হীরার নেকলেসে টাটার রক্ষা ও শক্ত মন্ত্রীর কথা

নঈম নিজাম

হীরার নেকলেসে টাটার রক্ষা ও শক্ত মন্ত্রীর কথা

‘জানি জানি প্রিয়, এ জীবনে মিটবে না সাধ,/আমি জলের কুমুদিনী ঝরিব জলে/তুমি দূর গগনে থাকি কাঁদিবে চাঁদ/আমাদের মাঝে বধূ বিরহ বাতাস/চিরদিন ফেলে দীর্ঘশ্বাস।’ প্রেম ও বিরহ নিয়ে কবি নজরুলের অসাধারণ অনেক গানের একটি। বিদ্রোহ, প্রেম, প্রার্থনা সবখানে ছিলেন নজরুল। মানুষের ভিতরটা বুঝতেন অন্তর দিয়ে। এভাবে সবাই মানুষের ভিতরে প্রবেশ করতে পারে না। হৃদয় দিয়ে হৃদয়কে  বোঝার ক্ষমতা সবার থাকে না। স্বার্থের মাঝে বলিদান হয় ভিতরে লুকানো সমুদ্রের সব আবেগ-উচ্ছ্বাস। অনেক সময় সব বুঝে ওঠার আগেই শেষ হয়ে যায়। মান-অভিমান, ভুল বোঝাবুঝিতে জীবনটা কাটিয়ে দিলেন বঙ্কিমের কৃষ্ণকান্তের উইলের গোবিন্দলাল। একদিকে ভ্রমর অন্যদিকে রোহিণী। নিজের অস্থিরতা আর অবিশ্বাসের ছোঁয়ায় সবকিছু বিসর্জনের পর সন্ন্যাস-জীবনই বেছে নিলেন গোবিন্দ। উত্তম-সুচিত্রার ‘জীবন তৃষ্ণা’ ছবির পুরোটাই ছিল কঠিন পারিবারিক লড়াইয়ের ড্রামা। বাড়ি ভাড়া তুলতে গিয়েই সুচিত্রাকে আবিষ্কার উত্তমের। ছবি আঁকেন দেমাকি সুচিত্রা। সেই ছবির প্রদর্শনী ও বিক্রির আয়োজনের জন্য সুচিত্রাকে নিজেদের ক্লাবে আমন্ত্রণ জানান উত্তম। সুচিত্রার ধারণা ক্লাবে কিছু হয় না। কিন্তু ক্লাবে যে অনেক সামাজিক ভালো কাজ হয় তা বোঝাতেই সময় বয়ে যায় উত্তমের। আমন্ত্রণটা ছিল চিত্র প্রদর্শনীর। বিশ্বাস-অবিশ্বাসে অবশেষে সম্মতি মিলল। কিন্তু প্রদর্শনীতে সুচিত্রার ভাইয়ের পাঠানো ব্যক্তি ছবির দাম বাড়াতে কৃত্রিমভাবে নিলামে অংশ নেয়। সবকিছু বুঝে ফেলেন উত্তম। উত্তমের জীবনের সবকিছু দিয়ে দেওয়ার প্রস্তুতিতে কেন এ চাতুরতা- প্রশ্নের উত্তর খুঁজতে সময় বয়ে যায়। এ জগৎসংসার বড় কঠিন। সে কাঠিন্যকে সবাই ভেদ করতে পারে না। আর পারে না বলেই কৃষ্ণকান্তের উইলের নায়ক গোবিন্দলাল সম্পদ উপভোগ বাদ দিয়ে সন্ন্যাস-জীবন বেছে নেন। আর এ নিয়ে শচীকান্ত প্রশ্ন করেন, সন্ন্যাস-জীবনে কি শান্তি পাওয়া যায়? জবাবে গোবিন্দলাল বলেন, ‘কদাপি না। কেবল অজ্ঞাতবাসের জন্য আমার এ সন্ন্যাসীর বেশ।

ভগবানের পায়ে মন স্থাপন করা ছাড়া ভিন্ন কোনো উপায় নেই। এখন তিনিই আমার সম্পত্তি, তিনিই আমার ভ্রমর।’ এ বক্তব্যের পর সন্ন্যাসবেশে থাকা গোবিন্দ চলে গেলেন চিরতরে। তাকে আর কেউ খুঁজে পেল না। এক জীবনে অনেক জটিলতা নিয়েই মানুষকে পথ চলতে হয়। আজকের বিশালত্ব কাল ঠুনকো হয়ে যায়। দুই পয়সারও দাম থাকে না। ক্ষমতা, অর্থ, বিত্ত সব দুই দিনের। শুধু মানুষের জীবনে থেকে যায় সৃষ্টিশীল কাজগুলো। আজকের বিশাল টাটা কোম্পানি শুরুর ইতিহাসে বেরিয়ে আসে শিল্প স্থাপনে পারিবারিক আত্মত্যাগ। বিসর্জন ছাড়া সৃষ্টিশীলতায় পরিপূর্ণতা আসে না। লেডি মেহেরবাই টাটার একটি ছবি পেলাম সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে। ছবিটি তিনি তুলেছেন ১৯০০ সালের দিকে। সে ছবিতে দেখা যায় শাড়ির সঙ্গে বিশাল হীরার নেকলেস পরেছেন লেডি মেহেরবাই। এ নেকলেস ২৪৫ ক্যারেটের দামি হীরা যা বিখ্যাত কোহিনুরের চেয়ে দ্বিগুণ। বিয়েবার্ষিকীতে স্বামী দোরাবজি টাটার কাছ থেকে উপহারটি পেয়েছিলেন মেহেরবাই। এ ভালোবাসা মমতাজ মহলের চেয়ে কোনো অংশে কম ছিল না। টাটা যুগের তখন যৌবন। ব্রিটিশরাও তাদের চোখ-ধাঁধানো উত্থানে বিস্মিত। কিন্তু হঠাৎ করে সে ব্যবসায় দেখা দেয় সংকট। সময়টা ১৯২০ সালের। টাটা আয়রন অ্যান্ড স্টিল আর্থিক সংকটে বন্ধের দিকে এগিয়ে যায়। এ শিল্প বন্ধ হলে শুধু টাটা ক্ষতিগ্রস্ত হবে না, শ্রমিকরাও হারাবে চাকরি। গভীর এ সংকটে স্বামীর পাশে দাঁড়ালেন লেডি মেহেরবাই।

নিজের পছন্দের সেই হীরা বন্ধক রেখে সংকট নিরসন করেন টাটা স্টিলের। চালু হয় শিল্প। টাটা পরিবার আবার ঘুরে দাঁড়ায়। সবকিছু স্বাভাবিক হওয়ার পর বন্ধকী হীরা আবার ফিরিয়ে আনা হয়। কিন্তু সেই শান্তি বেশি দিন স্থায়ী হলো না। হঠাৎ অসুস্থ হলেন মেহেরবাই। ক্যান্সারে আক্রান্ত তিনি। টাটা পরিবারকে শোকসাগরে ভাসিয়ে ১৯৩১ সালে লিউকিমিয়ায় মারা যান। স্বামী দোরাবজি টাটা ভেঙে পড়েন স্ত্রীর মৃত্যুতে। মন-শরীর ভেঙে পড়তে থাকে। জীবন নিয়ে বিশাল শূন্যতা তৈরি হয়। তার পরও বিশাল শিল্প গ্রুপকে ধরে রাখার চেষ্টা চালান। পাশাপাশি মানুষের জন্য বড় কিছু করার কথা ভাবেন। সিদ্ধান্ত নেন ক্যান্সার আক্রান্ত ভারতবাসীর সেবায় কাটিয়ে দেবেন বাকি জীবন। অবিভক্ত ভারতে আলাদাভাবে তখন ভালো কোনো ক্যান্সার হাসপাতাল ছিল না। স্ত্রীর স্মৃতি ধরে রাখতে জনহিতকর আরও কিছু কাজ করার পরিকল্পনা নেন। প্রতিষ্ঠা করেন লেডি টাটা মেমোরিয়াল ট্রাস্ট। প্রথমে বিক্রি করলেন সেই হীরকখন্ড। তারপর বাকি গয়নাগুলোও ছেড়ে দেন। সেই টাকা দান করলেন ট্রাস্টে। শুরু হলো ক্যান্সার হাসপাতাল নির্মাণের কাজ। নাম টাটা ক্যান্সার হাসপাতাল। যা এ উপমহাদেশ নয়, সারা দুনিয়ার ক্যান্সার রোগীদের কাছে জনপ্রিয়। বাংলাদেশের ক্যান্সার রোগীরাও এ হাসপাতালে যান চিকিৎসা নিতে। লেডি টাটার কথা কারও মনে পড়ে কি না জানি না। আলোর পথের প্রয়াস ছিল টাটার এ হাসপাতাল। যা জীবনের আলো ছড়িয়ে দিচ্ছে মানুষের মাঝে।

জনস্বার্থে কাজ সবাই করতে পারে না। মানবতার সেবায় আত্মনিয়োগ করতে মনের বিশালতা লাগে। সবার তা থাকে না। শুধু অর্থসম্পদ হলেই হয় না। মনও থাকতে হয়। এ মনটা সবার নেই। টাটা পরিবারের উত্তরাধিকার ছিল না। পরিবারের দত্তক সন্তান ও তাঁর উত্তরাধিকার নতুন মাত্রায় আনেন আজকের টাটাকে। রতন টাটা দত্তক পরিবারের উত্তরাধিকার। টাটা গ্রুপ এখন বিশ্বের ছয় মহাদেশের ১০০ দেশে ব্যবসা করছে। মানুষের সেবায় কাজ করছে। জামশেদ টাটার হাত ধরে প্রতিষ্ঠিত গ্রুপ বিকশিত তাঁর ছেলে স্যার দোরাবজি টাটার হাত ধরে। ১৯১০ সালে ব্রিটিশ ভারতে শিল্প বিকাশে অবদানের জন্য তিনি ‘নাইট’ উপাধি পেয়েছিলেন। রানীর দরবারে তাঁর আলাদা একটা সম্মান ছিল। ব্রিটিশরাও ব্যবসায়ীদের উৎসাহিত করতেন। পাশে দাঁড়াতেন। ব্যবসা শুরু করেছিলেন দোরাবজির বাবা জামশেদজি।  ১৯০৭ সালে টাটা স্টিল আর ১৯১১ সালে টাটা পাওয়ার চমকে দেয় তখনকার দুনিয়াকে। চেষ্টা থাকলে অনেক কিছু করা যায়। দোরাবজি টাটা স্নাতক শেষ করে দুই বছর সাংবাদিকতা করেন বোম্বে গেজেটে। সময়টা ১৮৮৪ সালের। তারপর বাবার ব্যবসায় মন দেন। টাটা গ্রুপের যাত্রা ১৮৬৮ সালে জামশেদজির হাত ধরে। তাঁর ছেলে দোরাবজি ধীরে ধীরে অভ্যস্ত হন বাবার ব্যবসায়। তাঁর আরেক ভাইও ছিলেন। তাঁরা সেই ব্যবসা ছড়িয়ে দেন বিশ্বের নানা প্রান্তে।

কিন্তু স্ত্রীর মৃত্যু দোরাবজি মেনে নিতে পারেননি। পুরোপুরি ভেঙে পড়েন। এক বছর পর নিজেও চলে যান। তাঁদের কোনো সন্তান ছিল না। সেই টাটা গ্রুপ টিকে আছে ইতিহাস হয়ে। মানবতার সেবায় টাটার অবদান প্রশংসিত। কাজ করতে দরকার শ্রম মেধা ঘাম। জামশেদ টাটা, দোরাবজি শুরু করেন আর রতন টাটা নিজের শ্রম-মেধায় বিকশিত করেন নতুন মাত্রায়। কথায় নয়, মানুষকে কাজ দিয়ে বড় হতে হয়। এ যুগে মানুষ কাজ করে কম কথা বলে বেশি। আর হিংসা-বিদ্বেষ ছড়ায় আপন মহিমায়। নষ্ট-ভন্ডদের একটা যুগ চলছে।

ভেবেছিলাম করোনাকালে মানুষের মাঝে স্বাভাবিকতা ফিরে আসবে। দূর হবে মানসিক অসুস্থতা। কিন্তু কোনো কিছুই দূর হয়নি। বরং বেড়েছে। একটা ভাইরাস প্রমাণ করে দিল এ পৃথিবীতে কেউ কারও নয়। মৃত্যুর সময় প্রিয়জনরা পাশে থাকে না। এমনকি দাফন-কাফনও ঠিকভাবে করে না। তার পরও কীসের জন্য এত প্রতিযোগিতা, সমাজে নোংরামি আর অসুস্থতা? বুঝি না অনেক কিছু। নিজের দাগ-খতিয়ানের খবর নেই, পাড়াপড়শি নিয়ে তাদের ঘুম নেই। দেশ-বিদেশের মাটিতে বসে কিছু মানুষ যা খুশি তা করছে। সাইবারে মিথ্যাচার করে চলেছে সরকারের ঘুমিয়ে থাকার সুযোগে। লাগামহীনতারও একটা শেষ আছে। কিন্তু এখানে কিছু নেই। বিশ্বাসের জায়গাগুলো শেষ হয়ে যাচ্ছে। আজকের আপনজনই কাল হয়ে উঠছে ভয়ংকর মূর্তি। উচ্চ আদালত উদ্বেগ প্রকাশ করেছে স্বামী-স্ত্রীর ছাড়াছাড়ির সময় পরস্পরকে বাজেভাবে আক্রমণ করে ব্যবহৃত ভাষার প্রয়োগ নিয়ে। দুজন মানুষ প্রেমে গদগদ ভাব দেখান। কিন্তু ছাড়াছাড়ির পর বোঝা যায় আসল চরিত্র। একই ছাদের নিচে থাকা মানুষের মাঝে ভাঙা-গড়ার খেলা আসতেই পারে। বিদায়ের সময় একটু শালীনতা থাকলে সমস্যা কী? কেউ বোঝে না বাবা-মায়ের বিরোধে বাজে খেসারত দিতে হয় সন্তানকে। অথচ স্বামী-স্ত্রী একসঙ্গে থাকার সময় আবেগের শেষ থাকে না। কত রং-ঢং করে ফেসবুকে ছবি দেন। সামাজিক, পারিবারিক অনুষ্ঠানে যোগ দেন। অথচ সম্পর্কটা কোনো কারণে নষ্ট হলে কুৎসিত একটা চেহারা বেরিয়ে আসে দুই পক্ষের। ডিভোর্সের কাগজে দুজন পরস্পরের বিরুদ্ধে পৃথিবীর সবচেয়ে খারাপ ভাষাগুলো ব্যবহার করেন। উচ্চ আদালত ডিভোর্স পেপারের বাজে ভাষার লেখালেখি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে।

আরও পড়ুন


রাজধানীতে সকাল থেকে বৃষ্টি, থেমে থেমে চলবে সারাদিন

টাইব্রেকারে সুয়ারেজদের হারিয়ে সেমিতে কলম্বিয়া

রাজধানীতে শিশু গৃহকর্মীকে অমানবিক নির্যাতন, দম্পতি আটক

ইউক্রেনকে গোল বন্যায় ভাসিয়ে ২৫ বছর পর সেমিতে ইংল্যান্ড


মানুষ মুহুর্তে বদলে যায় স্বার্থের জন্য। নিজের ভালো থাকাকে বিসর্জন দিয়ে অন্যকে জ্বালাতে করে নানামুখী আয়োজন। কাজের মানুষকে পথ চলতে হয় কাঠিন্য সামলে নিয়ে। অবশ্য এ নিয়ে দুঃখ করে লাভ নেই। কাজ করতে গিয়ে সবচেয়ে বেশি বাধাগ্রস্ত হতেন আমাদের প্রিয় নবী হজরত মুহাম্মদ (সা.)। নবীর চলার পথে কাঁটা বিছিয়ে রাখতেন এক বুড়ি। ইসলাম ধর্ম প্রচার এ বুড়ির অপছন্দ ছিল। তাই নোংরামির পথ বেছে নিলেন। কিন্তু বেশি কিছু করার ক্ষমতা ছিল না বলে পথে কাঁটা বিছাতেন। হজরত মুহাম্মদ (সা.) সব দেখতেন। জানতেন। কিন্তু কিছু বলতেন না। নীরবে হজম করতেন। পায়ে বিদ্ধ হওয়া কাঁটা তুলে আবার হাঁটতেন। থামাতেন না পথচলা। একদিন চলার পথে দেখলেন পথে কাঁটা নেই। বিস্মিত হলেন নবীজি। একই সঙ্গে উৎকণ্ঠিত হলেন বুড়ির কিছু হয়নি তো? তিনি খোঁজ নিলেন। জানতে পারলেন বুড়ি অসুস্থ। শরীর ভালো যাচ্ছে না তাই বাড়িতেই আছেন। বের হতে পারছেন না। মহানবী বুড়ির বাড়ি গেলেন। দেখলেন অসুস্থ হয়ে বিছানায় শুয়ে থাকা মানুষটিকে দেখার কেউ নেই। সেবাযত্ন করে বুড়িকে সুস্থ করে তুললেন। বুড়ি অবাক হয়ে দেখলেন তার সামনে বসা মহানুভব মানুষটিকে।

সময় বয়ে যায়। এই যুগে এই সময়ে কোনো কিছুই প্রত্যাশা করে লাভ নেই। তবু কিছু কথা বলে যেতে হয়। সেদিন সংসদে দুজন প্রবীণ নেতা কথা বললেন সরকারের ভিতরে আমলাদের সীমাহীন প্রভাব নিয়ে। রাষ্ট্র আমলাকুলের কবলে পড়লে সংকট কমে না, বাড়ে। একটি দেশে আমলারা সব করতে পারলে রাজনীতিবিদদের প্রয়োজন পড়ত না। দুর্বল রাজনীতিবিদ সামনে এলে আমলারা এক হাত নিয়ে নেন। দেখিয়ে ছাড়েন সাপের পাঁচ পা। আবার মন্ত্রী জাফর ইমামের মতো হলে পরিস্থিতি হয় আলাদা। এরশাদের মন্ত্রী ছিলেন কর্নেল (অব.) জাফর ইমাম বীরবিক্রম। ’৭৫ সালের ৩ নভেম্বর খন্দকার মোশতাককে নাজেহাল করেন বঙ্গভবনে। যা এখন ইতিহাসের অংশ। এই বীর মুক্তিযোদ্ধা ’৭১ সালে সাব-সেক্টর কমান্ডার ছিলেন। ফেনীর বিলোনিয়ার আলোচিত যুদ্ধের নেতৃত্ব দিয়েছিলেন। মন্ত্রী থাকাকালে তাঁর কথা শুনছিলেন না সচিব। জাফর ইমাম সাহেব সচিবের কক্ষে গেলেন। দরজা বন্ধ করে বললেন, দেশটা এ জন্য স্বাধীন করিনি। ফাইল সাইনের জন্য ৩০ সেকেন্ড টাইম দিলাম। সচিব ৩০ সেকেন্ডের আগেই ফাইল স্বাক্ষর করেন। বিচার নিয়ে সিনিয়র আমলারা রাষ্ট্রপতির দরবারে গেলেন। বিচারও দিলেন। রাষ্ট্রের স্বাভাবিক গতির জন্যই শক্ত মন্ত্রী দরকার। রাজনৈতিক সরকারে দুর্বল মন্ত্রীরা কখনই কর্মদক্ষতা দেখাতে পারেন না। তারা শুধু চেষ্টা করেন টিকে থেকে নিজের ভোগবিলাস আর আত্মীয়স্বজন নিয়ে ভালো থাকতে। কর্মীদের নিয়েও চিন্তার সময় পান না। জনগণের কথা পরে। জীবনে তারা এর চেয়ে বড় কিছু চাননি। আবার অনেক কিছু না চেয়ে পেয়েছেন। তাই হজম করতে পারছেন না।

লেখক: সিইও, নিউজ টোয়েন্টিফোর ও সম্পাদক, বাংলাদেশ প্রতিদিন।

news24bd.tv এসএম

পরবর্তী খবর

আমলাদের যুদ্ধটা কি রাজনীতিকদের বিরুদ্ধে

নঈম নিজাম

আমলাদের যুদ্ধটা কি রাজনীতিকদের বিরুদ্ধে

দোষটা কার? রাজনীতিবিদ ব্যক্তিত্বহীন হলে আমলারা সীমাহীন দাপুটে হন। আর আমলারা সীমাহীন দাপুটে হলে সবকিছুতে অস্বস্তি তৈরি হয়। সেদিন এক সাবেক আমলা বন্ধু বর্তমান বাস্তবতা নিয়ে আমাকে কিছু কথা লিখে পাঠালেন। তিনি লিখেছেন, ‘আমলারা কি কখনো দুর্নীতিতে রাজনীতিবিদদের চেয়ে কম ছিলেন? আমলা বলতে নিম্ন থেকে সর্বোচ্চ স্তর পর্যন্ত সরকারি  কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সমন্বয়ে সরকারি প্রশাসনযন্ত্রের কথা বলছি। রাজনীতিবিদদের মধ্যে সত্যিকারের দুর্নীতিবাজের সংখ্যা সবচেয়ে কম। প্রশাসনযন্ত্র জনপ্রতিনিধিদের হেয় প্রতিপন্ন করার জন্য জনস্বার্থে নেওয়া তাদের কিছু কর্মকান্ড এবং কিছু অনিচ্ছাকৃত অনিয়মকে ব্যাপকভাবে তুলে আনে। এ ক্ষেত্রে মিডিয়া সত্য-মিথ্যা যাচাই না করে মুখরোচকভাবে এসব বিষয় প্রচার করে রাজনীতিবিদদের চরিত্রহননে প্রশাসনযন্ত্রকে সহায়তা করে। রাজধানীসহ সারা দেশে স্থাবর সম্পত্তির ওপর গবেষণা করলে বোঝা যাবে সমাজের কোন অংশের কত সম্পত্তি আছে আর কত থাকার কথা। রাজনীতিবিদদের পেশা ব্যবসা বা অন্য কিছু। কিন্তু সরকারি কর্মচারীদের আয়ের উৎস একমাত্র চাকরি। আর একটি কথা- একজন জনপ্রতিনিধির জীবন ফলো করলে দেখা যাবে কত জনকে সারা দিন বিভিন্নভাবে আর্থিক সাহায্য দিতে হয় তাকে, সরকারি বরাদ্দের বাইরে। এসব কোনো কিছু গবেষণায় আসে না।’ ঠিকই বলেছেন। ভিন্নমত পোষণ করি না। রাজনীতিবিদরাই নিজেদের খাল কেটে কুমির আনেন। আর সুযোগ নেন আমলারা।

ওয়ান-ইলেভেনের পর অনেক রাজনীতিবিদকে দেখতে যেতাম কারাগারে, হাসপাতালে, আদালতে। ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে দল-মতের বাইরে সবাইকে নিয়ে খাওয়ার আয়োজন করতেন চট্টগ্রামের এ বি এম মহিউদ্দিন চৌধুরী। তিনি আয়োজন করতেন খাওয়ার কাফেলা। জেলখানায় দল -মতের বিভেদ ছিল না। সবাই ছিলেন ওয়ান-ইলেভেন সরকারের বিরুদ্ধে। কুমিল্লা কারাগারে নামাজের ইমামতি করতেন বদরউদ্দিন আহমদ কামরান। সব দলের নেতারা নামাজে অংশ নিতেন। একসঙ্গে মোনাজাতে প্রার্থনা করতেন কারামুক্তির। কাশিমপুরে দলবেঁধে সবাই বিকালের আড্ডা দিতেন। খেলতেন ভলিবল, ব্যাডমিন্টন। দাবা/তাসের আসরও বসত পড়ন্ত বিকালে। মোসাদ্দেক আলী ফালু দুই দলের নেতাদের খোঁজ নিতেন। জানতে চাইতেন কারও কিছু লাগবে কি না। কারাগারের মসজিদগুলোর আধুনিকায়ন নিয়েও ব্যস্ত থাকতেন তিনি। একদিন ঢাকার আদালতপাড়ায় গিয়েছিলাম একজনকে দেখতে। দেখলাম পুলিশ ভ্যানের ভিতরে বসে দুপুরের খাবার খাচ্ছেন সালমান এফ রহমান, রেদোয়ান আহমেদ, সিলভার সেলিমসহ অনেকে। অসহায়ের মতো সবাই হাজিরা দিতে আসতেন। নিজেদের মাঝে আলাপ করতেন, কোনো দিন সব স্বাভাবিক হলে সবাই মিলে একসঙ্গে কাজ করবেন। কোনো বিরোধ থাকবে না। পরস্পরের মাঝে কোনো দূরত্ব থাকবে না। একসঙ্গে এগিয়ে নেবেন বাংলাদেশকে। বিচার করবেন ওয়ান-ইলেভেনের খলনায়কদের। দেশ চলবে রাজনীতিবিদদের কথায়। সেই যুগ নেই। সময়ও নেই। বাস্তবতা হারিয়ে গেছে কোথায় যেন। ইতিহাস থেকে শিক্ষা না নেওয়াই ইতিহাসের শিক্ষা।

বাংলাদেশের জাতীয় সংসদে এখন ব্যবসায়ীদের প্রাধান্য। রাজনীতিবিদদের পরস্পরের বিরুদ্ধে অভিযোগের শেষ নেই। সত্যিকারের রাজনীতিবিদের সংখ্যা কমছে। মন্ত্রিসভায় কতজন ত্যাগী নেতা, দুঃসময়ের মানুষ আছেন? সবখানে সমস্যা, নিজেদের অভ্যন্তরীণ বিরোধ তুঙ্গে। রাজনীতি এখন আর রাজনীতিবিদদের কাছে নেই। নেতাদের অবস্থান খাটো হচ্ছে ঘরে বাইরে। আগাছা-পরগাছা ভর করেছে সরকারি দলে। চর্বি জমেছে ক্ষমতার স্তরে স্তরে। অতিমেদ শরীরের জন্য দীর্ঘমেয়াদে ক্ষতি বয়ে আনে। পরগাছাদের ওপর নির্ভরশীল ক্ষমতাবান দলেরও ধীরে ধীরে বারোটা বাজে। জানি এসব কথা বলে লাভ নেই। কেন লাভ নেই একটা ঘটনার কথা বলছি। এরশাদের পতনের পর আটক হলেন বিদায়ী মন্ত্রী কাজী ফিরোজ রশীদ। জেল খেটে বের হলেন। তিনি তখন থাকতেন ওয়ালসো টাওয়ারে। ফিরোজ ভাইকে দেখতে গেলাম। তিনি কারাজীবনের বিভিন্ন কষ্টের কথা বলছিলেন। কারাভ্যন্তরে অনিয়মের শেষ নেই। দুঃখ করে বললেন, ব্রিটিশ ও পাকিস্তান আমলে রাজনীতিবিদরা জেলে গেলে রাজবন্দীর মর্যাদা পেতেন। সম্মান পেতেন। এখন তা নেই। রাজনীতিবিদরা পরস্পরকে কষ্ট দিয়ে আনন্দ পান। এ নিষ্ঠুরতা বন্ধ করা দরকার। সবকিছু শুনে বললাম, ফিরোজ ভাই আপনি রাজনীতি করেন। কোনো দিন আবার সুযোগ পেলে সবকিছু স্বাভাবিক করার চেষ্টা করবেন। জেলখানার পরিবর্তন আনা কঠিন কিছু নয়। পরিবর্তন তো রাজনীতিবিদরাই আনেন। জবাবে তিনি বললেন, আমি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী হলেও কিছুই ঠিক হবে না। ভুলে যাব নিজের অতীত। কারাগারের কষ্ট। অন্য মতের মানুষকে কষ্ট দিয়ে আনন্দ অনুভব করব। রাজনীতি ভীষণ খারাপ বিষয়।

বয়স বাড়লে মানুষের অতীত বেশি মনে পড়ে। পরিবর্তনের একটা আশা নিয়ে বসে থাকে সাধারণ মানুষ। কিন্তু মানুষের সে আশা আর পূরণ হয় না। রাজনীতি চলে তার আপন মহিমায়। বলছি না সবকিছু স্বাভাবিক। সংকট আমাদের আছে, থাকবে। কিন্তু একজন রাজনীতিবিদকে বাদ দিয়ে কিছুই হবে না। কিছুই হয় না। কথায় কথায় শুধু আমলাদের দোষারোপ করেও লাভ নেই। ব্যক্তিত্ব সবার নিজের কাছে। রাজনীতিবিদ দুর্বল ব্যক্তিত্বের হলে আমলারা সুযোগ নেবেনই। ব্যক্তিত্ববান রাজনীতিবিদ কখনই আমলানির্ভর নন। মন্ত্রী আমির হোসেন আমু, তোফায়েল আহমেদ হলে কি আমলাকে গুরুত্ব দিয়ে মন্ত্রণালয় চালাবেন? প্রবীণ নেতাদের কথা বাদই দিলাম। জাহাঙ্গীর কবির নানক, মাহবুব-উল আলম হানিফ, বাহাউদ্দিন নাছিম, মির্জা আজম কি আমলাদের কথায় চলবেন? সর্বনাশটা হয়েছে ২০১৮ সালের ভোটের কারণে। লাউ, ডাল সব এক হয়ে গেছে। আর হয়েছে বলেই আমলাদের মাঝে একটা অহমিকা তৈরি হয়েছে, তারা সরকারকে ক্ষমতায় এনেছেন। আরে ভাই, ইতিহাস ভুলে গেলে কি চলে? ২০১৪ সাল আর ২০১৮ এক ছিল না। ২০১৪ সালের নির্বাচনকালীন সরকারি দল দুর্বল অবস্থানে ছিল। আর ২০১৮ সালে আওয়ামী লীগ ছিল চাঙা। হামলা-মামলায় বিএনপি কাবু ছিল। আগুনসন্ত্রাসের মামলাগুলোয় বিএনপি প্রার্থীরা এলাকায় যেতে পারতেন না। কর্মীরা বের হতেন না। অন্যদিকে আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা মাঠ নিজেদের নিয়ন্ত্রণে নিয়ে নেন। ব্যবসায়ীরা সমাবেশ করে শেখ হাসিনার পক্ষে নিজেদের অবস্থানের কথা জানান দেন। মিডিয়া থেকে শুরু করে সবকিছুই আওয়ামী লীগের অনুকূলে ছিল। এখানে শতভাগ নিরপেক্ষ ভোট হলেও বিশাল ব্যবধানে জিতত আওয়ামী লীগ। পরিষ্কারভাবে বলছি, আমলা-কামলাদের ভোট নিয়ে অতি উৎসাহ আওয়ামী লীগের সর্বনাশ করেছে। বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশ দিয়েছেন। শেখ হাসিনা লড়াইটা করেছেন ভোট ও ভাতের। অর্থনৈতিকভাবে বাংলাদেশ আজ সমৃদ্ধ। মানুষের ভাতের চিন্তা এখন আর করতে হয় না। আমলাদের ভোট প্রকল্পের কান্ডকীর্তিতে উপকার হয়নি। ক্ষতির রেশ এখন টানতে হচ্ছে রাজনীতিবিদদেরই।

রাজনীতিবিদদের সঙ্গে লড়াইকারী একজন আমলা ছিলেন কামরুল ইসলাম সিদ্দিক। এলজিইডির প্রধান প্রকৌশলী ছিলেন। পরে পিডিবির চেয়ারম্যান ও সচিব হয়েছিলেন। বীর এই মুক্তিযোদ্ধা রাজনীতিবিদদের পাত্তা দিতেন না। এমপিরা দেখা করতে গেলে অনেক সময় সাক্ষাৎও করতেন না। ২৪ ঘণ্টা কাজ করতেন। ঘুমাতেন কয়েক ঘণ্টা মাত্র। রাত ১২টা পর্যন্ত কাজ করে আবার ঘুম থেকে উঠতেন ফজরের আজানের সময়। নামাজ শেষ করে আবার কাজ শুরু করতেন। সচিবালয়ের দুই রুম থেকে শুরু করে আজকের বিশাল এলজিইডির বিকাশ তাঁর হাতে। সচিবালয় থেকে লালমাটিয়ায় একটি ভাড়া বাড়িতে আনলেন এলজিইডি অফিস। মাঝেমধ্যে যেতাম। একদিন তাঁকে প্রশ্ন করলাম, রাজনীতিবিদদের সঙ্গে ভালো ব্যবহার করেন না, অভিযোগ উঠছে। তিনি বললেন, রাজনীতিবিদদের সবচেয়ে সম্মান করি। তাঁরাই দেশ চালাচ্ছেন, চালাবেন। মুক্তিযুদ্ধে অংশ নিয়েছি রাজনীতিবিদদের মুজিবনগর সরকারের অধীনে। মুক্তিযুদ্ধের কমান্ডার ছিলাম। দেশকে ভালোবাসি সবার আগে। কোনো এমপি উন্নয়নকাজে এলে ফেরত দিই না। শতভাগ উন্নয়নের কাজ করি। কিন্তু এমপি সাহেবদের ঠিকাদারি বা অন্য কোনো উন্নয়নবহিভর্‚ত তদবিরগুলো করি না। যারা এ ধরনের কাজ করেন তাদের একটু এড়িয়ে চলি। তিনি আরও বলেছিলেন, দেশের পরিবর্তনের জন্য ভালো মন্ত্রী দরকার। যারা দক্ষ হাতে সব সামলাবেন।

আরও পড়ুন


কুরবানী সংক্রান্ত কিছু গুরুত্বপূর্ণ মাসায়েল

ইভ্যালি নিয়ে যা বললেন ব্যারিস্টার সুমন( ভিডিও)

নিবন্ধন ছাড়াই টিকা পাচ্ছেন গাজীপুরের ২৫ লাখ পোশাক শ্রমিক

ঢাকায় সিনোফার্মের ১০ লাখ টিকা


স্বপ্নবাজ, সফল কামরুল ইসলাম সিদ্দিক তাঁর জীবনে একটি প্রকল্প বাস্তবায়ন করতে পারেননি। সময় পাননি শুরু করতে গৃহহীনদের জন্য স্বল্প খরচে ঘর নির্মাণ। ১৯৯৬ সালে তিনি সে প্রকল্প নিয়েছিলেন। সিদ্ধান্ত ছিল ১ লাখ টাকার ভিতরে ঘর করবেন গরিবের জন্য। একদিন জানতে চাইলাম কী করে সম্ভব এত কম খরচে পাকা ঘর করার। তিনি বললেন, অবশ্যই সম্ভব শতভাগ সততা, নিষ্ঠার সঙ্গে কাজটা করলে। এত বছর পর কথাগুলো মনে পড়ল। সাম্প্রতিক সময়ে কম খরচে গৃহহীনদের জন্য ঘর নির্মাণ নিয়ে বিতর্ক হচ্ছে। ’৯৬ সালের ১ লাখ এখন অনেক টাকা। আমলারা নিজেদের অতিবুদ্ধি খরচ করতে গিয়েই সমস্যাটা তৈরি করেছেন। প্রকল্পের খরচের হিসাবটা আরেকটু বাড়িয়ে টেকসই ঘর নির্মাণের দরকার ছিল। কৃপণতা করতে গিয়ে সমস্যাটা তৈরি হয়েছে। আবার সব উপজেলায় সরকারি ভালো খাসজমিও নেই। চর বা নিম্নাঞ্চলের জমির অবস্থা সবারই জানা। বাস্তবতার সঙ্গে হিসাব-নিকাশ মেলানো জরুরি ছিল। তা করা হয়নি। রাজনীতিবিদরা যুক্ত থাকলে চুরি বাড়ত কি কমত সে বিতর্কে যাচ্ছি না। তবে এটুকু বলছি, হয়তো এত বিতর্ক তৈরি হতো না।

চলার পথে কাজ করতে গেলে সমালোচনা শুনতে হবে। শুধু প্রশংসাই শুনবেন এমন আশা করা ঠিক নয়। ‘নাইট’ উপাধি ত্যাগ করেন রবীন্দ্রনাথ জালিয়ানওয়ালাবাগ হত্যাকান্ডের প্রতিবাদে। এ নাইট উপাধি নেওয়ার পর একদল লোক বলেছিল, রবীন্দ্রনাথ শেষ হয়ে গেলেন। ব্রিটিশদের কাছ থেকে নাইট উপাধি নেওয়া ঠিক হয়নি। আবার ছেড়ে দেওয়ার পর আরেক দল বলতে শুরু করল, কেন তিনি ছাড়লেন? এ নাইট উপাধি ত্যাগে কি ভারত স্বাধীন হয়ে যাবে? মানুষের মনোজগৎ বড় অদ্ভুত। মানুষের ভিতরটা এখন প্রকাশ হচ্ছে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে। চারপাশে চলা মানুষগুলো কতটা অসুস্থ, অশ্লীল, নোংরা, হিংসুটে, ঈর্ষাকাতর, ভন্ড বুঝতে ফেসবুকে নজর রাখুন। দেখবেন ফেসবুক লেখনীতে সবাই নিজের আসল চেহারা জানান দিচ্ছেন। কারও মানসিক বিকৃতি ও অসুস্থতা জানতে এখন মনোবিজ্ঞানীর কাছে খোঁজ নেওয়ার দরকার নেই। কিছুদিন একজনকে ফলো করলেও চরিত্রটা বেরিয়ে আসে। আগের দিনে কারও বিয়ের আগে পরিবারের খোঁজ নিতে অনেকে গোয়েন্দা লাগাতেন। এখন ফেসবুক পড়লে জানা যায় সবকিছু। মুখোশের আড়ালে মানুষ নিজেকে লুকিয়ে রাখতে পারে না দীর্ঘ সময়। সময়মতো বেরিয়ে আসে আসল চরিত্র নিয়ে। ফেসবুক জমানা আমাদের অনেক কিছু শেষ করে দিচ্ছে। এখানে সম্পর্ক গড়তে ভাঙতে সময় লাগে না। মানুষের আবেগ-অনুভূতির একটা ডিজিটাল যুগ চলছে। সময়টা অনেক বেশি জটিল।  সমাজে কৃত্রিম মানুষের সংখ্যা বেশি। রাজনীতি, অর্থনীতি সবখানেই একটা অস্থির সময় পার করছি। মহামারীকালীন এ অস্থিরতা কোথায় গিয়ে ঠেকাবে জানি না।  মানুষের জীবনটা সব সময় এক রকম যায় না।

লেখক: সিইও, নিউজ টোয়েন্টিফোর ও সম্পাদক, বাংলাদেশ প্রতিদিন।

news24bd.tv এসএম

পরবর্তী খবর

শেখ হাসিনা কেন নোবেল পেলেন না

নঈম নিজাম

শেখ হাসিনা কেন নোবেল পেলেন না

শেখ হাসিনাকে নিয়ে আলোচনা, সমালোচনার শেষ নেই। হুট করে এমন হচ্ছে তা-ও নয়। ১৯৮১ সালে তিনি দলের দায়িত্ব নেন। প্রবীণ রাজনীতিবিদরা সেদিন পাশে থেকেও মন থেকে তাঁকে মেনে নেননি। দলের ভিতরেই তৈরি হয় গভীর ষড়যন্ত্র। তিন বছর না যেতেই প্রথম ভাঙনে সবকিছু বেরিয়ে আসে। পরিবার-পরিজন হারানোর শোক শক্তিতে রূপান্তর করে দেশে আসেন তিনি। নিজের বেদনার অশ্রুর সঙ্গে আকাশের কান্নার স্রোতধারায় দলের দায়িত্ব নেন।  ভাবতেও পারেননি পরিবারের সবাইকে হারাবেন। বাবার আসনে এসে বসবেন। পদে পদে বাধা-বিপত্তি আর চ্যালেঞ্জ সামাল দেবেন। ঘরে-বাইরে শুরু থেকেই ছিল নানামুখী ষড়যন্ত্র আর চক্রান্ত। ঠান্ডা মাথায় তিনি সব মোকাবিলা করেন। শুরু করেন ধ্বংসস্তূপ পরিষ্কার। নতুনভাবে সাজাতে থাকেন সবকিছু। সাধারণ মানুষের সামনে বঙ্গবন্ধুর বিরুদ্ধে আনা অপপ্রচার দূর করে সত্যিকার ইতিহাস জানাতে ছুটতে থাকেন সারা দেশ। ক্লান্তিহীন ছিল সে যাত্রা। আজকের সময়ের সঙ্গে মেলানো যাবে না সেই দিনগুলোকে। ’৮১ সালে যাব না। ২০০১ সালের পরের সঙ্গেও হিসাব মিলবে না।

ইতিহাস তার আপন মহিমায় চলে। শেখ হাসিনার ক্ষেত্রেও ব্যতিক্রম হয়নি। রিপোর্টার্স উইদাউট বর্ডারের খবরটি পড়ছিলাম। অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালও গণমাধ্যমের স্বাধীনতা নিয়ে অনেক কথা বলেছে। যুক্তরাজ্য মানবাধিকার সংস্থাও কম যায়নি বলার ক্ষেত্রে। বাংলাদেশ পরিস্থিতি টানতে গিয়ে সমালোচনা করেছে প্রধানমন্ত্রীর। মানুষের জন্য বড় পরিসরে কাজ করতে গেলে এমনই হয়। কাজ না করলে সমস্যা নেই। আলোচনাও নেই, সমালোচনাও নেই। এ দেশে ঘরে বসে থাকলে কারও কিছু যায় আসে না। কাজ করলেই সমস্যা। সরকারি দলের কাজ আর বিরোধী দলের কাজ এক হয় না। সরকারি দলের লোকের অভাব নেই। বিরোধী দলের জীবন কষ্টকর। ভেবেছিলাম প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে আন্তর্জাতিক অঙ্গনের সমালোচনার জবাব আসবে বলিষ্ঠভাবে। সরকারি প্রতিষ্ঠানগুলো সোচ্চার হবে। আনুষ্ঠানিক বক্তব্য-বিবৃতি দেবে। বাস্তবে তেমন কিছু চোখে পড়েনি। ঘুমিয়ে আছে সরকারি সব প্রতিষ্ঠান। ভাবখানা এমন- প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে বললে কী যায় আসে? সাংবাদিক ইউনিয়ন বিবৃতি দিয়েছে। সরকারের কাছ থেকে আনুষ্ঠানিক বক্তব্য আসা জরুরি ছিল। নেতাদের শুধু বক্তৃতাবাজিতে কাজ হয় না। কখনো কখনো সময়োচিত জবাব দিতে হয়। একটা সময় ছিল শেখ হাসিনা নিজেই নিজের মিডিয়া দেখতেন। তাঁর ব্যক্তিগত কর্মীরা যোগাযোগ রাখতেন মিডিয়ার সঙ্গে। জানিয়ে দিতেন নেত্রীর বিভিন্ন খবরাখবর। ক্ষমতাসীন দল আসমান দিয়ে চলে। মিডিয়ার দায়িত্ববান লোকবলের অভাব নেই। প্রতিষ্ঠানের কমতি নেই। সবাই সব বোঝেন, সব জানেন। তাদের জ্ঞান-গরিমার অভাব নেই। শুধু অভাব শেখ হাসিনাকে নিয়ে দেশ-বিদেশে চালানো কুৎসার পাল্টা জবাবদান। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম পড়লে মনে হয় বাংলাদেশই নেই। সবকিছু শেষ হয়ে গেছে।

দুঃসময়ের শেখ হাসিনাকে কাছ থেকে দেখেছি। এখন তোষামোদকারী চাটুকারদের যুগ চলছে। তারা জানেন না কীভাবে কাজ করতে হয়। সামাল দিতে হয় জটিল পরিস্থিতির। শেখ হাসিনাকে তারা বোঝেন কি না সন্দেহ। ’৯১ সালের নির্বাচনের পরের একটা কথা মনে পড়ছে। সংগঠন নতুনভাবে গোছাতে মাঠে নামেন শেখ হাসিনা। সারা দেশ চষে বেড়াতে থাকেন। দিন-রাতের খবর থাকত না। খাওয়া নেই-দাওয়া নেই সংগঠন আর মানুষের ঘরে ঘরে যেতেন। কাজ করতেন নিরলসভাবে। একবার গেলেন রংপুরে মঙ্গাদুর্গত মানুষের পাশে দাঁড়াতে। সারা দিন নেত্রীর সঙ্গে ঘুরে সাংবাদিকরা ক্লান্ত। সন্ধ্যায় কোনোভাবে ঢাকায় খবর পাঠিয়ে বের হন সবাই রাতের রংপুর দেখতে। সার্কিট হাউসে ফিরতে ফিরতে একটু বিলম্ব হয়। জেগে ছিলেন নেত্রী। তিনি সফরসঙ্গী সাংবাদিকদের ডাকলেন। বললেন, তৈরি থেক সবাই। ভোরে নিয়ে যাব নষ্ট ইতিহাসের আসল রূপ দেখতে। বঙ্গবন্ধু সরকারের বিরুদ্ধে কুৎসার জবাব পাবে। ভোরে ঘুম ভেঙে নেত্রীর সঙ্গে গেলাম কুড়িগ্রামের চিলমারী। রংপুর থেকে আমাদের সঙ্গে যুক্ত হলেন চারণ সাংবাদিক মোনাজাত উদ্দিন। চিলমারী সদর থেকে মাঝিপাড়া এলাকার ব্রহ্মপুত্র নদের চরে বাসন্তীর বাস। ১৯৭৪ সালে দৈনিক ইত্তেফাকে বাসন্তীর জাল পরা ছবি প্রকাশিত হয়েছিল। পরে সারা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়ে সে ছবি। স্বাধীন বাংলাদেশে দুর্ভিক্ষের মূর্তপ্রতীক হিসেবে এ ছবি বঙ্গবন্ধু সরকারকে বিব্রত করে। যার রেশ আওয়ামী লীগকে ’৯১ সালের ভোটেও টানতে হয়েছিল। সেই বাসন্তীকে দেখতে গেলেন শেখ হাসিনা। সঙ্গে একদল সাংবাদিক।

মাঝিপাড়া বাসন্তীর বাড়ি পর্যন্ত গাড়ি যায় না। বেশ কিছুদূর হাঁটতে হয়। হাঁটাহাঁটিতে ক্লান্তি নেই আওয়ামী লীগ সভানেত্রীর। তিনি গাড়ি থেকে নেমেই হাঁটা শুরু করলেন। আমরা পেছনে পেছনে। স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতারা পথ দেখাচ্ছেন। বাসন্তীর ভাঙা বাড়িতে পৌঁছলাম। ’৭৪ সালে বাসন্তীর ভাঙা ঘর আগের মতোই আছে। কোনো পরিবর্তন নেই। বড় করুণ জীবনযাপন। শেখ হাসিনা বললেন, দেখ বাসন্তীকে নিয়ে সবাই বক্তৃতাই দিয়ে গেল। রাজনীতি করল। কিন্তু তার ভাগ্যের পরিবর্তনে কেউ কিছু করল না। বঙ্গবন্ধুকে সারা বিশ্বের মিডিয়ায় বাসন্তীর ছবি বিব্রতকর অবস্থায় ফেলে। তখন জালের চেয়ে মোটা কাপড় সস্তা ছিল। শেখ হাসিনা নগদ ৩০ হাজার টাকা দেন বাসন্তীকে। ঘোষণা দেন এ সাহায্য অব্যাহত থাকবে। স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা আনসার সাহেব, তিনি সাবেক চেয়ারম্যান, দলীয় সভানেত্রীকে জানালেন সে সময় (’৭৪ সালে) লঙ্গরখানা খুলেছিলেন। দুজন সাংবাদিক গেলেন ঢাকা থেকে। তারা বললেন বন্যার সংবাদ সংগ্রহ করছেন। তারাই বাসন্তীকে টাকা দিয়ে জাল পরা ছবিটি তোলেন পাট খেতে শাক তোলার সময়। সেই বাসন্তীকে কাছ থেকে দেখলাম। কথা বলার জন্য সামনে এগিয়ে গেলাম। পাশে থাকা মোনাজাত উদ্দিন বললেন, কথা বলতে পারেন না। প্রতিবন্ধী। ’৭৪ সালে ইত্তেফাকের রিপোর্টার শফিকুল কবীর ও ফটোগ্রাফার আফতাব আহমেদ যান চিলমারীতে। আফতাব আহমেদের ছবি আর শফিকুল কবীরের লেখা প্রকাশিত হয়েছিল ইত্তেফাকে। পরে এ ছবিটি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশের সংবাদপত্রে প্রকাশিত হয়েছিল। বলা হয়েছিল দুর্ভিক্ষ নিয়ন্ত্রণে সরকার ব্যর্থ। সেই প্রচারণার জবাব ক্ষমতাসীন বঙ্গবন্ধুর দল সঠিকভাবে দীর্ঘদিন দিতে পারেনি তখন। সেই দুই সাংবাদিকের শেষ জীবনটা ভালো ছিল না। পারিবারিক কারণে শফিকুল কবীর কষ্ট পেয়ে বিদায় নিয়েছেন। আর আফতাব আহমেদও নিঃসঙ্গ জীবনে মারা যান বাড়ির কাজের লোকদের হাতে।

চিলমারীতে উপস্থিত মানুষের সামনে বক্তব্যও দেন আওয়ামী লীগ সভানেত্রী। পরে তিনি আমাদের বলেন, ছবিটি তোলা হয় পরিকল্পিতভাবে। আওয়ামী লীগের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ণের আন্তর্জাতিক চক্রান্ত ছিল ছবিটি। বিশ্ববাসীর সামনে বঙ্গবন্ধু সরকারকে ক্ষতিগ্রস্ত করতে তোলা ছবি নিয়ে রাজনীতি ঘোলাটে করল সবাই। তৈরি করল ’৭৫ সালের নিষ্ঠুর কালো অধ্যায়ের পথ। কিন্তু বাসন্তীর জন্য কেউ কিছু করল না। আমরা বললাম, এত বছর পরও বাসন্তীর পাশে আপনাকে দাঁড়াতে হচ্ছে। ’৯৬ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর শেখ হাসিনা প্রধানমন্ত্রী হন। বরাদ্দ পাঠান বাসন্তীর জন্য। কিন্তু তার নামে জমি ছিল না। তাই ঘর করতে জটিলতা হয়। শেখ হাসিনার তত্ত্বাবধানেই দীর্ঘদিন পর অবশেষে বাড়ি হয়েছে বাসন্তীর। শেষ বয়সে নতুন জীবন পান বাসন্তী। শেখ হাসিনা কাজ করেন নিজের মতো করে। সিদ্ধান্ত দেন ও নেন মানুষের কল্যাণচিন্তা সামনে রেখে। দেশে উন্নয়ন করতে গিয়ে সব সিদ্ধান্ত ভালো হবে এমন কথা নেই। তাই বলে বসে থাকার সুযোগ আর নেই।

’৯৬ সালের শাসনকালের সঙ্গে আজকের প্রধানমন্ত্রীকে এক করে দেখলে হিসাব মিলবে না। রাজনীতির পরিবেশ সময়ের সঙ্গে পরিবর্তন হয়। বাংলাদেশের রাজনীতির সবচেয়ে বড় ক্ষতি করেছে ২১ আগস্টের গ্রেনেড হামলা। আর রাজনীতিবিদদের থেকে রাজনীতি কেড়ে নিয়েছে ওয়ান-ইলেভেন। এ বাস্তবতা তৈরি নিয়ে কাউকে দায়ী করছি না। নিয়তির নিষ্ঠুর পরিহাস বলেও একটা কথা থাকে। সে অবস্থাকে চাইলেও এড়ানো যায় না। সেদিন এক বন্ধু বললেন, শেখ হাসিনাকে নিয়ে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে সমালোচনার কারণ কী? জবাবে বললাম, সবকিছুতে ব্যর্থ হয়ে দেশ-বিদেশের একদল লোক সাইবারযুদ্ধে নেমেছে। আওয়ামী লীগ সাইবারযুদ্ধের পাল্টা অবস্থানে ব্যর্থ। একমত পোষণ করে সেই বন্ধুটি বললেন, আওয়ামী লীগ শেখ হাসিনাকেই আন্তর্জাতিক অঙ্গনে সঠিকভাবে কখনো নিতে পারেনি। আর পারেনি বলেই পার্বত্য চট্টগ্রাম শান্তিচুক্তি এবং রোহিঙ্গা শরণার্থী ইস্যুতে তাঁর ভূমিকা সঠিকভাবে উপস্থাপন হয়নি। হলে আজ হয়তো তিনি নোবেল পেতেন। শান্তি প্রক্রিয়ায় নোবেল পাওয়ার উপমা অনেক রয়েছে। একটা সময় ব্রিটেনকে টেনশনে থাকতে হতো আইরিশ যোদ্ধাদের হামলার ভয় নিয়ে। একটা শান্তিচুক্তি সবকিছু বদলে দিয়েছে। সেই শান্তিচুক্তির নায়করা নোবেল পেয়েছেন। শান্তি ফিরে এসেছে আয়ারল্যান্ড ইংল্যান্ডের মাঝে। আমেরিকার মধ্যস্থতায় টনি ব্লেয়ার সরকার কাজটি করেছে। প্রক্রিয়া শুরু ’৯৪ সালে। শেষ হয় ’৯৭ সালে। এর মাঝেও উত্তেজনা কম ছিল না। তিন যুগ ধরে ছিল ক্যাথলিক ন্যাশনালিস্ট ও প্রোটেস্ট্যান্ট ইউনিয়নিস্টদের রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের ঘটনা। শান্তিচুক্তির দুই হোতা ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী টনি ব্লেয়ার আর আইরিশ প্রধানমন্ত্রী এহেরেন বেলফাস্টের মাঝের মানুষটি ছিলেন আমেরিকান সিনেটর জর্জ মিশেল। আর শান্তিচুক্তিতে ভূমিকা রেখে নোবেল পেয়েছিলেন রাজনীতিবিদ জনহিউম, ডেভিড ট্রিম্বল। গুড ফ্রাইডে নামে চুক্তিটি বিশ্বখ্যাত ছিল। আবার ভিয়েতনামের শান্তি আলোচনায় প্যারিস চুক্তির জন্য বিপ্লবী নেতা লি ডাক থো ও হেনরি কিসিঞ্জার ১৯৭৩ সালে নোবেল পুরস্কারের জন্য মনোনীত হন। কিন্তু শান্তি স্থাপিত হয়নি দাবি করে পুরস্কার নিতে অসম্মতি জানান ভিয়েতনামের বিপ্লবী নেতা থো। তিনি বলেন, শান্তি স্থাপন শেষ হওয়ার আগে কীসের নোবেল?


আরও পড়ুনঃ

কী দিয়ে তৈরি রুটি বেশি উপকারী?

কানাডায় করোনার গতি কমায় ভ্রমণে বিধিতে পরিবর্তন

তালেবানের হুমকির জবাব দিলো আফগান সরকার

৩০ বছর পর সীমিত পরিসরে ওয়েট ব্লু চামড়া রপ্তানির অনুমতি


পার্বত্য চট্টগ্রাম শান্তিচুক্তি আন্তর্জাতিক অঙ্গনে আলোচিত ও প্রশংসিত ছিল। ’৯৬ সালে ক্ষমতায় এসেই শেখ হাসিনা শান্তিচুক্তি সম্পন্ন করেন। দেশ-বিদেশে অভিনন্দনের বন্যা ছিল। একটি জনগোষ্ঠীকে মূল ভূখন্ডের সঙ্গে সম্পৃক্ত রাখতে এ চুক্তির বিকল্প ছিল না। বাংলাদেশ এখন সে চুক্তির সুফল ভোগ করছে। শেখ হাসিনার আরেকটি বড় সাফল্য রোহিঙ্গা শরণার্থীদের ঠাঁই দেওয়া। এভাবে সবাই পারে না। রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দেওয়ার বিষয়টি অনেক জটিলও ছিল। উন্নত বিশ্বের অনেক দেশ শতাধিক শরণার্থী আশ্রয় দিয়ে ক্লান্ত হয়ে ওঠে। একবার ভাবুন তো ১২ লাখ রোহিঙ্গা শরণার্থীকে আশ্রয় দিয়েছে বাংলাদেশ। মানবিকতার হাত প্রসারিত না হলে এই রোহিঙ্গারা যেত কোথায়? ইতিহাস সব সময় সঠিক ধারায় চলে না। আর চলে না বলেই শেখ হাসিনা এখনো চ্যালেঞ্জ নিয়ে এগিয়ে চলেছেন। একটা সময় ব্রিটিশ সাম্রাজ্যে সূর্য অস্ত যেত না। আমেরিকার মতো দেশকে স্বাধীনতা নিতে হয়েছিল ব্রিটিশের সঙ্গে লড়ে। বাংলাদেশ আজ এগিয়ে চলছে। কারও সমালোচনায় থেমে যাওয়ার সুযোগ নেই। উন্নতি-সমৃদ্ধির এ ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে হবে। আরও অনেক দূর এগিয়ে যেতে হবে। সরকারি খাতের পাশাপাশি বেসরকারি খাত সামনে যাচ্ছে। প্রতিষ্ঠিত হচ্ছে ভারী শিল্প। কয়েক শ বড় ব্যবসায়ী শিল্পায়নে নতুন পথ সৃষ্টি করেছেন। রেমিট্যান্স যোদ্ধাদের পাঠানো রিজার্ভ রেকর্ড তৈরি করেছে। গর্ব করে বলতে পারি, নদীর তলদেশ দিয়ে আমরাও টানেল বানাতে পারি। পদ্মার মতো বিশাল নদীতে স্থাপন করতে পারি ব্রিজ। উড়ালসড়ক, মেট্রোরেলের পর পাতালরেল এখন আর স্বপ্ন নয়। আমাদের জীবদ্দশায় হয়তো দেখে যাব মেট্রোরেল, পাতালরেল দিয়ে গাজীপুর, নারায়ণগঞ্জ, নরসিংদী, মানিকগঞ্জ, মুন্সীগঞ্জ থেকে ঢাকা এসে মানুষ অফিস করছে। শেখ হাসিনা অনেক কিছুর পথ দেখিয়েছেন। তৈরি করেছেন আলোর রশ্মি। সেই আলোকবর্তিকাকে ধরে রেখে এগিয়ে চলার সংগ্রামই এখন বাংলাদেশের সামনে। সমালোচনা আছে, থাকবে।  বুঝতে হবে কাজ করা কঠিন। কিছু মানুষ কাজ করে পথ দেখায়।  আর কিছু মানুষ সমালোচনা করেই জীবন কাটিয়ে দেয়।

লেখক: সিইও, নিউজ টোয়েন্টিফোর ও সম্পাদক, বাংলাদেশ প্রতিদিন

news24bd.tv / নকিব

পরবর্তী খবর

সেই শেখ হাসিনা কি বদলে গেছেন?

নঈম নিজাম

সেই শেখ হাসিনা কি বদলে গেছেন?

বিখ্যাত লেখক সমরেশ মজুমদারের সঙ্গে আমার সম্পর্কটা অন্যরকম। এই জীবনে কিছু মানুষ আমাকে অকারণে পছন্দ করেন। সমরেশ মজুমদার তাঁদের একজন। নিউইয়র্কের হাডসন নদীর তীরে আমরা একসঙ্গে ঘুরেছি। আবার মেঘনা নদীতে নৌকায় চড়ে ডাবের পানি পান করেছি নরসিংদীর রাজিউদ্দিন রাজু ভাইয়ের অতিথি হয়ে। রাজু ভাই আমাদের নিয়ে গিয়েছিলেন রায়পুরা আদিয়াবাদ  স্কুলের একটি অনুষ্ঠানে। সময়টা ওয়ান-ইলেভেনের পর ২০০৭ সালে। দেশে রাজনীতি নিষিদ্ধ। রাজু ভাই আমাদের নিয়ে ঘুরলেন নিজের নির্বাচনী এলাকায়। দেখালেন সাহিত্যবিষয়ক অনুষ্ঠান করছেন। বাস্তবে রাজনৈতিক কর্মীদের উপস্থিতি ছিল বেশি। রাজু ভাইয়ের বাড়িতে খেয়েছিলাম আমরা। কালবেলা, কালপুরুষ, উত্তরাধিকার, সাতকাহনের মতো বিখ্যাত উপন্যাসগুলোর লেখক সমরেশ মজুমদার আমাকেও একটি উপন্যাস উৎসর্গ করেন। নাম অনুপ্রবেশ। গল্প আড্ডায় সমরেশের কোনো তুলনা চলে না। একবার তাঁকে আমন্ত্রণ জানিয়েছিলেন বিরোধী দলের নেতা শেখ হাসিনা। ১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার আগে। শেখ হাসিনা প্রচুর বই পড়েন। সমরেশেরও প্রায় সব বই তাঁর পড়া। এ আলাপের আগে সমরেশ জানতেন না শেখ হাসিনা বইয়ের পোকা। ২০০৫ সালে একবার সুধা সদনের দোতলায় আলাপকালে শেখ হাসিনা আমাকে বলেছেন, বিশ্বমানের বইগুলো তাঁকে বেছে পছন্দ করে দেন বোনের মেয়ে রুপন্তি। সমরেশের সঙ্গে কথায় কথায় আড্ডা, আলাপে শেখ হাসিনা বই নিয়ে গল্প শুরু করেন। একপর্যায়ে জানান সমরেশ মজুমদারের বেশির ভাগ বই তাঁর পড়া। মুগ্ধ হলেন লেখক। বললেন, আপনি আমার এত লেখা পড়েছেন! রাজনীতিবিদরা এত পড়ে আগে জানতাম না। অবাক হচ্ছি। ভালোও লাগছে একজন রাজনীতিবিদের এত পড়ার কথা জেনে। শেখ হাসিনা হাসলেন। তারপর সাতকাহনের দীপাবলি চরিত্র নিয়ে কথা বললেন। সমাপনী নিয়েও নিজের মত তুলে ধরেন।

খাওয়া-দাওয়া শেষ হলো। চা পানের সময় হাসতে হাসতে সমরেশ বললেন, মনোযোগী পাঠিকা ক্ষমতায় এলে ভাগ্য খুলে যাবে এই লেখকের। তখন এ দেশে যা চাইব তা-ই পাব। শেখ হাসিনাও হাসলেন। বললেন, একজন লেখক যা চাইবেন তা-ই দেব। সমরেশ মজুমদারের চোখে-মুখে দুষ্টামির হাসি। বললেন, এভাবে হবে না। কাগজ-কলমে লিখে দিতে হবে। কাগজ-কলম নিন। লিখে দিন। সমরেশ ভেবেছিলেন শেখ হাসিনা এবার পিছু হটবেন। কিন্তু না, কাগজ-কলম আনালেন। বিস্মিত সমরেশ মজুমদার বললেন, লিখুন, আমি ক্ষমতায় এলে লেখক সমরেশ মজুমদারের বাংলাদেশে প্রবেশে কোনো ভিসা লাগবে না। শেখ হাসিনাও মজা করে তা-ই লিখলেন। তারপর স্বাক্ষর করে তারিখ বসালেন। লেখক যত্ন করে কাগজটি নিয়ে গেলেন। এখনো তাঁর সংগ্রহে আছে সেই কাগজটি। শেখ হাসিনা তখন দেশ স্বাধীনের পর কীভাবে কবি নজরুলকে ঢাকায় বঙ্গবন্ধু নিয়ে এলেন সেই স্মৃতিচারণা করেন। গল্প আড্ডা শেষ হলো। সমরেশ মজুমদার বিদায় নিলেন। সময় বয়ে যায়। থেমে থাকে না। কিন্তু লেখককে তো সব ভুলে থাকলে চলে না। ৯৬ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এলো। শেখ হাসিনা হলেন প্রধানমন্ত্রী। সমরেশ মজুমদার ঢাকায় এলেন। ঢাকা বিমানবন্দর ইমিগ্রেশন কর্মকর্তাকে তিনি পাসপোর্ট দিলেন না। তিনি শেখ হাসিনার লেখা সেই কাগজটি দেখালেন ইমিগ্রেশন কর্মকর্তাকে। ইমিগ্রেশনের সেই কর্মকর্তাও সমরেশ মজুমদারের লেখার ভক্ত। বললেন, স্যার আপনার লেখার আমিও ভক্ত। বাংলাদেশে আপনাকে স্বাগত। কিন্তু কলকাতা বিমানবন্দরে আপনাকে পাসপোর্ট দেখাতে হয়েছে। সেটাতে সিল না দিলে তারা আবার মাইন্ড করবে। ভাববে আপনি বাংলাদেশে আসেননি। সমরেশ মজুমদার হাসলেন। তারপর পাসপোর্টটি এগিয়ে দিলেন।

শেখ হাসিনার এমন হাজারো ঘটনা আছে লেখক, সাহিত্যিক, সাংবাদিকদের সঙ্গে। কবি শামসুর রাহমান বলতেন, হাজারো কথা থাকবে। কিন্তু শেখ হাসিনা মুক্তিযুদ্ধের চেতনার শেষ ঠিকানা। শামসুর রাহমানের সঙ্গেও আমার অসাধারণ ব্যক্তিগত সম্পর্ক ছিল। শামসুর রাহমান ছিলেন সহজ-সরল মানুষ। তিনি আমার বাসায় আসতেন। আমি যেতাম। অনেক বিষয়ে কথা হতো। বাদ পড়ত না রাজনীতিও। শেখ হাসিনাকে তিনিও পছন্দ করতেন। ব্যক্তিগত কোনো চাওয়া-পাওয়া ছিল না। বিখ্যাত লেখক শওকত ওসমান খুব দুঃসময়ে ছিলেন। পরিবার-পরিজনের সঙ্গে সম্পর্কটা ভালো যাচ্ছিল না। আর্থিক সমস্যা ছিল। সে সময় একজন মানুষ মাঝেমধ্যে রান্না করে খাবার পাঠাতেন। তিনি শেখ হাসিনা। এভাবে সবাই পারেন না। ইতিবাচক, মানবিক অবস্থানের জন্য আলাদাভাবে তৈরি হতে হয়। পারিবারিকভাবে তা পেতেও হয়। শেখ হাসিনা পারিবারিকভাবে তা পেয়েছেন। লেখক হুমায়ূন আহমেদ ক্যান্সারের চিকিৎসার জন্য গেলেন আমেরিকা। ভিসাগত জটিলতার কারণে টানা আমেরিকায় থাকাটা সমস্যা ছিল। তাঁর পাশে দাঁড়ালেন শেখ হাসিনা। বাংলাদেশ দূতাবাসের উপদেষ্টা করে ভিসাগত সংকট দূর করেন। হুমায়ূন আহমেদ সেই কথা লিখে গেছেন।

শেখ হাসিনা মিডিয়া বোঝেন। মানুষকেও বোঝেন। ১৯৮৮ সালের বন্যার পর তিনি কবি নির্মলেন্দু গুণকে একটি চিঠি পাঠিয়েছিলেন। সে চিঠিটি পরে প্রকাশ করেন কবি। সেই চিঠির কয়েকটি লাইন তুলে ধরছি, ‘আপনার অনুরোধে কিছু ছবি পাঠালাম। তবে আমার একটা অনুরোধ রাখবেন। “ত্রাণ বিতরণ করছি” এ ধরনের কোনো ছবি ছাপবেন না। মানুষের দুর্দশার ছবি যত পারেন ছাপান। আমার ধারণা এ ধরনের অর্থাৎ ত্রাণ বিতরণের ছবি টেলিভিশন ও খবরের কাগজে দেখে মানুষ বীতশ্রদ্ধ হয়ে গেছে। ওরা গরিব, কিন্তু সেটা কি ওদের অপরাধ? একশ্রেণি যদি প্রয়োজনের অতিরিক্ত সম্পদ আহরণ না করত তাহলে এরা কি গরিব হতো? কার ধন কাকে বিলাচ্ছে?’ শেখ হাসিনা এমনই। তাঁর সঙ্গে দেশ-বিদেশ ঘুরে কিংবা পেশাগত কাজ করতে গিয়ে দেখেছি ভাবনার জগতে তিনি বাস্তববাদী। মিডিয়ারও বিভিন্ন দিক তাঁর জানা। আবার মানুষের দুঃখ-কষ্ট তিনি পরিপূর্ণভাবে অনুভব করেন। ২০১৩ সালে একবার অনেকক্ষণ ধরে কথা বলার সময় তিনি পত্রিকার পাতার ভাঁজের ওপর, নিচের সংবাদ কিংবা তৃতীয় পৃষ্ঠার বিভিন্ন সংবাদ নিয়ে কথা বলেন। বিভিন্ন পত্রিকার নিউজ কভারেজের বৈষম্য ও ট্রিটমেন্ট নিয়ে কথা বললেন। থ খেয়ে গেলাম। বললাম, আপা, আপনি পত্রিকার বার্তা সম্পাদক হলেও ভালো করতেন।

শেখ হাসিনার সঙ্গে ভালোমন্দ নিয়ে কথা বলা যেত। আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে লিখে তাঁর সামনে যাওয়া যেত। ২০০১ সালে তিনি ক্ষমতা ছাড়লেন। খুব ভোরে আমার বাসায় এলেন পীর হাবিবুর রহমান। বললেন, চলুন গণভবনে যাই। আপা ক্ষমতা ছেড়েছেন। দেখা করা যায় কি না দেখুন। ফোন করলাম সদ্যবিদায়ী প্রধানমন্ত্রীর এপিএস ইব্রাহিম হোসেন খানকে। তিনি বললেন, চলে আসুন। পীরকে নিয়ে গেলাম গণভবনে। প্রবেশ করেই দেখি প্রধানমন্ত্রী নিজের ব্যক্তিগত উইংয়ে কর্মরত সবাইকে নিয়ে দাঁড়িয়ে আছেন। আমরা প্রবেশ করে এভাবে মুখোমুখি হব ভাবিনি। একটু দূরেই দাঁড়ালাম। তিনি খেয়াল করলেন। আমাকে ডাকলেন। কাছে যেতেই বললেন, আমার সঙ্গে লন্ডন, ব্রাসেলস গেলে, ফিরে এসে লিখে দিলে যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে? তারপর বললেন, আতা খানের রেস্টুরেন্টে বসে লিখেছ নাকি? জবাবে বললাম, আপনার নিবেদিত শফিক ভাইয়ের সঙ্গে কথা বলে লিখেছি। একদিন সানু মিয়ার সঙ্গে গিয়েছিলাম দিলশাদ রেস্টুরেন্টে। শফিকুর রহমান চৌধুরী ভাইয়ের সঙ্গে দেখা হলো। তিনি কিছু তথ্য দিয়েছিলেন। নেত্রী আর কথা বাড়ালেন না। জানতে চাইলেন এটিএন বাংলার সর্বশেষ কাজের অগ্রগতি সম্পর্কে। ভোটের আগে সব নিউজ শুরু হবে কি না। বিদায়ী তথ্য প্রতিমন্ত্রী অধ্যাপক আবু সাইয়িদকে নিয়েও কথা হয়। পরে আমি বললাম, এটিএন বাংলার জন্য একটি বড় সাক্ষাৎকার নেব নির্বাচন ঘিরে। পাঁচ বছর ক্ষমতায় থাকার সাফল্য-ব্যর্থতা নিয়ে মানুষের মনের প্রশ্নগুলোর জবাব দেবেন। তিনি সময় দিতে বললেন সংশ্লিষ্টদের। এক ঘণ্টার বেশি নেওয়া সেই সাক্ষাৎকারে আমার সঙ্গে প্রশ্নকারী প্যানেলে ছিলেন ইকবাল সোবহান চৌধুরী। দীর্ঘ সাক্ষাৎকারটি এটিএন বাংলায় অনেকবার সম্প্রচারিত হয় ২০০১ সালের নির্বাচনী প্রচার শুরুর পর।

শেখ হাসিনার সঙ্গে একজন পেশাদার সংবাদকর্মী হিসেবে কাজ করার অনেক স্মৃতি আছে আমাদের অনেকের। ২০১৩ সালের বাংলাদেশ প্রতিদিন সরকারের সব নেতিবাচক কাজের কট্টর সমালোচক। স্বাধীন বাংলা ছাত্রসংগ্রাম পরিষদের নেতা নূরে আলম সিদ্দিকী, বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী, মাহমুদুর রহমান মান্না, গোলাম মাওলা রনি, কাজী সিরাজসহ অনেকের সমালোচনামূলক লেখা প্রকাশ করতাম। সে সময় একদিন বিকালে ফোনে আমার সঙ্গে কথা বললেন জাহাঙ্গীর কবির নানক, মির্জা আজম ও ওমর ফারুক চৌধুরী। তাঁরা বললেন, প্রধানমন্ত্রী ডেকেছেন রাতে। নানক ভাইয়ের সংসদ ভবনের অফিসে গেলাম। তিনজনই আমাকে নিয়ে গেলেন। গণভবনে প্রধানমন্ত্রীর রুমে প্রবেশ করলাম। ভাবলাম পত্রিকা নিয়ে কি বলেন? টানা ২২ মিনিট প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে ওয়ান টু ওয়ান কথা হয়। তিনি কী প্রকাশ হয়েছে পত্রিকায় কী হয়নি কিছুই বললেন না।

মিডিয়ার বিভিন্ন দিক নিয়ে কথা বলেন আমার সঙ্গে। এরপর নানক, আজম, ফারুক ভাইকে ডাকলেন। আরও ১৫ মিনিটের মতো কথা হয়। এই শেখ হাসিনাই আমাদের চেনা মিডিয়াবান্ধব নেত্রী। তিনি পত্রিকার কট্টর সমালোচক লেখকদের নিয়ে কোনো প্রশ্নই করেননি। কী প্রকাশ করেছি আর করিনি সে প্রসঙ্গেও গেলেন না। বরং বিভিন্ন বিষয়ে আমার কথা মন দিয়ে শুনলেন। এই হলেন শেখ হাসিনা। এ প্রজন্মের অনেকে মনে করেন শেখ হাসিনা শুধু তোয়াজই পছন্দ করেন। সমালোচনা নয়। ঠিক নয় কথাটা। তিনি গঠনমূলক সমালোচনাকে সব সময় গুরুত্ব দেন। ২০১৭ সালের দিকে মন্ত্রিসভার বৈঠক থেকে বের হয়ে একজন সিনিয়র মন্ত্রী আমাকে ফোন করেন। বললেন, প্রধানমন্ত্রী আজ তথ্যমন্ত্রী ইনু সাহেবকে ডেকে তোমার কাগজের কিছু বিষয় নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। সেদিন বিকালে ছিল প্রধানমন্ত্রীর সংবাদ সম্মেলন। গেলাম ভয়ে ভয়ে। সংবাদ সম্মেলনে আমি কোনো প্রশ্ন করি না। কিন্তু সামনের সারিতে বসি। প্রধানমন্ত্রীর চোখের সামনে বসলাম। তিনি প্রবেশ করতে সালাম দিলাম। হাসিমুখে সালাম নিলেন। বুঝলাম যা শুনেছি মন এতটা খারাপ নয়। অনুষ্ঠান শেষে আমি আর কবি নির্মলেন্দু গুণ কথা বলছিলাম। তিনি এগিয়ে এসে আমাদের সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় করলেন। কথা বললেন হাসিমুখে। বুঝলাম ক্যাবিনেটে প্রবেশের মুখে হয়তো কেউ কিছু লাগিয়েছিলেন। এ কারণে ইনু ভাইকে একচোট নিয়েছেন বাংলাদেশ প্রতিদিন নিয়ে। একটু পর আবার আগের শেখ হাসিনা।

শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে এখন দেশ-বিদেশে নানামুখী প্রচারণা চলছে। ইউটিউব, ফেসবুকে চলছে পরিকল্পিত মিথ্যাচার। আমরা জীবিত কিংবদন্তিকে সঠিক মূল্যায়ন করতে পারি না। দেশ স্বাধীনের পর বঙ্গবন্ধু মাত্র সাড়ে তিন বছর ছিলেন। সে সময় দেশ-বিদেশের ষড়যন্ত্র ছিল। মিডিয়া, রাজনীতিবিদ সবাই বিরুদ্ধে ছিলেন। কিন্তু এখন সময় এসেছে অনেক কিছু হিসাব-নিকাশের। আগের লেখায় বলেছি, বয়স আমাদেরও বাড়ছে। কিছু কথা জানিয়ে যেতে হবে। কিছু কথা লিখে যেতে হবে আগামী প্রজন্মের জন্য। বর্তমানকে মূল্যায়ন করবে আগামী। কিন্তু বাস্তবতাকে তো আড়াল করা যায় না। নিউজ মিডিয়া নামের প্রতিষ্ঠানটি করার আড়ালের উৎসাহদাতা মানুষটির নামও শেখ হাসিনা। এক সন্ধ্যায় ভোরের কাগজে বসে কাজ করছি। ভোরের কাগজের অফিস তখন নয়াপল্টন। নুরুল ফজল বুলবুল গাড়ি চালিয়ে এলেন আমার কাছে। বললেন, আপা তোমাকে নিয়ে যেতে বলেছেন। হাতের কাজ শেষ করে ২৯ মিন্টো রোডে বিরোধী দলের নেতার বাসায় গেলাম। তখন মিডিয়া সিন্ডিকেট নামের একটি সংবাদ সংস্থা ছিল কট্টরভাবে শেখ হাসিনা, সজীব ওয়াজেদ জয়সহ বঙ্গবন্ধু পরিবারের বিরুদ্ধে। নেত্রী আমার সঙ্গে কথা বললেন এ বিষয়টি নিয়ে। বিস্মিত হলাম, অনেক সিনিয়র থাকতে তিনি আমাকে কেন ডাকলেন। বুঝলাম একটা বিশ্বাস ও স্নেহ আছে বলেই ডেকেছেন। ভালো লাগল। নেত্রী তাকালেন আমার দিকে। বললেন, কী করা যায় বল? জবাবে বললাম, পাল্টা একটা প্রতিষ্ঠান করা যেতে পারে। তিনি বললেন, শুরু কর। দ্বিধাদ্বন্দ্বে পড়ে গেলাম। সংসার জীবনে ভালোই আছি। মাত্র পুত্রসন্তানের জন্ম হয়েছে। ঝুঁকি নেব কি না ভাবছিলাম। সেই ভাবনা বুঝতে পেরে তিনি আবার বললেন, শুরু কর। কোনো কিছু লাগলে আমি আছি, দেখব। আমার জীবনে নিউজ মিডিয়া অধ্যায়ের সূচনা এভাবে। ১৯৯৬ সালের ক্ষমতার মেয়াদে প্রতিষ্ঠানটি বন্ধ করে দিই। নিউজ মিডিয়ার সংবাদগুলো সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দিয়ে প্রকাশ করত জনকণ্ঠ আর ইনকিলাব। এ ছাড়া আজকের কাগজ, খবর, রূপালী, বাংলার বাণী, ইত্তেফাকেও নিউজ মিডিয়ার খবর প্রকাশিত হতো। এ ছাড়া ঢাকার এবং বাইরের আরও অনেক পত্রিকা নিউজ মিডিয়ার খবর নিত। নিউজ মিডিয়া করতে গিয়ে শিখেছি কী করে প্রতিষ্ঠান চালাতে হয়। যা কাজে লাগছে এখন কিংবা ২০০১ সালে এটিএন বাংলার জীবনে।

আরও পড়ুন


শেষ সময়ের গোলে রেকর্ড গড়ে শেষ আটে ইতালি

সহকারীকে চুমুর ঘটনায় পদত্যাগ করলেন ব্রিটিশ স্বাস্থ্যমন্ত্রী

নামাজে গুরুত্বপূর্ণ ফরজ তাকবিরে তাহরিমা ও হাত বাঁধা

সূরা ইয়াসিন: আয়াত ৫৯-৬৫, কিয়ামতে পাপী ও পুণ্যবানদের পথ আলাদা হবে


সব কাজেরই একটা ইতিবাচক ও নেতিবাচক দিক থাকে। দেখতে হবে কে কীভাবে নেয়। নিউজ করে বিপদে পড়েও এ দেশের সাংবাদিকরা শেখ হাসিনার কাছে আশ্রয় পেতেন। ১৯৯১ সালের মেয়াদে বিএনপি ক্ষমতায়। ১৭ মন্ত্রীর দুর্নীতি নিয়ে রিপোর্ট করে বিপাকে পড়ি সৈয়দ বোরহান কবীর ও আমি। রিপোর্টটি প্রকাশের পর সংসদে তোফায়েল আহমেদ তীব্র হইচই করেন। সংসদে হয় অনির্ধারিত বিতর্ক। সে বিতর্কের সূত্র ধরে সরকারি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান বোরহান ও আমার পেছনে লাগে। বোরহান আমাকে বলল, বিষয়টি আপাকে জানাও। আমি দেখা করে সবকিছু জানালাম। তিনি বললেন, সরকারি সংস্থা কাগজপত্র চাইলে বলবে সব আমার কাছে তোমরা দিয়ে দিয়েছ। তোমাদের কাছে কোনো কাগজপত্র আর নেই। আমরা তা-ই বলেছিলাম। আরেকটি ঘটনার কথা মনে পড়ছে। এটিএন বাংলায় কাজ করার সময় বগুড়ায় অস্ত্র উদ্ধার নিয়ে জামায়াতের বিরুদ্ধে খবর সম্প্রচারিত হয়। জামায়াত তখন ক্ষমতায়। মন্ত্রী আলী আহসান মুজাহিদ মামলা করে বসেন। ২ শতাধিক পুলিশ ঘেরাও করে এটিএন বাংলা অফিস। ফোন করলাম বিরোধীদলীয় নেতাকে। তিনি বললেন, পারলে অফিস থেকে চলে যাও। পরে সব দেখব। ওরা আটক করে অত্যাচার চালায়। পুলিশ আমাকে জিজ্ঞাসাবাদ করে। সেবার আটক আর করেনি। আমাদের সহকর্মীরা সবাই অফিসে শক্ত অবস্থান নেন।

শেখ হাসিনা সব সময় সাংবাদিকদের পাশে থাকতেন। পাশে থাকেন। তাঁর সঙ্গে কুড়িগ্রামের বাসন্তীর বাড়ি গিয়েছিলাম। আবার আজমির শরিফে খাজা বাবার মাজারও জিয়ারত করেছিলাম। আজমির যাওয়ার পথে গাড়ি নষ্ট হয়ে যায়। মরুভূমির মাঝে নামলেন তিনি ছোট্ট একটা ক্যামেরা হাতে। সেই ক্যামেরা দিয়ে আমাদের নিয়ে ছবি তুললেন। ১৯৯১ সালে ভোলা যাওয়ার পথে তিনি লঞ্চের ডেকে বসে গল্প করছেন সফরসঙ্গীদের সঙ্গে। কোনো অহমিকা নেই। আড্ডায় তিনি হয়ে ওঠেন পরিবারের বড় বোন। আবার রাষ্ট্রক্ষমতায় তিনি দেশের অভিভাবক। বঙ্গবন্ধু দেশটা স্বাধীন করেছেন। আর শেখ হাসিনা এগিয়ে নিচ্ছেন সামনের দিকে। হিসাব-নিকাশ একদিন হয়তো ভালোভাবে হবে। ইতিহাস তাঁকে মূল্যায়ন করবে কাজ দিয়ে। বর্তমান বাস্তবতায় অনেক প্রশ্ন আসছে। কবি শামসুর রাহমানের পুরনো কথা ধরেই বলছি, কঠিন পথ অতিক্রম করে শেখ হাসিনা আজকের অবস্থানে। একুশে আগস্টসহ অনেকবার তিনি মৃত্যুর মুখোমুখি হয়েছেন। আল্লাহ তাঁকে বাঁচিয়ে রেখেছেন এ দেশের অনেক কাজ করানোর জন্য। বাংলাদেশ আজ বদলে যাচ্ছে। বিশ্বে নতুন করে মাথা উঁচু করে দাঁড়াচ্ছে। পাকিস্তান আজ বাংলাদেশের উন্নয়ন দেখে বিস্মিত। বলছে, শিখতে হবে বাংলাদেশের কাছ থেকেই। বিশ্বের গুরুত্বপূর্ণ দেশগুলোও বাংলাদেশকে নিয়ে ভাবছে নতুন করে। এ সম্মান, এ মর্যাদার আড়ালের মানুষটি শেখ হাসিনা।  বিতর্ক আছে, থাকবে।  কিন্তু বাংলাদেশের এই এগিয়ে চলাকে অস্বীকার করা যাবে না।

লেখক: সিইও, নিউজ টোয়েন্টিফোর ও সম্পাদক, বাংলাদেশ প্রতিদিন।

news24bd.tv এসএম

পরবর্তী খবর

শেখ হাসিনা মিডিয়াবান্ধব না বিদ্বেষী

নঈম নিজাম

শেখ হাসিনা মিডিয়াবান্ধব না বিদ্বেষী

বাজায় কে

মেঘের মাদল

ভাঙ্গালে ঘুম
ছিটিয়ে জল

-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর

ইতিহাসের অনেক হিসাব-নিকাশ থাকে। সব হিসাব-নিকাশ সবার জন্য সমানভাবে মেলে না। সেদিন একজন প্রশ্ন করলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মিডিয়াবান্ধব না মিডিয়াবিদ্বেষী? এই প্রশ্ন কেন করলেন পাল্টা জানতে চাইলাম। জবাবে সেই বন্ধু বললেন, বর্তমান সময়ের কিছু ঘটনার কারণে এ প্রশ্ন উদয় হয়েছে। আজকাল অনেকের কাছে এমন প্রশ্নের মুখোমুখি হই। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগকে ঘিরে মানুষের মনে প্রশ্ন থাকাটাই স্বাভাবিক। টানা ক্ষমতায় থাকার ভালো-মন্দ দুটো দিকই আছে। সব বিষয়ে মানুষের মনে প্রশ্ন আসবে। আওয়ামী লীগ একটি ঐতিহ্যবাহী রাজনৈতিক দল। প্রতিষ্ঠার পর থেকে এভাবে ক্ষমতায় থাকার কোনো নজির নেই। স্বাধীনতার পর নানামুখী ষড়যন্ত্র, চক্রান্ত মোকাবিলা করতে করতেই সময় চলে গিয়েছিল। ’৯৬ সালের ক্ষমতার মেয়াদ আর এখনকার বাস্তবতা সম্পূর্ণ আলাদা। আওয়ামী লীগের অতীত ইতিহাস ঐতিহ্যের সঙ্গে বর্তমানকে মেলানো যাবে না। আর সরকারি দল ও বিরোধী দলের হিসাবও এক হয় না। একটি দল টানা ক্ষমতায় থাকলে ভালো-মন্দের মিশ্রণে চলতে হয়। ফুলে ভ্রমর আর মধুতে মৌমাছি বসবেই। মধুর লোভে সরকারি দলের ঘাটে ঘাটে তৈরি হয় সুবিধাভোগী। অনেক সময় সুবিধাভোগীদের তৎপরতায় হারিয়ে যায় ত্যাগী নেতা-কর্মীরা। এটা শুধু আওয়ামী লীগের বেলায় তা নয়। আমাদের মতো দেশে যখন যারা ক্ষমতায় থাকে তাদের ওপর আগাছা-পরগাছা ভর করে। ছোটবেলায় ফুলের বাগান করতাম। গোলাপ, গন্ধরাজ, জবা, টগরের সঙ্গে থাকত বাহারি পাতার গাছ। সেই গাছ দেখতে সুন্দর, কিন্তু ফুল হতো না। থাকত বাগানের শোভা হয়ে। মন দিয়ে পাতাবাহারও লাগাতাম। সরকারও তেমনই। কিছু মানুষ দক্ষতা নিয়ে কাজ করে। আবার কেউ বঞ্চনা নিয়ে পাতাবাহারের শোভা হয়ে থাকে। অনেকটা ফুল বাগানের মতো। বাগানের যত্ন না নিলে আগাছার দাপট বাড়ে। তখনই সমস্যা তৈরি হয়। ফুলের গাছগুলো ধীরে ধীরে মরে যায়। পাতাবাহারও টিকতে পারে না। আগাছাকে ঘিরে ফুল বাগানে আসে সাপ। খেয়াল না করলে সেই সাপের কামড়ে মরতে হয় মালি বা বাগান মালিককে। প্রকৃতির এ এক নিষ্ঠুর খেলা।

Bangladesh Pratidinরাজনৈতিক দলে আগাছা জমে ক্ষমতাকালে। বিরোধী দলে নিরুনির কারণে আগাছা হয় না। বিএনপির রাজনীতির দিকে তাকালেই কঠিন বাস্তবতা বোঝা যায়। দুঃসময়ের বিএনপি খুঁজে পাচ্ছে না সুসময়ের অতিথি পাখিদের। বসন্তের কোকিলরা কেটে পড়েছে। কোকিল বাদ দিন সেই সময়ের দাপুটে নেতা হারিছ চৌধুরী কোথায়? জবাবে কেউ কিছু বলতে পারে না। কেউ জানে না হারিছ কেন লাপাত্তা। অথচ এক সময়ে তিনি যা খুশি তা করতেন। অহংকারে মাটিতে পা পড়ত না। এখন তিনি নিখোঁজ। কোনো পাত্তা নেই। বেগম খালেদা জিয়া, তারেক রহমান, বিএনপি কেউ তাকে পাচ্ছে না। মারা গেছেন এমন খবরও নেই। তাহলে হারিছ চৌধুরী গেলেন কোথায়? কেনই বা তিনি অন্তর্ধান হলেন? কী এমন গোপনীয়তা ছিল যা প্রকাশের ভয়ে পালিয়েছেন ওয়ান-ইলেভেনে। ক্ষমতায় থাকাকালে বিএনপির অনেক বিতর্কিত কান্ডের জবাব একমাত্র হারিছ দিতে পারেন। বিএনপি ক্ষমতায় থাকার সময় ইলিয়াস আলী বলতেন, হারিছ সর্বনাশ করছে। ইলিয়াস স্পষ্ট কথা বলতেন। কোনো কিছুর তোয়াক্কা করতেন না। তাই তখনই হারিছকে নিয়ে দলকে সতর্ক করার চেষ্টা করেছিলেন। এখন বের হচ্ছে হারিছের অন্তর্ধানে জড়িয়ে রয়েছে একুশে আগস্ট গ্রেনেড হামলা, জঙ্গিদের উত্থান, চট্টগ্রামে অস্ত্র উদ্ধার, শাহ কিবরিয়া, আহসান উল্লাহ মাস্টারসহ অনেক ঘটনার আড়ালের রহস্য। ক্ষমতাসীন দলগুলোর ভিতরে-বাইরে অনেক রহস্য থাকে। সব সময় সব রহস্য বের হয়ে আসে না।

ক্ষমতার নৌকা চলে পাহাড় দিয়ে। বিরোধী দলের ভালো নৌকা নদীতে চলতে চায় না। উজানের স্রোতে হোঁচট খেয়ে ডুবো ডুবো হয়। ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগও একদা বিরোধী দলে ছিল। ১৯৮১ সালে কঠিন পরিস্থিতিতে এই দলের দায়িত্ব নেন শেখ হাসিনা। উজানে বৈঠা হাতে নৌকার মাঝির দায়িত্ব নিয়েই নামেন কঠিন সংগ্রামে। দলের অভ্যন্তরীণ সংঘাত, সিনিয়রদের বাড়াবাড়ি, আওয়ামী বিরোধী মিডিয়ার দাপট, রাষ্ট্রযন্ত্রের নানামুখী ষড়যন্ত্র, চক্রান্ত, বারবার দলে ভাঙন, চ্যালেঞ্জ, পাল্টা চ্যালেঞ্জ সবকিছু হজম করতে হয়েছে তাঁকে। মিডিয়াতে তখন চীনাপন্থি আর মস্কোপন্থি সাংবাদিকদের একচেটিয়া অবস্থান। শিল্প সংস্কৃতির জগৎও ছিল তাই। সবকিছুতেই মুষ্টিমেয় কিছু সমর্থক নিয়ে তিনি যাত্রা শুরু করেন। টেকনাফ থেকে তেঁতুলিয়া দলকে গোছাতে থাকেন। দল ভেঙে বাকশাল গঠন, ’৮৬ সালের নির্বাচন ছিল কঠিন চ্যালেঞ্জের। ১৫-দলীয় জোটের বৈঠক হয় বাকশাল চেয়ারম্যান মহিউদ্দিন আহমেদের ধানমন্ডির বাড়িতে। আওয়ামী লীগ সভানেত্রীও সেই বৈঠকে যোগ দেন। কমিউনিস্ট পার্টির সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ ফরহাদ তখন দাপুটে নেতা। সবাই মিলেই ভোটের সিদ্ধান্ত নিলেন। শেখ হাসিনা প্রথমে ভোটের বিপক্ষে ছিলেন। কিন্তু সিনিয়র নেতাদের চাপে সিদ্ধান্ত বদলান। বৈঠকে একজন নেতা জানিয়েছিলেন, খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে সাতদলীয় জোটও ভোটে যাবে। সবাই মিলে ভোটে পরাস্ত করবেন এরশাদকে। পরে খালেদা জিয়া ভোটে যাননি। ওয়ার্কার্স পার্টি ও জাসদ ইনু ভোট বর্জন করে ভাঙল ১৫ দল। এই বাম দলগুলো গঠন করল পাঁচদলীয় জোট। ভোটে গেলেন শেখ হাসিনা। সংসদে গিয়ে তিনি এরশাদ সরকারের দুর্নীতি-অনিয়মের বিরুদ্ধে বলিষ্ঠ ভূমিকা রাখেন। গণতন্ত্র ফিরিয়ে দেওয়ার দাবি তোলেন সংসদের ভিতরে-বাইরে। সেই সময়ে শেখ হাসিনার চেয়ে বড় মিডিয়াবান্ধব আর কে ছিলেন? মিডিয়াকে তিনি আপন করে তোলেন।

এরশাদকে হটাতে সংসদ থেকে বেরিয়ে যাওয়ারও উদ্যোগ নেন শেখ হাসিনা। তিনি বর্জন করেন সংসদ। প্রস্তুতি নেন পদত্যাগের। এরশাদের কাছে গোয়েন্দা রিপোর্ট গেল, মিজানুর রহমান চৌধুরীর নেতৃত্বে জাতীয় পার্টির এমপিদের বড় অংশই সংসদে অনাস্থা দেবেন। রাষ্ট্রপতি পদ্ধতি বিলুপ্ত করে শেখ হাসিনাকে প্রধানমন্ত্রী করবে। কাজী জাফর আহমেদও একই কথা জানালেন এরশাদকে। ব্যস সংসদ ভেঙে দিলেন এরশাদ। মিজান চৌধুরীকে প্রধানমন্ত্রীর পদ থেকে সরিয়ে দিলেন। আওয়ামী ঘরানার আরও অনেককে বাদ দেন ক্ষমতা থেকে। সেই সময়ে মিজান চৌধুরীর একটি দীর্ঘ সাক্ষাৎকার নিয়েছিলাম। সেই সাক্ষাৎকারের কথা আরেক দিন লিখব। শেখ হাসিনা গুজবকে পাত্তা দিলেন না। তিনি রাজপথে এরশাদবিরোধী আন্দোলনকে বেগবান করেন। ’৮৭ সালে তীব্র আন্দোলন গড়ে ওঠে তিন জোটের নেতৃত্বে। দুই নেত্রীর মাঝে অঘোষিত ঐক্য হয় আন্দোলন ইস্যুতে। সেই আন্দোলনের ধারাবাহিকতায় ’৯০ সালের ছাত্র-জনতার আন্দোলনে এরশাদের পতন হয়। মৃত্যুর দুই বছর আগে এরশাদ অবশ্য এক সাক্ষাৎকারে আমাকে বলেছেন, তৎকালীন সেনাপ্রধান জেনারেল নূরউদ্দিন তাঁর সঙ্গে বিট্রে করাতে তিনি ক্ষমতা ছেড়েছেন। আতিককে তিনি আর এক বছর রাখলে তাঁকে ক্ষমতা ছাড়তে হতো না।

এরশাদের পতনের পর নির্বাচনের প্রস্তুতি নেন শেখ হাসিনা। সবার ধারণা ছিল তিনি ক্ষমতায় আসবেন। কিন্তু নানামুখী চক্রান্তের কবলে পড়ে তিনি ক্ষমতায় আসতে পারলেন না। ক্ষমতায় এলো বিএনপি। সেই সময়ে নাঈমুল ইসলাম খানের নেতৃত্বে প্রকাশিত আজকের কাগজে কাজ শুরু করি আমরা একদল তারুণ্য উদ্দীপ্ত যুবক। আমার বিট পড়ে আওয়ামী লীগ ও শেখ হাসিনা। সরাসরি শেখ হাসিনার সঙ্গে কাজ করার সুযোগ হয়। সারা দেশ ঘুরে বেড়ানোর তালিকায় আমিও যুক্ত হই। ’৯১ সালের ভোটের আগে পরে ধানমন্ডির ৩২ নম্বর থেকে বের হতাম খুব ভোরে। সকালে আলু ভর্তা, ডিম, ডাল দিয়ে ভাত খেয়ে নেত্রীর গাড়ি বহরে যুক্ত হতাম। তিনি নিজেও অনেক সময় নাশতার টেবিলে যোগ দিতেন। আবার কখনো তৈরি হয়ে হাসতে হাসতে গাড়িতে ওঠার সময় বলতেন, আমার সাংঘাতিকরা এসে গেছে, এবার যাত্রা শুরু করা যায়। তখন এত সাংবাদিক ও পত্রপত্রিকা ছিল না। এত নিরাপত্তার ব্যাপারও ছিল না। বেসরকারি টেলিভিশন, অনলাইন ছিল না। তিন-চারটি পত্রিকা ও ইউএনবির সাংবাদিকরা সফরসঙ্গী হতেন। বেশির ভাগ সময় ফটোসাংবাদিক থাকতেন একজন। গাড়ি থাকত দুটি। নেতারা যোগ হলে বাড়ত। নেত্রীর গাড়ি থাকত সামনে। পেছনের জিপে মৃণাল কান্তি দাসের নেতৃত্বে সাংবাদিকরা। সফরে নজীব আহমেদ আর মৃণাল কান্তি দা সবাইকে প্রাণবন্ত রাখতেন। শেখ হাসিনা ’৯১ সালের ভোটে পরাজয়ের পর সবাই ভেবেছিলেন তিনি দমে যাবেন। থমকে যাবে আওয়ামী লীগের রাজনীতি। দলের ভিতরে ড. কামাল হোসেন, আবদুল মান্নান, মেজর জেনারেল (অব.) খলিলুর রহমানসহ অনেকে নেত্রীর বিপক্ষে শক্ত অবস্থানে ছিলেন। শেখ হাসিনা কোনো কিছুর তোয়াক্কা করলেন না। সবকিছু মোকাবিলা করেই ’৯১ সালের সংসদ গঠনের পর তিনি নতুন করে সারা দেশ সফর শুরু করেন। দলকে সুসংগঠিত করতে থাকেন। কয়েকজন সাংবাদিক সফরসঙ্গী হিসেবে সারা দেশ সফর ও তাঁর কাছাকাছি যাওয়ার সুযোগ পাই। তিনি সবাইকে আপন করে নেন।

ঢাকার বাইরে সফরের সময় খেয়াল করতাম শেখ হাসিনা ফজরের নামাজ পড়ে দিন শুরু করতেন। নাশতা সেরেই বেরিয়ে পড়তেন। সারা দিন ঘুরতেন। সভা-সমাবেশ করতেন টানা। পথসভা থাকত যেখানে সেখানে। দলের মাঠের নেতাদের বাড়িতে চলে যেতেন। ভরদুপুরে অনেক সময় খাওয়ারও সুযোগ পেতেন না। আমরা হঠাৎ করে দেখতাম গাড়িতে রুটি, কলা, মুড়ি। মৃণালদা বা নজীব ভাই অথবা অন্য কেউ এসে বলতেন আপা আপনাদের জন্য পাঠিয়েছেন। খেতে বসলে শেখ হাসিনা প্রথম প্রশ্ন করতেন, তার সফরসঙ্গী ড্রাইভার, সাংবাদিক আর নিরাপত্তারক্ষীরা খেয়েছেন কি না। তারপর তিনি খেতে বসতেন। একবার বগুড়াতে ঝামেলা বেধে যায়। সময়টা মনে হয় ’৯২ সালের। বগুড়া সার্কিট হাউসে পৌঁছে আমরা সবাই ব্যস্ত হয়ে পড়লাম ঢাকায় সংবাদ পাঠানো নিয়ে। খাওয়ার সময় ছিল না। সেই সময়ে সংবাদ পাঠানো সহজ ছিল না। ফোনে সংবাদ পাঠানো হতো। ফ্যাক্সও পাওয়া যেত না অনেক শহরে। টেলিফোনও সহজলভ্য ছিল না। অনেক সময় সার্কিট হাউসে নেত্রী তাঁর রুমে বসে আছেন। আমরা দল বেঁধে সংবাদ পাঠাচ্ছি ওনার রুম থেকে। তিনি বিরক্ত হতেন না। বিশ্রামের সময় পেতেন না। বগুড়াতে সংবাদ পাঠিয়ে এসে দেখি আমাদের জন্য রাখা খাবার আওয়ামী লীগ নেতা-কর্মীরা খেয়ে শেষ। খাবার না পেয়ে আমরা আশপাশে রেস্টুরেন্টের সন্ধানে প্রস্তুতি নিচ্ছিলাম। নেত্রীর সফরসঙ্গী ব্যক্তিগত কর্মকর্তাদের একজন ছুটে এলেন। বললেন, আপা আপনাদের ডাকছেন। গিয়ে দেখলাম, তিনি ক্ষুব্ধ হয়ে বগুড়ার নেতাদের বকছেন। খেতে বসে তিনি শুনলেন, সফরসঙ্গী সাংবাদিকরা খাবার পাননি। সঙ্গে সঙ্গে তিনি খাবার টেবিল থেকে উঠে পড়েন। তিনি নিজেও খাননি। বগুড়ায় রাতে থাকার কথা ছিল। তিনি বললেন, বগুড়া থাকব না। রংপুর গিয়ে থাকব। আমাদের একজন সিনিয়রের হাতে ২ হাজার টাকা দিলেন। বললেন, তুমি ওদের নিয়ে খাইয়ে রংপুর আস। গাড়ি বগুড়া ছেড়ে রংপুরের পথে যাত্রা শুরু করে।  আমরাও নেত্রীর গাড়ির পেছনেই ছুটতে থাকি।

বিরোধী দলের নেতা শেখ হাসিনার সঙ্গে আমাদের হাজারো স্মৃতি। তিনি সাংবাদিকদের পাশে দাঁড়াতেন। বিপদে-আপদে অবস্থান নিতেন। সময়ে-অসময়ে আস্থাভাজনদের ডেকেও নিতেন। আমাকে বিভিন্ন সময়ে অনেকবার ডেকে নিয়েছিলেন। বঙ্গবন্ধুর প্রেস সেক্রেটারি আমিনুল হক বাদশা আমাকে একবার বলেছেন, শেখ হাসিনা গুণটি পেয়েছেন বাবার কাছ থেকে। নির্মল সেনের লেখাতে পড়েছি, আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে লিখে বঙ্গবন্ধুর সামনে যেতেন তারা। দল বেঁধে গিয়ে ছাড়িয়ে আনেন এনায়েতুল্লাহ খান মিন্টুকে। আরও অনেক গল্প আছে। শেখ হাসিনা কি তার বাইরে? আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে লিখে অনেকবারই তাঁর সামনে হাজির হলে তিনি প্রথমে গম্ভীর থাকতেন। তারপর কথা বলতেন। স্বাভাবিক হতেন ধীরে ধীরে। শুধু বিরোধী দল নয়, ’৯৬ সালের সরকারি দলেও তিনি সাংবাদিকদের কাছ থেকে আলাদা হননি। আমরা তখন বড় সাংবাদিক ছিলাম না। কিন্তু আমাদের ডেকে নিয়েও কথা বলতেন। সর্বশেষ ২০১৩ সালেও একাধিকবার ডেকে নিয়েছিলেন। সেই সময়ে আমার কাগজটি ছিল কট্টরভাবে সরকারের সমালোচক। সাংবাদিকরা ঝামেলায় পড়লে এই শেখ হাসিনা সবার আগে পাশে দাঁড়াতেন।  শত শত উদাহরণ আছে। অনেকে প্রশ্ন করেন, সেই শেখ হাসিনা কি বদলে গেছেন? ভাবছি বিস্তারিত লিখে যাব। আমাদেরও বয়স বাড়ছে।  করোনাকালে জীবন-মৃত্যুর কোনো হিসাব নেই।

লেখক: সিইও, নিউজ টোয়েন্টিফোর ও সম্পাদক, বাংলাদেশ প্রতিদিন।

news24bd.tv / কামরুল

পরবর্তী খবর

শেখ হাসিনার বিকল্প কে?

নঈম নিজাম

শেখ হাসিনার বিকল্প কে?

অনেক দিন আগে উত্তম কুমার অভিনীত একটি ছবি দেখেছিলাম। নাম ‘দেয়া নেয়া’। উত্তম কুমারের বিপরীতে অভিনয় করেছেন তনুজা। এ তনুজাই বলিউডের বিখ্যাত অভিনেত্রী কাজলের মা। নায়ক বিত্তবান বাবার ছেলে গানের নেশায় বাবার সবকিছু ছেড়ে লখনৌ শহর ত্যাগ করেন। স্বপ্ন ছিল গায়ক হবেন। ঘটনাচক্রে নায়িকার বাড়িতে চাকরি নেন। কাহিনি সেভাবে এগিয়ে যেতে থাকে।  এ লেখা সে ছবি নিয়ে নয়। এ ছবির একটি গান আছে, ‘জীবনখাতার প্রতি পাতায় যতই লেখ হিসাব-নিকাশ কিছুই রবে না...’। গৌরীপ্রসন্ন মজুমদারের লেখা গানটি গেয়েছিলেন শ্যামল মিত্র। এখনো মনে দাগ কেটে আছে সেই সুর। শ্যামল মিত্রের অনেক গানেরই কোনো তুলনা চলে না। আর মানুষের জীবনখাতার হিসাব-নিকাশও কখনই মেলে না। শ্যামল মিত্রের দরাজ কণ্ঠের অনেক গান শুনেছি। ‘আমি চেয়ে চেয়ে দেখি সারা দিন...’, ‘আহা মরি মরি চলিতে চলিতে বাজায় কাঁকন পরনে নীলাম্বরি...’, ‘আমার স্বপ্নে দেখা রাজকন্যা থাকে সাত সাগর  আর তের নদীর পারে...’ এখনো শুনলে মন ভরে যায়। শ্যামল মিত্রের ছেলে সৈকত মিত্র বাবার গানগুলো পরিবেশন করেন এখন। তাঁর সঙ্গে দেখা হয়েছিল। ঢাকায় এসেছেন অনেকবার। বিভিন্ন সামাজিক অনুষ্ঠানে গান গেয়েছেন। সৈকতের কণ্ঠে শ্যামলকেই খুঁজে পাই। এভাবে সবাই পারেন না বাবার উত্তরাধিকার ধরে রাখতে। জীবন চলার পথে উত্তরাধিকার হওয়া সহজও নয়। এক জীবনে কেউ পারেন, কেউ পারেন না। আমাদের দেশেও অনেক জনপ্রিয় শিল্পীর সন্তানরা সংগীতে এসেছেন। মাহমুদুন্নবী, খান আতা, বশির আহমেদসহ অনেকের সন্তানদের কণ্ঠে গান শুনে ভালো লাগে। আবদুল আলীমের সন্তানরা আসেন আমার কাছে। বাবাকে ধরে রাখার চেষ্টা করছেন তাঁরা। উত্তরাধিকার হলেই ধারাবাহিকতা থাকবে এমন নয়। কি গান, কি রাজনীতি। সৃষ্টিশীলতা আলাদা বিষয়। নেতৃত্বের যোগ্যতা, নিজস্ব ক্যারিশমা সবার থাকে না। আল্লাহ সবাইকে সব গুণ দিয়ে সৃষ্টিও করেন না।

মাওলানা ভাসানী অনেক বড় রাজনীতিবিদ ছিলেন। তাঁর অনুসারীরা এখনো রয়েছেন। কিন্তু তিনি কোনো রাজনৈতিক উত্তরাধিকার রেখে যেতে পারেননি। আর পারেননি বলেই মওলানা ভাসানীর আদর্শ ঘিরে কোনো দল বিকশিত হয়নি। মওলানা ভাসানীর মৃত্যুর পর অনেক কিছু থেমে গেছে। তাঁর ছেলে আবু নাসের খান ভাসানীকে রাজনীতিতে টানতে চেষ্টা করেছিলেন হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ। ক্ষমতায় থাকার সময় কাছেও টেনেছিলেন। জোর করে রাজনৈতিক নেতা বানানো যায় না। আলেমা ভাসানীকে রাজনীতিতে আনতে চেয়েছিলেন গোলাম কবীর নামে ন্যাপ ভাসানীর একজন নেতা। এরশাদ জমানার শেষ সময় তিনি এ উদ্যোগ নেন। চট্টগ্রামের বনানী কমপ্লেক্সের মালিক এই গোলাম কবীর ভাসানী ন্যাপ করতেন। আশির দশকের শেষভাগে গোলাম কবীর ন্যাপ ভাসানীকে আবার এক করার চেষ্টা চালান। তিনি ভেবেছিলেন আলেমা ভাসানীকে লাইমলাইটে আনলে হয়তো ঐক্যপ্রক্রিয়া তৈরি হতে পারে। আলেমা ভাসানী থাকতেন টাঙ্গাইলে। সাদামাটা নারী। রাজনীতি সেভাবে বুঝতেন না। গোলাম কবীর ভাসানীর আবেগ কাজে লাগাতে চেষ্টা করেন। তাঁর ব্যবসা-বাণিজ্য ভালোই চলছিল। চলচ্চিত্র ব্যবসার সঙ্গে থাকার কারণে দ্বিতীয় বিয়ে করেন নায়িকা কবিতাকে। আলাদা জগৎ-সংসার তৈরি হলেও রাজনীতির নেশাটা ছাড়তে পারলেন না। তাই দল সংগঠিত করতে টাঙ্গাইল গেলেন। লক্ষ্য ছিল হুজুরের মাজার জিয়ারত ও আলেমা ভাসানীর দোয়া নিয়ে কাজ শুরু। পত্রপত্রিকার সংখ্যা তখন এত বেশি ছিল না। দৈনিক ইত্তেফাক থেকে নাজিমউদ্দিন মোস্তান ভাই, দৈনিক খবরের তারিকুল ইসলামসহ কয়েকজন সাংবাদিক টাঙ্গাইল যান। সেই টিমে আমিও ছিলাম। কাজ করি সাপ্তাহিক সন্দ্বীপ, স্বদেশ খবরে। মালিক ছিলেন মোস্তাফিজুর রহমান। তিনিই আমাকে পাঠালেন। বললেন একটা নিউজ করে দেবেন। সাপ্তাহিক পত্রিকাগুলো তখন ভালোই চলত। টাঙ্গাইল গিয়ে ভালোই লাগল। মওলানা ভাসানীর মাজার জিয়ারত করলাম। আলেমা ভাসানীকে কাছ থেকে দেখলাম। কথা বললাম তাঁর সঙ্গে। রাজনৈতিক প্রশ্ন করে বুঝলাম তিনি কোনো প্যাঁচের মানুষ নন। সাদামাটা মানুষ। জীবনের শেষ প্রান্তে ঝুটঝামেলায় জড়ানোর শক্তি ছিল না। কিছুক্ষণ কথা বলার পরই বুঝে গেলাম অকারণে তাঁকে টানাটানির চেষ্টা চলছে। ভাসানী ন্যাপের ঐক্যপ্র্রক্রিয়া আলেমা ভাসানীকে দিয়ে হবে না। রাজনীতির সহজ হিসাব বুঝতে বেশি কিছু লাগে না। অল্প কিছু বিষয় পর্যবেক্ষণ করলেই হয়। রাজনীতি সবাইকে দিয়ে হয় না। আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা, বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া রাজনীতিতে আসতে চাননি। সময় ও পরিস্থিতি তাঁদের রাজনীতিতে এনেছে। জীবন এক বহতা নদী। সময় বয়ে যায় দ্রুত। জীবনযুদ্ধ মানুষকে টেনে নিয়ে যায় অনেক দূর। ৪০ বছর আগের বাস্তবতা আর এখনকার চিত্র সম্পূর্ণ আলাদা। উন্নতি, সমৃদ্ধি, প্রযুক্তি, শিক্ষা, চিকিৎসা সবকিছু বদলে গেছে। ডিজিটাল দুনিয়ায় ইতিবাচক অধ্যায় তৈরি হয়েছে। আবার পাশাপাশি এর নেতিবাচক কাণ্ডকীর্তি  চারদিকে বিভ্রান্তি তৈরি করছে। কেড়ে নিচ্ছে আমাদের আবেগ -অনুভূতি। স্বার্থপরতা মানুষের মাঝে তৈরি করছে ভয়ংকর নষ্টামি। সুবিধাভোগীরা দেখি সামাজিক মাধ্যম ভাসিয়ে ফেলছে। মুক্তিযুদ্ধ, বঙ্গবন্ধু, বাংলাদেশ, জাতীয় পতাকা, জাতীয় সংগীতের বিরুদ্ধে সাইবারযুদ্ধ চলছে। কেউ দেখার নেই। বলার নেই। দলীয় এবং সরকারে পদ-পদবিধারীর সংখ্যার শেষ নেই। কিন্তু অভাব কর্মদক্ষ মানুষের। সরকারি দল দুর্বল হলে আমলাকুল শক্তিশালী হয়। সবকিছু নিজেদের দখলে নিয়ে যায়। আর তখনই সরকার ক্ষতিগ্রস্ত হয়। খলিফা হারুনুর রশিদের আমলের মতো দক্ষ মন্ত্রী পাওয়া যাবে বলছি না। কিন্তু আমলাদের সামাল দিয়ে মন্ত্রণালয় চালানোর মতো শক্তি রাখেন এমন মন্ত্রী থাকাটা জরুরি। মন্ত্রীদের চরম অদক্ষতা নিয়ে অনেক গল্প শুনি। সে আলোচনায় আজ যাচ্ছি না। প্রধানমন্ত্রীর একক সাফল্যের কারণে অনেক কিছু সাদা চোখে ধরা পড়ছে না। সমস্যাও হচ্ছে না। কিন্তু কোনো কারণে এদিক-সেদিক হলেই সমস্যা তৈরি হবে; যা সামাল দেওয়া কঠিন হয়ে দাঁড়াবে।

সেদিন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন অধ্যাপক বললেন, দল ও সরকারে শেখ হাসিনার বিকল্প কে? এই অধ্যাপক মুক্তিযুদ্ধের চেতনার একজন মানুষ। তবে তিনি দলকানা নন। বঙ্গবন্ধু ও শেখ হাসিনাকে পছন্দ করেন আমাদের মতো। আমি বললাম, আপনি বলুন। জবাবে বললেন, ‘আমার চোখে শেখ হাসিনার বিকল্প তিনি নিজে। অন্য কেউ নন।’ শুধু এই অধ্যাপক নন, দেশ-বিদেশের অনেক বন্ধু, সুহৃদ, প্রিয়জন একই প্রশ্ন করেন। জানতে চান। অনেক কূটনীতিকের কাছে একই প্রশ্ন শুনি। নিজেও অনেকের কাছে জানতে চাই শেখ হাসিনার উত্তরাধিকার কে? সাদামাটা জবাব পাই। হিসাব-নিকাশ মেলে না। কাছ থেকে শেখ হাসিনাকে দেখেছি। তাঁর দক্ষতা, নেতৃত্বের সফলতা, কঠোর পরিশ্রমে তিল তিল করে আজকের বিশালত্ব সৃষ্টি করেছেন। এক দিনে কোনো কিছু হয়নি। বিশ্বের সবচেয়ে প্রবীণ রাজনীতিবিদদের মধ্যে তিনি একজন। টানা ক্ষমতায় থাকার দৃষ্টান্ত তৈরি করেছেন। বিরোধী দলে থাকার সময়ও কঠিন পরিস্থিতি সামাল দিয়েছেন। ষড়যন্ত্র, চক্রান্ত, একুশে আগস্টের মতো ঘটনা বারবার মোকাবিলা করেছেন। কোনো কিছু তাঁকে থামাতে পারেনি। মাঠের রাজনীতিতে কখনো আবেগের উচ্ছলতা, আবার কখনো কঠোরতার মাঝে আওয়ামী লীগকে বারবার ক্ষমতায় এনেছেন। সাংগঠনিক বিশাল ভিত্তি গড়ে তুলেছেন। বাস্তবতার সঙ্গে হিসাব-নিকাশ মেলাতে হবে।

অধ্যাপক সৈয়দ মোদাচ্ছের আলীর সঙ্গে কিছুদিন আগে আমার অফিসে কথা হচ্ছিল। তাঁর কাছে দুটি প্রশ্ন করলাম- এক. ২০২৪ সালের নির্বাচনে কী হবে? দুই. শেখ হাসিনার বিকল্প কে?  তিনি বললেন, ‘এ মুহূর্তে বিকল্প আলোচনার দরকারই নেই। সময়ও আসেনি।’ তিনি পাল্টা প্রশ্ন করে বললেন, ‘আমেরিকার বর্তমান প্রেসিডেন্ট বাইডেনের বয়স কত? শেখ হাসিনার বয়স বাইডেনের সমান হোক। তারপর এ নিয়ে আলোচনা হতে পারে।’ তিনি আরও বললেন, ‘শেখ হাসিনা এমন কোনো বুড়ি হয়ে যাননি যে তাঁর বিকল্প নিয়ে ভাবার সময় এসেছে। ২০২৪ সালের নির্বাচন শেষ হোক। তিনি আবার প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ নেবেন। তারপর দলের ভিতরে কথা হতে পারে। তখন হয়তো তিনি নিজেও ভাববেন বিকল্পের কথা।’

মোদাচ্ছের ভাইয়ের সঙ্গে কথোপকথনের পর একজন কূটনীতিক আমাকে প্রশ্ন করলেন, দল-সরকারে বিকল্প কে হবেন শেখ হাসিনার? জবাবে সৈয়দ মোদাচ্ছের আলীর রেফারেন্স টেনে এ উত্তরটাই দিলাম।

শেখ হাসিনা দূরদর্শিতা নিয়ে রাজনীতি করেন। তিনি জানেন তাঁর গন্তব্য কোথায়। ১৯৯৩ সালের মার্চের কথা মনে পড়ছে। ভোরের কাগজে কাজ করছি। শেখ হাসিনা তখন সংসদে বিরোধীদলীয় নেতা। সংসদ ভবনে তাঁর কক্ষে গেলাম। বললাম একটি সাক্ষাৎকার নিতে চাই। তিনি জানতে চান, ভোরের কাগজের জন্য? জবাবে বললাম, নেশন টুডে নামে একটি ইংরেজি পাক্ষিক ম্যাগাজিনে পুরোটা বের হবে। আপনার ওপর একটা কভার স্টোরি করবে। কিছু অংশ ভোরের কাগজে দেব। তিনি বিষয় জানতে চাইলেন। বললাম, আপনি বিরোধী দলের নেত্রী। ছায়া প্রধানমন্ত্রী। ক্ষমতায় এলে কীভাবে দেশের অর্থনীতিকে ঢেলে সাজাবেন, পররাষ্ট্র, শিক্ষা, স্বাস্থ্য, স্থানীয় সরকার নীতি কী হবে? পার্বত্য চট্টগ্রাম সংকট, রোহিঙ্গা ইস্যুর সমাধান কীভাবে করবেন, সেনাবাহিনীর বিষয়ে কী নীতিমালা হবে এসব নিয়ে। তিনি মন দিয়ে আমার কথা শুনছেন। আরও বললাম, ক্ষমতায় এলে কীভাবে সরকার সাজাবেন তা দেশ-বিদেশে তুলে ধরতে চাই। আরেকটা বিষয় সেনাবাহিনীর সঙ্গে আওয়ামী লীগের কিছু দূরত্ব আছে বলে অনেকে মনে করেন। আপনি ক্ষমতায় এলে যা করতে চান তা-ও প্রকাশ করতে চাই। একটি অংশ ভোরের কাগজে, সম্পূর্ণটা যাবে ইংরেজি ম্যাগাজিন নেশন টুডেতে। নেশন টুডের সম্পাদক জিল্লুর রহিম দুলাল বাকশালের মহিউদ্দিন আহমদের মেয়েজামাই। আমার পাশে দাঁড়িয়ে ছিলেন জনসংযোগ কর্মকর্তা কাজী আখতার আহমেদ। পরে তিনি সচিব হন। নেত্রী বললেন, ‘বসো। টেপরেকর্ডার চালু কর।’ সাক্ষাৎকার শুরু হলো। এক ঘণ্টা পর নজীব আহমেদ ভাই তাগাদা দিলেন, ইফতারের সময় ঘনিয়ে আসছে। আমাদের সাক্ষাৎকার মাত্র জমে উঠছে। শেখ হাসিনা তুলে ধরছেন বাংলাদেশ ঘিরে তাঁর স্বপ্নগুলোর কথা।

আরও পড়ুন


দখল হয়ে যাচ্ছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম ছাত্রী লীলা নাগের বাড়ি

ঢাকা প্রিমিয়ার লিগ: মাঠে যাওয়ার সময় আম্পায়ারদের গাড়িতে হামলা

১০ বছরের জেল হতে পারে নেতানিয়াহুর: ইসরাইলি আইনজীবী

এবার ফিলিস্তিনি নারীকে গুলি করে হত্যা ইসরাইলি বাহিনীর


নজীব ভাইয়ের তাগাদার পর বললেন, ‘চল বাসায়’। বিরোধী দলের নেতা হিসেবে তিনি তখন থাকতেন ২৯ মিন্টো রোডে। নেত্রীর সঙ্গে এলাম সে বাসায়। তিনি নামাজ পড়তে চলে গেলেন। একসঙ্গে ইফতার শেষ করলাম। ইফতারের টেবিলে ডিনারের ব্যবস্থাও ছিল। আমার পাতে খাসির মাথা দিয়ে রান্না করা বুটের ডাল তুলে দিলেন। বললেন, ‘এটা আমার রান্না।’ বড় বোনের মতো বিভিন্ন খাবার তুলে দিলেন। ইফতার শেষ করে চা খেতে খেতে সাক্ষাৎকার শুরু হলো আবার। তিনি ভিতরে গেলেন, লিখিত অনেক কাগজ এনে দিলেন। বললেন, ‘এস এ এম এস কিবরিয়া সাহেব আমার সঙ্গে কাজ শুরু করেছেন। আরও কয়েকজন অর্থনীতিবিদ ও কূটনীতিক আছেন। বাংলাদেশকে এগিয়ে নিতে আমার পরিকল্পনা রয়েছে। দারিদ্র্য বিমোচন, সামাজিক সুরক্ষা, পার্বত্য শান্তিচুক্তির পরিকল্পনাসহ সব বিষয়ে চিন্তা করছি। নারী উন্নয়নে ভূমিকা রাখতে হবে। গ্রামীণ অর্থনীতি বদলাতে হবে।’ শুনছি আর বিস্মিত হচ্ছি। আমরা কয়েকজন সাংবাদিক সারা বাংলাদেশ ঘুরেছিলাম আওয়ামী লীগ সভানেত্রীর সঙ্গে। বিস্ময় নিয়ে বললাম, আপা আপনি সব কাজ করে রেখেছেন। চিন্তাও করতে পারিনি এভাবে সবকিছু আপনার কাছে গোছানো আছে। তিনি হাসলেন। বললেন, ‘দেশে ফেরার পরই কাজ শুরু করেছি। ’৯১ সালের ভোটের আগের কাজগুলোকে আরও গুছিয়ে নিচ্ছি নতুন করে।’ সেই সাক্ষাৎকার প্রকাশিত হয়েছিল নেশন টুডেতে ‘পি এম ইন ওয়েটিং’ শিরোনামে প্রচ্ছদ প্রতিবেদন হিসেবে। প্রচ্ছদের ছবি তুলেছিলেন পাভেল রহমান।

১৯৯৬ সালে ক্ষমতায় এলে কী করবেন শেখ হাসিনা সে পরিকল্পনা আগেই করে রেখেছিলেন। সেই দূরদর্শিতা এখনো ধরে রেখেছেন। তাঁর সঙ্গে সারা দেশ সফরের সময় বুঝেছি তিনি মানুষের মনের ভাষা বোঝেন। সে অনুযায়ী চিন্তা করেন। শেখ হাসিনা এখনো তা-ই আছেন। রাজনীতির জটিল দাবার চালে তিনি নিজেকে টানা ক্ষমতায় রাখছেন। সময়ের হিসাব-নিকাশে শেখ হাসিনা জাতীয় ও আন্তর্জাতিকভাবে নিজের শক্ত অবস্থান তৈরি করে রেখেছেন। সবাই এভাবে পারে না। দেশ-বিদেশের নানামুখী ষড়যন্ত্রের কাছে হার মেনে যেতে হয় অনেককে। শেখ হাসিনা সবকিছু মোকাবিলা করেই এগিয়ে চলেছেন সামনের দিকে। কঠিন বাস্তবতা মোকাবিলা করে বাংলাদেশকে নতুন পথ দেখিয়েছেন। সমৃদ্ধ ও শক্তিশালী করেছেন দেশের অর্থনীতি। কী করে সব সম্ভব হচ্ছে এ প্রশ্নও আসছে। কারণ দুর্বল মন্ত্রিসভা। ভোট ছাড়া জিতে অনেক এমপি কর্মী ও দল বিচ্ছিন্ন। তারা মনে করছেন মানুষকে দরকার নেই। কর্মীদেরও প্রয়োজন নেই। হয়তো এ চিন্তা থেকে মন্ত্রী সাহেবদের অনেকে এলাকায় যান না। অনেক এমপিও এলাকার সঙ্গে সম্পৃক্ত নন। কেউ কেউ দলবিচ্ছিন্ন। অনেকের বিরুদ্ধে রয়েছে দুর্নীতি-অনিয়মের অভিযোগ। আবার কেউ কেউ নিজেকে টিকিয়ে রাখতে জামায়াত-বিএনপিকে ঠাঁই দিচ্ছেন। পদ-পদবি দিচ্ছেন। উপেক্ষা করছেন কর্মীদের। দুঃসময়ের নেতা-কর্মীরা হতাশ। তবে বঞ্চনার কথাও এখন আর কেউ বলেন না। আস্থা ও ভরসার একমাত্র ঠিকানাকে ঘিরেই এত সংকটের পরও আওয়ামী লীগ টিকে যায়।  কঠিন সময় সামাল দেয়। আমার চোখেও শেখ হাসিনার বিকল্প তিনি নিজে, অন্য কেউ নন। তার পরও নজরুলের  সেই কথা মনে রেখে চলতে হবে, ‘চিরদিন কাহারও সমান নাহি যায়’।

লেখক: সিইও, নিউজ টোয়েন্টিফোর ও সম্পাদক, বাংলাদেশ প্রতিদিন।

news24bd.tv আহমেদ

পরবর্তী খবর