বিরুদ্ধে অভিযোগ আছে। আপনার মুক্তিযোদ্ধার সম্মানী ভাতা বন্ধ করে দেওয়া হবে। অতি তাড়াতাড়ি আমার (শাকিল) সঙ্গে দেখা করেন। তার কথা মতো ওই দিন উপজেলা পরিষদের সামনে গিয়ে তাকে ফোন দিলে তিনি নিজেকে সাংবাদিক কাজী শরিফুল ইসলাম শাকিল বলে পরিচয় দেয়। এছাড়া তিনি মনোহরদী প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক বলেও পরিচয় দেন তিনি। এসময় দ্রুত মনোহরদী প্রেসক্লাব কার্যালয়ে গিয়ে তার সঙ্গে দেখা করার জন্য বলা হয়। আমি সেখানে গিয়ে দেখা করার পর তিনি জানান আমি নাকি ভুয়া মুক্তিযোদ্ধা। আমার মুক্তিযোদ্ধার ভাতা বন্ধ করে দিবে বলে হুমকী ও ভয়ভীতি দেখানো হয়। এতে আমি মানষিকভাবে ভেঙে পড়ি।

একটি কুচক্রী মহল সামাজিকভাবে হেয় প্রতিপন্ন করার জন্য আমার বিরুদ্ধে এ ধরণের ষড়যন্ত্র করে আসছে। 

এর আগেও ২০১৭ সালে একই যুবকের বিরুদ্ধে একজন মুক্তিযোদ্ধাকে হয়রানি ও তাঁর কাছে চাঁদা দাবির অভিযোগে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম এবং বিভিন্ন গণমাধ্যমে খবর প্রকাশিত হয়েছিল। ওই সময় তিনি নিজেকে সাংবাদিক, আইনজীবী পরিচয় দিয়ে চালাকচর ইউনিয়নের হাফিজপুর গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা মো. সাফিউদ্দিনকে হয়রানি করছেন বলে অভিযোগ রয়েছে।

এ ছাড়াও তার বিরুদ্ধে নানা হয়রানির অভিযোগ এনে থানায় এবং আদালতে একাধিক অভিযোগ করেছিলেন একই উপজেলার খিদিরপুর ইউপি চেয়ারম্যান মাহবুবুর রহমান জামিল ও মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মতিন।

স্থানীয়রা জানান, শাকিল মাদক ও আইসিটি আইনের দুই মামলায় গ্রেপ্তার হয়ে কিছু দিন কারাগারে ছিলেন।

এ ছাড়া ২০১৪ সালের ৩ সেপ্টেম্বর মনোহরদী থানার সামনে থেকে ডিবি পুলিশ ২৫টি ইয়াবাসহ শাকিলকে গ্রেপ্তার করা হয়েছিল।

পরবর্তী খবর

পানিবন্দি পরিবারকে অনুদান দিল যমুনা ব্যাংক ফাউন্ডেশন

বাগেরহাট প্রতিনিধি :

পানিবন্দি পরিবারকে অনুদান
দিল যমুনা ব্যাংক ফাউন্ডেশন

বাগেরহাটের শরণখোলা উপজেলায় অতিবৃষ্টিতে পানিবন্দি হয়ে পড়া অসহায় ও অতিদরিদ্র পরিবারের মধ্যে খাদ্য সহায়তার জন্য আর্থিক অনুদান প্রদান করেছে যমুনা ব্যাংক ফাউন্ডেশন। 

বুধবার দুপুরে শরণখোলা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা খাতুনে জান্নাতের কাছে তিন লাখ টাকার চেক হস্থান্তর করেন ব্যাংকের ভাইস প্রেসিডেন্ট ও খুলনার আঞ্চলিক প্রধান সাব্বির আহম্মেদ খান।

অনুদান প্রদানকালে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, শরণখোলা উপজেলা চেয়ারম্যান রায়হান উদ্দিন শান্ত, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আজমল হোসেন মুক্তা, ব্যবসায়ী জামাল তালুকদার।

শরণখোলা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জানান, অনুদানের টাকা দিয়ে উপজেলার চারটি ইউনিয়নে পানিবন্দি হয়ে পড়া ও করোনাকালিন অসহায় দরিদ্র পরিবারে শুকনা খাবার, পানি বিশুদ্ধ করন ট্যাবলয়েট ও খাবার স্যালাইন বিতরন করা হবে।

আলহাজ নুর মোহাম্মদ ট্রষ্টের প্রতিষ্ঠাতা এবং যমুনা ব্যাংক ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান আলহাজ নুর মোহাম্মদের ব্যক্তিগত উদ্যোগে এই অর্থ প্রদান করা হয়। 

যমুনা ব্যাংকের ভাইস প্রেসিডেন্ট ও খুলনার আঞ্চলিক প্রধান সাব্বির আহম্মেদ খান বলেন, বর্তমানে সারাদেশে করোনাকালীন অসহায় ও দ্ররিদ্র পরিবারে এভাবে অর্থ সহায়তা প্রদান করে হয়েছে।

আরও পড়ুন


গুনাহ হয়ে গেলে যে দোয়া পড়বেন

যে দুটি খারাপ অভ্যাস ত্যাগের বিনিময়ে জান্নাত

আজ যাদের জন্মদিন


news24bd.tv / কামরুল 

পরবর্তী খবর