বকেয়া পরিশোধ না করায় ভারতীয় সম্পত্তি দখল করলো ব্রিটিশ তেল কোম্পানি
বকেয়া পরিশোধ না করায় ভারতীয় সম্পত্তি দখল করলো ব্রিটিশ তেল কোম্পানি

বকেয়া পরিশোধ না করায় ভারতীয় সম্পত্তি দখল করলো ব্রিটিশ তেল কোম্পানি

অনলাইন ডেস্ক

বকেয়া পাওনা পরিশোধ না করায় ভারত সরকারের বেশ কিছু সম্পত্তির দখল নিয়েছে যুক্তরাজ্যভিত্তিক গ্যাস ও জ্বালানি কোম্পানি কেয়ার্ন এনার্জি। ১৭০ কোটি ডলার আদায় করতে ফ্রান্সের রাজধানী প্যারিসে বৃহস্পতিবার ২০টি ভারতীয় সম্পত্তির দখল নেয়া ছাড়াও যুক্তরাষ্ট্রে এয়ার ইন্ডিয়ার দখল নিতে মামলাও করেছে কেয়ার্ন।

সংস্থাটি বলছে, ভারত সরকার তাদের ওপরে অন্যায্যভাবে যে বাড়তি কর চাপিয়েছিল, তার বিরুদ্ধে দুই পক্ষ‌ই আন্তর্জাতিক সালিশি আদালতে গিয়েছিল। ওই সালিশি আদালতের নির্দেশ তাদের পক্ষে গেছে।

সেজন্যই তারা বকেয়া আদায়ের কাজ শুরু করেছে।

তবে ভারতের অর্থ মন্ত্রণালয় বলছে, কোনও ফরাসি আদালতের কাছ থেকে এ ধরনের কোনও নির্দেশ তারা পায়নি।

কিন্তু কেয়ার্ন-এর দাবি, গত বছর ডিসেম্বরে দ্য হেগ-এর আন্তর্জাতিক সালিশি আদালত সর্বসম্মতভাবে তাদের পক্ষেই রায় দিয়েছে। সেখানে বলা হয় যে, ভারত সরকারকে বকেয়া ১৭০ কোটি ডলার ফিরিয়ে দিতে হবে। সঙ্গে সুদও দিতে হবে। ওই রায় তারা যুক্তরাজ্য, যুক্তরাষ্ট্র, সিঙ্গাপুরসহ বিভিন্ন দেশের আদালতে কার্যকর করার আবেদন করেছিল।

ফ্রান্সের আদালতটি প্যারিসে ভারতীয় সম্পত্তিগুলো দখল নেয়ার নির্দেশ কার্যকরী করতে অনুমোদন দেয় কেয়ার্নকে। তারপরই ২০টি ভারতীয় সম্পত্তির দখল নিয়েছে বলে জানায় কেয়ার্ন।

কেয়ার্ন এনার্জির ডিরেক্টর, গ্রুপ কর্পোরেট অ্যাফেয়ার্স ডেভিড নিসবেট বলেন, সালিশি আদালতের রায়ের পরে সাড়ে ৬ মাস কেটে গেলেও ভারত বকেয়া না মেটানোর ফলেই তাদের এই সিদ্ধান্ত নিতে হয়েছে।

উল্লেখ্য, ভারত সরকার আর কেয়ার্নের এই দ্বন্দ্বের শুরু প্রায় ১৫ বছর আগে। তারও ৫ বছর আগে রাজস্থানে বড়সড় তেলের খনি আবিষ্কার করে কেয়ার্ন।

এরপর ২০০৬-০৭ সালে কেয়ার্ন ইউকে তাদের শেয়ার কেয়ার্ন ইন্ডিয়া সংস্থার কাছে হস্তান্তর করে। ২০১১ সালে কেয়ার্ন ভারত থেকে ব্যবসা গুটিয়ে নেয়ার প্রক্রিয়া শুরু করে ভেদান্তার কাছে তাদের সংস্থা বিক্রি করে দেয়।


আরও পড়ুনঃ

দেশের প্রতিটি অর্জন আওয়ামী লীগের হাত ধরেই হয়েছে: ওবায়দুল কাদের

জন্মদিনে প্রায় ৩ কোটি টাকার গাড়ি কিনলেন রণবীর

‘নগদ’-এর পিন রিসেট করা যাবে নিজে নিজেই

সক্ষমতা বৃদ্ধিতে মোংলা বন্দরে কেনা হয়েছে অত্যাধুনিক ৫টি হারবার ক্রেন


তখন ভারতের আয়কর বিভাগ এই প্রক্রিয়াতে বাধা দেয় এবং তখনও অবশিষ্ট থাকা শেয়ার ভেদান্তার কাছে হস্তান্তরের ওপরে নিষেধাজ্ঞা জারি করে। এছাড়া ২০১২ সালে রেট্রস্পেকটিভ ট্যাক্স ব্যবস্থা চালু হয়। আর সেই আইন অনুযায়ীই কেয়ার্নকে কর দিতে হয়। এই প্রক্রিয়ায় পুরনো হিসাবপত্র বের করে আগের আয় বা লাভের ওপরেও কর বসানো হয় নতুন হারে।

news24bd.tv / নকিব