হাসপাতালে ঢুকে জরুরি বিভাগের ডাক্তারকে পেটালেন যুবলীগ সভাপতি

অনলাইন ডেস্ক

হাসপাতালে ঢুকে জরুরি বিভাগের ডাক্তারকে পেটালেন যুবলীগ সভাপতি

হাসপাতালে ঢুকে জরুরি বিভাগে কর্মরত এক ডাক্তারকে লাঞ্ছিত ও মারধর করেছেন যুবলীগের সভাপতি মাহববুল আলম মনি ও তার লোকজন। এ ঘটনায় উপজেলা যুবলীগের সভাপতি মাহববুল আলম মনিসহ ৫ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

মঙ্গলবার দুপুরে ময়মনসিংহের মুক্তাগাছা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এ ঘটনা ঘটে। 

মঙ্গলবার রাত ২টার দিকে মুক্তাগাছা শহর থেকে উপজেলা যুবলীগের সভাপতি মাহবুবুল আলম মনিকে গ্রেফতার করা হয়। এ দিন তার আরও ৪ সহকারীকে গ্রেফতার করা হয়। তারা হলেন- জাহিদুল ইসলাম জুয়েল, রানা দে, মো. কামরুজ্জান ও রাকিবুল হোসেন শরীফ।

এ ঘটনায় বুধবার সকাল ৯টা থেকে ১১টা পর্যন্ত কর্মবিরতি পালন করেছেন হাসপাতালের ডাক্তার, নার্সসহ অন্যরা। দুপুর ১টায় সংবাদ সম্মেলনে ডেকে এ ঘটনার তীব্র নিন্দা জানান মুক্তাগাছা উপজেলা হাসপাতালের চিকিৎসকরা।

জানা গেছে, মঙ্গলবার দুপুর ১টা ৫৫ মিনিটের দিকে উপজেলা যুবলীগের সভাপতি মাহবুবুল আলম মনি হাসপাতালে কর্মরত ইমার্জেন্সি বিভাগের ডাক্তার এএইচএম সালেকিন মামুনকে হাসপাতালের হটলাইন মোবাইল নাম্বারে ফোন করে বলেন, তার মায়ের করোনাভাইরাসের নমুনা টেস্ট করাতে হবে। এজন্য তার বাসায় যেন কাউকে পাঠানো হয়।

এ সময় কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা. এইচএম সালেকিন মামুন তাকে জানান, আপাতত বাসা থেকে স্যাম্পল আনার কার্যক্রম বন্ধ রয়েছে। তার মাকে যেন হাসপাতালে পাঠিয়ে দেওয়া হয়।

এ কথা শুনে মোবাইল ফোন কেটে দিয়ে ১০ মিনিটের মধ্যে ৭-৮ জনের সহযোগীকে নিয়ে ইমার্জেন্সি বিভাগে যান মাহবুবুল আলম মনি। পরে দরজা বন্ধ করে ডাক্তারকে অশ্লীল ভাষায় গালাগালসহ তাকে মারধর করা হয়। পরে হাসপাতালের কর্মরত স্টাফরা হামলাকারীদের কবল থেকে ডাক্তারকে উদ্ধার করেন।

এ ঘটনায় ওই দিনই উপজেলা যুবলীগের সভাপতি মাহবুবুল আলম মনিসহ ৭-৮ জনের নামে মুক্তাগাছা থানায় মামলা দায়ের করেন ডা. এএইচএম সালেকীন মামুন।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে মুক্তাগাছা থানার ওসি মোহাম্মদ দুলাল আকন্দ বলেন, ডাক্তারকে মারধর ও লাঞ্ছিত করার ঘটনায় যুবলীগ সভাপতি মাহবুবুল আলম মনিসহ ৫ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তাদের আদালতে পাঠানো হয়েছে।

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

কিশোরী মেয়েকে ৬ মাস ধরে সৎ বাবার ধর্ষণ

অনলাইন ডেস্ক

কিশোরী মেয়েকে ৬ মাস ধরে সৎ বাবার ধর্ষণ

১৩ বছরের এক কিশোরী মেয়েকে ৬ মাস ধরে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে এক সৎ বাবার বিরুদ্ধে। সবশেষ গত তিন দিন পুর্বেও  মায়ের মায়ের অনুপস্থিতির সুযোগে সৎ বাবা ওই কিশোরীকে ধর্ষণ করে।

এ চাঞ্চল্যকর ঘটনাটি ঘটেছে  কক্সবাজারের চকরিয়া উপজেলার বরইতলী ইউনিয়নের ৭ নম্বর ওয়ার্ডের মোহছেনিয়া কাটা গ্রামে।

ঘটনাটি এতদিন গোপন থাকলে এবার সেই কিশোরী মুখ খুললেন। সৎ বাবার অত্যাচার সহ্য করতে না পেরে অবশেষে  বিষয়টি স্থানীয়দের কাছে প্রকাশ করেছে ওই কিশোরী। এর পর কিশোরীর মা বাদী হয়ে রোববার (০১ আগস্ট) কক্সবাজারের চকরিয়া থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা দায়ের করে। 

মামলার এজাহার সূত্রে জানা গেছে, ধর্ষিতা কিশোরীর মা প্রায় দশ বছর পূর্বে প্রথম স্বামীকে তালাক দিয়ে দ্বিতীয় স্বামী হিসেবে গ্রহণ করে ধর্ষক আবদুল আলিমকে। এর পর থেকে আলিম স্ত্রীর সাথে চকরিয়ার বরইতলীতে বসবাস করে আসছিল।

চকরিয়া থানার পুলিশ সূত্রে জানা যায়, কিশোরীর মা ভিক্ষাবৃত্তি এবং বিভিন্ন বাড়িতে ঝিঁয়ের কাজ করে সংসার চালান। পূর্বের স্বামীর ঘরের একজন করে তার ২০ বছরের পুত্র ও ১৩ বছরের কন্যা (ধর্ষিতা) সন্তান রয়েছে। পূর্বের সন্তানসহ দ্বিতীয় স্বামীকে নিয়ে বসবাস করে আসছিলেন তারা। তিনি (মা) বাড়িতে না থাকার সুযোগে বিগত ছয়মাস ধরে কিশোরী মেয়েকে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে আসছিল সৎ বাবা। 

সর্বশেষ ডুলাহাজারাস্থ ছেলের শ্বশুর বাড়িতে বেড়াতে যাওয়ার সুযোগে গত বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে এগারটার দিকে মেয়েকে ফের জোরপূর্বক ধর্ষণ করে সৎ বাবা আবদুল আলীম।

এ ঘটনায় জড়িত ধর্ষক সৎ বাবাকে আটক করেছে পুলিশ।  সোমবার দুপুরে তাকে আদালতে তোলা হয়। 

আরও পড়ুন:


করোনায় আক্রান্ত কনডেম সেলের ফাঁসির আসামি

টিকা নিলে কমে মৃত্যু ঝুঁকি: আইইডিসিআর

করোনা: কুষ্টিয়ায় একদিনে ৯ জনের মৃত্যু

অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার দ্বিতীয় ডোজ টিকা প্রয়োগ শুরু


 

এ সময় ভিকটিম কিশোরী আদালতের বিচারকের কাছে ১২২ ধারায় জবানবন্দি দিয়েছেন। পরে ধর্ষক সৎ বাবাকে জেলহাজতে প্রেরণের নির্দেশ দেন আদালত।

আটক ধর্ষক সৎ বাবার নাম মো. আবদুল আলীম (৪৪) । সে কক্সবাজারের রামু উপজেলার ধোয়াপালং মিলঘর গ্রামের মজি উল্লাহর ছেলে।

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

ঝিনাইদহে তুচ্ছ ঘটনায় দুই কৃষককে পিটিয়ে ও কুপিয়ে যখম

শেখ রুহুল আমিন, ঝিনাইদহ

ঝিনাইদহে তুচ্ছ ঘটনায় দুই কৃষককে পিটিয়ে ও কুপিয়ে যখম

ঝিনাইদহে তুচ্ছ ঘটনা নিয়ে দুই কৃষককে পিটিয়ে ও কুপিয়ে যখম করার অভিযোগ উঠেছে ইটভাটা মালিকের বিরুদ্ধে।

সোমবার সকাল ১১ টার দিকে সদর উপজেলার উত্তর কাস্টসাগরা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

আহতরা হলো- ওই গ্রামের মৃত আব্দুস সাত্তার মালিথার ছেলে কবির মালিতা (৪৫) ও তার ভাই সাইফুল ইসলাম মালিথা (৩৫)।

আহতের ছোট ভাই তরিকুল ইসলাম মালিথা জানান, উত্তর কাস্টসাগরা গ্রামের ফসলী জমির পাশে ফাইভ স্টার নামের একটি ইটভাটা রয়েছে। ইটভাটার কারণে ওই এলাকার কৃষকদের চাষাবাদ ব্যাহত হচ্ছে। সোমবার সকালে আমার ভাই কবির মালিথা নিজ জমি থেকে ট্রলি যোগে পাট নিয়ে আসছিল। ট্রলিটি ইটভাটার ভিতরের রাস্তা দিয়ে আসায় ভাটার মালিক জাহাঙ্গীর আলম মুছা ক্ষিপ্ত হয়ে আমার ভাইয়ের উপর চড়াও হয়। ওই সময় আমার ভাই কবির মালিতার সাথে মুছার বাক-বিতন্ডা ও হাতাহাতি হয়। পরে আমার ভাই বাড়িতে এলে মুছা, তার ভাই মাহফুজ ইটভাটার ১০/১২ জন শ্রমিক নিয়ে আমাদের বাড়িতে হামলা চালায়। তারা কৃষক কবির ও সাইফুলকে কুপিয়ে ও মারাত্বক যখম করে ফেলে রেখে যায়। সেখান থেকে তাদেরকে উদ্ধার করে ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

ঝিনাইদহ সদর থানার ওসি (তদন্ত) এমদাদুল হক জানান, এ ঘটনায় থানায় কোনো অভিযোগ আসেনি। অভিযোগ পেলে তদন্ত করে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

আরও পড়ুন: 


বগুড়ায় এই প্রথম এত মৃত্যু

তথ্য লুকিয়ে সরকারের কী লাভ?

পিয়াসা-মৌয়ের বিরুদ্ধে গুলশান-মোহাম্মদপুরে মামলার প্রস্তুতি


news24bd.tv তৌহিদ

পরবর্তী খবর

মাত্র ৫ টাকার জন্য অটোচালককে হত্যা!

অনলাইন ডেস্ক

মাত্র ৫ টাকার জন্য অটোচালককে হত্যা!

রাজধানীর আশুলিয়ায় পাঁচ টাকা বেশি ভাড়া নিয়ে বাগবিতণ্ডায় এক যাত্রীর লাথিতে আব্দুল আলিম হোসেন (৪০) নামে এক অটোরিকশাচালক নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় ফজলুল হক (৩৫) নামে অভিযুক্ত ওই যাত্রীকে গেফতার করেছে পুলিশ।

আজ সোমবার সকাল ৯টায় নরসিংহপুর-কাশিমপুর আঞ্চলিক সড়কের ইয়ারপুর ইউনিয়নের ধনাইদ এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। নিহত অটোরিকশাচালক গাজীপুরের কাশিমপুর থানার বাগবাড়ি মধ্যপাড়া এলাকার জয়নাল মিয়ার ছেলে।

আটক ফজলুল হক শেরপুরের নালিতাবাড়ী এলাকার মোহাম্মদ আব্দুল লতিফের ছেলে। তিনি বর্তমানে গাজীপুর জেলার কাশিমপুর এলাকায় বসবাস করেন।


আরও পড়ুন

ইরানের নাগরিকদের আফগানিস্তান ত্যাগের নির্দেশ

টোকিও অলিম্পিকে দ্রুততম মানব মার্সেল জ্যাকবস

ফ্লোরিডায় অদ্ভুতদর্শন ‘সেসিলিয়ান’-এর খোঁজ

আবারও হামাস প্রধান ইসমাইল হানিয়াহ


প্রত্যক্ষদর্শীদের বরাত দিয়ে পুলিশ জানায়,  ইউসুফ মার্কেট এলাকায় অটোচালক আব্দুল আলিম হোসেনের সঙ্গে পাঁচ টাকা বেশি ভাড়া নিয়ে বাগবিতণ্ডায় জড়িয়ে পড়েন। এক পর্যায়ে অটোচালককে লাথি মারেন ফজলুল। এ সময় আলিম অটোরিকশার সঙ্গে ধাক্কা খান এবং মাথায় অতিরিক্ত আঘাত পেয়ে ঘটনাস্থলেই মারা যান।

news24bd.tv/এমিজান্নাত 

পরবর্তী খবর

কুড়িগ্রাম সীমান্তে অনুপ্রবেশের দায়ে বাংলাদেশি আটক

অনলাইন ডেস্ক

কুড়িগ্রাম সীমান্তে অনুপ্রবেশের দায়ে বাংলাদেশি আটক

কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ী সীমান্তে অবৈধ অনুপ্রবেশের দায়ে এক বাংলাদেশিকে আটক করেছে বিজিবি।

বিস্তারিত আসছে...

পরবর্তী খবর

মাদারীপুরে ঘুমের ঔষধ খাইয়ে অচেতন করে স্বামীকে হত্যা, স্ত্রীর দায় স্বীকার

মাদারীপুর প্রতিনিধি:

মাদারীপুরে ঘুমের ঔষধ খাইয়ে অচেতন করে স্বামীকে হত্যা, স্ত্রীর দায় স্বীকার

মাদারীপুরের কালকিনিতে স্বামীকে ঘুমের ঔষধ খাইয়ে অচেতন করে হত্যার ঘটনা ঘটেছে। ঘটনার একমাস ১১ দিন পর স্বামী হত্যার দায় স্বীকার করেছে নিহতের স্ত্রী রুবি বেগম (২৩)। ঘটনাটি ঘটেছে কালকিনি উপজেলার পূর্ব এনায়েতনগর এলাকার পূর্ব আলিপুর গ্রামে।

পুলিশ ও ভুক্তভোগী সুত্রে জানা যায়, কালকিনির পূর্ব এনায়েতনগর এলাকার পূর্ব আলিপুর গ্রামের মান্নান কাজীর ছেলে মো. নাজিমুদ্দিন কাজীর (২৫) সঙ্গে একই এলাকার মো. কামাল সিকদারের মেয়ে রুবি বেগমের পারিবারিক ভাবে বিয়ে হয়। তাদের সংসারে চার বছর বয়সের একটি ছেলে সন্তান রয়েছে। কিন্তু গত ২১ জুন রাতে স্বামী মো. নাজিমুদ্দিন স্ট্রোক করে মারা যায় বলে এলাকায় প্রচার করে স্ত্রী রুবি বেগম। 

করোনার প্রকোপের কারণে তরিঘরি করে তার লাশ স্বাভাবিক মৃত্যু হিসেবে দাফন করা হয়। নিহতের বাবা মা নেই। তবে নিহতের অন্য আত্মীয়দের সন্দেহ হয়। তাদের ধারণা পরকীয়ার জের ধরেই তাকে হত্যা করা হয়েছে। 

গত শনিবার নাজিমুদ্দিনের ফুফু মতি বেগম থানায় মামলা করার জন্য গেলে কালকিনি থানা পুলিশ মামলা না নিয়ে তাদের মাদারীপুর কোর্টে মামলা করতে বলেন।

রোববার বিকালে স্থানীয় এলাকাবাসির তোপের মুখে এ হত্যার দায় স্বীকার করেন ওই স্ত্রী। ইউপি চেয়ারম্যানের রেহানা নেয়ামুলের স্বামী নেয়ামুল আকন বিষয়টি কালকিনি থানা পুলিশকে অবহিত করেন। পুলিশ সন্ধ্যার পরে ঘটনা স্থালে গিয়ে ঘাতক স্ত্রী রুবি বেগমকে আটক করেন।

ঘাতক রুবি বেগম স্বীকারোক্তিতে জানান, আলিপুর মোল্লারহাট বাজারের ঔষধের দোকানের চিকিৎসক আব্দুল আলির কাজ থেকে ঘুমের ওষুধ এনে দুধের সাথে মিশিয়ে স্বামী মো. নাজিমুদ্দিনকে খাইয়ে অচেতন করে হত্যা করে।

নিহতের ভাই নাইম ও ফুফু মতি বেগম বলেন, আমাদের আগেই সন্দেহ হয়েছিল নাজিমুদ্দিন মারা যায়নি তাকে হত্যা করা হয়েছে। আমরা থানায় মামলা করতে গেলে থানা পুলিশ মামলা নেয়নি। আমাদের মাদারীপুর কোর্টে গিয়ে মামলা দিতে বলে। পরে এলাকার লোকজন নিয়ে রুবিকে জিজ্ঞাসাবাদ করলে রুবি ঘুমের ওষুধ খাইয়ে হত্যা করেছে বলে স্বীকার করে।

এ ব্যাপারে কালকিনি থানার ওসি ইসতিয়াক আশফাক রাসেল বলেন, ভুক্তভোগী পরিবার রোববার রাতে থানায় হত্যা মামলা করেছে। জিজ্ঞাসাবাদের স্বামীকে হত্যার কথা স্বীকার করেছে। মামলার আসামী রুবিকে আটক শেষে সোমবার মাদারীপুর জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে।

আরও পড়ুন:


চট্টগ্রামে করেনা ও উপসর্গ নিয়ে ১১ জনের মৃত্যু

পিয়াসা ও মৌ উচ্চবিত্তদের বাসায় ডেকে ব্ল্যাকমেইল করত : হারুন

৯৯৯ এ ফোন কলেবারান্দার কার্নিশ আটকে পড়া কিশোরী উদ্ধার

পোশাকের নেমপ্লেট খুলে চাঁদাবাজির অভিযোগে এসআই স্ট্যান্ড রিলিজ


news24bd.tv / কামরুল 

পরবর্তী খবর