ই-কমার্স নির্দেশিকা জারি : যা বলছে বাণিজ্যমন্ত্রী

অনলাইন ডেস্ক

ই-কমার্স নির্দেশিকা জারি : যা বলছে বাণিজ্যমন্ত্রী

অনলাইনে পণ্য কেনার জন্য গ্রাহক মূল্য পরিশোধের পর নির্ধারিত সময়ে পণ্য সরবরাহ করতে ব্যর্থ হলে, মূল্য পরিশোধের ১০ দিনের মধ্যে ক্রেতার পুরো টাকা ফেরত দিতে হবে ই-কমার্স প্রতিষ্ঠানকে। দেশে প্রথমবারের মতো জারি করা ডিজিটাল কমার্স পরিচালনা নির্দেশিকায় এই শর্ত উল্লেখ করা হয়েছে।  নির্দেশিকায় বলা হয়েছে, ডিজিটাল মাধ্যমে ‘এমএলএম’ পরিচালনা করা যাবে না। একইসঙ্গে পণ্যের পুরো দাম পরিশোধের ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে ডেলিভারিম্যান কিংবা কোম্পানির কাছে হস্তান্তর করে ক্রেতাকে জানিয়ে দেয়া এবং পণ্যের অবস্থান ‘ট্র্যাক’করতে হবে।

মঙ্গলবার (০৬ জুলাই) ভার্চ্যুয়াল অনুষ্ঠানে ৬৯টি নির্দেশিকা গেজেট আকারে পড়ে শোনান বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি।

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, দেশে দিনে দিনে ই-কমার্স ব্যবসার প্রসার ঘটছে। ই-কমার্সে সুষ্ঠু এবং প্রবৃদ্ধি বজায় থাকে, একটি প্রতিযোগিতামূলক পরিবেশ বিরাজ করে, সেজন্য সব পক্ষের স্বার্থ বিবেচনায় নিয়ে এই নির্দেশিকা করা হয়েছে।

পণ্যের পুরো দাম ক্রেতা পরিশোধের পর যদি ওই ক্রেতা এবং বিক্রেতা একই শহরে থাকলে সর্বোচ্চ ৫ দিন এবং ভিন্ন শহরে থাকলে সর্বোচ্চ ১০ দিনের মধ্যে পণ্য হস্তান্তর করা নিশ্চিত করতে হবে।

নতুন নির্দেশিকা অনুযায়ী, ই-কমার্স কোম্পানিগুলো ১০ শতাংশের বেশি অগ্রিম টাকা নিতে পারবে না। কোনো ‘ক্যাশব্যাক’বা ‘ডিসকাউন্টের’ঘোষণা দিলে তা নিজেদের ওয়ালেটে না রেখে ক্রেতাকে বুঝিয়ে দিতে হবে। আর প্রতারিত বা সংক্ষুব্ধ হলে দেশের প্রচলিত বিচারালয়ের পাশাপাশি ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরে অভিযোগ নিয়ে যাওয়ার সুযোগ পাবেন ক্রেতারা।

বাণিজ্য সচিব তপন কান্তি ঘোষ বলেন, করোনা মহামারিতে অনলাইনে বেচাকেনা প্রসার ঘটছে। এই সুযোগে অনেকে বেশি ডিসকাউন্ট দিচ্ছেন। অভিজ্ঞ মহল মনে করছেন, এর ফলে অনলাইন ব্যবসায় বড় ধরনের বিপর্যয় আসতে পারে। এখন সুর্নিদিষ্ট একটি নির্দেশনা থাকায় ডিজিটাল প্ল্যাটফর্মে একটা ভারসাম্য চলে আসবে।

জাতীয় ডিজিটাল কমার্স নীতিমালা-২০২০ অনুযায়ী এই নির্দেশিকা তৈরি করা হয়েছে। এটি প্রথম ধাপ, প্রয়োজনে সংযোজন-বিয়োজনের সুযোগ রয়েছে।

নির্দেশিকার গুরুত্বপূর্ণ কয়েকটি ধারা
পণ্য বিপণনের শর্তগুলো পণ্যের পাশে বাংলা ভাষায় স্পষ্ট করে লেখা থাকতে হবে। বাংলার পাশাপাশি অন্য ভাষায়ও লেখা যাবে। প্রচলিত আইনের সঙ্গে সাংঘর্ষিক কোনো শর্ত জুড়ে দেওয়া যাবে না।

ওয়েবসাইট বা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বিপণন করা পণ্যের সব বিবরণ ও শর্ত উল্লেখ থাকতে হবে। ডিজিটাল মাধ্যমে ‘এমএলএম’ পরিচালনা করা যাবে না। ‘জুয়া’ বা ‘অনলাইন বেটিংয়ের’ আয়োজন করা যাবে না।

ওষুধ বিক্রির ক্ষেত্রে ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তরের লাইসেন্স নিতে হবে। দাহ্য পদার্থ বিক্রির ক্ষেত্রে লাগবে বিস্ফোরক অধিদপ্তরের লাইসেন্স। বিক্রেতার ওয়েবসাইটে বিশেষ সফটওয়্যার বা কুকিজ থাকলে আগেই ক্রেতাকে জানাতে হবে।

গ্রাহকের কোনো ব্যক্তিগত তথ্য সংগ্রহ করতে হলে সেজন্য আগেই তার সম্মতি নিতে হবে। ‘লটারি’ বা ‘র্যা ফেল ড্র’ করতে হলে সরকারের অনুমোদন নিতে হবে।

সব ধরনের ডিজিটাল ওয়ালেট, গিফট কার্ড, ক্যাশ ভাউচার বা অন্য কোনো মাধ্যম যা অর্থের বিকল্প হিসেবে ব্যবহার হতে পারে, সেসব বাংলাদেশ ব্যাংকের অনুমোদন ছাড়া করা যাবে না। ব্যাংকের অনুমতি ছাড়া ডিজিটাল মাধ্যমে কোনো ধরনের অর্থ ব্যবসা করা যাবে না। ক্রেতাকে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে কোনো পণ্য বা সেবা কিনতে বাধ্য করা যাবে না।

ডিজিটাল ব্যবসা পরিচালনাকারী ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানকে ট্রেড লাইসেন্স, ভ্যাট নিবন্ধন, টিআইএন, ইউনিক বিজনেস আইডেন্টিফিকেশন নম্বর বা পারসোনাল রিটেইল অ্যাকাউন্টের কোনো একটি গ্রহণ করতে হবে এবং তা ওয়েবসাইট বা সংশ্লিষ্ট সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রদর্শন করতে হবে।

 লেনদেনের সব তথ্য অন্তত ছয় বছর পর্যন্ত সংরক্ষণ করতে হবে। অন্য কোনো চুক্তি না থাকলে সংশ্লিষ্ট মার্কেট প্লেসে পণ্য বিক্রয় করার পর দাম বুঝে পাওয়ার ১০ দিনের মধ্যে বিক্রেতাকে তা দিয়ে দিতে হবে।

মার্কেট প্লেসকে বিক্রেতাদের নাম, ছবি, জাতীয় পরিচয়পত্র, মোবাইল নম্বর, ঠিকানাসহ পূর্ণাঙ্গ তথ্য সংরক্ষণ করতে হবে।

দেশের ভেতরে অবস্থান করছে এমন পণ্যের জন্যই কেবল অগ্রিম মূল্য নেওয়া যাবে। মূল্য গ্রহণের ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে হস্তান্তর করা না গেলে ১০ শতাংশের বেশি মূল্য নেওয়া যাবে না। এর বেশি মূল্য নিতে হলে বাংলাদেশ ব্যাংকের ‘এসক্রো সার্ভিসের’ মাধ্যমে নিতে হবে।

প্রতিটি প্রতিষ্ঠানে ভোক্তার অভিযোগের সমাধান করতে একজন ‘কম্প্লায়েন্স অফিসার’ নিয়োগ দিতে হবে। তিনি ভোক্তার অভিযোগ নিয়ে ভোক্তা অধিকার অধিদপ্তরের সঙ্গে যোগাযোগ ও সমন্বয় করবেন। অভিযোগপ্রাপ্তির ৭২ ঘণ্টার মধ্যে তা সমাধান করে ফোন, ইমেইল অথবা এসএমএসের মাধ্যমে জানাতে হবে।

ক্রয়াদেশ গ্রহণ করার পর পণ্য বা সেবা দিতে না পারলে অর্ডারের ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে তা ক্রেতাকে জানাতে হবে। আর ৭২ ঘণ্টার মধ্যে টাকা ফেরত দিতে হবে।

প্রতারিত বা ক্ষতিগ্রস্ত হলে সংক্ষুব্ধ গ্রাহক ভোক্তা অধিকার কিংবা আদালতে যেতে পারবেন।

ডেবিড, ক্রেডিট, ব্যাংক ট্রান্সফার, মোবাইল ব্যংকিংয়ের মাধ্যমে পণ্যের অগ্রিম মূল্য পরিশোধ করলে এবং বিক্রেতা নির্ধারিত সময়ে পণ্য সরবরাহে ব্যর্থ হলে সর্বোচ্চ ১০ দিনের মধ্যে ক্রেতাকে সমপরিমাণ অর্থ ফেরত দিতে হবে। যে মাধ্যমে টাকা এসেছে ফেরত যাবে একই মাধ্যমে এবং কোনো চার্জ প্রযোজ্য হলে তা মার্কেট প্লেস বা বিক্রেতা বহন করবে। তবে ক্রেতা যথাসময়ে পণ্য গ্রহণে ব্যর্থ হলে এই নিয়ম প্রযোজ্য হবে না।

যে কোনো মূল্য হ্রাসের ঘোষণা বিক্রির সঙ্গে সঙ্গে কার্যকর করতে হবে। ‘অফারমূল্য’ পরিশোধের পরবর্তী ৭২ ঘণ্টার মধ্যে ক্যাশব্যাক কার্যকর করতে হবে। বিক্রয় সম্পন্ন হওয়ার পর ‘ক্যাশব্যাক অফার’ বা ‘মূল্যছাড়ের’ ঘোষিত অর্থ কোনো ই কমার্স প্রতিষ্ঠানের ওয়ালেটে জমা রাখা যাবে না।

এছাড়া পণ্যের বা সেবার বিষয়ে মতামত বা রেটিং জানানোর ব্যবস্থা রাখতে হবে ওয়েবসাইটে। এসব মতামত মুছে ফেলা যাবে না। আর নির্দেশিকা পালন না করলে অমান্যকারী প্রতিষ্ঠানের ট্রেড লাইসেন্স, কোম্পানি নিবন্ধন, ভ্যাট নিবন্ধন সরকার বাতিল করে দেবে।

অনুষ্ঠানে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব এবং বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থা (ডব্লিউটিও) সেলের মহাপরিচালক হাফিজুর রহমান বিভিন্ন সরকারি দপ্তর এবং বাংলাদেশ ব্যাংকের সঙ্গে যোগাযোগ করে এই নীতিমালা প্রণয়নে অগ্রণী ভূমিকা রাখায় ব্যবসায়ী নেতারা তাকে ধন্যবাদ জানান।

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

ল্যাপটপ পরিষ্কার রাখার সঠিক নিয়ম!

অনলাইন ডেস্ক

ল্যাপটপ পরিষ্কার রাখার সঠিক নিয়ম!

ল্যাপটপের কিবোর্ড কিছুদিন ব্যবহার করলেই ধুলো পড়ে। আমরা এই ধুলো বালি পরিষ্কার করলেও ল্যাপটপের নানা ফাঁকে ময়লা থেকে যায়, যা খালি চোখে ভালোভাবে দেখা যায়। আর এই ময়লাগুলো ল্যাপটপে রেখে দিলেই পরে শুরু হয় সমস্যা।

কয়েক বছর আগে ‘ইন্টারন্যাশনাল জার্নাল অব এনভায়রনমেন্টাল রিসার্চ অ্যান্ড পাবলিক হেল্থ’ নামক পত্রিকায় ‘ইউনিভার্সিটি অব ভেটেরিনারি মেডিসিন অ্যান্ড ফার্মেসি এমপ্লয়িজ’-এর একটি গবেষণাপত্র প্রকাশিত হয়।

সেখানে দেখা যায়, যে কোনও কিবোর্ডের ৯৬ শতাংশ অংশই নানা ধরনের ব্যাকটিরিয়ায় ভরা থাকে। সেগুলো নানা ধরনের সংক্রমণের কারণ হয়ে দাঁড়ায়।

কিবোর্ড কী দিয়ে পরিষ্কার করতে হবে এই বিষয়ে অনেকেই জানেন না। বিজ্ঞানীরা বলছেন, ৭০ শতাংশ আইসোপ্রোপাইল দিয়ে পরিষ্কার করলে কিবোর্ডের কোন ক্ষতি হয় না, আবার জীবাণুও পরিষ্কার হয়। কিন্তু এখন প্রশ্ন হলো কীভাবে পরিষ্কার করবেন আর কতদিন অন্তর পরিষ্কার করবেন?

কীভাবে পরিষ্কার করবেন?

কম্পিউটার এবং ল্যাপটপ নির্মাতা সংস্থা বলছে, নরম সুতির কাপড়ে আইসোপ্রোপাইল লাগিয়ে, তা দিয়ে কিবোর্ড পরিষ্কার করা উচিত। ডিসপ্লেও একই ভাবে পরিষ্কার করা যেতে পারে। তবে কখনো আইসোপ্রোপাইল সরাসরি কিবোর্ডে স্প্রে করা যাবে না।

কত দিন অন্তর পরিষ্কার করবেন?

‘ইউনিভার্সিটি অব ভেটেরিনারি মেডিসিন অ্যান্ড ফার্মেসি এমপ্লয়িজ’-এর একটি গবেষণাপত্রে বলা হয়েছে, এক বার পরিষ্কার করার দু’সপ্তাহ পর থেকে আবার দ্রুত গতিতে জীবাণুর বংশবৃদ্ধি হতে থাকে। তাই দু’সপ্তাহ পর পর ল্যাপটপ বা কম্পিউটারের কিবোর্ড পরিষ্কার করা উচিত।

আরও পড়ুন:


বাড়ানো হয়েছে লঞ্চ চলাচলের সময়

এবার পর্নোগ্রাফি শুটিংয়ের অভিযোগে অভিনেত্রী গ্রেপ্তার

সাকিবের সামনে রেকর্ড গড়ার হাতছানি, যেখানে তিনিই হবেন প্রথম

চিত্রনায়িকা একার বিরুদ্ধে হাতিরঝিল থানায় দুই মামলা


news24bd.tv / কামরুল 

পরবর্তী খবর

ফাইভ জি ইন্টারনেট চালুর প্রস্তুতি নিচ্ছে বাংলাদেশ

রিশাদ হাসান

গ্রাম থেকে শহর সবখানে ইন্টারনেট। তথ্য-প্রযুক্তির ছোঁয়ায় বদলে গেছে মানুষের জীবন মান বদলেছে সময়। তাইতো তথ্য-প্রযুক্তির বিপ্লব ঘটাতে বাংলাদেশ প্রস্তুতি নিচ্ছে ফাইভ জি ইন্টারনেট চালুর জন্য। যা বদলে দিবে শহর থেকে আবহমান গ্রাম বাংলার পুরো চিত্র। প্রযুক্তি বিশেষজ্ঞরা বলছেন, বর্তমান সময়ে এই ইন্টারনেট সেবার ফলে চতুর্থ শিল্পবিপ্লবে পিছিয়ে পড়বে না বাংলাদেশ। 

আবহমান গ্রাম বাংলার চিত্র। গ্রাম ঠিকই আছে তবে এখানে লেগেছে ডিজিটালাইজেশনের ছোঁয়া। এখানকার দোকানী ছেলেটিও দিনভর দোকানে কাজ করে আর মালপত্র কেনে ইন্টারনেটের সহায়তায়।

এখন গ্রামকে পুরোপুরিই বদলে দিয়েছে ইন্টারনেট সেবা। মোবাইল মানি ট্রান্সফার-ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট অথবা সেটটপ বক্স। ফ্রিলানসিং থেকে বিনোদন সবখানেই এখন প্রযুক্তি বিপ্লব। এ সবই হচ্ছে ফোর জি ইন্টারনেটের বদৌলতে।

তবে বাংলাদেশ চাইছে বর্তমান অবস্থারও উন্নতি করতে। তারা চাইছে দেশের বর্তমান অবস্থার উন্নতি ঘটিয়ে চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের প্রতিযোগীতায় নামতে যার অন্যতম উপাদান ফাইভ জি ইন্টারনেট।

এই ফাইভ জি ইন্টারনেট বদলে দিবে সারা পৃথিবীকে। গ্রাম থেকে শহর সবখানে যোগাযোগ হবে সুদৃঢ় আর কৃত্তিম বুদ্ধিমত্তা হবে মানুষের সাহায্যকারী। হুওয়ায়ের এই সম্পার্ট সিটি প্রজেক্ট দেখলে যা খানেকটা আন্দাজ করা যায়।

শুধু তাই নয় স্মার্ট সিটির পাশাপাশি কৃষিতেও ব্যাপক উন্নতি সাধন হবে। সুইজার ল্যান্ডের এই ফাইভ জি স্মার্ট ফার্মটি যার বাস্তব উদাহরন। কৃষি প্রধান দেশের হাতে যখন এমন প্রযুক্তি আসবে তখন বদলে যাবে গ্রামীন জনপদ। পার্থক্য হারাবে শহরের সাথেও।

আরও পড়ুন:


বিট লবনের যত উপকার

ধানখেতে ৮ ফুট অজগর

সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের ম্যুরাল ভাঙচুরকারীদের গ্রেপ্তার দাবি হানিফের


 

এরই মধ্যে ফাইভ জি টেস্টিং করেছে বাংলাদেশ। তবে করোনার কারনে ফাইভ জি নিলাম সম্পন্ন না হওয়ায় কিছুটা অপেক্ষা করতেই হচ্ছে।

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

আড়াই কোটি টাকা ভ্যাট দিল ফেসবুক

অনলাইন ডেস্ক

আড়াই কোটি টাকা ভ্যাট দিল ফেসবুক

চলতি জুলাই মাসে ঢাকা দক্ষিণ ভ্যাট কমিশনারে ভ্যাট রিটার্ন জমা দিয়েছে ফেসবুক। বাংলাদেশে ব্যবসা করে এমন নিবন্ধিত অনাবাসী  প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে এই প্রথম ভ্যাট রিটার্ন পেল ভ্যাট বিভাগ।

বিস্তারিত আসছে…

news24bd.tv/ নকিব

পরবর্তী খবর

সীমিত আকারে বুয়েটের ‘অক্সিজেট’ উৎপাদন ও ব্যবহারের অনুমোদন

অনলাইন ডেস্ক

সীমিত আকারে বুয়েটের ‘অক্সিজেট’ উৎপাদন ও ব্যবহারের অনুমোদন

ছবি- সংগৃহীত

সীমিত আকারে বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় (বুয়েট) উদ্ভাবিত যন্ত্র অক্সিজেটের উৎপাদন ও ব্যবহারের অনুমোদন দিয়েছে ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তর। বিভিন্ন শর্তসাপেক্ষে নির্ধারিত ল্যাবরেটরিতে তৈরি করার শর্তে এই অনুমোদন দেয়া হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (২৯ জুলাই) বুয়েটের বায়োমেডিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. তৌফিক হাসান বলেন, ‘তিন ধাপে পরীক্ষায় সফল হওয়ায় ঔষধ প্রশাসন আমদের প্রাথমিকভাবে ২০০ ইউনিট উৎপাদন করার অনুমোদন দিয়েছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘এজন্য বেশ কিছু শর্ত জুড়ে দেওয়া হয়েছে। সেসব মেনে সব ডিভাইজ তৈরি করতে হবে। হাসপাতালে এসব ডিভাইজ ব্যবহারে কি ফলাফল হলো, তা নিয়ে তিন মাস পর আমাদের রিপোর্ট জামা দিতে হবে। রিপোর্ট ভালো হলে চাইলে এরপর আরও বেশি উৎপাদনের অনুমোদন দেওয়া হবে বলে জানানো হয়েছে।’

ডিজিডিএ’র উপপরিচালক মো. সালাউদ্দিন বিষয়টি সংবাদমাধ্যমকে নিশ্চিত করে বলেন, ‘জরুরি ব্যবহারের জন্য স্বল্পসংখ্যক অক্সিজেটের (২০০ ইউনিট) সীমিত অনুমোদন দেওয়া হয়েছে সুনিয়ন্ত্রিতভাবে ব্যবহারের জন্য। এটি অনেকটা ট্রায়ালের অংশ।’

তিনি বলেন, ‘প্রত্যেক রোগীর তথ্য রাখতে হবে। দেখতে হবে যে এতে রোগীর উপকার হচ্ছে কি না, কোনো পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হচ্ছে কি না কিংবা কোনো ঝুঁকি তৈরি হচ্ছে কি না।’


আরও পড়ুন:

ওমরাহ্‌ পালনে করতে মানতে হবে যেসব শর্ত

গুলি করে ফিলিস্তিনি শিশুর বুক ঝাঁজরা করে দিল ইসরাইলি বাহিনী

কুমিল্লায় বালু বোঝাই ট্রাক্টরে কাভার্ডভ্যানের ধাক্কা, নিহত ৩

কলাপাড়ায় ধারালো অস্ত্র দিয়ে ছাত্রলীগ নেতার কবজি কেটে নিল প্রতিপক্ষ


সবকিছু পর্যবেক্ষণ করে যন্ত্রটির গণ-উৎপাদনের অনুমোদন দেওয়ার বিষয়টি বিবেচনা করা হবে বলেও জানান তিনি।

প্রসঙ্গত, তীব্র শ্বাসকষ্টে ভোগা রোগীদেরও হাসপাতালের সাধারণ বেডে রেখেই এ যন্ত্রের মাধ্যমে উচ্চমাত্রায় অক্সিজেন-সহায়তা দেওয়া যায় বলে জানিয়েছেন উদ্ভাবকরা।

news24bd.tv/ নকিব

পরবর্তী খবর

বাংলাদেশে ভ্যাকসিন ফাইন্ডার চালু করেছে ফেসবুক

অনলাইন ডেস্ক

বাংলাদেশে ভ্যাকসিন ফাইন্ডার চালু করেছে ফেসবুক

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ এবং স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে মিলিত হয়ে দেশে ভ্যাকসিন ফাইন্ডার চালু করেছে ফেসবুক। নতুন এই টুলটির মাধ্যমে বাংলাদেশিরা জানতে পারবে কারা টিকা নিতে পারে। 

একই সঙ্গে টুলটি তাদের নিকটস্থ টিকাদানকেন্দ্র খুঁজে পেতে সাহায্য করবে। 

আরও পড়ুন:


ব্যবসায়িক চুক্তিভঙ্গের অভিযোগে রাজ-শিল্পাকে জরিমানা

পবিত্র জুমার দিনের বিশেষ পাঁচটি বৈশিষ্ট্য

আজ বিকেলে ঢাকায় আসছে অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট দল

টেকনোলজি বিষয়ক অলাভজনক সংগঠন মিদান-এর ডিজিটাল হেলথ ল্যাবের সঙ্গে এই সপ্তাহে পার্টনারশিপ শুরু করেছে ফেসবুক জার্নালিজম প্রজেক্ট।

news24bd.tv রিমু 

 

পরবর্তী খবর