জর্দা নিয়ে শিশু ছাত্রীটি কক্ষে ঢোকামাত্র দরজা বন্ধ করে হুজুর!
জর্দা নিয়ে শিশু ছাত্রীটি কক্ষে ঢোকামাত্র দরজা বন্ধ করে হুজুর!

জর্দা নিয়ে শিশু ছাত্রীটি কক্ষে ঢোকামাত্র দরজা বন্ধ করে হুজুর!

অনলাইন ডেস্ক

ফেনীর সোনাগাজীতে তৃতীয় শ্রেণির এক মাদ্রাসাছাত্রীকে ধর্ষণের চেষ্টার অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় মাওলানা জামাল উদ্দিন (২৬) নামে ওই মাদ্রাসা শিক্ষককে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

গত ২৬ জুন উপজেলার রহমানিয়া আরবিয়া মাদ্রাসা ও এতিমখানায় এ ঘটনা ঘটে।

এ ঘটনায় সোমবার (২৮ জুন) বিকেলে ছাত্রীর মা বাদী হয়ে মাদ্রাসা শিক্ষক মাওলানা জামাল উদ্দিনকে আসামি করে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে সোনাগাজী থানায় একটি মামলা দায়ের করে।

পরে পুলিশ অভিযান চালিয়ে উপজেলার পূর্ব সুজাপুর এলাকা থেকে অভিযুক্ত শিক্ষককে গ্রেপ্তার করে। তিনি ওই মাদ্রাসার আরবি শিক্ষক।  

পুলিশ জানায়, গত ২৬ জুন বিকেলে ওই ছাত্রী আরবি পড়তে মাদ্রাসায় যায়। শিক্ষক জামাল উদ্দিন তাকে ২০ টাকা দিয়ে মাদ্রাসার সামনের দোকান থেকে একটি জর্দা আনতে পাঠিয়ে তিনি দ্বিতীয় তলায় বিশ্রামাগারে চলে যান। জর্দা নিয়ে ওই শিক্ষার্থী মাদ্রাসার দ্বিতীয় তলার ওই কক্ষে ঢোকামাত্র জামাল উদ্দিন কক্ষের দরজা বন্ধ করে তাকে ধর্ষণের চেষ্টা করেন।

ছাত্রীর চিৎকারে মাদ্রাসার প্রধান শিক্ষক ইসমাইল হোসেন ওই কক্ষে গিয়ে শিক্ষককে গালমন্দ করে ছাত্রীকে ছুটি দিয়ে বাড়িতে পাঠিয়ে দেন। পরে বাড়িতে গিয়ে ওই ছাত্রী কান্নাকাটি করে তার মাকে বিষয়টি জানায়।

ছাত্রীর মা মাদ্রাসায় গিয়ে প্রধান শিক্ষক মাওলানা ইসমাইল হোসেন ও পরিচালনা পর্ষদকে অবহিত করেন। তারা বিষয়টি সমাধানের আশ্বাস দিয়ে কাউকে জানাতে নিষেধ করেন।

আরও পড়ুন:


বাংলাদেশ-ভারত সীমান্ত বন্ধের সময় আরও বাড়ল

বসুন্ধরা কিংসের গোল উৎসব

প্রেমের ফাঁদে ফেলে অষ্টম শ্রেণির ছাত্রীকে ধর্ষণ


news24bd.tv / তৌহিদ

;