সাতক্ষীরার মানুষের জন্য সবাইকে কাজ করতে হবে: ড. কাজী এরতেজা হাসান

অনলাইন ডেস্ক

সাতক্ষীরার মানুষের জন্য সবাইকে কাজ করতে হবে: ড. কাজী এরতেজা হাসান

সাতক্ষীরার প্রতি দায়বদ্ধতা থেকে সকলকে সঙ্গে নিয়ে  সাধারণ মানুষের উপকারে একসঙ্গে কাজ করতে হবে বলে মনে করেন জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি, ভোরের পাতা সম্পাদক ও প্রকাশক এবং এফবিসিসিআই পরিচালক ড. কাজী এরতেজা হাসান, সিআইপি।

শনিবার (১৯ জুন) সন্ধ্যায় ভোরের পাতা সম্পাদকের গুলশান অফিসে সাতক্ষীরা জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সুমন হোসেন দেখা করতে আসলে তাকে এ কথা বলেন ড. কাজী এরতেজা হাসান। এর আগে শুক্রবার সন্ধ্যায় ড. কাজী এরতেজা হাসানের সাথে সাক্ষাত করেন সাতক্ষীরা জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আশিকুর রহমান আশিক।

জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সুমনকেও ড. কাজী এরতেজা হাসান বলেন, করোনাকালীন সময়ে সাতক্ষীরা জেলা ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের পাশে থাকবেন। 

দীর্ঘ সময় ধরে ড. কাজী এরতেজা হাসানের সঙ্গে একান্তে বৈঠক করেন ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সুমন হোসেন। এসময় ড. কাজী এরতেজা হাসান ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদকের নানা সমস্যার কথা শুনেন এবং সেগুলো নিরসনে সর্বোচ্চ সহযোগিতার আশ্বাস দেন। 

বিশেষ করে করোনাকালীন সময়ে ছাত্রলীগের কোনো নেতাকর্মীর বিপদের সময় পাশে থাকবেন। এছাড়া জেলা রাজনীতির নানাদিক নিয়ে কথা বলেন তারা।

আরও পড়ুন


আগামি মাসে পরমাণু সমঝোতা পুনরুজ্জীবনের চুক্তি হতে পারে: রাশিয়া

ভাল থাকুক বিশ্বের সকল বাবা, যেভাবে দিবসটির শুরু

বিএনপি থেকে শফি আহমেদ চৌধুরীকে বহিষ্কার

ইরানের নতুন প্রেসিডেন্ট রায়িসিকে অভিনন্দন জানাল হামাস


ড. কাজী এরতেজা হাসান সাতক্ষীরা জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদকের প্রতি অনুরোধ করে বলেন, সাংগঠনিক কাঠামো অনুযায়ী অতি দ্রুত পূর্ণাঙ্গ করতে হবে। এক্ষেত্রে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর আদর্শের নেতাকর্মীদের মূল্যায়ণ করারও তাগিদ দেন। 

করোনাকালীন সময়ে সাধারণ মানুষের পাশে থাকার জন্য জেলা ছাত্রলীগের সবাইকে আহ্বান জানান ড. কাজী এরতেজা হাসান। 

তিনি আরো বলেন, বর্তমানে সীমান্তবর্তী জেলা হিসাবে সাতক্ষীরাতে অবস্থা বেশ নাজুক। এ পরিস্থিতিতে জেলা ছাত্রলীগ বরাবরের মতোই অগ্রণী ভূমিকা পালন করবে। 

সাক্ষাত শেষে সাতক্ষীরা জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সুমন হোসেনকে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে বাংলাদেশের প্রথম হস্তলিখিত সংবিধান উপহার দেন ড. কাজী এরতেজা হাসান।

news24bd.tv এসএম

পরবর্তী খবর

মোটাতাজাদের বাদ দিয়ে শুকনাদের কমিটিতে আনুন: মির্জা আজম (ভিডিও)

নিজস্ব প্রতিবেদক

আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মির্জা আজম বলেছেন, দলে এখন মোটাতাজা নেতার সংখ্যা বেশি তাই অতীতের অভিজ্ঞতা ও  বর্তমানের সতর্কতা মাথায় রেখে চলতে হবে। মোটাতাজাদের বাদ দিয়ে শুকনাদের কমিটিতে আনুন, তারাই দূর্দিনে পাশে থাকবে।

শেখ কামালের ৭২তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে এক আলোচনা সভায় এসব কথা বলেন তিনি।

এসময় তিনি আরও বলেন, অতীতের অভিজ্ঞতা ও বর্তমান সতর্ক বার্তা যেসব শুনছি সেগুলো আমাদের ধারণ করা উচিত। আমরা ১/১১ দেখেছি। আমাদের অনেক নেতাদের চেহারাও আমরা দেখেছি। আগামীতে হয়তোবা ২/২০ আসছে। তাই আমাদের সতর্ক থাকতে হবে।

news24bd.tv এসএম

আরও পড়ুন


পরীমণি ও রাজসহ ৪ জনকে গ্রেপ্তার দেখিয়েছে র‍্যাব

সাতক্ষীরা মেডিকেলে আরও ৮ জনের মৃত্যু

পরীমণি-পিয়াসার ৩০০ খদ্দের আত্মগোপনে

কামাল বেঁচে থাকলে আরও অনেক কাজ করতে পারতো: প্রধানমন্ত্রী


 

পরবর্তী খবর

শেখ কামাল তরুণ প্রজন্মের কাছে আজও অনুপ্রেরণা : ওবায়দুল কাদের

অনলাইন ডেস্ক

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের বড় ছেলে, মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক এবং ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব শহীদ শেখ কামালের ৭২তম জন্মবার্ষিকী আজ। ১৯৪৯ সালের ৫ আগস্ট তিনি গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় জন্মগ্রহণ করেন।

দিনটি উপলক্ষ্যে বনানী কবরস্থানে শ্রদ্ধা জানিয়েছে আওয়ামী লীগ ও এর সহযোগী সংগঠনগুলো। এ সময় আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেন, শেখ কামাল তরুণ প্রজন্মের কাছে আজও অনুপ্রেরণা হয়েই আছেন। 

এক প্রশ্নের জবাবে ওবায়দল কাদের বলেন, আওয়ামী লীগ অ্যাকশনে বিশ্বাস করে। ভূঁইফোর সংগঠনগুলোকে কোনো রকম ছাড় দেয়া হবে না বলেও জানান তিনি।

আরও পড়ুন:


পাবনায় মেডিকেল ছাত্রীকে খালি সিরিঞ্জ পুশের অভিযোগ

হলি আর্টিজানের ঘটনায় সিনেমা, জাহান কাপুরের অভিষেক

দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টিতেও অস্ট্রেলিয়াকে হারালো টাইগাররা

রাজের বাসায় বিকৃত যৌনাচারের সরঞ্জামাদি,চলত পর্নোগ্রাফি (ভিডিও)


news24bd.tv / কামরুল 

পরবর্তী খবর

শেখ কামালের কবরে প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের শ্রদ্ধা

অনলাইন ডেস্ক

শেখ কামালের কবরে প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের শ্রদ্ধা

জাতির পিতার জ্যেষ্ঠ ছেলে শেখ কামালের ৭২তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে বনানী কবরস্থানে শ্রদ্ধা নিবেদন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও তার দল আওয়ামী লীগ।

বৃহস্পতিবার (৫ আগস্ট) প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পক্ষে কামালের কবরে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। পরে তিনি কেন্দ্রীয় নেতাদের সঙ্গে নিয়ে দলের পক্ষ থেকে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।

শ্রদ্ধা জানানো শেষে ওবায়দুল কাদের বলেন, বাংলাদেশের রক্তাক্ত বিশ্বাসঘাতকতার ইতিহাসের সবচেয়ে কালিমালিপ্ত অধ্যায় ১৯৭৫-এর আগস্ট ট্র্যাজেডি। শেখ কামাল তারুণ্যের অহংকার এবং একজন সৃষ্টিশীল অনন্য প্রতিভার দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবেন।

আরও পড়ুন


৭ সেপ্টেম্বরের মধ্যে সিলেট-৩ আসনের ভোট সম্পন্ন করতে হাইকোর্টের নির্দেশ

আবারও লকডাউন বাড়িয়ে প্রজ্ঞাপন

গণটিকা কার্যক্রম শুরু ৭ আগস্ট নয়, ১৪ আগস্ট থেকে

পর্নোগ্রাফি: আঁচল-নায়লা নাঈম ও শিলাসহ অনেকেই র‍্যাবের নজরদারিতে


কাদের বলেন, বাংলাদেশের ইতিহাসে শেখ কামালের বহুমুখী সৃজনশীল প্রতিভার সৃষ্টি আজকে লক্ষ কোটি তরুণের অন্তরে প্রেরণার প্রদীপ্ত প্রজ্বলিত শিখা হিসেবে যুগে যুগে স্মরণীয় হয়ে থাকবে।

আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক আরও বলেন, বঙ্গবন্ধু হত্যার কলঙ্ক জাতির কপালে কলঙ্কতিলক হিসেবে ছিল। সেই কলঙ্কের কালিমা মুছে বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচার সম্পন্ন করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আলোর পথে যাত্রা শুরু করছেন। সেই আলোর পথের অভিযাত্রী হয়ে আমরা বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা বিনির্মাণ করবো; আজকের দিনে এটাই অঙ্গীকার।

news24bd.tv এসএম

পরবর্তী খবর

আজ শহীদ শেখ কামালের ৭২তম জন্মবার্ষিকী

অনলাইন ডেস্ক

আজ শহীদ শেখ কামালের ৭২তম জন্মবার্ষিকী

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জ্যেষ্ঠ পুত্র, মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক ও ক্রীড়া ব্যক্তিত্ব শহীদ শেখ কামালের ৭২তম জন্মবার্ষিকী আজ (৫ আগস্ট)। ১৯৪৯ সালের এ দিনে গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় জন্মগ্রহণ করেন তিনি।

ছাত্রজীবন থেকেই ক্রীড়াঙ্গন, শিল্প-সংস্কৃতি ও রাজনীতির সঙ্গে নিজেকে সম্পৃক্ত করেছিলেন শেখ কামাল। বহুমাত্রিক প্রতিভার অধিকারী ছিলেন তিনি। বিভিন্ন অঙ্গনে রেখে গেছেন প্রতিভার ছাপ। ১৯৭১ সালে মহান মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেন। স্বাধীনতার পর খেলাধুলা ও শিল্প-সাহিত্যের প্রসারে গড়ে তোলেন বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান।

ঢাকার শাহীন স্কুল থেকে মাধ্যমিক ও ঢাকা কলেজ থেকে উচ্চ মাধ্যমিক পাস করেন শেখ কামাল। এরপর ভর্তি হন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজ বিজ্ঞান বিভাগে। সেখান থেকে বি.এ অনার্স পাস করেন।

তিনি বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের সদস্য ছিলেন। ১৯৬৯-এর গণঅভ্যুত্থান ও ৭১-এর মহান মুক্তিযুদ্ধে যথাযথ ভূমিকা পালন করেন শেখ কামাল।

স্বাধীন বাংলাদেশের প্রথম ওয়ার কোর্সে প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত হয়ে তিনি মুক্তিবাহিনীতে কমিশনন্ড লাভ করেন ও মুক্তিযুদ্ধের প্রধান সেনাপতি জেনারেল ওসমানির এডিসি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

বাংলাদেশের শিল্প, সাহিত্য, সংস্কৃতি অঙ্গনের অন্যতম উৎসমুখ ছায়ানটের সেতার বাদন বিভাগের ছাত্র ছিলেন শেখ কামাল। মঞ্চ নাটক আন্দোলনের ক্ষেত্রে ছিলেন প্রথমসারির সংগঠক। বন্ধু শিল্পীদের নিয়ে গড়ে তুলেছিলেন ‘স্পন্দন শিল্পী গোষ্ঠী’।  

তিনি ছিলেন ঢাকা থিয়েটারের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা। অভিনেতা হিসেবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের নাট্যাঙ্গনে প্রতিষ্ঠিত ছিলেন।

শৈশব থেকে ফুটবল, ক্রিকেট, হকি, বাস্কেটবলসহ বিভিন্ন খেলাধুলায় প্রচণ্ড উৎসাহ ছিল শেখ কামালের। উপমহাদেশের অন্যতম ক্রীড়া সংগঠন আবাহনী ক্রীড়াচক্রের প্রতিষ্ঠাতা ছিলেন তিনি।

১৯৭৫ সালের ১৪ জুলাই দেশবরেণ্য অ্যাথলেট ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘ব্লু’ খ্যাতিপ্রাপ্ত সুলতানা খুকুর সঙ্গে তার বিয়ে হয়। ওই বছরের ১৫ আগস্টের কালো রাত্রিতে স্বাধীনতা বিরোধী ঘাতকরা বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যা করে। মাত্র ২৬ বছর বয়সে বর্বরোচিত হত্যাযজ্ঞের শিকার হন শেখ কামাল।

এ সময় বাংলাদেশ কৃষক শ্রমিক আওয়ামী লীগের অঙ্গ-সংগঠন জাতীয় ছাত্র লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ছিলেন তিনি। পরীক্ষার্থী ছিলেন এম.এ শেষ পর্বের। 

প্রতিবারের ন্যায় এবারও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ এবং সহযোগী সংগঠনগুলো বৃহস্পতিবার (৫ আগস্ট) শহীদ শেখ কামালের জন্মদিন স্বাস্থ্যবিধি মেনে যথাযথ মর্যাদায় পালন উপলক্ষে কর্মসূচি গ্রহণ করেছে।

আরও পড়ুন

আর্থিক সংকট মেটাতে বাড়ি ভাড়া দিচ্ছে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী

চিত্রনায়িকা পরীমণি আটক হচ্ছেন!

পরীমণির বাসায় অজ্ঞাত ব্যক্তিদের হামলার দাবি, আতঙ্কে নায়িকা


 

দিবসটি যথাযথভাবে পালনের জন্য স্বাস্থ্যবিধি মেনে আওয়ামী লীগ সকাল সাড়ে ৮টায় ধানমন্ডি আবাহনী ক্লাব প্রাঙ্গণে শহীদ শেখ কামালের প্রতিকৃতিতে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ করবে। এছাড়া সকাল ৯টা ১৫ মিনিটে বনানী কবরস্থানে চিরনিদ্রায় শায়িত শহীদ শেখ কামালের সমাধিতে শ্রদ্ধা নিবেদন, কোরানখানি, মিলাদ ও দোয়া মাহফিলের আয়োজন করছে।

বিভিন্ন ক্রীড়া ও সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠন যথাযথ মর্যাদায় দিবসটি পালন করতে নানাবিধ কর্মসূচি পালন করবে।

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

বঙ্গবন্ধুকে হত্যার সাথে জড়িতরা এখনো সক্রিয় : প্রাণিসম্পদমন্ত্রী

অনলাইন ডেস্ক

বঙ্গবন্ধুকে হত্যার সাথে জড়িতরা এখনো সক্রিয় : প্রাণিসম্পদমন্ত্রী

১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট জাতির পিতা ও তাঁর পরিবারের সদস্যদের নির্মমভাবে হত্যার সাথে জড়িত শত্রুরা এখনো সক্রিয় বলে মন্তব্য করেছেন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম।

আজ বুধবার জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জ্যোষ্ঠ পুত্র শহিদ শেখ কামালের ৭২তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষ্যে বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোট আয়োজিত এক ভার্চুয়াল আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে মন্ত্রী এ মন্তব্য করেন। 

এ বিষয়ে তিনি আরো বলেন, ১৫ আগস্টের হত্যাকান্ডের প্লট যারা রচনা করেছিল, তারা নিঃশেষ হয়ে যায়নি। তারা এদেশ থেকে এখনো বিনাশ হয়ে যায়নি। কখনো ক্ষমতাসীনদের আশ্রয়ে কখেনো তারা স্বাধীন ফোরাম করে এদেশে থাকে। পঁচাত্তরের শত্রু যারা, তারা একাত্তরের শত্রু, তারা ২১ আগস্টের গ্রেনেড হামলাকারী এবং তারাই ১৯ বার শেখ হাসিনাকে হত্যার চেষ্টা করেছে। তারাই শেখ কামালকে হত্যা করেছে। আমরা সে মানুষগুলোকে এখনো আইনের আওতায় আনতে পারি নি।

শ ম রেজাউল করিম আরো বলেন, বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা ছিলেন বিধায় এতো প্রতিকূলতার ভেতরও বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচার হয়েছে। শেখ হাসিনা না থাকলে এ জাতীয় হত্যাকান্ডের বা ঘটনার বিচার কোনদিন হবে না। জিয়াউর রহমান বঙ্গবন্ধুর খুনিদের 'গো অ্যাহেড' বলে প্রমাণ করেছেন তিনি বঙ্গবন্ধু হত্যাকান্ডের শুধু ষড়যন্ত্রকারীই নন, হুকুমদাতা। এজন্য বঙ্গবন্ধু হত্যাকান্ডে জিয়াউর রহমানের সম্পৃক্ততা নিয়ে নতুন করে একটি সম্পূরক তদন্ত করে সে রিপোর্ট রেকর্ডে রাখা উচিত। এ বিষয়ে উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন বিচার বিভাগীয় তদন্ত হওয়া দরকার, যে তদন্ত কমিশন বঙ্গবন্ধু হত্যা ও ষড়যন্ত্রে কারা কারা জড়িত ছিল তাদের নাম প্রকাশ করবে।

তিনি আরো বলেন, শহিদ শেখ কামাল বাংলাদেশ ও বাঙালি জাতির জন্য সম্পদ ছিলেন। তাঁকে নিষ্ঠুরভাবে হত্যা করা না হলে এ দেশের রাজনীতি, সংস্কৃতি ও ক্রীড়ায় তিনি বিশাল অবদান রাখতে পারতেন। শেখ কামালকে হত্যার মধ্য দিয়ে গোটা জাতিকে ক্ষতিগ্রস্ত করা হয়েছে।

তিনি আরো যোগ করেন, ১৯৭৫ সালের খুনিদের টার্গেট ছিল বঙ্গবন্ধু, তাঁর পরিবার ও স্বজনরা। কারণ তারাই হচ্ছেন মুক্তিযুদ্ধের বাংলাদেশের প্রতিচ্ছবি। খুনিরা ভেবেছিল তাদের মেরে ফেলতে পারলে বাংলাদেশ থেকে মুক্তিযুদ্ধের আদর্শ ও চেতনাকে মেরে ফেলা যাবে। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্টের মতো হত্যাকান্ডেরে নজির পৃথিবীর কোথাও নেই।

বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোটের কার্যকরী সভাপতি রফিকুল আলমের সভাপতিত্বে ও সাংগঠনিক সম্পাদক সুজন হালদারের সঞ্চালনায় ভার্চুয়াল আলোচনায় প্রধান বক্তা হিসেবে অংশগ্রহণ করেন তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী ডা. মোঃ মুরাদ হাসান এমপি। এছাড়া আরো অংশগ্রহণ করেন বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সাবেক সহসভাপতি বলরাম পোদ্দার, বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোটের সাধারণ সম্পাদক অরুন সরকার রানা, সহসভাপতি অরুণা বিশ্বাস, যুগ্ম সম্পাদক তারিন জাহান, শিল্পী দিনাত জাহান মুন্নী প্রমুখ।

আরও পড়ুন

জামিনে থাকা আসামিকে খুন!

প্রসূতিদের টিকা নিয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নতুন তথ্য

আর্থিক সংকট মেটাতে বাড়ি ভাড়া দিচ্ছে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী

পরীমণির বাসায় অজ্ঞাত ব্যক্তিদের হামলার দাবি, আতঙ্কে নায়িকা

news24bd.tv/এমিজান্নাত

পরবর্তী খবর