বোমা বিস্ফোরিত হলে স্প্লিন্টারে বাসসহ লোকজন ক্ষতবিক্ষত হতো: ডিএমপি কমিশনার
বোমা বিস্ফোরিত হলে স্প্লিন্টারে বাসসহ লোকজন ক্ষতবিক্ষত হতো: ডিএমপি কমিশনার

বোমা বিস্ফোরিত হলে স্প্লিন্টারে বাসসহ লোকজন ক্ষতবিক্ষত হতো: ডিএমপি কমিশনার

অনলাইন ডেস্ক

মগবাজারের বিস্ফোরণ নাশকতা নয় বলে জানিয়েছেন ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) কমিশনার মোহা. শফিকুল ইসলাম। তিনি বলেছেন, এটা নাশকতা হলে বোমা বিস্ফোরিত হতো।

রোববার (২৭ জুন) রাতে ঘটনাস্থল পরিদর্শন শেষে ডিএমপি কমিশনার বলেন, বিস্ফোরণের ঘটনাটি কোনো নাশকতা নয়। এখানে বোমা বিস্ফোরিত হলে বোমার স্প্লিন্টারের আঘাতে বাসসহ আশপাশের লোকজন ক্ষতবিক্ষত হয়ে যেত।

এটি নিশ্চিতভাবেই বলা যায়, গ্যাসের বিস্ফোরণ।

তিনি আরও বলেন, প্রাথমিকভাবে মনে হচ্ছে, বিস্ফোরিত ভবনের নিচতলার শর্মা হাউজে গ্যাস জমে ছিল। এ কারণে বিস্ফোরণের সূত্রপাত ঘটতে পারে। এ গ্যাস বিস্ফোরণের কারণে আশপাশের সাতটি ভবন ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে এবং তিনটি বাস পুড়ে গেছে।

ডিএমপি কমিশনার বলেন, ফায়ার সার্ভিসের মাধ্যমে জানতে পেরেছি, এখন পর্যন্ত সাতজন নিহত হয়েছেন। ফায়ার সার্ভিস থেকে তদন্ত কমিটি গঠন করা হবে। তারা চাইলে পুলিশ কমিটিতে থাকবে।


এর আগে ঘটনাস্থল থেকে পুলিশের রমনা বিভাগের ডিসি সাজ্জাদুর রহমান সাংবাদিকদের বলেন, এখানে কোনো আশঙ্কাই উড়িয়ে দেওয়া যাচ্ছে না। কী কারণে বিস্ফোরণ হয়েছে তা আমরা খতিয়ে দেখার চেষ্টা করছি। আমাদের অনেকগুলো টিম কাজ করছে। নাশকতার আশঙ্কা থেকে বোম্ব ডিসপোজাল ইউনিটও এখানে এসেছে। তারা তাদের এঙ্গেল থেকে কাজ করছে।

বিস্ফোরণের ভয়াবহতা বর্ণনায় তিনি জানান, ‘এই বিল্ডিংটা ভেঙে বহুদূরে চলে গেছে। দরজা-জানালা ভেঙে টুকরো টুকরো হয়ে বহু দূরে চলে যায়। আমার ধারণা যে এই বিল্ডিংয়ের ভেতরে কোনো একটা রুম গ্যাস চেম্বার হয়ে গিয়েছিল। সেখানে ফায়ার ওপেন করেছে এবং সাথে সাথেই এই বিস্ফোরণটা হয়েছে। এই গ্যাসটা বহুদূর চলে যায় এবং একটা লাইনে যা পায় সব গুঁড়ো করে দিয়ে যায়। অতীতেও আমি এমন দুই-তিনটা ঘটনা দেখেছি। ’

তিনি বলেন, ‘এখানে ব্যাপকতাটা অনেক বেশি। আমার অভিজ্ঞতা আরও যে কয়েকটা দেখেছি, এখানে ব্যাপকতাটা অনেক বেশি। সেক্ষেত্রে সুর্নিদিষ্ট করে কিন্তু কোনোভাবেই বলা যাবে না এটা গ্যাস চেম্বার থেকে হয়েছে বা রুম গ্যাস চেম্বার হয়ে গিয়েছিল। এমনও হতে পারে যে এখানে বিরাট ... সেটা গ্যাস চেম্বার হয়ে গেছে। এক্সপ্লোসিভও হতে পারে। একটু সময় দিতে হবে। ফায়ার সার্ভিসের লোকজন আছে, কোথাও কোনো আলামত বা বিস্ফোরণের গন্ধ পাওয়া যায় নাকি। কিছু সময় পরে এটা উদঘাটিত হয়ে যাবে। ’ 

নাশকতার কোনো আশঙ্কা দেখছেন কি না- এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি জানান, ‘আমরা কোনো কিছুই ফেলে দিচ্ছি না, আমাদের বোম্ব ডিসপোজাল ইউনিট চলে এসেছে এবং তারা কাজ করছে। একই সঙ্গে ফায়ার সার্ভিস, তাদের বিরাট অভিজ্ঞতা আছে, তারাও কাজ করছে। এটা ফাইন্ড আউট হয়ে যাবে। ’

আরও পড়ুন:


মগবাজারে বিস্ফোরণে নিহত বেড়ে ৬

মগবাজারে বিস্ফোরণস্থলে ফায়ার সার্ভিসের ১৩ ইউনিট, ২৭ জন হাসপাতালে

মগবাজারে দুর্ঘটনাস্থলের পথে মেয়র আতিক

এই গ্যাসটা বহুদূর চলে যায়, যা পায় সব গুঁড়ো করে যায়: পুলিশ


news24bd.tv / তৌহিদ

;