মগবাজারের বিস্ফোরণে ‌‘চুরমার’ চলন্ত ৩ বাস

অনলাইন ডেস্ক

মগবাজারের বিস্ফোরণে ‌‘চুরমার’ চলন্ত ৩ বাস

রাজধানীর মগবাজার ওয়্যারলেস গেট সংলগ্ন আড়ংয়ের শো-রুমের বিপরীতে বিস্ফোরণের সময় রাস্তায় চলন্ত তিনটি বাসের কাঁচ ভেঙে চুরমার হয়ে যায়।

গাজীপুর থেকে সদরঘাটে যাতায়াতকারী আজমেরী পরিবহন, মিরপুর থেকে সদরঘাটে চলাচল করা আল মক্কা পরিবহন ও সাভার থেকে আসা লাব্বাইক পরিবহনের একটি বাস রয়েছে।

রোববার (২৭ জুন) সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে মগবাজার ওয়্যারলেস এলাকায় বিকট শব্দে বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে।

বিস্ফোরণের পর সেখানে আগুনের স্পার্ক দেখা যায়। কিন্তু ভবনের ভেতরে বিস্ফোরণ ঘটলেও ওই সময় সড়কে চলন্ত যানবাহন ছিল। সেই সময় ভবনের সামনে থাকা তিনটি বাসের জানালার কাচ ভেঙে চুরমার হয়ে যায়। ওই সময় পাশে থাকা যাত্রীরা আহত হন বলে জানিয়েছেন প্রত্যক্ষদর্শীরা। তাদের দাবি, সেখানে তিনটি বাসে কমপক্ষে অর্ধশতাধিক যাত্রী ছিল, যাদের বেশিরভাগই আহত হয়েছেন।

য়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স ঢাকা বিভাগের উপ-পরিচালক দেবাশীষ বর্ধন সাংবাদিকদের জানান, বিস্ফোরণের ঘটনায় ওই ভবনের নিচতলার মেঝের পিলারসহ কিছু অংশ উড়ে গেছে। ঠিক কী কারণে বিস্ফোরণ ঘটেছে সেটা আমরা তদন্ত করে দেখব। ঘটনাস্থলে ফায়ার সার্ভিসের ১৪টি ইউনিটে ৯০ জন লোক কাজ করছে বলে জানান তিনি।

সরেজমিনে প্রত্যক্ষদর্শীদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, বিস্ফোরণে শতাধিক লোক আহত হয়েছে। তার মধ্যে রাস্তায় যাত্রীবাহী তিনটি বাসেই ছিল অর্ধশতাধিক যাত্রী, যাদের বেশিরভাগই দুর্ঘটনায় আহত হন।

বিস্ফোরণের সময় সড়কে বাসসহ বিভিন্ন যানবাহন চলন্ত অবস্থায় ছিল। পরিবহনের অনেকেই জানালার গ্লাস ভেঙে শরীরে পড়ায় আহত হন। একজন শিশুও নিহত হয়েছে বলে দাবি করেন এক প্রত্যক্ষদর্শী।

এই রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত মৌচাক ও মগবাজারের আশপাশে প্রচণ্ড যানজট দেখা যায়। ঘটনাস্থল দেখার জন্য আশপাশের উৎসুক জনতাকে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা গেছে।

পরবর্তী খবর

তুরাগ নদে পানিতে ডুবে দুই শিশুর মৃত্যু

অনলাইন ডেস্ক

তুরাগ নদে পানিতে ডুবে দুই শিশুর মৃত্যু

গাজীপুরের টঙ্গীর তুরাগ নদে গোসল করতে নেমে পানিতে ডুবে দুই শিশুর মৃত্যু হয়েছে। আজ বৃহস্পতিবার সকালে টঙ্গী ফায়ার সার্ভিস প্রত্যাশা ব্রিজসংলগ্ন তুরাগ নদ থেকে তাদের লাশ উদ্ধার করে।

নিহত দুই শিশু হলো- তামজীদ (১০) বড় দেওরা ফকির মার্কেট এলাকার ওমর আলীর ছেলে ও হাসনাত টঙ্গী পশ্চিম থানা এলাকার হাসানের ছেলে।

টঙ্গী ফায়ার সার্ভিস ও এলাকাবাসী জানান, গতকাল দুপুরে প্রত্যাশা ব্রিজসংলগ্ন তুরাগ নদে গোসল করতে নেমে দুটি শিশু পানিতে ডুবে মারা যায়। অনেক খোঁজাখুঁজির পর পরিবারের সদস্যরা পরে ফায়ার সার্ভিসের খবর দেন।

 বৃহস্পতিবার সকালে লাশ উদ্ধার করে আত্মীয়স্বজনের কাছে বুঝিয়ে দেন ফায়ার সাভিসকর্মীরা।

গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের ডিসি (অপরাধ দক্ষিণ) ইলতুৎমিস জানান, লাশ দুটি ফায়ার সার্ভিস উদ্ধার করে ময়নাতদন্ত ছাড়াই পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। প্রাথমিকভাবে জানা যায়, শিশুরা তুরাগ নদে গোসল করতে নেমে ডুবে মারা যায়।

আরও পড়ুন:


পাবনায় মেডিকেল ছাত্রীকে খালি সিরিঞ্জ পুশের অভিযোগ

হলি আর্টিজানের ঘটনায় সিনেমা, জাহান কাপুরের অভিষেক

দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টিতেও অস্ট্রেলিয়াকে হারালো টাইগাররা

রাজের বাসায় বিকৃত যৌনাচারের সরঞ্জামাদি,চলত পর্নোগ্রাফি (ভিডিও)


news24bd.tv / কামরুল 

পরবর্তী খবর

নারায়ণগঞ্জে অগ্নিকাণ্ডে নিহত ২৪ শ্রমিকের লাশ হস্তান্তর

মাসুদা লাবনি ও সুলতান আহমেদ

নারায়ণগঞ্জে অগ্নিকাণ্ডে নিহত ২৪ শ্রমিকের লাশ হস্তান্তর

নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে সেজান জুস ফ্যাক্টরিতে আগুনের ঘটনায় নিহতদের মধ্যে ২৪ জনের মরদেহ বুধবার হস্তান্তর করা হয় স্বজনদের কাছে। ৪৮ টি মরদেহের ৪০ টি র ডিএনএ পরিবারের সাথে ম্যাচ করে সিআইডির ফরেনসিক টিম। তাদের মধ্যে থেকে হস্তান্তর করা হয়।

এসময় উপস্থিত ছিলেন জেলা প্রশাসন ও ফরেনসিক টিমের সদস্যরা। সকাল থেকেই মরদেহ নিতে ঢাকা মেডিকেলের মর্গে আসেন নিহতদের পরিবার। 

অগ্নিকাণ্ডে স্বজন হারিয়েছেন বহু আগেই। এখন সে প্রিয়জনদের লাশ পেতে এমন অপেক্ষা স্বজনদের। অপেক্ষার ক্ষণে প্রিয়জনদের মনে করে চোখের কোনে জমে থাকা অশ্রু লুকাতে পারেননি পরিবারের সদস্যরা।

গেল ৮ জুলাই নারায়নগঞ্জের রুপগঞ্জে অগ্নিকান্ডের ঘটনায় নিতহতের পরিচয় খুঁজে পেতে প্রায় মাস ধরে ডিএএন টেস্ট করতে হয় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে। মোট ৪৮ টির মরদেহের মধ্যে ৪৫ টির পরিচয়ও নিশ্চিত করে সিআইডির ফরেনসিক টিম। যার মধ্যে ২৪টি লাশ হস্তান্তর হয় বুধবার দুপুরে।

নিহতদের প্রত্যেক পরিবারকে সরকারের পক্ষ থেকে দেয়া হয় ২৫ হাজার টাকা আর কোম্পানির পক্ষ থেকে ২ লাখ টাকা।

বাকি মরদেহ হস্তান্তর করা হবে আগামী শনিবার।

news24bd.tv/এমি_জান্নাত

পরবর্তী খবর

জয়পুরহাটে বজ্রপাতে ২ কৃষকের মৃত্যু

অনলাইন ডেস্ক

জয়পুরহাটে বজ্রপাতে ২ কৃষকের মৃত্যু

জয়পুরহাটের পাঁচবিবি উপজেলায় বজ্রপাতে দেলোয়ার হোসেন দুলাল (৫৫) ও মোফাজ্জল হোসেন (৫৩) নামে দুই কৃষকের মৃত্যু হয়েছে। এ সময় আহত হয়েছেন আরও চারজন।

সোমবার সকালে উপজেলার রতনপুর এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

পাঁচবিবি থানার ওসি পলাশ চন্দ্র দেব জানান, নিহতরা হলেন- উপজেলার রতনপুর গ্রামের মৃত বিরাজ মোল্লার ছেলে দলীল লেখক দেলোয়ার হোসেন দুলাল (৫৫) ও মৃত আফছার হোসেনের ছেলে মোফাজ্জল হোসেন (৫৩)।

আহতরা হলেন- ওই গ্রামের মহসিনের ছেলে এমদাদুল হোসেন (২৭), বজ্রপাতে নিহত মোফাজ্জলের ছেলে ছাব্বির হোসেন (১৬), মৃত হামেদ আলীর ছেলে খলিল মিয়া (৫৫) ও উপজেলার কড়িয়া এলাকার শফীর উদ্দিনের ছেলে সিরাজুল ইসলাম (২২)।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, ওই কৃষকরা জমিতে আমন ধানের চারা রোপণ করছিলেন। এসময় বৃষ্টি শুরু হয়। বৃষ্টি থেকে রক্ষা পেতে তারা পাশেই পুকুরের মাছ পাহাড়া দেওয়ার জন্য নির্মিত ঘরের বারান্দায় আশ্রয় নেন।

হঠাৎ বজ্রপাতে ঘটনাস্থলেই দুই কৃষক মারা যান। এ সময় আহত হন চারজন। আহতদের উদ্ধার করে জয়পুরহাট আধুনিক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

news24bd.tv তৌহিদ

পরবর্তী খবর

সুবর্ণচরে মাছ ধরতে গিয়ে শিশুর মৃত্যু

নোয়াখালী প্রতিনিধি

সুবর্ণচরে মাছ ধরতে গিয়ে শিশুর মৃত্যু

নোয়াখালীল সুবর্ণচরে মাছ ধরতে গিয়ে পানিতে পড়ে এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে।

নিহত তওফিকুর রহমান (৯) উপজেলার চর জুবলী ইউনিয়নের ১নম্বর ওয়ার্ডের তানজিদুরের রহমানের ছেলে।

রোববার (১ আগস্ট) সন্ধ্যায় উপজেলার চরজুবলী ইউনিয়নের ৪নম্বর ওয়ার্ডের বৈরাগী রাস্তার মাথা সংলগ্ন হেলালী হুজুরের বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে।  

সূত্র জানায়, রোববার বিকেলের দিকে তরফিক দাদার বাড়ির পুকুরে মাছ ধরতে গিয়ে পানিতে পড়ে যায়। পরে পুকুর থেকে তাকে তুলে পল্লী চিকিৎসকের নিয়ে গেলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। সে মৃগী রোগি ছিলেন বলেও জানা যায়।

চর জব্বার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো.জিয়াউল হক ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

আরও পড়ুন:


চট্টগ্রামে করেনা ও উপসর্গ নিয়ে ১১ জনের মৃত্যু

পিয়াসা ও মৌ উচ্চবিত্তদের বাসায় ডেকে ব্ল্যাকমেইল করত : হারুন

৯৯৯ এ ফোন কলেবারান্দার কার্নিশ আটকে পড়া কিশোরী উদ্ধার

পোশাকের নেমপ্লেট খুলে চাঁদাবাজির অভিযোগে এসআই স্ট্যান্ড রিলিজ


news24bd.tv / কামরুল 

পরবর্তী খবর

দিনাজপু‌রে আগুনে ভস্মীভূত ১৭‌ ঘর

ফখরুল হাসান পলাশ, দিনাজপুর

দিনাজপু‌রে আগুনে ভস্মীভূত ১৭‌ ঘর

দিনাজপুরের খানসামায় বিদ্যুতের শর্টসার্কিটের আগুনে পুড়ল ৬ পরিবারের ১৭‌টি বসতঘর। রোববার দুপুরে উপজেলার ভেড়ভেড়ী ইউনিয়নের চকরামপুর গ্রামের মাঝাপাড়ায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে স্থানীয়দের সহায়তায় ফায়ার সার্ভিসের একটি ইউনিট ঘণ্টাব্যাপী চেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে।

জানা যায়, রোববার দুপুর ১ টার পর চকরামপুর গ্রামের মাঝা পাড়া এলাকার ভূপেন্দ্রনাথ রায়ের বসতঘরে আগুন লাগে। মুহূর্তেই আগুন ছড়িয়ে পড়ে চারিদিক। একে একে ১৭টি বসতঘর, গোয়াল ও রান্নাঘর এবং আসবাবপত্রসহ ঘরের সমস্ত জিনিসপত্র পুড়ে ছাই হয়ে গেছে।

এদিকে খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে যান ইউএনও আহমেদ মাহবুব-উল-ইসলাম, ভেড়ভেড়ী ইউপি চেয়ারম্যান হাফিজ সরকার। তারা ক্ষতিগ্রস্তদের সহযোগিতার আশ্বাস দেন।

খানসামা ফায়ার সার্ভিসের স্টেশন অফিসার মমতাজুল ইসলাম জানান, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে স্থানীয়দের সহযোগিতায় আগুন নেভানোর পাশাপাশি ঘর থেকেও অনেক জিনিসপত্র বের করতে পেরেছি। বিদ্যুতের শর্টসার্কিট থেকে আগুনের সূত্রপাত। কী পরিমাণ ক্ষতি হয়েছে সেটা নিরূপণের কাজ চলছে বলে জানান তিনি।

আরও পড়ুন:


ঘরে ফিরতেই মাকে জড়িয়ে হাউমাউ করে কেঁদে উঠল মেয়ে

পর্নো ভিডিওর প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় স্ত্রীকে নির্যাতন


 news24bd.tv তৌহিদ

পরবর্তী খবর