নদীর ‘নারী পাচার’ চক্রে জড়ানোর কাহিনী

অনলাইন ডেস্ক

নদীর ‘নারী পাচার’ চক্রে জড়ানোর কাহিনী

আন্তর্জাতিক নারী পাচার চক্রের বাংলাদেশের প্রধান সমন্বয়ক নদী আক্তার ওরফে ইতি ওরফে নুর জাহানসহ সাতজনের চারদিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত।

হাতিরঝিল থানার একটি মামলায় আজ মঙ্গলবার ঢাকা মহানগর হাকিম বেগম মাহমুদা আক্তার শুনানি শেষে এ রিমান্ডের আদেশ দেন।

জানা গেছে, মালয়েশিয়ায় পাচার হয়ে যৌন নির্যাতনের শিকার হয়েছিলেন নুরজাহান ওরফে নদী আক্তার ওরফে জয়া আক্তার ওরফে জান্নাত ওরফে ইতি (২৮)। সেখান থেকে দেশে ফিরে নিজেই নারী পাচারকারী চক্রে জড়িয়ে পড়েন। হয়ে ওঠেন ভারতসহ আন্তর্জাতিক মানব পাচারকারী চক্রের সমন্বয়ক।

ভারতের বেঙ্গালুরুতে বাংলাদেশি তরুণী নির্যাতনের ঘটনায় আলোচনায় আসা ‘টিকটক হৃদয় বাবু’র নারী পাচারকারী চক্রের সমন্বয়ক নূরজাহানসহ সাতজনকে গ্রেপ্তার করে হাতিরঝিল থানার পুলিশ।

গতকাল সোমবার সকাল থেকে রাত পর্যন্ত যশোরের শার্শা থানার পাঁচভূলট, বেনাপোল থানার পুটখালী এবং নড়াইল শহরের ডহর রামসিদ্দি এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাঁদের গ্রেপ্তার করা হয়।

তাঁদের কাছ থেকে পাসপোর্ট, ভারতের আধার কার্ড (পরিচয়পত্র), মুঠোফোন, ভারতের সিম কার্ড উদ্ধার করা হয়েছে। তাঁদের প্রত্যেকের ১০ দিনের রিমান্ড চেয়ে আজ মঙ্গলবার আদালতে পাঠানো হয়েছে।

গ্রেপ্তার হওয়া নারী পাচারকারী চক্রের অন্য সদস্যরা হলেন- আল আমিন হোসেন (২৮), সাইফুল ইসলাম (২৮), আমিরুল ইসলাম (৩০), পলক মণ্ডল (২৬), তারিকুল ইসলাম (২৬) ও বিনাশ শিকদার (৩৩)।

আসামিদের পক্ষে আইনজীবী সিরাজুল ইসলামসহ কয়েকজনের রিমান্ড বাতিল চেয়ে জামিন শুনানিতে বলেন, আসামিরা ঘটনার সঙ্গে জড়িত না। তারা এ বিষয়ে কিছুই জানে না। মাঠে-ঘাটে কাজ করে জীবিকা নির্বাহ করে। কাজ করার সময় যশোর এবং নড়াইল থেকে তাদের গ্রেপ্তার করে নিয়ে এসেছে। কাউকে ৭ দিন আবার কাউকে ১৫ দিন আগেও গ্রেপ্তার করেছে। অনেক দিন তারা থানায় ছিল। সেখানে তাদের জিজ্ঞাসা করা হয়েছে। বেশি কিছু জানার হলে জেলগেটে জিজ্ঞাসাবাদ করা হোক। শুনানি শেষে আদালত আসামিদের চারদিন করে রিমান্ডের আদেশ দেন।

মামলায় বলা হয়, আসামিরা পাচারের উদ্দেশ্যে আনা মেয়েদের যশোর সীমান্তে একটি বাড়িতে রেখে সুযোগমতো ভারতে পাচার করত চক্রটি। পাচার করা প্রত্যেক মেয়ের জন্য স্থানীয় এক ইউপি সদস্য ১ হাজার টাকা করে নিতেন। পাচারকালে কোনো মেয়ে বিজিবির কাছে আটক হলে সেই ইউপি সদস্য তাকে আত্মীয় পরিচয় দিয়ে ছাড়িয়ে নিয়ে আসতেন।

২০০৫ সালে সন্ত্রাসী রাজীব হোসেনের সঙ্গে নদীর বিয়ে হয়। ২০১৫ সালে রাজীব বন্দুকযুদ্ধে মারা যায়। এরপর থেকেই নদী পাচার চক্রের সঙ্গে জড়িয়ে পড়েন। পাচারকৃত ভুক্তভোগীদের কাছ থেকে নদীর দশটির মতো নাম পাওয়া যায়। নদী ভারত, মালয়েশিয়া ও দুবাইয়ের নারী পাচার চক্রের সমন্বয়ক হিসেবে কাজ করে।

news24bd.tv / তৌহিদ

পরবর্তী খবর

পঞ্চম শ্রেণীর ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে মামলা

অনলাইন ডেস্ক

পঞ্চম শ্রেণীর ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে মামলা

জয়পুরহাটের কালাইয়ে পঞ্চম শ্রেণি পড়ুয়া ১১ বছর বয়সী এক শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগে মামলা হয়েছে। শুক্রবার রাতে শিশুটির বাবা বাদী হয়ে জহুরুল ইসলাম (৩৮) নামে একজনকে আসামি করে কালাই থানায় মামলাটি দায়ের করেন। 

এর আগে একই দিন দুপুরে ঘটনাটি 'ধামাচাপা দিতে' সালিশের আয়োজন করে গ্রাম্য মাতবররা। কিন্তু অভিযুক্ত উপস্থিত না থাকায় পরে সালিশ বাতিল করা হয়।

মামলার আসামি জহুরুল ইসলাম উপজেলার উদয়পুর ইউনিয়নের মাস্তর চান্দারপাড়া গ্রামের আব্দুল আজিজের ছেলে। তিনি পোশায় একজন অটোরিকশা চালক। তিনি পলাতক রয়েছেন।

আরও পড়ুন


রোহিঙ্গাদের নিজ দেশে ফেরাতে ইইউ’র সহায়তা চাইলেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী

আদালতের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান উচ্ছেদের অভিযোগ কাদের মির্জার বিরুদ্ধে

লঘুচাপ গভীর নিম্নচাপে পরিণত, উপকূলে ঝড়-বৃষ্টির আভাস

ঠাকুরগাঁওয়ে তিন স্কুলের ১৪ ছাত্রী করোনায় আক্রান্ত


মামলার বিবরণ সূত্রে জানা যায়, শুক্রবার সকাল থেকে অন্য বাড়িতে টিনের ঘর ছাউনি দেওয়া নিয়ে ব্যস্ত ছিলেন শিশুটির বাবা। দুপুরের দিকে শিশুটির মা তাকে বাড়িতে রেখে স্বামীর কাছে যান। এ সময় শিশুটি বাড়িতে একাই ছিল। এ  সুযোগে জহুরুল ইসলাম ওই বাড়িতে ঢুকে শিশুটিকে ধর্ষণ করেন।

মামলার বাদী ও নির্যাতিত শিশুর বাবা জানান, কাজ শেষে দুপুরে বাড়িতে ঢুকে তিনি মেয়েকে মেঝেতে পড়ে থাকতে দেখেন। পরে তার কাছ থেকে ঘটনা জেনে গ্রামের লোকজনদের জানান। তখন গ্রামের মাতবর ছফির উদ্দিন, হেলাল উদ্দিন, ছুমির ফকির, আলতাব হোসেন সরদার, আমিরুল খান ও ছাত্তার খান শিশুটির বাবা-মাকে ঘটনাটি জানাজানি করতে নিষেধ করেন। তারা সবাই মিলে রাতে সালিশ করে এ ঘটনার মীমাংসা করে দেবেন বলেও আশ্বাস দেন।

নির্যাতিত শিশুটির বাবা আরও জানান, এরপর তিনি স্থানীয় একটি ফার্মেসি থেকে কিছু ওষুধ এনে মেয়েকে খেতে দেন। রাত সাড়ে ৮টার দিকে গ্রামে সালিশ বসান মাতবররা। ওই সালিশে তারা উপস্থিত হলেও জহুরুল ইসলাম অনুপস্থিত ছিলেন। এ কারণে মাতবররা সালিশ বাতিল করেন। পরে রাতেই তিনি জহুরুলকে আসামি করে থানায় মামলা দায়ের করেন।

শিশুটির বাবা জানান, রাতে মেয়ের অবস্থার অবনতি হলে তাকে কালাই উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করান। পরে চিকিৎসকরা শিশুটিকে জয়পুরহাট জেলা আধুনিক হাসপাতালে পাঠান।

কালাই উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক ডা. নুর আলম বলেন, প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে রাতেই শিশুটিকে জয়পুরহাট জেলা আধুনিক হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়েছে।

কালাই থানার ওসি সেলিম মালিক বলেন, ধর্ষণের অভিযোগে শিশুটির বাবা বাদী হয়ে একজনকে আসামি করে থানায় ধর্ষণ মামলা দায়ের করেছেন। আসামিকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

NEWS24.TV / কামরুল

পরবর্তী খবর

হত্যা মামলার আসামীকে জিজ্ঞাসাবাদের ভিডিও লাইভে, এলাকায় তোলপাড়!

অনলাইন ডেস্ক

হত্যা মামলার আসামীকে জিজ্ঞাসাবাদের ভিডিও লাইভে, এলাকায় তোলপাড়!

চাঞ্চল্যকর একটি হত্যা মামলার আসামিকে গ্রেফতারের পর ফেসবুকে লাইভে জিজ্ঞাসাবাদের ঘটনায় তোলপাড় চলছে। বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত ১২টা ৪০ মিনিটে 'ছাতক টু সুনামগঞ্জ' নামক একটি পেজে লাইভটি প্রচার করা হয়। লাইভ শুরুর পর পরই প্রায় ৫ হাজার মানুষ ভিডিওটি দেখেন। আপলোড দেওয়ার পর মুহূর্তেই ভিডিওটি ভাইরাল হয়ে যায়।

খোদ পুলিশের মোবাইলে ধারণ করা গোপনীয় এই ভিডিও কিভাবে কথিত এই পেজে চলে গেল তা নিয়ে সচেতন মহলে চলছে নানান আলোচনা-সমালোচনা। পরবর্তীতে প্রায় এক ঘণ্টা পর ভিডিওটি ডিলিট করে দেওয়া হয়। 

ভিডিওতে গ্রেপ্তারকৃত ব্যক্তিসহ ছাতক থানার ওসি নাজিমউদ্দিন, গোবিন্দগঞ্জ সৈদেরগাঁও ইউপি চেয়ারম্যান আখলাকুর রহমানসহ কয়েকজন পুলিশ সদস্যকে দেখা যায়।

এ ব্যাপারে সিলেট রেঞ্জের ডিআইজি মফিজ উদ্দিন জানান, বিষয়টি আমি খতিয়ে দেখছি। সুনামগঞ্জের পুলিশ সুপার মিজানুর রহমান বলেন, আমি অবগত ছিলাম না, এ ব্যাপারে তদন্ত কমিটি গঠন করা হবে।


সিলেটে বাসার ছাদ থেকে আপন দুই বোনের মরদেহ উদ্ধার

ক্ষমতায় থাকছেন ট্রুডো, তবে গঠন করতে হবে সংখ্যালঘু সরকার

মিডিয়া ভুয়া খবর ছড়িয়েছে: বাপ্পী লাহিড়ি


 

ছাতক থানার ওসি নাজিম বিষয়টি অস্বীকার করে বলেন, আমি এগুলো করিনি, পরে অন্য কেউ হয়তো করেছে। ফেসবুক লাইভ প্রচার করা অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে কি ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে জানতে চাইলে বলেন, তদন্ত করে ব্যবস্থা নেব।

আইনবিদরা বলছেন, ক্লুলেস হত্যাকাণ্ডের আসামিকে লাইভে রেখে জিজ্ঞাসাবাদ গর্হিত অপরাধ। আসামির অপর সহযোগীদের তথ্য নেওয়া, রহস্য উদঘাটনের বদলে তদন্তকাজে বড় ধরণের ক্ষতির সমূহ আশংকা থাকে। 

উল্লেখ্য, গত ১৯ সেপ্টেম্বর রাত ১০টার দিকে আখলাকুর রহমান ওরফে আখলাদ (৩৫) নামের এক ব্যবসায়ী উপজেলার গোবিন্দগঞ্জ বাজার থেকে তার ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে নিজ বাড়িতে যাওয়ার পথে দুর্বৃত্তরা তাকে খুন করে পালিয়ে যায়।

রাতেই গ্রামের মাঠের ক্ষেতের জমি থেকে তার লাশ উদ্ধার করা হয়। আখলাদ গোবিন্দগঞ্জ -সৈদেরগাঁও ইউনিয়নের মোল্লাআতা গ্রামের জাহির আলীর ছেলে ও গোবিন্দগঞ্জ বাজারের একজন ব্যবসায়ী।

এই হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় পুলিশ পৃথক অভিযান চালিয়ে একই ইউনিয়নের গোবিন্দনগর গ্রামের ফজলু মিয়ার ছেলে আবু সুফিয়ান সোহাগ ও বিশ্বনাথ উপজেলার  দিঘলী-চাকলপাড়া গ্রামের আশরাফুল আলমের ছেলে আলীম উদ্দিনকে নিজ বাড়ি থেকে গত বুধবার রাতে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। পরে আসামিরা আদালতে হত্যাকাণ্ডের দায় স্বীকার করে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়।

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

মাস্ক না পরার প্রবণতা উদ্বেগ বাড়াচ্ছে

মাহমুদুল হাসান

করোনায় সংক্রমণ ও মৃতের পরিসংখ্যান নিম্নগামী হওয়ায় স্বাস্থ্যবিধি নিয়ে উদাসীনতা বেড়েছে সাধারণ মানুষের মাঝে।

শুক্রবার রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে দেখা যায় মাস্ক ছাড়া ঘরের বাইরে বেড়িয়েছেন অসংখ্য মানুষ।

জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের আশঙ্কা, মানুষের এমন গা ছাড়া ভাব দ্রুত আনতে পারে করোনার তৃতীয় ঢেউ।

লকডাউনের সময়ে পেরিয়ে দেশের সবকিছুই এখন যেন স্বাভাবিক।

রাজধানীর বিমানবন্দর সড়কের চিত্র। বেশিরভাগ মানুষ ভুলে গেছে করোনার কঠিন দিনগুলোর কথা। এমন উদাসীন চলাচলে সৃষ্টি হচ্ছে নতুন শঙ্কার।

বাস ট্রেন কিংবা বিমানবন্দরের উন্মুক্ত স্থানে দেখা মিলছে অসংখ্য মানুষের। হাসপাতালে করোনায় মৃত্যুর মিছিল আর অসুস্থদের আকুতি দেখেছেন যারা তাদের চলাচলে এখন বেপরোয়াভাব।

করোনার ভয়াবহতা কিছুটা কমায় ঢাকার বাইরেও ঢিলেঢালাভাবে চলছে সাধারণ মানুষ। রাস্তাঘাটে- বাজারে অসংখ্য মানুষ ঘুরছেন মুখে মাস্ক ছাড়াই।

আরও পড়ুন:


স্ত্রীকে পরকীয়া থেকে ফেরাতে না পেরে স্ট্যাটাস দিয়ে যুবলীগ নেতার আত্মহত্যা

সংস্কারের অভাবে বেহাল রাঙামাটি ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর সাংস্কৃতিক ইনস্টিটিউট

গাজীপুরে গৃহবধূর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

ভেসে আসা তিমির ওজন ৩০ হাজার কেজি, দৈর্ঘ্য ৪০ ফুট


করোনা শনাক্তের হার এখন ৫ শতাংশের নিচে। সাধারণ মানুষ সচেতন না হলে আবারও আসতে পারে করোনার তৃতীয় ঢেউ- আশঙ্কা জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের।

অন্তত ৮০ ভাগ মানুষের টীকার আওতায় না আসা পর্যন্ত বড় জনসমাগম এড়িয়ে চলার পরামর্শ বিশেষজ্ঞদের।

news24bd.tv তৌহিদ

পরবর্তী খবর

ছাত্রের কিশোরী বোনকে ধর্ষণ, জামে মসজিদের মুয়াজ্জিন ধরা

অনলাইন ডেস্ক

ছাত্রের কিশোরী বোনকে ধর্ষণ, জামে মসজিদের মুয়াজ্জিন ধরা

ছাত্রের বড় বোনকে ধর্ষণের অভিযোগে মসজিদের মুয়াজ্জিনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে ঘটে এমন ঘটনা। শুক্রবার (২৪ সেপ্টেম্বর) সকালে তাকে কোর্ট হাজতে পাঠানো হয়।

গ্রেপ্তার মুয়াজ্জিনের নাম তৌহিদুল আলম হৃদয় (১৯)।

তিনি চট্টগ্রামের সন্দ্বীপের মুছাপুর ৮নম্বর ওয়ার্ডের মো. আলমগীরের ছেলে।

থানায় দায়ের মামলা সূত্রে জানা যায়, সীতাকুণ্ডের আর আর জুট মিলস জামে মসজিদের মুয়াজ্জিন তৌহিদুল আলম হৃদয় একই কলোনীতে এক শিশুকে আরবি শিক্ষা দিতেন। সেই সূত্রে মঙ্গলবার (২১ সেপ্টেম্বর) বিকেলে ওই ছাত্রের কিশোরী বোনকে ডেকে তার কক্ষে নিয়ে যান। সেখানে তাকে ‘বিয়ের প্রলোভন’ দেখিয়ে ধর্ষণ করেন মুয়াজ্জিন। পরে তাকে একথা কাউকে না বলার জন্য বলে বাড়িতে পাঠিয়ে দেন।

এদিকে, বাড়ি ফেরার পর মেয়েটি এ ঘটনা তার মাকে জানায়। এ ঘটনায় শুক্রবার সকালে কিশোরীর বাবা বাদী হয়ে সীতাকুণ্ড থানায় মামলা দায়ের করেন।

পরে অভিযান চালিয়ে মুয়াজ্জিন হৃদয়কে গ্রেপ্তার করা হয় বলে জানান সীতাকুণ্ড থানার ওসি (তদন্ত) সুমন বণিক।

পরবর্তী খবর

চিৎকার বন্ধ করতে সন্তানের গলায় ছুরি, মাকে ধর্ষণ

অনলাইন ডেস্ক

চিৎকার বন্ধ করতে সন্তানের গলায় ছুরি, মাকে ধর্ষণ

‌ব্যবসায়ীক কাজে স্বামী চলে যান বাহিরে। শিশুসন্তান নিয়ে ঘরে ঘুমিয়ে পড়েন গৃহবধূ। গভীর রাতে ঘরের মধ্যে পুরুষ দেখে চিৎকার শুরু করেন তিনি। চিৎকার শুনে সন্তানের গলায় ছুরি ধরে অভিযুক্ত ব্যক্তি। পরে সন্তানকে জিম্মি করে ওই নারীকে ধর্ষণ করে। এ ঘটনায় বৃহস্পতিবার রাতে থানায় মামলা করেন নির্যাতিন সতা।

মঙ্গলবার রাতে টাঙ্গাইলের ভূঞাপুরের চরাঞ্চলের রুলীপাড়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

এ ঘটনায় বৃহস্পতিবার (২৩ সেপ্টেম্বর) রাতে উপজেলার রুলীপাড়া গ্রামের শহিদ জামানের ছেলে কবির সরকার (২৬) ও হাবেস ঘোষের ছেলে শাহাদতের (৩০) নামে মামলা করেন গৃহবধূ।

আরও পড়ুন:


স্ত্রীকে পরকীয়া থেকে ফেরাতে না পেরে স্ট্যাটাস দিয়ে যুবলীগ নেতার আত্মহত্যা

সংস্কারের অভাবে বেহাল রাঙামাটি ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর সাংস্কৃতিক ইনস্টিটিউট

গাজীপুরে গৃহবধূর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

ভেসে আসা তিমির ওজন ৩০ হাজার কেজি, দৈর্ঘ্য ৪০ ফুট


পরে পুলিশ কবিরকে গ্রেপ্তার করে শুক্রবার (২৪ সেপ্টেম্বর) দুপুরে আদালতে পাঠায়।

গ্রেপ্তার কবির রুলীপাড়া গ্রামের শহীদ জামানের ছেলে।

ঘটনার ব্যাপারে কথা হয় গাবসারা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মনিরুজ্জামান মনিরের সঙ্গে। তিনি বলেন, ঘটনা শুনেছি। অভিযুক্ত কবির একাধিক বিয়ে করেছে। এর আগেও এ ধরনের ঘটনা ঘটিয়েছে সে।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এসআই মাহমুদুল হাসান বলেন, থানায় অভিযোগ পাওয়ার সাথে সাথেই আসামি কবিরকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। অপর আসামিকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

news24bd.tv তৌহিদ

পরবর্তী খবর