যে ৯টি ছবির নাম বদলাতে বাধ্য হয় পরিচালক
যে ৯টি ছবির নাম বদলাতে বাধ্য হয় পরিচালক

যে ৯টি ছবির নাম বদলাতে বাধ্য হয় পরিচালক

অনলাইন ডেস্ক

বদলে গেল কার্তিক আরিয়ানের আগামি ছবি ‘সত্যনারায়ণ কি কথা’র নাম। ছবির প্রযোজকরা জানিয়েছেন, কারও ভাবনায় আঘাত করার উদ্দেশ্য তাঁদের নেই। তাই ছবির নাম বদলাতে চলেছে। নতুন নামের ঘোষণা হবে খুব তাড়াতাড়ি।

বলিউডে এটা কিছু নতুন নয়।

অতীত দেখলেই জানা যাবে, আরও অন্তত ৮ বার নানা কারণে বদলে গেছে ছবির নাম

ইরফান খান- শাহরুখ খান অভিনীত ‘বিল্লু’। ছবির শুরুতে নাম ছিল ‘বিল্লু বারবার’। ছবির প্রোমোশনের ঠিক আগে আগে হেয়ার স্টাইলিস্টরা সংঘবদ্ধভাবে প্রতিবাদ করেন। তাঁরা বলেন, ছবির প্রোমোতে 'নাই' অর্থাৎ নাপিত শব্দটি এমনভাবে ব্যবহৃত হয়েছে, যা অত্যন্ত অপমানজনক। ছবির পরিচালক প্রিয়দর্শন কথা না বাড়িয়ে ‘বিল্লু বারবার’ নাম থেকে ‘বারবার’ শব্দটি ফেলে দেন।

সালমান খানের বোন অর্পিতার স্বামী আয়ুশ শর্মাকে লঞ্চ করলেন ভাইজান। সঙ্গে নতুন নায়িকা ওয়ারিনা হুসেন। ছবির নাম রাখা হলো ‘লভরাত্রি’। হঠাৎই বেঁকে বসলেন একদল। তাঁদের বক্তব্য হিন্দুদের উৎসব নবরাত্রিকে ঠুকে সিনেমার নাম ঠিক করা হয়েছে ‘লভরাত্রি’। নানা সমস্যায় জর্জরিত সালমান নিজে সিদ্ধান্ত নিয়ে জানান, ছবির নাম বদলে দেওয়া হবে। পরে সেই ছবি ‘লভযাত্রী’ নামে রিলিজ হয়।

সঞ্জয় লীলা বনশালির ছবির নামবিভ্রাটে পড়া আর নতুন কী! পরিচালক নিজের মা-বাবার নাম নিয়ে ছবি পরিচালনা করতে শুরু করলেন। ছবির নাম ‘রামলীলা’। চতুর্দিকে হইহই শুরু হলো। ভগবান রামের নাম নিয়ে এমন কাণ্ড কেউ কখনও শোনেননি। তাই এই ছবি হতে দেওয়া যাবে না। বিতর্ক দূর করতে পরিচালক ছবির নামে ছবির কাহিনি আরও স্পষ্ট করে দেন। ছবির নাম হয় ‘গলিয়োঁ কা রাসলীলা-রামলীলা’।

পরিচালক ঈশ্বর নিবাসের ছবি ‘টোটাল সিয়াপ্পা’। ছবির কাহিনিকার ছিলেন নীরজ পান্ডে। এই ছবিটি বিদেশি ছবি থেকে অনুপ্রাণিত। ছবির গল্পে এক পাকিস্তানি যুবক আমন প্রেমে পড়েন ভারতীয় মেয়ে আশার। তাই ছবির নাম প্রথমে রাখা হয় ‘আমন কি আশা’। বিভ্রাট বাধে তখনই। কারণ ভারত ও পাকিস্তান দুই দেশের দুই প্রথম সারির দৈনিকে তখন ‘আমন কি আশা’ নামে সিরিজ চলছে। তাই দু দেশের তরফেই আপত্তি তোলা হয়। তখন ছবির নাম বদলে করা হয় ‘টোটাল সিয়াপ্পা’।

‘গদর এক প্রেমকথা’র পরিচালক অনিল শর্মা, বেশ কয়েক বছর পর সানি দেওলকে নিয়েই তাঁর পরবর্তী ছবি 'সিং সাহিব' করবেন বলে ঘোষণা করেন। ছবির ঘোষণা হওয়া মাত্রই শিখ সম্প্রদায়ের কাছ থেকে প্রতিবাদ আসে। কারণ 'সাহিব' শব্দটার সঙ্গে কোনও রকম মালিন্য চলে না। শিখদের সম্মান যাতে কোনওভাবে আহত না হয়, তাই ছবির নাম বদলে দেওয়া হয়। নতুন ছবির নাম হয় 'সিং সাব দ্য গ্রেট'। ছবি অবশ্য বক্সঅফিসে মুখ থুবড়ে পড়ে।  

শাহিদ-সোনাক্ষীর এই ছবি দেখেই বোঝা যাচ্ছে, এটি ‘আর রাজকুমার’ সিনেমার পোস্টার। প্রভুদেবা এই ছবির পরিচালক ছিলেন। শুরুতে এই ছবির নাম ছিল ‘ব়্যাম্বো রাজকুমার’। হলিউড সিরিজ ‘ব়্যাম্বো’র প্রযোজকদের আপত্তিতে ছবির নাম বদলাতে হয়।

সাম্প্রতিক অতীতে 'পদ্মাবত' ঘিরে যা বিতর্ক হয়েছে তা ভারতীয় সিনেমার ক্ষেত্রে বিরল। ছবির শুটিংয়ে পরিচালক নিগ্রহ থেকে শুরু করে রাজপুতদের আপত্তি, ভাংচুর, ধ্বংসাত্মক মনোভাব, জোর করে একবছর ছবি রিলিজ না করতে দেওয়া, দীপিকার মাথার দাম ৫ কোটি ধার্য হওয়া....ইতিহাসে এইকারণেই থেকে যাবে এই ছবি। শুরুতে ছবির নাম ছিল 'পদ্মাবতী'। রানি পদ্মাবতীকে ছবিতে অপমান করা হয়েছে, এই আপত্তি তোলেন রাজপুতরা। নানা বিবাদের পর অবশেষে ছবির নাম বদলে করা হয় 'পদ্মাবত'।

সুজিত সরকার পরিচালিত ছবি 'মাদ্রাজ কাফে'। শুরুতে ছবির নাম ছিল 'জাফনা'। শ্রীলঙ্কার একটি বিশেষ জায়গার নাম জাফনা। LTTE জঙ্গিদের ঘাঁটি বলে পরিচিত। জন আব্রাহাম-নার্গিস ফকরি অভিনীত এই ছবি নিয়ে শোরগোল শুরু হয়ে যায়। বলা হয়, জাফনা নাম দিয়ে বিশেষ একটি রাজনৈতিক মতকে দেগে দেওয়া হচ্ছে। গোলমাল এড়াতে প্রযোজকরা ছবির নাম বদলে করে দেন 'মাদ্রাজ কাফে'।

আরও পড়ুন:


তার শরীরী আবেদনে কুপোকাত ভক্তরা

ভারতের সঙ্গে গোপন যোগাযোগ নেই: পাকিস্তান

রাস্তায় বের হওয়ার রাজধানীতে গ্রেপ্তার ৬১৮


news24bd.tv / তৌহিদ

সম্পর্কিত খবর