লকডাউন নিয়ে নতুন সিধান্ত

অনলাইন ডেস্ক

লকডাউন নিয়ে নতুন সিধান্ত

লকডাউন নিয়ে নতুন সিধান্ত
করোনা সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে সোমবার (২৮ জুন) থেকে সারাদেশে  সীমিত এবং পরবর্তীতে বৃহস্পতিবার (১ জুলাই) থেকে ৭ দিন সারাদেশে সর্বাত্মক লকডাউনের সিদ্ধান্ত হয়েছে। সীমিত পরিসরের লকডাউনের সময়ে থেকে গণপরিবহন বন্ধ হয়ে যাবে। তবে আর্থিক প্রতিষ্ঠান খোলা থাকবে। এ ছাড়া অন্যান্য কিছু প্রতিষ্ঠানও সীমিত পরিসরে চালু থাকবে। 

শনিবার (২৬ জুন) রাতে তথ্য অধিদফতরের প্রধান তথ্য অফিসার সুরথ কুমার সরকার গণমাধ্যমকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। সন্ধ্যায় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামালের সভাপতিত্বে সংশ্লিষ্টদের নিয়ে অনলাইন সভায় এ সিদ্ধান্ত হয়। 

রোববার (২৭ জুন) মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন জারি করা হবে।

প্রধান তথ্য অফিসার বলেন, সোমবার থেকে বুধবার পর্যন্ত সীমিত পরিসরে লকডাউন কার্যকর করবে সরকার। আর বৃহস্পতিবার থেকে ৭ দিনের জন্য পুরোপুরি লকডাউন থাকবে দেশ।

প্রসঙ্গত, শুক্রবার (২৫ জুন) প্রধান তথ্য অফিসার জানান, করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে আগামী সোমবার (২৮ জুন) থেকে পরবর্তী সাত দিন সারাদেশে কঠোর লকডাউন জারি থাকবে।

আর সাত দিনের সর্বাত্মক লকডাউন শুরু হবে আগামী ১ জুলাই (বৃহস্পতিবার)। ওই সময়েও শিল্প কলকারখানা লকডাউনের আওতার বাইরে রাখা হতে পারে। এই সময়ে রপ্তানিমুখী কার্যক্রম সচল রাখার স্বার্থে ব্যাংকিং সেবাও চালু রাখা হতে পারে।

এর আগে গতকাল সরকারের এক তথ্য বিবরণীতে জানানো হয়েছিল, সোমবার থেকে সারা দেশে সাত দিনের কঠোর লকডাউন শুরু হবে। এই সময়ে সব ধরনের সরকারি-বেসরকারি অফিস বন্ধ থাকবে। জরুরি পণ্যবাহী ছাড়া সব ধরনের গাড়ি চলাচলও বন্ধ থাকবে। শুধু অ্যাম্বুলেন্স ও চিকিৎসা সংক্রান্ত কাজে যানবাহন চলাচল করতে পারবে। 

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

প্রতিদিনই বাড়ছে ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা

মাহমুদুল হাসান

রাজধানীতে প্রতিদিনই পাল্লা দিয়ে বাড়ছে ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা। গত ২৪ ঘন্টাতেই হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন ২৮৭ জন। এডিস ও কিউলেক্স মশা দমনে দুই সিটি কর্পোরেশন বিশেষ অভিযান শুরু করলেও ফলাফল এখনও দৃশ্যমান হয়নি। ডেঙ্গুর বেশি ঝুকিতে রয়েছে শিশুরা, প্রতিদিনই আক্রান্ত শিশুদের হাসপাতালে ভর্তি করাচ্ছেন অভিভাবকরা।

ডেঙ্গুতে আক্রান্ত ৪ বছরের শিশুকে  নিয়ে হাসপাতালে এসেছেন বাড্ডা এলাকার বাসিন্দা বিউটি বেগম। বলছিলেন, তার বাড়ির আশেপাশে মশার উপদ্রপের কথা, অনেকেই আক্রান্ত হচ্ছে ডেঙ্গু জ্বরে। ৪ বছর বয়সী সন্তানের অবস্থা খারাপ হওয়াতে ভর্তি করাতে হয়েছে হাসপাতালে।

এমনি আরও ৩৬ টি শিশু ভর্তি হয়েছে রাজধানীর শেরেবাংলা নগরের শিশু হাসপাতালটিতে। হাসপাতালের আইসিউতে ভর্তি ৫ জন, এই মধ্যে ডেঙ্গুতে মারা গেছেন ৪ শিশু। শিশুদের নিয়ে উৎকন্ঠায়  রাজধানীর অভিভাবকরা।

আরও পড়ুন:


বিএনপি-জামায়াত-হেফাজত করোনার মতো বারবার রূপ পরিবর্তন করছে: বাহাউদ্দিন নাছিম

টিকা নেয়ার পরেও করোনা পজিটিভ ফারুকী

স্বামীর পর্নকাণ্ড: মানহানির মামলা নিয়ে শিল্পাকে আদালতের ভর্ৎসনা


করোনার মাঝে ক্রমেই ভয়াবহ হয়ে উঠছে ডেঙ্গু। চিকিৎসকরাও বলছেন, প্রতিদিনই বাড়ছে রোগীর চাপ।

পরিস্থিতি বিবেচনায় বিশেষ অভিযান শুরু করেছে দুই সিটি কর্পোরেশন। রাজধানীর মিরপুরে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের নিয়ে অভিযানে নামেন উত্তরের মেয়র। এ সময় ডেঙ্গু প্রবণ এলাকা চিহ্নিত করতে নগরবাসীর সহায়তা চান তিনি।

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রীকে পাকিস্তানের আম উপহার

অনলাইন ডেস্ক

রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রীকে পাকিস্তানের আম উপহার

ফাইল ছবি

বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে আম উপহার হিসেবে পাঠিয়েছে পাকিস্তান। 

সোমবার ঢাকায় নিযুক্ত পাকিস্তান হাইকমিশন এ তথ্য জানিয়েছে।

পাকিস্তান হাইকমিশন জানায়, গত বছরের মতো এবারও পাকিস্তান সরকার বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী এবং অন্যান্য গণ্যমান্য ব্যক্তিদের জন্য উপহার হিসেবে তাজা পাকিস্তানি আম পাঠিয়েছে।

আরও পড়ুনঃ


দ. কোরিয়ার কোন গালিও দেয়া চলবে না উত্তর কোরিয়ায়

তালেবানের হাত থেকে ২৪ জেলা পুনরুদ্ধারের দাবি

কাছাকাছি আসা ঠেকাতে টোকিও অলিম্পিকে বিশেষ ব্যবস্থা


 

এর আগে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান‌কে শুভেচ্ছা উপহার হিসেবে ১ হাজার কে‌জি হা‌ড়িভাঙ্গা আম উপহার হিসেবে পাঠিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হা‌সিনা।

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

আওয়ামী লীগের নাম ব্যবহার করে গড়ে উঠেছে ৭৩ সংগঠন

শাহ্ আলী জয়

আওয়ামী লীগের নাম ব্যবহার করে গড়ে উঠেছে ৭৩ সংগঠন

নামের আগে-পরে ‘লীগ’ ‘আওয়ামী’, ও ‘বঙ্গবন্ধু’ যুক্ত করে ২০০৯ সালের পর যেসব সংগঠন গড়ে উঠেছে, এর প্রায় সবই ভুঁইফোড় বলে মনে করছে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ। এসব সংগঠনের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নিতে যাচ্ছে সরকার। নীতিনির্ধারকদের পক্ষ থেকে গোয়েন্দা সংস্থাগুলোকে এ বিষয়ে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। ভুঁইফোড়  এসব সংগঠনের উদ্যোক্তাদের কর্মকাণ্ড ও সম্পদের খোঁজ নেওয়া হবে বলেও জানাচ্ছেন আওয়ামীলীগ নেতারা। 

টানা তৃতীয় মেয়াদে ক্ষমতায় দেশের ঐতিহ্যবাহী দল আওয়ামী লীগ। দীর্ঘ এই সময়ে সরকার সরকারের সফলতাকে পুঁজি করে দলের নাম ভাঙ্গিয়ে গড়ে উঠতে দেখা গেছে নাম সর্বস্ব বেশ কিছু সংগঠনও। যেসব সংগঠনের নামের আগে বা পরে যুক্ত করা হয়েছে আওয়ামী, লীগ, বঙ্গবন্ধু, বঙ্গমাতা ইত্যাদি শব্দ। এগুলোর  প্রায় সব কটিকেই ভূইফোঁর সংগঠন বলছে আওয়ামী লীগ। আর যারা এসবের হোতা তাদের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থানে যাচ্ছে দল ও সরকার।

চাকরীজীবি লীগ নামে এমনই এক ভূই ফোঁর সংগঠন গড়ে তাতে পদ বাণিজ্যের অভিযোগে সম্প্রতি ব্যবসায়ী হেলেনা জাহাঙ্গীরকে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব।  আওয়ামী লীগের নীতি নির্ধারকরা বলছেন এর মাধ্যমে ভুঁইফোড় সংগঠনের বিরুদ্ধে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর তৎপরতা শুরু হলো।

আওয়ামী লীগ সূত্র বলছে আওয়ামী লীগের নাম ভাঙ্গিয়ে গড়ে ওঠা এমন ভূইফোঁর সংগঠনের সংখ্যা শতাধিক। ফেসবুক কেন্দ্রিক বা বিভিন্ন দিবসে এদের তৎপরতা দেখা যায়। যেসবের নেই কোনা গঠণতন্ত্র, কমিটি বা সাংগঠনিক কাঠামো। অভিযোগ আছে চাঁদাবাজি, টেন্ডারবাজী আর তদবীর বাণিজ্যই এদের প্রধান উদ্দেশ্য।আওয়ামী লীগ নেতারা বলছেন, সুসময়ে দুধের মাছির মত উড়ে এসে জুড়ে বসা এসব নাম সর্বস্ব সংগঠনই শুধু নয়, এদের ইন্ধন দাতা আওয়ামী লীগ নেতাদের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেবে সংগঠণ।

আওয়ামী লীগের গঠনতন্ত্র থেকে জানা যায়, দলটির আটটি সহযোগী ও দুটি ভ্রাতপ্রতিম সংগঠন রয়েছে। সহযোগী সংগঠনগুলো হলো-যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ, মহিলা লীগ, যুব মহিলা লীগ, কৃষক লীগ, তাঁতী লীগ, মৎস্যজীবী লীগ ও আওয়ামী লীগ আইনজীবী পরিষদ। আর ভ্রাতপ্রতিম সংগঠন দুটি হলো-ছাত্রলীগ ও শ্রমিক লীগ।

news24bd.tv/এমিজান্নাত 

পরবর্তী খবর

করোনায় সরকারের সমালোচনা করা ছাড়া বিএনপির কোনো কাজ নেই: হানিফ

অনলাইন ডেস্ক

করোনায় সরকারের সমালোচনা করা ছাড়া বিএনপির কোনো কাজ নেই: হানিফ

সরকারের সমালোচনা করা ছাড়া করোনায় বিএনপির কোনো কাজ নেই বলে মন্তব্য করে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল আলম হানিফ বলেছেন, দেশের উন্নয়ন, অগ্রগতি মানতে বিএনপির কষ্ট হয়। ব্যর্থতা, অযোগ্যতা আর দুর্নীতির কারণে তারা দেশের উন্নয়ন করতে পারেনি। বিএনপি না পারলেও দেশের জন্য আমরা কাজ করছি, আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে দেশের উন্নয়ন করছি।

এখন করোনার এই সংকটে তারা মানুষের পাশে না দাঁড়িয়ে জাতির সামনে মিথ্যাচার করছে, বিভ্রান্ত করছে। আমরা প্রত্যাশা করি বিএনপি নেতারা আমাদের সহায়তা না করলেও অন্তত নির্লজ্জ, বেহায়পনা করে মানুষকে বিভ্রান্ত করবেন না। 

সোমবার (২ আগস্ট) সকালে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজ কল্যাণ উপ-কমিটির উদ্যোগে মীরপুর গার্লস আইডিয়াল কলেজে শোকাবহ আগস্টে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ বাস্তবায়নে পরিস্থিতির শিকার মানুষদের কাছে উপহার সামগ্রী বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। 

তিনি আরো বলেন, বিএনপি এ যাবতকাল বলে আসছিলো সরকারের কোনো উন্নয়ন নাই, অগ্রগতি নাই, আমরা বলেছিলাম উন্নয়ন হচ্ছে। আজকে রাস্তা-ঘাট, ব্রিজ, কালভার্ট, ঢাকা মেট্রো রেল চালু হচ্ছে। পদ্মাসেতু, পায়রা বন্দর হচ্ছে। আমাদের বিদ্যুৎ উৎপাদন চার হাজার মেগাওয়াট থেকে ২৪ মেগাওয়াট হচ্ছে, কর্ণফুলি টানেল হচ্ছে, রূপপুর পারমানবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র হচ্ছে- এমন অজস্র উন্নয়নের প্রজেক্ট চলছে এবং শেষ পর্যায়ে রয়েছে। এগুলো কোনোটাই বিএনপির চোখে পড়ে না। তারা কোনো উন্নয়নই চোখে দেখে না। 

আগামী সাতদিনে এক কোটি মানুষকে টিকার আওতায় নিয়ে আসা হবে জানিয়ে হানিফ বলেন, আমাদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, এ দেশের অধিকাংশ জনগণের টিকা দেয়া হবে দ্রুত। আগামী ডিসেম্বরের মধ্যেই যেন ৮০ শতাংশ মানুষকে টিকা দিতে পারেন সে লক্ষ্য নিয়ে উনি কাজ করছেন। আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে ১ কোটি মানুষকে টিকা দেয়ার জন্য উদ্যোগ নিয়েছেন। সে অনুসারে সারা দেশে টিকাদান কার্যক্রম শুরু হয়েছে। এখানেও বিএনপি মিথ্যাচার করছে। তারা বলে ১ সপ্তাহে কী ১ কোটি লোককে টিকা দেয়া যায়? তাহলে ১ সপ্তাহে ১ কোটি লোককে টিকা দেয়া যাবে না কেন? আমাদের সে সক্ষমতা আছে। আমাদের টিকা মজুত আছে এবং টিকা দেয়ার মতো সে সক্ষমতা আছে। প্রত্যেকটা ইউনিয়নে ৫ হাজার করে টিকার আওতায় নিয়ে আসা হবে আগামী ১ সপ্তাহের মধ্যেই। সে হিসেবে আমাদের ১ কোটিরও বেশি মানুষকে টিকার আওতায় নিয়ে আসা যাবে।

তিনি বলেন,বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী বারবার দেশবাসীর কাছে অনুরোধ করছেন এই করোনাভাইরাস রোগটা ভয়াবহ রোগ। এটা থেকে একমাত্র বাঁচার উপায় হলো সংক্রমণ রোধ করা।  সরকার বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের পরামর্শ মেনে চলার জন্য বারবার অনুরোধ করছে। আমরা এখনো বলছি লকডাউন করোনা সংক্রমণ রোধের একমাত্র উপায় নয়। করোনা রোধ করতে হলে ভ্যাক্সিন নিতে হবে, শরীরে এন্টিবডি তৈরি করতে হবে। 

ঘরের বাইরে বের হলে মাস্ক পড়ার আহবান জানিয়ে তিনি বলেন, মাস্ক পরিধানের কোনো বিকল্প নেই। সবাইকে মাস্ক পড়তে হবে। হাত পরিস্কার রাখতে হবে। যাতে করে হাতের মধ্য দিয়ে ভাইরাসটা শরীরে প্রবেশ না করে। সচেতনতার কোনো বিকল্প নেই। আমরা গোটা দেশবাসীর কাছে অনুরোধ জানাচ্ছি প্রধানমন্ত্রী যেসব নির্দেশনা দিয়েছেন সেগুলো সবাই মেনে চলুন। এ সংক্রমণ রোধ করে আমরা সবাই যাতে ভয়াবহ রোগ থেকে জাতিকে রক্ষা করতে পারি। নিজেরা বাঁচতে পারি, পরিবার-পরিজনকে রক্ষা করতে পারি। 

করোনার এই সংকটে আওয়ামী লীগের ত্রাণ কার্যক্রম কাজ চলমান থাকবে জানিয়ে তিনি বলেন, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ একমাত্র দল যারা প্রতিষ্ঠার পর থেকে এই বাংলাদেশের দুর্যোগে, বিপদে-আপদে মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছে। যারা বিত্তবান আছেন আপনাদের অনুরোধ করবো আপনারা সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিন। এই ক্রান্তিকাল, কঠিন সময় করোনা মোকাবেলায় সরকারের পাশাপাশি প্রত্যেকে বেসরকারিভাবেও যার যেটুকু সামর্থ্য আছে সেটুকু দিয়েই অসহায় মানুষের পাশে, নিম্ন আয়ের মানুষকে যারা ঠিক মতো খেতে পারে না এমন মানুষের সাহায্যের হাত পারিয়ে দিন। মানবতা প্রকাশ করার এটাই সর্বোচ্চ সময়। মানবতা প্রকাশের চেয়ে এর চেয়ে ভাল কাজ আর হতে পারে না।

এর আগে অনুষ্ঠানের শুরুতে শোকাবহ বাংলার সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ট বাঙালি, স্বাধীন বাংলাদেশের স্থপতি, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে বিনম্র শ্রদ্ধায় স্মরণ করেন। এছাড়াও ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট জাতির পিতার পরিবারের শহীদ সদস্য ও জাতীয় চার নেতার আত্মার মাগফেরাত কামনা করেন।

প্রতিরক্ষা ও ধর্ম মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সদস্য ইলিয়াস উদ্দিন মোল্লাহ এমপির সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মীর্জা আজম এমপি, উপদেষ্টা একেএম রহমতুল্লাহ এমপি, ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক সুজিত রায় নন্দী, ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ বজলুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক এসএম মান্নান কচি, ওয়েষ্ট হেলথ এন্ড এডুকেশন ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান দেলওয়ার হোসেন ও ভাইস চেয়ারম্যান ইঞ্জি. সৈয়দ কুদরত উল্লাহ।

অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন ঢাকা মহানগর উত্তর যুবলীগ সহ সভাপতি ও কাউন্সিলর কাজী জহিরুল ইসলাম মানিক। উপহার সামগ্রী বিতরণ অনুষ্ঠানের সার্বিক সহযোগিতায় ছিলো ওয়েষ্ট হেলথ এন্ড এডুকেশন ফাউন্ডেশন।

news24bd.tv/এমিজান্নাত 

পরবর্তী খবর

এক বছর পেছালো মেট্রোরেলের টার্গেট

প্লাবন রহমান

এক বছর পেছালো মেট্রোরেলের টার্গেট

করোনায় থাবায় পেছালো মেট্রোরেলের টার্গেট। চলতি বছরের ডিসেম্বরে মেট্রো চালুর কথা থাকলেও – তা সম্ভব হচ্ছে না। সেই জায়গায় ২০২২ সালের ডিসেম্বরে উত্তরা থেকে আগারগাঁও পর্যন্ত মেট্রোরেল চালু হবে বলে জানিয়েছেন প্রকল্পের ব্যবস্থাপনা পরিচালক। তবে-মতিঝিল পর্যন্ত কবে চালু করা যাবে যে বিষয়ে নিশ্চিত করে বলতে পারছে না কর্তৃপক্ষ। 

মেট্রোরেলের আগাঁরগাও স্টেশন। রাস্তার অংশের কাজ শেষে এখন ভায়াডাক্টের উপরই বেশিরভাগ কর্মযজ্ঞ। করোনার পরিস্থিতির মধ্যেও থেমে নেই প্রকল্পের কাজ।

উত্তরা থেকে আগারগাও হয়ে মতিঝিল পর্যন্ত পুরো পথে এমনই দৃশ্যমান মেট্রোরেল প্রকল্প। জুন মাস পর্যন্ত প্রকল্পের সার্বিক অগ্রগতি ৬৮ ভাগ। তবে-উত্তরা থেকে আগারগাঁও পর্যন্ত পূর্ত কাজ এগিয়েছে ৮৭ দশমিক ৮০ ভাগ। আসছে ডিসেম্বরের মধ্যে আগারগাঁও অংশের কাজ শেষের লক্ষ্য থাকলেও- করোনার কারণে সেই লক্ষ্য এখন ২০২২ সালের ডিসেম্বর।

স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলছে মেট্রো প্রকল্পের কাজ। এরইমধ্যে দেশি-বিদেশী বেশিরভাগ কর্মীকে দেয়া হয়েছে করোনার দুই-ডোজ ভ্যাকসিন। এরপরও- সবমিলিয়ে প্রকল্পে করোনা আক্রান্ত প্রায় ৮০০ জন।
উত্তরা থেকে আগারগাঁও পর্যন্ত ১১.৭৩ কিলোমিটার ভায়াডাক্টের ওপর বসে গেছে রেলট্র্যাক। প্রথম পর্যায়ের ৯টি স্টেশনও দৃশ্যমান। দেশে চলে এসেছে ৪টি মেট্রোরেলের ২৪ সেট কোচ। আগামী সেপ্টেম্বর নাগাদ আরও পাঁচটি মেট্রোরেল জাপান থেকে আসার কথা।

সবমিলিয়ে এজন্য-করোনা পরিস্থিতির ওপরই আবারও নির্ভর করতে হচ্ছে মেট্রোরেল কর্তৃপক্ষকে। তবে-এখন টিকা কার্যক্রম গতিশীল হওয়ায় আগামী ডিসেম্বরে আগারগাঁও পর্যন্ত চালুর ব্যাপারে জোর আশাবাদী প্রকল্প সংশ্লিষ্টরা।

news24bd.tv/এমিজান্নাত 

পরবর্তী খবর