কেন পরবেন সানগ্লাস?

অনলাইন ডেস্ক

কেন পরবেন সানগ্লাস?

চোখ অনেক সংবেদনশীল একটি অঙ্গ। দীর্ঘমেয়াদী সূর্যের সংস্পর্শে থাকলে চোখের বিভিন্ন সমস্যার সৃষ্টি হতে পারে। তাই চোখকে বাঁচাতে সানগ্লাস পড়া জরুরি।  এটি সূর্যের অতিবেগুনী রশ্মির বিরুদ্ধে সম্পূর্ণ সুরক্ষা সরবরাহ করে।

১. চোখের নানা সমস্যা থেকে বাঁচায়
চোখের ছানি এবং গ্লুকোমাসহ চোখের নানা ধরনের সমস্যা থেকে সুরক্ষা দেয় সানগ্লাস। চোখের চারপাশের ত্বক ও চোখের পাতা খুবই সংবেদনশীল। যা সূর্যের আলোয় আরও ক্ষতিড়গ্রস্ত হতে পারে। বড় আকারের সানগ্লাস চোখের পাশাপাশি এর পাতা ও নিচের অংশকেও সুরক্ষিত রাখে।

২. ক্ষতিকর উপাদান থেকে সুরক্ষা
সূর্যই একমাত্র নয়, যা চোখের ক্ষতি করে। বাইরের ধুলাবালি, বাতাসসহ বিভিন্ন ছোট পোকা চোখে যেতে পারে।  বালির ক্ষুদ্র দানা স্থায়ী ক্ষতি করতে পারে। এসব থেকে রক্ষা পেতে তাই সানগ্লাস ব্যবহার করা জরুরি।

৩. মাথাব্যথা ও মাইগ্রেনের ব্যথা কমাতে
সূর্যের তাপ মাইগ্রেন এবং মাথাব্যথার কারণ হতে পারে। বাইরে বের হওয়ার সময় নিয়মিত সানগ্লাস পরলে এই সমস্যা থেকে রক্ষা পাওয়া যাবে। অনেকেই রোদে ঠিকমতো তাকাতে পারেন না কিংবা রোদে বের হলেই মাথাব্যথা করে। তাদের উচিত রোদে বের হলেই সানগ্লাস পরা।

news24bd.tv/এমিজান্নাত 

পরবর্তী খবর

আজকের রাশিফল, কী আছে ভাগ্যে জেনে নিন

অনলাইন ডেস্ক

আজকের রাশিফল, কী আছে ভাগ্যে জেনে নিন

আজ সোমবার, ২৭ সেপ্টেম্বর। বৈদিক জ্যোতিষে ১২টি রাশি- মেষ, বৃষ, মিথুন, কর্কট, সিংহ, কন্যা, তুলা, বৃশ্চিক, ধনু, মকর, কুম্ভ ও মীন-এর ভবিষ্যদ্বাণী করা হয়। একই রকমভাবে ২৩টি নক্ষত্রেরও ভবিষ্যদ্বাণী করা হয়ে থাকে। ভাগ্য রেখা অনুযায়ী আপনার আজকের দিনটি কেমন কাটবে, দেখে নিন।   

মেষ: কোনো যোগাযোগে উৎসাহিত হবেন। পূর্বের কোনো সমস্যার সমাধানের পথ পাবেন। শুভাকাঙ্ক্ষীর পরামর্শে উপকৃত হতে পারেন। কর্মক্ষেত্রে সাময়িক উদ্বেগ থাকলেও অসুবিধা হবে না।

বৃষ: অর্থপ্রাপ্তির সম্ভাবনা আছে। কারো আশীর্বাদ মনে শান্তি এনে দেবে। কাজে সাময়িক বাধাকে উপেক্ষা করতে হবে। দৃঢ় মনোবলের সঙ্গে কাজ করলে সফলতা পাবেন। ভ্রমণ শুভ।

মিথুন: আপনার কাজে অন্যদের সমর্থন পাবেন। কাজকর্মে আত্মবিশ্বাস বাড়বে। জনপ্রিয়তা অর্জনের সুযোগ আসতে পারে। বন্ধু ও সঙ্গীর কাছ থেকে সহযোগিতা পাবেন। কাজে কৌশলী হতে হবে।

কর্কট: কিছুটা মানসিক চাপ থাকতে পারে। ব্যয় বাড়বে। কাজে স্থবিরতা দেখা দিতে পারে। ন্যায্য প্রাপ্তিতে বাধা। বুদ্ধিবলে ইতিবাচক পরিবেশ তৈরি করতে হবে। প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখুন।

সিংহ: আয়ের পরিধি বাড়বে। কাজে অন্যের সহযোগিতা পাবেন। প্রিয়জনের স্বাস্থ্যের উন্নতিতে মানসিক প্রফুল্লতা। নতুন কাজের সুযোগ ও উপার্জন বৃদ্ধি পেতে পারে। বন্ধুসঙ্গ আনন্দ দেবে।

কন্যা: কোনো যোগাযোগ আর্থিক উন্নতির সহায়ক হতে পারে। ব্যবসা আগের তুলনায় লাভদায়ক হবে। কর্মক্ষেত্র থাকবে উদ্দীপনাপূর্ণ। মানসিক চাপ কিছুটা কমবে। নতুন সুযোগের সদ্ব্যবহার করা উচিত।

তুলা: শিক্ষার্থীদের পড়াশোনায় অগ্রগতি। বৈদেশিক কাজে জটমুক্তির আশা করা যায়। দূরের ব্যাবসায়িক যোগাযোগ শুভ। যেকোনো জটিলতা নিরসনের জন্য অভিজ্ঞদের সঙ্গে আলোচনা করা প্রয়োজন।

বৃশ্চিক: কোনো নতুন বিষয় আলোকপাত করতে পারে। প্রিয়জনের অসুস্থতায় চিন্তিত থাকতে পারেন। শারীরিকভাবে ক্লান্তি বোধ করবেন। যানবাহন চলাচলে সতর্ক থাকুন। স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলুন।

ধনু: যৌথ ও সম্মিলিত প্রচেষ্টায় কোনো সাফল্যে আশাবাদী হতে পারেন। প্রণয়ক্ষেত্র কিছুটা আনন্দ দেবে। পেশাজীবীরা অপছন্দের কাজ থেকে বিরত থাকলে ভালো করবেন। দূরের যাত্রা শুভ।

আরও পড়ুন


সব্যসাচী লেখক সৈয়দ শামসুল হকের পঞ্চম মৃত্যুবার্ষিকী আজ

নগরে এসছে শরৎকাল

অবসান ঘটতে যাচ্ছে আঙ্গেলা ম্যার্কেলের

শিশু সন্তানকে জবাই করে মায়ের আত্মহত্যার চেষ্টা, আটক মা


মকর: কর্মক্ষেত্রে যোগাযোগে ভাটা পড়তে পারে। কোনো কর্মপ্রচেষ্টায় এগোতে পারবেন। পরিশ্রম করলে সুফল পাবেন। কাজে মনোযোগ দিন। আত্মবিশ্বাস বাড়ান। পরিবেশ আপনার পক্ষে থাকবে।

কুম্ভ: মানসিক প্রফুল্লতা থাকবে। অপ্রত্যাশিত প্রাপ্তির সম্ভাবনা। কোনো গুণের জন্য প্রশংসা পেতে পারেন। শুভ কর্মে অর্থ ব্যয়। বন্ধু ও সঙ্গীর কাছ থেকে সহযোগিতা পাবেন। রোমান্স শুভ।

মীন: পরিবারের উন্নতির জন্য আপনার প্রচেষ্টা সফল হবে। নতুন কোনো সিদ্ধান্ত নেওয়ার ব্যাপারে তাড়াহুড়া করা ঠিক হবে না। সঠিক পরিশ্রমে সুফল আসবে। নিরর্থক বিতর্কে আপনার সময় নষ্ট করবেন না।

news24bd.tv রিমু  

পরবর্তী খবর

সাপে কামড়ালে যা করবেন

অনলাইন ডেস্ক

সাপে কামড়ালে যা করবেন

আমাদের দেশের গ্রামগঞ্জে প্রায়ই সাপের কামড়ে মৃত্যুর খবর শোনা যায়। তবে সাপে কামড়ালে অধিকাংশ মানুষেরই যে ভয়ে মৃত্যু হয় এ কথা অনেকেরই জানা।

প্রচলিত কিছু ধারণা, কুসংস্কারের বশে অনেকেই সাপের কামড়ে আক্রান্তের ওপর এমন কিছু টোটকা প্রয়োগ করেন, যাতে হিতে বিপরীত হয়। সাপে কামড়ানোর পরে সঠিক পদক্ষেপগুলো নেওয়া অত্যন্ত জরুরি।

সাপে কামড়ালে যে লক্ষণগুলি থাকবে:

> দুচোখের পাতা বন্ধ হয়ে আসবে।
> কামড়ের স্থানে প্রচুর জ্বালা যন্ত্রণা হবে।
> সব কিছু ঝাপসা দেখবে রোগী।
> ঢোক গিলতে অসুবিধা হবে।
> গলা বন্ধ হয়ে আসবে।
> শরীর ফুলে ওঠবে।

সাপে কাটলে যা করবেন:

> আক্রান্ত ব্যক্তিকে আশ্বস্ত করতে হবে। বেশিরভাগ কবলিত মনে করেন মৃত্যু অবশ্যম্ভাবী। তাই জরুরিভিত্তিতে তাকে সাহস দেয়া ও প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে যথাযথ স্থানে/হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য পাঠালে রোগী বিশ্বাস ও সাহস ফিরে পাবে।

> দংশিত স্থান কিছুতেই কাটাছেড়া করা উচিত নয়। কেবল ভেজা কাপড় দিয়ে কিংবা জীবাণুনাশক লোশন দিয়ে ক্ষতস্থান মুছে দিতে হবে।

> দংশনকৃত স্থান থেকে ভিতরের দিকে সাথে সাথে গামছা বা কাপড় দিয়ে কেবল একটি গিঁট (পায়ে দংশন করলে রানে, হাতে দংশন করলে কনুইয়ের উপরে) এমনভাবে দিতে হবে যেন খুব আটসাঁট বা ঢিলে কোনটাই না হয় (একটি আঙুল একটু চেষ্টায় ভেতরে যেতে পারে)।

> সাপে কাটার স্থান বেশি নড়াচড়া করা যাবে না। কারণ মাংসপেশী সংকোচন করলে বিষ দ্রুত শরীরে ছড়িয়ে পড়ে।

> রোগীকে দ্রুত হাসপাতালে পাঠাতে হবে। স্থানান্তরের সময় আক্রান্ত ব্যক্তিকে হাঁটতে দেয়া যাবে না। রোগীকে কঁাধে, খাটিয়ায় বা দোলনায় করে হাসপাতালে নিয়ে যেতে হবে।

> সম্ভব হলে সাপের প্রজাতি ও বিষধর কিনা তা নিরূপণের জন্য সাথে নিতে হবে। সাপ পরিবহনে খেয়াল রাখতে হবে, সাপটি মৃত নাকি মরে যাওয়ার ভান করে আছে।

আরও পড়ুন:


বিমানবন্দরে শুরু আরটি-পিসিআর ল্যাবের কার্যক্রম

নির্মাণশৈলী ও রাতে নৈসর্গিক দৃশ্য দেখতে পায়রা সেতুতে পর্যটকদের ভিড়

কাল লাখ লাখ অ্যান্ড্রয়েড স্মার্টফোন বন্ধ হয়ে যাবে!

জাপার ফিরোজ রশীদের বিরুদ্ধে সম্পত্তি দখলের অভিযোগ, হাইকোর্টের আদেশ স্থগিত


> জরুরি কোনো উপসর্গ না থাকলে বিষদাতের চিহ্ন পরীক্ষার জন্য দংশিত স্থান পরীক্ষা করতে হবে। বিষ দাঁতের দাগ প্রায় আধা ইঞ্চি ফাকে দুটি খোচা দেয়ার চিহ্ন হিসাবে অথবা কেবল আচড়ের দাগ হিসেবে দেখা যেতে পারে। দুটো বিষদাঁতের চিহ্ন পরিষ্কারভাবে থাকলে খুব সম্ভবত সাপটি বিষধর, তবু বিষদাঁতের চিহ্ন না থাকলে যে সাপটি বিষধর নয় তা বলা যাবে না।

> কামড়ানো স্থানে চামড়ার রঙের পরিবর্তন, কালচে হওয়া, ফুলে যাওয়া, ফোসকা পড়া, পচন ধরা ইত্যাদি হতে পারে। আবার কোনো পরিবর্তন নাও থাকতে পারে। প্রাথমিক চিকিৎসার ফলেও স্থানীয় পরিবর্তন হতে পারে।

news24bd.tv নাজিম

পরবর্তী খবর

ড্রাগন ফল দূর করে কোষ্ঠকাঠিন্য ও রক্তশূন্যতা

অনলাইন ডেস্ক

ড্রাগন ফল দূর করে কোষ্ঠকাঠিন্য ও রক্তশূন্যতা

একটা সময় ড্রাগন ফল আমাদের দেশে অপরিচিত থাকলেও বর্তমানে প্রায় সবাই এটিকে চেনে। লাল টকটকে সুমিষ্ট ও সুস্বাদু দানাযুক্ত ফলটির সুপারফুড হিসেবেও বেশ খ্যাতি কুড়িয়েছে।

বিদেশি এই ফলটির স্বাস্থ্য উপকারিতা বলে শেষ করা যাবে না। এটি বর্তমানে আমাদের দেশেও চাষ হচ্ছে। ড্রাগন ফলে থাকা ভিটামিন সি আমাদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে ও ত্বক ভালো রাখতে সহায়তা করে। আর এটি কোষ্ঠকাঠিন্য ও রক্তশূন্যতা দূর করতেও অনেক কার্যকরী।

রও পড়ুন:


কাল লাখ লাখ অ্যান্ড্রয়েড স্মার্টফোন বন্ধ হয়ে যাবে!

বিয়ের আগেই পাত্রের মাকে নিয়ে পালিয়ে গেল পাত্রীর বাবা!

বিশ্বকাপের আগে কোহলিকে স্বস্তি দিলেন অশ্বিন

ইংরেজি শেখার জন্য বিয়ে করেছিলেন শেবাগ-যুবরাজ-হরভজন!!


এ ছাড়া ড্রাগন ফলের রয়েছে অনেক স্বাস্থ্য উপকারিতা। আসুন জেনে নিই সেই সম্পর্কে—

১. দীর্ঘস্থায়ী রোগের বিরুদ্ধে লড়াই করে
ড্রাগন ফলে প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট থাকায় এটি ফ্রি র্যাডিকেলগুলোর কারণে হওয়া প্রদাহ ও কোষের ক্ষতি থেকে হওয়া রোগের বিরুদ্ধে লড়ে। গবেষণায় দেখা গেছে, উচ্চমাত্রার অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ খাদ্য হৃদরোগ, ক্যান্সার, ডায়াবেটিস এবং আর্থ্রাইটিসের মতো দীর্ঘস্থায়ী রোগ প্রতিরোধে সাহায্য করতে পারে।

২. হজমে উপকারী
ড্রাগনে প্রচুর পরিমাণে ফাইবার থাকে এবং এ ফলটি অনেকটা পিচ্ছিলজাতীয় হওয়ায় এটি হজমে অনেক ভালো। এ ছাড়া গবেষণায় বলা হয়েছে— এটি হৃদরোগ থেকে রক্ষা করতে; টাইপ-২ ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে এবং সুস্থ শরীরের ওজন বজায় রাখতে ভূমিকা রাখতে পারে।

৩. পচনতন্ত্র ভালো রাখে ও ডায়রিয়ার ঝুঁকি কমায়
ড্রাগন ফলের মধ্যে প্রিবায়োটিক থাকার কারণে এটি অন্ত্রের ভালো ব্যাকটেরিয়ার ভারসাম্যকে উন্নত করতে পারে। আর নিয়মিত প্রিবায়োটিক গ্রহণ করলে সেটি আপনার পচনতন্ত্র ভালো রাখতে এবং ডায়রিয়ায় সংক্রমণের ঝুঁকি কমতে পারে।  ভ্রমণকারীদের একটি গবেষণায় দেখা গেছে যে, যারা ভ্রমণের আগে এবং সময়কালে প্রিবায়োটিক সেবন করেছিলেন, তাদের কমসংখ্যক ডায়রিয়ার অভিজ্ঞতা পেয়েছিলেন।

৪. ইমিউন সিস্টেমকে উন্নত করে
ড্রাগন ফলের মধ্যে থাকা ভিটামিন সি ও ক্যারোটিনয়েডগুলো আপনার ইমিউন সিস্টেমকে বাড়িয়ে তুলতে পারে এবং শ্বেত রক্তকণিকাগুলোকে ক্ষতি থেকে রক্ষা করে সংক্রমণ প্রতিরোধে সহায়তা করতে পারে।

৫. আয়রন মাত্রা বৃদ্ধি করে
শরীরে আয়রনের মাত্রা বৃদ্ধি করতে অন্যতম একটি ফল হচ্ছে ড্রাগন। আর আয়রন আপনার পুরো শরীরজুড়ে অক্সিজেন পরিবহণে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে এবং খাদ্যকে শক্তিতে বিভক্ত করতেও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

৬. ম্যাগনেসিয়ামের ভালো উৎস
এক কাপ পরিমাণ ড্রাগন ফলে প্রায় ১৮ শতাংশ পর্যন্ত ম্যাগনেসিয়াম থাকে এবং এটি অধিকাংশ ফলের তুলনায় বেশি। আর ম্যাগনেসিয়াম এমন একটি খনিজ, যা প্রতিটি কোষে উপস্থিত থাকে এবং আমাদের শরীরের ৬০০টিরও বেশি গুরুত্বপূর্ণ রাসায়নিক বিক্রিয়ায় অংশ নেয়। এর মধ্যে অন্যতম হচ্ছে— এটি খাদ্যকে ভেঙে শক্তিতে রূপান্তরিত করা, পেশি সংকোচনে, হাড়ের গঠনে এবং ডিএনএ (DNA) তৈরির প্রয়োজনীয় বিক্রিয়াগুলোতে অংশ নেয়।

তথ্যসূত্র: হেলথলাইন ডটকম

NEWS24.TV / কামরুল

পরবর্তী খবর

আজকের রাশিফল, কী আছে ভাগ্যে জেনে নিন

অনলাইন ডেস্ক

আজকের রাশিফল, কী আছে ভাগ্যে জেনে নিন

আজ রবিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর। বৈদিক জ্যোতিষে ১২টি রাশি- মেষ, বৃষ, মিথুন, কর্কট, সিংহ, কন্যা, তুলা, বৃশ্চিক, ধনু, মকর, কুম্ভ ও মীন-এর ভবিষ্যদ্বাণী করা হয়। একই রকমভাবে ২৩টি নক্ষত্রেরও ভবিষ্যদ্বাণী করা হয়ে থাকে। ভাগ্য রেখা অনুযায়ী আপনার আজকের দিনটি কেমন কাটবে, দেখে নিন।  

মেষ: অপ্রত্যাশিত কোনো যোগাযোগ আনন্দ দেবে। অর্থাগমের নতুন সুযোগ আসতে পারে। প্রত্যাশা পূরণে অন্যের সহযোগিতা পাবেন। ভাই-বোনের সঙ্গে মানিয়ে চলুন। বিতর্কে যাবেন না।

বৃষ: কর্ম ও আর্থিক ক্ষেত্র পূর্বের তুলনায় আশাপ্রদ। ব্যবসায় অগ্রগতির যোগ। নতুন কোনো কাজের খবর পেতে পারেন। কোনো সমস্যা সমাধানের যোগ রয়েছে। অন্যের ওপর নির্ভরশীলতা কমাতে হবে।

মিথুন: দিনটি শুভ ও সম্ভাবনাময়। কাজে উন্নতির যোগ ও সুনাম বৃদ্ধি পাবে। কোনো গুরুত্বপূর্ণ কাজের দায়িত্ব নিতে হবে। অমীমাংসিত সমস্যা সমাধানের পথ পাবেন। সময়ের সঠিক ব্যবহার করুন।

কর্কট: শক্তির প্রাচুর্য থাকলেও কাজের চাপ বিরক্তির কারণ হবে। অলসতার জন্য কোনো সুযোগ হাতছাড়া হতে পারে। বাড়তি খরচ নিয়ে চিন্তা হবে। সমস্যা সমাধানে নিজস্ব বুদ্ধিমত্তাকে কাজে লাগান।

সিংহ: কোনো শুভ প্রচেষ্টার পক্ষে দিনটি অনুকূলে। আয় ও অর্থক্ষেত্র কিছুটা অনুকূলে আসবে। কাজের ভালো সুযোগ আসতে পারে। নতুন যোগাযোগ ও বন্ধু সাহচর্য আনন্দ দেবে।

কন্যা: দীর্ঘদিনের পরিশ্রমের মূল্যায়ন হবে। কর্মক্ষেত্রে বসের আনুকূল্য লাভ। কোনো সম্পদ লাভের সূচনা হতে পারে। ব্যবসায়ীদের উদ্যম বৃদ্ধি পাবে। পুরনো পাওনা আদায়ের চেষ্টা করতে পারেন।

তুলা: বৈদেশিক কাজে অগ্রগতি। হাতছাড়া হয়ে যাওয়া সুযোগ ফিরে আসতে পারে। আর্থিক অবস্থার পরিবর্তন হবে। ওষুধ বুঝে খাবেন। পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া থেকে সাবধান। ভ্রমণ শুভ।

বৃশ্চিক: কাজের চাপ থাকবে। পুরনো কোনো ভুলের মাসুল দিতে হতে পারে। সব কিছু সময়মতো নাও হতে পারে। নতুন কাজের সুযোগের সদ্ব্যবহার করুন। আবেগ পরিহার করুন। সুস্থ থাকুন।

ধনু: সামাজিক যোগাযোগ বাড়বে। কোনো একটি ঘটনায় নতুনভাবে আশার সঞ্চার হবে। ক্ষতি পুষিয়ে নেওয়ার সুযোগ পাবেন। পদস্থ ব্যক্তির আনুকূল্য পাবেন। যৌথ বিনিয়োগের সুযোগ আসতে পারে।

আরও পড়ুন


ট্রেনে ডাকাতি ও হত্যার ঘটনায় আটক ৫

আবদুল গাফফার চৌধুরী অসুস্থ, হাসপাতালে ভর্তি

কুমিরের পেট থেকে নিখোঁজ ব্যক্তির দেহাবশেষ উদ্ধার!

চলতি বছর পাঠ্যবইয়ে খোদ জাতীয় সংগীতকেই ভুলভাবে ছাপানো হয়েছে


মকর: কর্মপ্রার্থীদের কাজের সুযোগ আসতে পারে। অনাদায়ি অর্থ পেতে বিলম্ব। মনের ওপর বিরূপ প্রতিক্রিয়া আপনার গতি কমিয়ে দিতে পারে। একাগ্রতার সঙ্গে কাজ করলে সুফল পাবেন।

কুম্ভ: আকস্মিক প্রাপ্তির সম্ভাবনা আছে। কর্মক্ষেত্রে আশার সঞ্চার হবে। বন্ধুর সহযোগিতায় কাজের অগ্রগতি হবে। সামাজিক মর্যাদা বাড়বে। বাস্তবতার নিরিখে সিদ্ধান্ত নিলে সুফল পাবেন। রোমান্স শুভ।

মীন: গৃহস্থালি পরিচালনায় দক্ষতা দেখাতে পারবেন। অল্প কিছুর মধ্যেই বহু কিছু করতে পারবেন। বন্ধু ও প্রিয়জনের জন্য অর্থ ব্যয়। সঠিক প্রচেষ্টায় কাজের উন্নতি হবে। মন ভালো রাখুন।

news24bd.tv রিমু     

পরবর্তী খবর

সন্তানকে ছোটবেলা থেকেই সঞ্চয় করতে শেখানোর টিপস

অনলাইন ডেস্ক

সন্তানকে ছোটবেলা থেকেই সঞ্চয় করতে শেখানোর টিপস

টাকা সঞ্চয় করা খুবই ভালো একটি অভ্যাস। বাবা-মার উচিৎ সন্তানকে ছোটবেলা থেকেই সঞ্চয় করতে শেখানো। চলুন জেনে নেয়া যাক কীভাবে ছোট থেকে সন্তানকে সঞ্চয় করতে শেখাবেন- 

>> টাকা ভেবে-চিন্তে খরচ করা দরকার কেন, তা বোঝান।

>> একটি টাকা জমানোর কৌটো কিনে দিন। তাতে কিছু টাকা রাখতে ইচ্ছা করবেই।

আরও পড়ুন:


ডিসেম্বরেই চালু হবে ৫জি নেটওয়ার্ক: মোস্তাফা জব্বার

দেশে বিনিয়োগ করুন: প্রধানমন্ত্রী

যানজট নিরসনের উদ্যোগ আটকে থাকে মহাপরিকল্পনার নথিতেই

মক্কা-মদিনার মসজিদে কাজ করবেন নারীরা


>> সামান্য অর্থ সামলে রাখতেও দায়িত্ববোধ প্রয়োজন। ফলে ছোট থেকেই অল্প করে টাকার দায়িত্ব দিন সন্তানকে।

>>  ছ’-সাত বছর বয়স থেকেই অল্প করে হাত খরচ দিন শিশুকে। তাতে বুদ্ধি খরচ করে অর্থ ব্যয় করতে শিখবে সে।

>> বাড়িতে যেসব জিনিসপত্র দিয়ে যাচ্ছে, মাঝেমধ্যে সেই বিলের টাকা শিশুর কাছে রাখুন। খরচের পরিমাণ বুঝতে শিখবে সে।

news24bd.tv নাজিম

পরবর্তী খবর