খাদ্য সংকট ও দারিদ্র্য কি তবে এভাবেই শুরু?
খাদ্য সংকট ও দারিদ্র্য কি তবে এভাবেই শুরু?

জাকির হোসেন, অধ্যাপক, আইন বিভাগ, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়।

খাদ্য সংকট ও দারিদ্র্য কি তবে এভাবেই শুরু?

Other

পবিত্র কুরআন পড়ে আমার অনুধাবন হয়েছে  মানুষ কত নির্বোধ, অজ্ঞ,  নিজের ওপর জুলুমকারী ! এক সময়  খাদ্য সংকট কল্পনাতেও ছিলো না। মহান আল্লাহর কুদরতের খাবার ‘মান্না’ ও ‘সালওয়া’  সব মানুষের জন্য অবারিত ছিলো। বানী-ইস্রাঈলরা বিনা পরিশ্রমে এই খাদ্য লাভ করেছিল।   ঘরের বের হলেই তা মিলতো।

কিন্তু বানী-ইস্রাঈলরা এই খাবারের প্রতি তাদের অনীহার কথা জানিয়ে মুসা (আ.) বললো, তিনি যেন প্রতিপালকের নিকটে প্রার্থনা করে ভূমি জাত দ্রব্য শাক-সবজী, কাঁকুড়, গম, মসুর ও পিঁয়াজ এই জাতীয় খাবার উৎপাদনের ব্যবস্থা করেন। তাদের জন্য মহান রব এসবের ব্যবস্থা করে দিলেন, তবে তাদের  উপর লাঞ্ছনা ও দারিদ্র্য নিপতিত হলো।  

এই বিষয়টি সুরা বাকারার ৫৭ ও ৬১ নং আয়াতে বর্ণিত হয়েছে -
১. “আমি মেঘ দ্বারা তোমাদের উপর ছায়া বিস্তার করলাম, তোমাদের নিকট ‘মান্না’ ও ‘সাল্ওয়া’ প্রেরণ করলাম। (আর বললাম,) যে সকল ভাল জিনিস তোমাদের জন্য দিলাম তা থেকে আহার কর। তারা (নির্দেশ না মেনে) আমার প্রতি জুলুম করেনি, বরং তারা নিজেদেরই প্রতি জুলুম করেছিল”। (আয়াত: ৫৭)

২. “আর তোমরা যখন বলেছিলে, ‘হে মূসা! একই রকম খাদ্যে আমরা কখনো ধৈর্য ধারণ করব না, সুতরাং তুমি তোমার প্রতিপালকের নিকট আমাদের জন্য প্রার্থনা কর, তিনি যেন ভূমি জাত দ্রব্য শাক-সবজী, কাঁকুড়, গম, মসুর ও পিঁয়াজ উৎপাদন করেন। মূসা বলল, তোমরা কি উৎকৃষ্ট বস্তুকে নিকৃষ্ট বস্তুর সাথে বিনিময় করতে চাও? তবে কোন নগরে অবতরণ কর। তোমরা যা চাও, তা সেখানে আছে। ’ আর তারা লাঞ্ছনা ও দারিদ্র্যগ্রস্ত হল এবং আল্লাহর ক্রোধের পাত্র হল। এ জন্য যে তারা আল্লাহর নিদর্শনাবলীকে অমান্য করত এবং (প্রেরিত পুরুষ) নবীদেরকে অন্যায়ভাবে হত্যা করত। অবাধ্যতা ও সীমা লঙ্ঘন করার জন্যেই তাদের এই পরিণতি ঘটেছিল”। (আয়াত : ৬১)

লেখাটি  অধ্যাপক জাকির হোসেন -এর ফেসবুক থেকে নেওয়া (সোশ্যাল মিডিয়া বিভাগের লেখার আইনগত ও অন্যান্য দায় লেখকের নিজস্ব। এই বিভাগের কোনো লেখা সম্পাদকীয় নীতির প্রতিফলন নয়। )

আরও পড়ুনঃ

অবশেষে ছাড়া পাচ্ছে সুয়েজ খাল আটকে দেয়া সেই জাহাজ

তালেবানের ভয়ে দেশ ছেড়ে পালাচ্ছে আফগান সেনারা

আবারও আফগানিস্তানে তালিবান শাসন

news24bd.tv/এমিজান্নাত