টাইলস বিপননকারী প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে ৩৯ কোটি টাকার ভ্যাট ফাঁকি উদঘাটন

অনলাইন ডেস্ক

টাইলস বিপননকারী প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে ৩৯ কোটি টাকার ভ্যাট ফাঁকি উদঘাটন

ভ্যাট গোয়েন্দা অধিদপ্তর একটি টাইলস বিপননী প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে তদন্ত করে প্রায় ৩৯ কোটি টাকার ভ্যাট ফাঁকি উদঘাটন করেছে।ভ্যাট ফাঁকির প্রমাণ পাওয়ায় আজ প্রতিষ্ঠানটির বিরুদ্ধে ভ্যাট আইনে মামলা দায়ের করা হয়েছে।  

প্রতিষ্ঠানটি হলো মোহাম্মদ ট্রেডিং, আরএকে টাওয়ার (৭ম তলা), প্লট -১/এ, জসিমউদ্দীন এভিনিউ, সেক্টর-৩, উত্তরা, ঢাকা-১২৩০ (মূসক নিবন্ধন নং: ০০১০৭৩৩৩৭-০১০২)। 

প্রতিষ্ঠানটি আরএকে সিরামিকস বাংলাদেশ লি: এবং স্টার সিরামিক লি: এর নিকট হতে বিভিন্ন সাইজের টাইলস এবং স্যানিটারি আইটেম ক্রয়পূর্বক তা স্থানীয় বাজারে সরবরাহ করে থাকে।

প্রতিষ্ঠানটি তাদের ভ্যাটযোগ্য সেবার বিপরীতে প্রযোজ্য রাজস্ব যথাযথ ভাবে সরকারী কোষাগারে জমা প্রদান না করে ও সঠিক বিক্রয় তথ্য গোপন করে ঘোষণা বর্হিভুত স্থানে মূসক সংক্রান্ত দলিলাদি সংরক্ষণ করে ভ্যাট ফাঁকি দিয়ে নিজেরা ব্যক্তিগত ভাবে লাভবান হয়েছে এবং সরকারের আর্থিক ক্ষতি সাধন করেছে — এমন একটি সুনির্দিষ্ট অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে ভ্যাট গোয়েন্দার একটি দল গত ৩ অক্টোবর প্রতিষ্ঠানটির নিবন্ধন বর্হিভূত স্থানে (নর্দান পল্লী ৮৯, গাউসুল আজম এভিনিউ সেক্টর #১৪, উত্তরা, ঢাকা) আকস্মিক অভিযান পরিচালনা করে। এতে অভিযোগটির সত্যতা পাওয়া যায়।এতে দেখা যায়, প্রতিষ্ঠানটির ভ্যাট সংক্রান্ত মূল দলিলপত্র মোড়কজাত করে এগুলো ধ্বংস করার জন্য ঐ স্থানে স্তুপ করা হয়েছিল। অভিযানে জানা যায়, ভ্যাট গোয়েন্দাদের নজর এড়াতে প্রতিষ্ঠানের প্রধান কার্যালয় থেকে এগুলো গোপনে ধ্বংস করার জন্য সরিয়ে ফেলা হয়েছিল। 

গোয়েন্দা দল তাৎক্ষণিকভাবে প্রতিষ্ঠানটির প্রধান কার্যালয় আরএকে টাওয়ার (৭ম তলা), প্লট -১/এ, জসিমউদ্দীন এভিনিউ, সেক্টর-৩, উত্তরা, ঢাকা-১২৩০ এ একইসাথে অভিযান পরিচালনা করে।

সংস্থাটির  উপপরিচালক তানভীর আহমেদ অভিযানটিতে নেতৃত্ব দেয়। 

প্রতিষ্ঠানটির প্রধান কার্যালয়ে অভিযানকালে দেখা যায়, এটি নিবন্ধনের ঘোষণা বহির্ভূত স্থান।অভিযানের পর উক্ত কার্যালয়ের কর্মকর্তাগণ তাদের প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দেয়ার চেষ্টা করেন। পরে ঘটনাস্থলে মালিক পক্ষকে অনুরোধ করলে তারা প্রতিষ্ঠান খুলে গোয়েন্দা কর্মকর্তাদের সহযোগিতা করেন। 

এসময় অভিযানে অংশ নেয়া কর্মকর্তাদের চাহিদা মোতাবেক প্রতিষ্ঠানের উপস্থিত কর্মকর্তারা ভ্যাট সংক্রান্ত নথিপত্র প্রদর্শন করেন।একইসাথে প্রতিষ্ঠানে ব্যবহৃত কম্পিউটারসহ অন্যান্য বাণিজ্যিক দলিলাদি তল্লাশি করা হয়।এর সূত্র ধরে পরবর্তীতে মূসক সংক্রান্ত সকল দলিলাদি জব্দ করা হয়।

তদন্তকালে প্রতিষ্ঠানের বার্ষিক অডিট প্রতিবেদন, দাখিলপত্র (মূসক-১৯) এবং বিভিন্ন সময়ে প্রতিষ্ঠান কর্তৃক জমাকৃত ট্রেজারি চালানের কপি ও অন্যান্য দলিলাদি হতে প্রাপ্ত তথ্য-উপাত্ত আড়াআড়ি যাচাই করে তদন্ত প্রতিবেদন প্রস্তুত করা হয়।তদন্তের মেয়াদ ছিল জানুয়ারি ২০১৮ থেকে এপ্রিল ২০১৯ পর্যন্ত ।

প্রতিষ্ঠান কর্তৃপক্ষ প্রকৃত বিক্রয় মূল্যের বিপরীতে ব্যবসায়ী পর্যায়ে ভ্যাট প্রদান না করে শুধুমাত্র বিক্রয়কৃত পণ্যের মূল্যের বিপরীতে প্রাপ্ত কমিশনের উপর ব্যবসায়ী পর্যায়ে মূসক প্রদান করেছেন।কিন্তু জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের এস আর ও নং ১২৪-আইন/২০১৫/৭৩০- মূসক, তারিখ: ০৪ জুন ২০১৫ এবং এস এর ও নং ১৭৪ আইন/২০১৮/৭৯৭ মূসক, তারিখঃ ০৭ জুন ২০১৮ অনুযায়ী ব্যবসায়ী পর্যায়ে প্রকৃত সরবরাহ মূল্যের বিপরীতে ৪% ও ৫% হারে মূসক প্রদানের আইনী বাধ্যবাধকতা থাকলেও প্রতিষ্ঠানটি প্রকৃত সরবরাহ মূল্য প্রদর্শন না করে কমিশনকে বিক্রয় মূল্য হিসেবে প্রদর্শন করে তার বিপরীতে মূসক পরিশোধ করেছে। 

প্রতিষ্ঠান কর্তৃপক্ষ ব্যবসায়ী পর্যায়ে মূসক পরিশোধের এই আইনী বাধ্যবাধকতাকে লংঘন করেছে মর্মে তদন্তে উঠে এসেছে।

প্রতিবেদন অনুযায়ী তদন্ত মেয়াদে প্রতিষ্ঠানটি দাখিলপত্রে বিক্রয় মূল্য ২১,২৪,৮৩,৯৩৮ টাকা কমিশন প্রদর্শন করেছে, যার উপর তারা ১,০০,৫৪,৬৫৫ টাকা ভ্যাট পরিশোধ করেছে। 

কিন্তু প্রতিষ্ঠানটির কমিশনসহ মোট ভ্যাটযোগ্য বিক্রয় মূল্য ছিল ৬,৩২,৩৩,০৭,৯৮২ টাকা এবং এর উপর প্রযোজ্য ভ্যাটের পরিমাণ ২৮,৩৬,৭৮,৮৭০ টাকা।এক্ষেত্রে প্রতিষ্ঠানটির অপরিশোধিত ভ্যাট বাবদ ২৭,৩৬,২৪,২১৫ টাকা ফাঁকি উদঘাটিত হয়। 
এই ফাঁকির উপর ভ্যাট আইন অনুসারে মাস ভিত্তিক ২% হারে ১১,৪৮,৪৭,৬৮২ টাকা বিলম্বজনিত সুদ হিসেবে প্রযোজ্য হবে।

অন্যদিকে, তদন্তে দেখা যায় যে, উল্লিখিত মেয়াদে প্রতিষ্ঠানটি স্থান ও স্থাপনা ভাড়ার বিপরীতে ১১,২৮,৫৭০ টাকা ভ্যাট পরিশোধ করেছে।কিন্তু প্রতিষ্ঠানটির প্রদেয় ভ্যাট এর পরিমাণ ছিল ২০,৭৭,১০২ টাকা।এক্ষেত্রে প্রতিষ্ঠানটির অপরিশোধিত ভ্যাট বাবদ ৯,৪৮,৫৩২ টাকা ফাঁকি উৎঘাটিত হয়।এই ফাঁকির উপর ভ্যাট আইন অনুসারে মাস ভিত্তিক ২% হারে ৫,১২,৩২৫ টাকা সুদ টাকা আদায়যোগ্য হবে। 

বর্ণিত মেয়াদে প্রতিষ্ঠানটির সর্বমোট অপরিশোধিত ভ্যাটের পরিমাণ ২৭,৪৫,৭২,৭৪৭ টাকা এবং সুদ বাবদ ১১,৫৩,৬০,০০৬ টাকাসহ ৩৮,৯৯,৩২,৭৫৪ টাকা পরিহারের তথ্য উদঘাটিত হয়।

তদন্তে আরো দেখা যায় যে, প্রতিষ্ঠানটি সরকারের ভ্যাট ফাঁকির উদ্দেশ্যে মিথ্যা তথ্যসহ নানা ধরণের অনিয়মের আশ্রয় নিয়েছে, যা ভ্যাট আইন অনুসারে শাস্তিযোগ্য অপরাধ। 

আজ ভ্যাট আইনে এসংক্রান্ত একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। 

তদন্তে উদ্ঘাটিত পরিহারকৃত ভ্যাট আদায়ের আইনানুগ কার্যক্রম গ্রহণের জন্য তদন্ত প্রতিবেদনটি ঢাকা উত্তর ভ্যাট কমিশনারটে প্রেরণ করা হয়েছে।

এখানে আরো উল্লেখ্য একই প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে ভ্যাট গোয়েন্দা ইতোপূর্বে ১২৪ কোটি টাকার ভ্যাট ফাঁকির ভিন্ন একটি মামলা দায়ের করেছিল যা বর্তমানে বিচারিক প্রক্রিয়ায় চলমান রয়েছে।

আরও পড়ুনঃ

আপনি তো বাংলাদেশের মাল, তো আপনি কি বাদ কোয়ালিটির?

টিকা পাওয়ার অগ্রাধিকার তালিকায় যুক্ত হতে যাচ্ছেন আইনজীবীরা

ভয়াবহ ভবিষ্যতের দিকে যাচ্ছে করোনা পরিস্থিতি

news24bd.tv/এমিজান্নাত

পরবর্তী খবর

ঢাকায় যানজটে দৈনিক নষ্ট ৩৭ হাজার কোটি টাকার কর্মঘণ্টা (ভিডিও)

ফখরুল ইসলাম

ঢাকায় গাড়ির গতি আর হাটার গতির গড় একই। গবেষণা বলছে, পিক আওয়ারে গাড়ির গতির গড় ঠেকেছে মাত্র ৫ কিলোমিটারে। বুয়েটের এক্সিডেন্ট রিসার্চ ইন্সটিটিউটের গবেষণায় যানজটে রাজধানীতেই প্রতিদিন নষ্ট হচ্ছে ৩৭ হাজার কোটি টাকার কর্মঘণ্টা। এর জন্য রাস্তার তুলনায় অতিরিক্ত গাড়ির চাপকেই দুষলেন বিশেষজ্ঞরা। বিআরটিএ বলছে, গেল ১ দশকে দেশে গাড়ি বেড়েছে ৩৩ লাখ। বিপরীতে নতুন রাস্তা বেড়েছে যৎসামাণ্যই।

বিশ্বের ১৪০টি রাজধানীর মধ্যে বসবাসযোগ্যতার বিচারে ঢাকার অবস্থান ১৩৭তম।দ্যা ইকোনোমিস্টের  সাম্প্রতিক জরিপে উঠে আসে এমনই তথ্য । ঢাকার এই তলানীতে অবস্থানের অন্যতম কারণ দুঃসহ যানজট। 

বুয়েটের এক্সিডেন্ট রিসার্চ ইন্সটিটিউটের গবেষণা বলছে এক দশক আগে ঢাকায় গাড়ির গতি ছিলো ২১ কিলোমিটার। তা নেমে গড়ে এখন ৫ কিলোমিটার। রাস্তা যা আছে বিপরীতে উদ্বেগজনকহারে বাড়ছে গাড়ির সংখ্যা। বাংলাদেশ রোড ট্রান্সপোর্ট অথরিটি বলছে গত এক দশকে দেশে গাড়ি বেড়েছে ৩৩ লাখের বেশি। ঢাকাতেই ১১ লাখ বেড়ে ছোটবড় মিলিয়ে গাড়ির সংখ্যা্ প্রায় ১৭ লাখ। এরমধ্যে সারাদেশে ব্যাক্তিগত সাড়ে ৪ লাখ গাড়ির ৪ লাখই চলে ঢাকায়।

আরও পড়ুন:

অবশেষে ব্রিটেনের লাল তালিকা থেকে বাদ পড়ছে বাংলাদেশ

বেড়াতে গিয়ে অতিরিক্ত মদ পানে দুই ছাত্রলীগ কর্মীর মৃত্যু

আর কোনো তত্ত্বাবধায়ক সরকার হবে না, জানালেন কৃষিমন্ত্রী

ইভ্যালির সঙ্গে আর সম্পর্ক নেই তাহসানের


 

যাত্রী ভোগান্তি নিরসনে দশকের পর দশক কার্যকর গণপরিবহণ ব্যবস্থা চালুর পরিকল্পনা নেয়া হলেও অদৃশ্য কারণে বরাবরই ভেস্তে যাচ্ছে সে উদ্যোগ।  তবে রাজধানী জুড়ে নির্মিত বেশ কয়েকটি ফ্লাইওভার, নির্মাণাধীন এলিভেটেডে এক্সপ্রেসওয়ে ও মেট্রোরেল এর কাজ অচিরেই শেষ হলে, যানজট নিসরসনে আশার আলো দেখছে রাজধানীবাসী। 

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

ই-অরেঞ্জের গ্রাহকদের পুলিশের লাঠিচার্জ (ভিডিও)

সুলতান আহমেদ

এবার ই-অরেঞ্জের গ্রাহকদের পেটালো পুলিশ। বুধবার মানববন্ধন শেষে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ে স্মারকলিপি দিতে চাইলে প্রথমে পুলিশের বাধার মুখে পরে আন্দোলনরত গ্রাহকরা। পরে পুলিশের সঙ্গে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনায় বেশ কয়েকজন আহত হয়। কয়েকজনকে গ্রেফতার করেছে বলেও অভিযোগ গ্রাহকদের।

এদিকে ইভ্যালীর ব্যবস্থাপনা পরিচালক রাসেলের জামিন না মঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। অন্যদিকে পরিকল্পনামন্ত্রীও বলছেন, এমন ঘটনায় কোনভাবেই দায় এড়াতে পারেনা সরকার। 

চটকদারি বিজ্ঞাপনের প্রলোভনে পরে বিনিয়োগ করে এখন রাজপথে ই-ভ্যালী, ই-অরেঞ্জের হাজার হাজার গ্রাহক। বৃহস্পতিবার সকাল থেকে বিভিন্ন ব্যানার হাতে নিয়ে দলে দলে জড়ো হতে থাকে প্রেসক্লাব এলাকায়। এসময় ইভ্যালী, ই-অরেঞ্জের ঘটনায় জড়িতদের শাস্তি দাবি করে বিভিন্ন স্লোগান দিতে দেখা যায় গ্রাহকদের। 

মানবন্ধন শেষে বাণিজ্যমন্ত্রণালয়ে স্মারকলিপি দিতে যেতেই পুলিশি বাধার মুখে পরে তারা। এসময় পুলিশের সাথে বাক বিতন্ডায় জড়ায় ভুক্তভোগীরা। পরে প্রেসক্লাব থেকে মৎস ভবনের দিকে যেতেই ঘটে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা। যেখানে আহত হয় অন্তত ১০ জন। এছাড়া বেশ কয়েকজন আন্দোলনকারি গ্রেফতার হয়েছে বলেও অভিযোগ গ্রাহকদের। 

নামধারি ই-কমার্স কোম্পানিগুলোর দায় নিয়ে মঙ্গলবার পাল্টাপাল্টি বক্তব্য দেয় অর্থমন্ত্রী ও বাণিজ্যমন্ত্রী। বৃহস্পতিবার নিউজটোয়েন্টিফোরকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান বলেন, গ্রাহকদের ক্ষতির প্রথম দায়ভারটি সরকারের। 

এদিকে বৃহস্পতিবার ধানমন্ডি থানার প্রতারণার মামলায় সিএমএম আদালতে আনা হয় ইভ্যালীর ব্যবস্থাপনা পরিচালক রাসেলকে। আদালত এসময় তার জামিন না মঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশনা দেন। 

পরবর্তী খবর

ই-কমার্সের প্রতারণা বন্ধে কঠোর পদক্ষেপ চান রাষ্ট্রপতি

অনলাইন ডেস্ক

ই-কমার্সের প্রতারণা বন্ধে কঠোর পদক্ষেপ চান রাষ্ট্রপতি

ই-কমার্সে প্রতারণা বন্ধে কঠোর পদক্ষেপ নেওয়ার আহ্বান জানিয়ে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ভোক্তা প্রতারণা বন্ধ করার কার্যকর উপায় বের করতে বাংলাদেশ প্রতিযোগিতা কমিশনকে নির্দেশ দিয়েছেন। ভোক্তারা ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার আগেই তাদের জন্য কার্যকরী পদক্ষেপ নেওয়ার জন্য তিনি কমিশনের প্রতি আহ্বান জানান।

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশির নেতৃত্বে বাংলাদেশ প্রতিযোগিতা কমিশনের একটি প্রতিনিধি দল বঙ্গভবনে রাষ্ট্রপতির কাছে কমিশনের ২০২০-২১ অর্থবছরের বার্ষিক প্রতিবেদন হস্তান্তর করতে গেলে রাষ্ট্রপতি এ আহ্বান জানান।

বৈঠক শেষে রাষ্ট্রপতির উপ-প্রেস সচিব মুন্সী জালাল উদ্দিন প্রেস ব্রিফিং করেন। 

প্রেস ব্রিফিংয়ে তিনি জানান, সাম্প্রতিককালে ই-কমার্সে ভোক্তাদের প্রতারিত হওয়ার বিষয়টি পত্রপত্রিকা ও অন্যান্য সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশিত হওয়ায় রাষ্ট্রপতি দেশে দ্রুত প্রসারণশীল ই-কমার্স ব্যবস্থায় ভোক্তা প্রতারণা বন্ধে কার্যকর উপায় বের করতে বাংলাদেশ প্রতিযোগিতা কমিশনের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।

রাষ্ট্রপতি বলেন, ই-কমার্স একটি সম্ভাবনাময় খাত। কিছু সংখ্যক লোকের কারণে এ খাতটি যেন শুরুতেই মুখ থুবড়ে না পড়ে সে বিষয়ে সবাইকে সতর্ক হতে হবে। এ খাতে প্রতারণাসহ ভোক্তার স্বার্থের জন্য ক্ষতিকর বিষয়গুলো চিহ্নিত করে সেগুলো কঠোর হস্তে দমনের জন্য তিনি সরকারের সংশ্লিষ্ট সব প্রতিষ্ঠানের প্রতি আহ্বান জানান।

আরও পড়ুন:

অবশেষে ব্রিটেনের লাল তালিকা থেকে বাদ পড়ছে বাংলাদেশ

বেড়াতে গিয়ে অতিরিক্ত মদ পানে দুই ছাত্রলীগ কর্মীর মৃত্যু

আর কোনো তত্ত্বাবধায়ক সরকার হবে না, জানালেন কৃষিমন্ত্রী

ইভ্যালির সঙ্গে আর সম্পর্ক নেই তাহসানের


 

তিনি বলেন, প্রতিযোগিতামূলক বাজার সৃষ্টির লক্ষ্যে বাংলাদেশ প্রতিযোগিতা কমিশনের সব পদক্ষেপে ব্যবসায়ীদের স্বার্থ রক্ষার পাশাপাশি ভোক্তারা যেন যৌক্তিক মূল্যে ও প্রত্যাশিত সময়ে মানসম্মত পণ্য পায়- তা নিশ্চিত করার প্রচেষ্টা থাকতে হবে।

সাক্ষাৎকালে কমিশন চেয়ারম্যান মো. মফিজুল ইসলাম প্রতিবেদনের উল্লেখযোগ্য কিছু বিষয়সহ কমিশনের চলমান কর্মকাণ্ড রাষ্ট্রপতির কাছে তুলে ধরেন। রাষ্ট্রপতির সঙ্গে সাক্ষাতে আরও অংশ নেন বাণিজ্য সচিব তপন কান্তি ঘোষ এবং কমিশনের সদস্য জি এম সালেহ উদ্দিন, ড. এ এফ এম মনজুর কাদির ও নাসরিন বেগম। রাষ্ট্রপতির কার্যালয়ের সচিব সম্পদ বড়ুয়া, সামরিক সচিব মেজর জেনারেল এস এম সালাহ উদ্দিন ইসলাম এবং সচিব (সংযুক্ত) মো. ওয়াহিদুল ইসলাম খান এ সময় উপস্থিত ছিলেন

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

কার্বন নিঃসরণ কমাতে আসছে বৈদ্যুতিক গাড়ি (ভিডিও)

ডেস্ক রির্পোট

কার্বন নিঃসরণ কমাতে বৈদ্যুতিকে রূপান্তর হচ্ছে অটোমোবাইল শিল্প। জ্বালানি তেলনির্ভর গাড়িগুলো হয়ে উঠছে বৈদ্যুতিক।

এ কারণে ২০৫০ সাল নাগাদ বিশ্বের জ্বালানি তেল পরিশোধনক্ষমতার চাহিদা অর্ধেক কমে যাবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। পরামর্শক প্রতিষ্ঠান রিস্ট্যাড এনার্জি এ তথ্য জানিয়েছে বলে খবর প্রকাশ করেছে রয়টার্স। সংশ্লিস্টরা বলছেন, এভাবে চলতে থাকলে ২০৫০ সালের মধ্যে বৈদ্যুতিক গাড়ি ৯০ শতাংশের কাছাকাছি পৌঁছে যাবে। আর তা বৈশ্বিক পরিশোধন ক্ষমতার চাহিদা ৫০ শতাংশ কমাবে। কেননা বৈদ্যুতিক যানবাহন বিশ্বজুড়ে পেট্রল ও ডিজেলের ব্যয় কমাবে। তবে নগরায়ণের কারণে উড়োজাহাজ, সামুদ্রিক পণ্য পরিবহনকারী জাহাজ ও পেট্রোকেমিক্যাল খাতে জ্বালানি তেলের উচ্চ চাহিদা থাকতে পারে।

news24bd.tv/এমি-জান্নাত   

পরবর্তী খবর

দেশে চালু হলো ১০০টি সেলুন লাইব্রেরি

অনলাইন ডেস্ক

দেশে চালু হলো ১০০টি সেলুন লাইব্রেরি

আমরা যখন কোন সেলুনে যাই, তখন অবসর সময়ে আমরা হাতের নাগালে (বই, পত্রিকা, প্রভৃতি) যা কিছু পাই, তা পড়ার চেষ্টা করি। এতে করে করে আমাদের সময়টি যেমন সুন্দর কাটে, তেমনি আমরা জ্ঞানের আলোয় সমৃদ্ধ হই। সে বিষয়টি বিবেচনা করে জাতীয় গ্রন্থকেন্দ্রের মাধ্যমে পরীক্ষামূলকভাবে সারা দেশে ১০০টি সেলুন লাইব্রেরি চালু করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন সংস্কৃতি বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ ।

তিনি বলেন,উদ্যোগটি আপাতত দৃষ্টিতে ক্ষুদ্র মনে হলেও এর কার্যকারিতা ফলপ্রসূ ও সুবিশাল।

প্রতিমন্ত্রী আজ সকালে রাজধানীর গণগ্রন্থাগার অধিদপ্তরের শওকত ওসমান স্মৃতি মিলনায়তনে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের পৃষ্ঠপোষকতায় জাতীয় গ্রন্থকেন্দ্র আয়োজিত মুজিব শতবর্ষে শত গ্রন্থাগারে 'পড়ি বঙ্গবন্ধুর বই, সোনার মানুষ হই' শীর্ষক ধারাবাহিক পাঠ কর্মসূচির উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু যখনই সময় পেতেন, তখনই বই পড়তেন। এমনকি কারাগারে অন্তরীণের দিনগুলোতে তাঁর সার্বক্ষণিক সঙ্গী ছিল বই। সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী বলেন, বইয়ের সঙ্গে আত্মার সম্পর্ক গড়তে হবে। নতুন টাকার গন্ধ যেমন আমাদের আকর্ষণ করে, তেমনি নতুন বইয়ের গন্ধও আমাদের আকৃষ্ট করে।

সরকারি-বেসরকারি গ্রন্থাগারের উন্নয়নে বর্তমান সরকার কাজ করে যাচ্ছে উল্লেখ করে সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী বলেন, আইসিটি বিভাগের সহযোগিতায় লাইব্রেরি ডিজিটালাইজড করার একটি সমন্বিত প্রকল্প হাতে নেয়া হচ্ছে যেটি বাস্তবায়িত হলে লাইব্রেরি হতে তথ্য সেবা গ্রহণ ও প্রদানের ক্ষেত্রে যুগান্তকারী পরিবর্তন সূচিত হবে। এর মাধ্যমে গণগ্রন্থাগার অধিদপ্তরের অধীন ৭১টি সরকারি গ্রন্থাগার, আরকাইভস ও গ্রন্থাগার অধিদপ্তরের অধীন জাতীয় গ্রন্থাগার, জাতীয় গ্রন্থকেন্দ্র এবং বিভিন্ন বেসরকারি গ্রন্থাগারসমূহ একই নেটওয়ার্কে যুক্ত হবে। 

তিনি এসময় জাতীয় গ্রন্থকেন্দ্র আয়োজিত ধারাবাহিক পাঠ কর্মসূচিতে অংশগ্রহণকারী ১০০টি পাঠাগারের প্রত্যেকটিকে তিন হাজার টাকা করে মোট তিন লক্ষ টাকা অনুদানের ঘোষণা দেন। 

আরও পড়ুন:

অবশেষে ব্রিটেনের লাল তালিকা থেকে বাদ পড়ছে বাংলাদেশ

বেড়াতে গিয়ে অতিরিক্ত মদ পানে দুই ছাত্রলীগ কর্মীর মৃত্যু

আর কোনো তত্ত্বাবধায়ক সরকার হবে না, জানালেন কৃষিমন্ত্রী

ইভ্যালির সঙ্গে আর সম্পর্ক নেই তাহসানের


তিন মাস ব্যাপী এ কর্মসূচির উদ্বোধন করেন সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি সিমিন হোসেন রিমি।

সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. আবুল মনসুর এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তৃতা করেন গণগ্রন্থাগার অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মো. আবুবকর সিদ্দিক এবং বেসরকারি গ্রন্থাগার প্রতিনিধি ও দনিয়া পাঠাগারের সভাপতি মো. শাহনেওয়াজ। স্বাগত বক্তব্য রাখেন জাতীয় গ্রন্থকেন্দ্রের পরিচালক মিনার মনসুর। 

উল্লেখ্য, সারা দেশের ১০০টি বেসরকারি গ্রন্থাগারের স্কুল, কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ের সহস্রাধিক শিক্ষার্থী/পাঠক বঙ্গবন্ধুর রচিত 'অসমাপ্ত আত্মজীবনী' গ্রন্থটি পাঠ করে লিখিতভাবে পাঠ-উত্তর প্রতিক্রিয়া/অভিমত ব্যক্ত করার মাধ্যমে এ কার্যক্রমে অংশগ্রহণ করবেন।

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর