ঘর না থাকায় গাড়িতে রাত কাটাতো জন সিনা
ঘর না থাকায় গাড়িতে রাত কাটাতো জন সিনা

ঘর না থাকায় গাড়িতে রাত কাটাতো জন সিনা

অনলাইন ডেস্ক

জন সিনার নাম বললেই এক নামে চোখে ভেসে ওঠে ডব্লিউডব্লিউইর সেই চেনামুখটাই।   জন সিনা একজন মার্কিন কুস্তিগিরই নন অভিনেতা, র‌্যাপ গায়ক, সফল টিভি ভাষ্যকারও। তার অভিনীত নতুন ছবি  ‘ফার্স্ট অ্যান্ড ফিউরিয়াস’–এর নবম কিস্তি এরইমধ্যে বক্সঅফিসে আলোড়ন তুলেছে। আজ যে জন সিনাকে সবাই চেনে জানে, সেই জন সিনার একটা সময় থাকার ঘর ছিলো না।

 

জন সিনা আজকের মত বিখ্যাত হয়ে ওটার আগে তাকে বহু রাতের পর রাত ঘুমাতে হয়েছে গাড়িতে। সেই গাড়িই তার সবকিছু। গাড়িতেই রাখতেন তার পোশাক। পাবলিক টয়লেট ব্যবহার করে পরিষ্কার হতেন। আর সেটা সেই ১৯৯১ সালের ঘটনা। ওই সময় সিনা একটা জিমেও কাজ করতেন। কিন্তু সেখান থেকে যে আয় হতো, বাড়ি ভাড়া নেওয়ার জন্য সেটা যথেষ্ট ছিল না।

ক্যারিয়ার গড়ার ক্ষেত্রে বাবার কোনো সাহায্য পাননি সিনা। বাবা তাকে রেসলার হতে চাইলে বলতেন, ওই পেশায় তুমি দুই সপ্তাহও টিকে থাকতে পারবে না। সিনা বলেন, বাবার এ কথাগুলো আমাকে এতই পীড়া দিত যে, আমি নীরবে কাঁদতাম বাবা আমার পাশে নেই ভেবে।

বহু প্রতিভার অধিকারী জন সিনা ‘সিনাটিয়ন লিডার’, ‘দ্য চেন গ্যাং সোলজার’ কিংবা ‘দ্য চ্যাম্প’ নামেও পরিচিত। জন সিনার জন্ম যুক্তরাষ্ট্রের ওয়েস্ট নিউবেরিতে। পুরো নাম জন ফেলিক্স অ্যান্টনি সিনা জুনিয়র। ১৯৯৮ সালে স্প্রিংফিল্ড কলেজ থেকে ফিজিওলজি নিয়ে স্নাতক হন তিনি। পরবর্তীকালে পেশাদার বডি বিল্ডিংয়ে যোগ দেন।

১৯৯৯ সালে পেশাদার রেসলিং শুরু করেন তিনি। আল্টিমেট প্রো রেসলিংয়ে হাতেখড়ি হয় তার। ২০০০ সালে যোগ দেন ডব্লিউডব্লিউইতে। পাঁচবার মার্কিন চ্যাম্পিয়ন, চারবার বিশ্ব ট্যাগ চ্যাম্পিয়ন ও ১৬ বার বিশ্ব চ্যাম্পিয়নের খেতাব জেতেন সিনা।

রেসলিংয়ের পাশাপাশি অভিনেতা হিসেবেও সিনার সুনাম চারিদিকে। বহু হলিউড ছবিতে অভিনয় করেছেন। যেমন ‘দ্য মেরিন’, ‘ট্রেনরেক’, ‘ফার্দানান্দ’, ‘বাম্বলবি’ ইত্যাদি। একই সঙ্গে র‌্যাপ গায়কও তিনি। ২০০৫ সালে গানের অ্যালবাম প্রকাশ করেন সিনা, যা প্ল্যাটিনাম হিট হয়।

news24bd.tv/আলী