বগুড়ায় করোনা ও উপসর্গে ১২ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ৯৭
Breaking News
বগুড়ায় করোনা ও উপসর্গে ১২ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ৯৭

বগুড়ায় করোনা ও উপসর্গে ১২ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ৯৭

Other

বগুড়ায় করোনা আক্রান্ত হয়ে ৪ জন এবং উপসর্গ নিয়ে ৮ জন মারা গেছেন। শুক্রবার সকাল ৮টা থেকে পরবর্তী ২৪ ঘণ্টায় তাদের মৃত্যু হয়।

মৃত ব্যক্তিরা হলেন নাটোর জেলার হায়দার হোসেন (৫৫), বগুড়া সারিয়াকান্দির আসাদুল (৪৭), জয়পুরহাট জেলার গোলামী রব্বানী (৫২), দিনাজপুর জেলার মোজাম্মেল হক (৫৫)।

এদের মধ্যে হায়দার ও আসাদুল শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ (শজিমেক) হাসপাতালে, গোলাম রব্বানী সরকারি মোহাম্মদ আলী হাসপাতালে, মোজ্জামেল হক টিএমএসএস হাসপাতালে মারা গেছেন।

 

বগুড়ার ডেপুটি সিভিল সার্জন ডা: মোস্তাফিজুর রহমান তুহীন জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় জেলায় আরও ৩২৮টি নমুনা পরীক্ষায় ৯৭জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। আক্রান্তের হার ২৯ দশমিক ৫৭ শতাংশ। এদের মধ্যে সদরের ৭০জন, শাজাহানপুরের ১১জন, দুপচাঁচিয়ায় ৮জন, সারিয়াকান্দি ২জন এবং গাবতলী ও শেরপুরে একজন করে। এছাড়া একই সময়ে সুস্থ হয়েছেন আরও ১০৫জন।

তিনি জানান, শুক্রবার বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমন মেডিকেল কলেজের পিসিআর ল্যাবে ২৮২টি নমুনা পরীক্ষায় ৭৩জন করোনা পজিটিভ শনাক্ত হয়েছেন।   এছাড়া বেসরকারি টিএমএসএস মেডিকেল কলেজের পিসিআর ল্যাবে ৪৬ নমুনায় ২৪ জন করোনা পজিটিভ শনাক্ত হয়েছেন।  

জেলায় এ পর্যন্ত মোট ১৫ হাজার ৫২৪জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। তাদের মধ্যে সুস্থ হয়েছেন ১৩ হাজার ৪৫০জন এবং  ৪৬০জনের মৃত্যু হয়েছে। এছাড়া ১ হাজার ৬১৪ জন চিকিৎসাধীন।


আরও পড়ুনঃ

যেভাবে দেখবেন কোপা আমেরিকার ফাইনাল

কোরবানির হাট মাতাবেন সাতক্ষীরার ‘নবাব’

কানাডায় করোনার গতি কমায় ভ্রমণে বিধিতে পরিবর্তন

তালেবানের হুমকির জবাব দিলো আফগান সরকার


এদিকে বগুড়ার হাসপাতালে রোগী বেড়েছে। ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট বগুড়া মোহাম্মদ আলী হাসপাতালে এখন রোগী রয়েছে ২৭৮ জন। শহিদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ১৯৯ রোগী এবং বেসরকারি টিএমএসএস মেডিকেল কলেজ ও রহমাতুল্লাহ কমিউনিটি হাসপাতালে ১০৭ জন রোগী ভর্তি রয়েছেন।

রোগী বেড়ে যাওয়ায় শজিমেক হাসপাতালে ২০০ শয্যা থেকে আজ আরও ৫০ টি শয্যা বৃদ্ধি করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন হাসপাতালের উপ-পরিচালক ডাঃ আব্দুল ওয়াদুদ।

বগুড়া মোহাম্মদ আলী হাসপাতালের আরএমও ডা শফিক আমিন কাজল জানিয়েছেন, ২৫০ শয্যার হাসপাতালে ২৭৮ জন রোগী ভর্তি রয়েছেন। প্রতিদিনই তাদের হাসপাতালে রোগী বাড়ছে। সর্বশেষ ৫৭ জন সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরে গেছেন।

news24bd.tv / নকিব

;