মোংলায় সংক্রামণ হার তিনগুন বেড়ে ৬৫.৬২ শতাংশ
মোংলায় সংক্রামণ হার তিনগুন বেড়ে ৬৫.৬২ শতাংশ
বাগেরহাটে করোনায় আরো একজনের মৃত্যু

মোংলায় সংক্রামণ হার তিনগুন বেড়ে ৬৫.৬২ শতাংশ

Other

বাগেরহাট ঝেলায় করোনা সংক্রমণের হার প্রতিদিনই ওঠানামা করছে। কঠোর বিধিনিষেধ দিয়েও সংক্রমণের লাগাম টেনে রাখা যাচ্ছে না। বাগেরহাটে চলছে লকডাউনের দ্বিতীয় দিনে করোনা সংক্রমণের হটস্পট জেলার মোংলায় একদিনে ব্যবধানে সংক্রমণ হার তিনগুন বেড়ে ৬৫. ৬২ শতাংশ দাঁড়িয়েছে। মাংলা উপজেলায় ৩২ জনের নমুনা পরীক্ষায় ২১ জন করোনা আক্রান্ত ও একজনের মৃত্যু হয়েছে।

স্বাস্থ্যবিধি না মানার কারণে বাগেরহাটে করোনা সংক্রামণের হার দ্রুত বাড়ছে বলে জানিয়েছে স্বাস্থ্য বিভাগ।

বাগেরহাট জেলা স্বাস্থ্য বিভাগের দেওয়া তথ্যে শুক্রবার ১৫৭ জনের নমুনা পরীক্ষায় নতুন করে ৭৩ জনের করোনা শনাক্ত ও ১ জনের মৃত্যু হয়েছে। জেলায় গেল ২৪ ঘণ্টায় শনাক্তের হার দাঁড়িয়েছে ৪৬ দশমিক ৪৯ শতাংশে। গত ২৪ ঘণ্টার এই আক্রান্তের হার ১২ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে। করোনা সংক্রমণের হটস্পট জেলার মোংলা উপজেলায় ৩২ জনের নমুনা পরীক্ষায় ২১ জনের পজেটিভ এসেছে। মৃত্যু হয়েছে একজনের।

মোংলায় সংক্রমণের হার ৬৫. ৬২ শতাংশ। গত ২৪ ঘণ্টার তুলনায় তিনগুন বেশি।

এছাড়া একই দিনে বাগেরহাট সদর উপজেলায় ২৯ জনের নমুনা পরিক্ষায় ২০ জন করোনা আক্রান্ত হয়েছে। সদরে সংক্রমরণ হার ৬৫ শতাংশ। মোল্লাহাট উপজেলায় ৯ জনের নমুনা পরিক্ষায় ৬ জন করোনা আক্রান্ত হয়েছে। মোল্লাহাটে সংক্রমরণ হার ৬৬.৬৬ শতাংশ। শরণখোলা উপজেলায় ৭ জনের নমুনা পরিক্ষায় ৩ জন করোনা আক্রান্ত হয়েছে। শরণখোলায় সংক্রমরণ হার ৪২.৮৫ শতাংশ।

মোরেলগঞ্জ উপজেলায় ১৬ জনের নমুনা পরিক্ষায় ৫ জন করোনা আক্রান্ত হয়েছে। মোরেলগঞ্জে সংক্রমরণ হার ৩১.২৫ শতাংশ। ফকিরহাট উপজেলায় ৭ জনের নমুনা পরিক্ষায় ৩ জন করোনা আক্রান্ত হয়েছে। ফকিরহাটে সংক্রমরণ হার ২৬.৬৬ শতাংশ। অন্য উপজেলাগুলোতে সংক্রমণ হার ২০ শতাশেংর কাছাকাছি। এই নিয়ে বাগেরহাট জেলায় করোনা আক্রান্তের সংখ্যা দাড়াল ২ হাজার ৮৬৭ জনে।

এপর্যন্ত জেলায় মারা গেছে ৭৪ জন। সুস্থ্য হয়েছে ২হাজার ৩৮ জন। এখন হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন ৩৮ জন।

এদিকে, বাগেরহাটে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ উদ্বেগজনক হারে বাড়তে থাকায় জেলাজুড়ে দেওয়া সাতদিনের কঠোর বিধিনিষেধ প্রতিপালনে কঠোর অবস্থান নিয়েছে প্রশাসন। শুক্রবার বিধিনিষেধের দ্বিতীয় দিন দোকানপাট ও যান চলাচল বন্ধ রয়েছে। রাস্তাঘাট ফাঁকা। নিন্ম আয়ের খেটে খাওয়া মানুষদের রাস্তায় পেলে তাদের ফিরিয়ে দিচ্ছে পুলিশ প্রশাসন। মাস্ক না পরাসহ স্বাস্থ্যবিধি না মানলে জরিমানা করছে ভ্রাম্যমাণ আদালত। তবে কঠোর বিধিনিষেধে নিন্ম আয়ের মানুষদের দুর্ভোগ বেড়েছে।

রিক্সচালক মধু মন্ডল ও জসিম শেখ বলেন, আমাদের আয়ে সংসার চলে। বাড়ির বাইরে না বেরোলে আয় হবে না। আয় না করলে খাব কি? তাই বাধ্য হয়ে বাড়ির বাইরে বের হচ্ছি। রাস্তায় লোকজন কম সেভাবে আয়ও হচ্ছেনা। যে অবস্থা চলছে তাতে গরীর মানুষের বেঁচে থাকাই কষ্ট সাধ্য হয়ে যাচ্ছে।

আরও পড়ুন:


ভূমধ্যসাগর থেকে ২৬৪ বাংলাদেশি উদ্ধার

বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সিদ্ধান্তকে সাধুবাদ জানাল ইভ্যালি

নোয়াখালীতে করোনায় দুজনের মৃত্যু, শনাক্ত ১১৬


বাগেরহাটের সিভিল সার্জন ডা. কে এম হুমায়ুন কবির বলেন, বাগেরহাট জেলায় গত দুই সপ্তাহ ধরে সংক্রমণের হার বৃদ্ধি পেয়েছে। জেলায় শুক্রবার সংক্রমণ হার প্রায় ৫০ শতাংশ। প্রথমে মোংলাতে সংক্রমণ বাড়তে থাকে। পরে তা আশেপাশের উপজেলাগুলোতেও ছড়াচ্ছে। হাসপাতালে রোগীর চাপ বাড়ছে। সংক্রমণ রোধের একটাই উপায় স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা। সবাইকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে। স্বাস্থ্যবিধি না মেনে চললে লকডাউন দিয়ে কোন উপকারে আসবে না। সংক্রমণরোধে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলুন, নিজে সুস্থ থাকুন অপরকে সুস্থ রাখতে সহযোগিতা করার আহ্বান জানান এই স্বাস্থ্য কর্মকর্তা।

news24bd.tv / তৌহিদ

সম্পর্কিত খবর