আলোচনায় এখন দেশের আম-কূটনীতি
আলোচনায় এখন দেশের আম-কূটনীতি

আলোচনায় এখন দেশের আম-কূটনীতি

Other

রসালো আমের সাথে ‘কূটনীতি’ শব্দটি জুড়ে আলোচনায় এখন বাংলাদেশের ‘আম-কূটনীতি’। বিশেষ করে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ও পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জীকে আম পাঠানোর মধ্যে কূটনীতির সুবাতাস পাচ্ছেন অনেকে। যদিও এটিকে অনেকটা ‘রুটিন ওয়ার্ক’ হিসবেই দেখছেন বাংলাদেশে নিযুক্ত ভারতের সাবেক হাই কমিশনার পিনাক রঞ্জন চক্রবর্তী।

আর পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোমেন বললেন, প্রতিবেশী বন্ধুর সাথে রসালো আমের স্বাদ ভাগাভাগি করতেই এই উদ্যোগ।

 


বাংলাদেশের আম, ইউরোপ-আমেরিকা জুড়ে যার একচেটিয়া সুনাম। শুধু রপ্তানি বাণিজ্য না, বন্ধুত্বের বার্তা নিয়ে বাংলাদেশে আম এখন প্রতিবেশী দেশের ঘরেও। সোমবার ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ও পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমোতা বন্দোপাধ্যায়কে ৬৫ মণ আম পাঠিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

প্রতিবেশীকে আম কিংবা ইলিশ পাঠিয়ে আতিথিয়তার রীতি এবারই প্রথম না। তবুও করোনাকালে প্রতিবেশীর কাছ থেকে টিকা না পাওয়া নিয়ে যখন সমালোচনা; তখন পাল্টা আম পাঠানোকেও ইতিবাচক ব্যতিক্রম হিসেবেই দেখছেন অনেকে। বিষয়টি দু’দেশের পত্র-পত্রিকায়ও প্রচার পেয়েছে বেশ। ভারতের এই সাবেক হাইকমিশনারের মতে, বিশ্ববাজারে বাংলাদেশে আমেরও প্রচার হচ্ছে।

শুধু ভারত না, প্রতিবেশী নেপাল ভুটানসহ, চীন জাপান ও আরব আমিরাতেও আমের ঝুড়িতে বন্ধুত্বের বার্তা পাঠাচ্ছে বাংলাদেশ। যদিও পররাষ্ট্র মন্ত্রীর ভাষায় এটি বন্ধুর সাথে মিষ্টি আমের ভাগাভাগি মাত্র।

কেউ কেউ মনে করছেন, এবার আমের ফলন বেশি। কিন্তু লকডাউনে ক্রেতা কম, তাই আম চাষীদের ক্ষতি পুষিয়ে দিতে সরকার আম কিনে বিদেশে পাঠাচ্ছে।

আরও পড়ুনঃ

ঈদে অবশ্যই বিধিনিষেধ থাকবে: প্রতিমন্ত্রী

আপনি তো বাংলাদেশের মাল, তো আপনি কি বাদ কোয়ালিটির?

টিকা পাওয়ার অগ্রাধিকার তালিকায় যুক্ত হতে যাচ্ছেন আইনজীবীরা

ভয়াবহ ভবিষ্যতের দিকে যাচ্ছে করোনা পরিস্থিতি

news24bd.tv/এমিজান্নাত