নেলসন ম্যান্ডেলার অবাক করা কিছু অজানা তথ্য

অনলাইন ডেস্ক

নেলসন ম্যান্ডেলার অবাক করা কিছু অজানা তথ্য

নেলসন ম্যান্ডেলা দিবস আজ। প্রতিবছর ১৮ জুলাই তার জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে এই দিবসটি পালিত হয়। নেলসন ম্যান্ডেলা একমাত্র লোক যিনি এককভাবে দক্ষিণ আফ্রিকার বর্ণবৈষম্যের সাথে লড়ে তা ধ্বংস করেছিলেন। আফ্রিকানদের অধিকার জয়ের যুদ্ধে প্রায় তিন দশক তিনি জেলের মধ্যেই কাটিয়েছেন এবং সেখানেই তিনি আইনে স্নাতক হন।

নেলসন ম্যান্ডেলা সম্বন্ধে অনেকেই তেমন ভাল করে কিছু জানেন না! নেলসন ম্যান্ডেলা সম্পর্কে বিস্ময়কর কিছু ঘটনা নিচে তুলে ধরা হলো-

নেলসন ম্যান্ডেলার আসল নাম রোলিলাহলা ম্যান্ডেলা, জোসা ভাষায় যার অর্থ গাছের ডাল ভাঙা। যার আরেকটি মানে উত্তেজনা সৃষ্টিকারক।

তিনি জেলখানায় তার জীবনের ২৭ বছর অতিবাহিত করেছিলেন এবং ছদ্দবেশে তাকে কেউ টেক্কা দেওয়ার মতো ছিল না সে সময়। ১৯৬২ সালে যখন তাকে গ্রেফতার করা হয়েছিল, তখন তিনি ড্রাইভারের ছদ্দবেশে ছিলেন।

একজন প্রেসিডেন্ট হিসেবে তার প্রধান উদ্দেশ্য ছিল, সাদা এবং কালো মানুষদের মধ্যে সম্পর্ক উন্নত করা, বিশ্বের কাছে দক্ষিণ আফ্রিকাকে একেবারে নতুন রূপে গড়ে তোলা।

তিনি নেলসন ম্যান্ডেলা ফাউন্ডেশন আর দ্য এল্ডার্সের (বিখ্যাত ব্যক্তিদের একটি স্বাধীন প্রতিষ্টান, যারা বিশ্বব্যাপী নানা সমস্যা ও মানুষের দুর্ভোগ নিয়ে সরব হয়) মত অনেক সংগঠন শুরু করেছিলেন।

তিনি দুঃখ প্রকাশ করেছিলেন যে প্রেসিডেন্ট থাকার সময়কালে এইডস সমস্যার সমাধানে একেবারে সময় উৎসর্গ করতে পারেননি। পরে তিনি ৪৬৬৬৪ নামে একটি সংগঠন প্রতিষ্ঠিত করেন (জেলে থাকাকীলন তিনি ছিলেন ৪৬৬তম বন্দি। আর ১৯৬৪ সালে, এই দুটি মলিয়ে সংগঠনের নামকরণ করা হয়েছিল ৪৬৬৬৪)। এটি একটি অলাভজনক সংস্থা, যা এইডস প্রতিরোধ ও সচেতনতার জন্য নিবেদিত।

২০০১ সালে প্রস্টেট ক্যান্সারের চিকিৎসার পর তিনি অন্যান্য ব্যাধিতে ভুগতে শুরু করেন, আর তাই তার জনসাধারণের সামনে উপস্থিতি কমে যায়। গণতন্ত্র, সামাজিক ন্যায়বিচার, স্বাধীনতা ও মানবাধিকার অবদানের জন্য ১৮ জুলাই দিনটিকে ইউনাইটেড নেশনস দ্বারা "নেলসন ম্যান্ডেলা আন্তর্জাতিক দিবস" হিসাবে মনোনীত করা হয়।

জাতি বিদ্বেষের বিরুদ্ধে সশস্ত্র বিদ্রোহের কারণে নেলসন এবং তার দলের, আফ্রিকান ন্যাশনাল কংগ্রেস, সদস্যদের নাম প্রায় ২০০৮ সাল পর্যন্ত মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সন্ত্রাসী তালিকায় অন্তর্ভুক্ত ছিলেন।

"হাউ ফার উই স্লেভেস হ্যাভ কাম" এই বইটির তিনি ফিদেল কাস্ত্রোর (কিউবান বিপ্লবী এবং রাজনীতিবিদ, যিনি ১৯৫৯ থেকে ১৯৭৬ সাল পর্যন্ত কিউবার প্রধানমন্ত্রিত্ব করেন) সঙ্গে হাত মিলিয়ে লিখেছিলন।

আরও পড়ুন:

যে সব ব্যক্তিরা কোরবানী করতে পারবেন

আয়াতুল কুরসি'র ফজিলত

দেখে নিন ইতিহাসে আজকের এই দিনে কি কি ঘটেছিল!

আপনাদের কি জানা আছে যে ম্যান্ডেলার হাতের ছাপ অবিকল আফ্রিকান মহাদেশের আকৃতির মতো। হ্যাঁ এটা একেবারে সত্যি ঘটনা কিন্তু!

একবার তিনি ব্রিটেনের রানী দ্বিতীয় এলিজাবেথের নাম ধরে ডেকেছিলেন এবং তার ওজন এবং তার ড্রেসিং শৈলী নিয়েও কিছু মন্তব্য করে বিকর্কে জড়িয়েছিলেন।

সূত্র- বোল্ডস্কাই

news24bd.tv রিমু 

পরবর্তী খবর

খুশকি দূর করবে মাউথওয়াশে

অনলাইন ডেস্ক

খুশকি দূর করবে মাউথওয়াশে

কেবল দাঁত ও মুখের যত্নেই নয়, চুলের খুশকি দূর করতেও লিস্টারিন মাউথওয়াশ যাদুর মতো কাজ করে! সাধারণত মাথার ত্বকের ইষ্ট এর সমস্যার জন্য খুশকির সমস্যা দেখা দেয়। মাউথওয়াশে রয়েছে অ্যান্টি-ফাংগাল উপাদান, যা ইষ্ট প্রতিরোধে সাহায্য করে। তাই খুশকির যন্ত্রণা থেকে মুক্তি পেতে জেনে নিন মাউথওয়াশের ব্যবহার সম্পর্কে-

যা যা লাগবে:

এক টেবিল চামচ মাউথ ওয়াশ, নয় টেবিল চামচ পানি।

আরও পড়ুন:


নদীতে ভাসছিলো অজ্ঞাত যুবকের মরদেহ

ঝিনাইদহে করোনা ও উপসর্গ নিয়ে দুইজনের মৃত্যু

বাগেরহাটে পিকআপের ধাক্কায় ৬ ইজিবাইক যাত্রী নিহত

কে এই অভিষিক্ত শামীম পাটোয়ারী


যেভাবে ব্যবহার করবেন

একটি পাত্রে পানির সঙ্গে মাউথওয়াশ মিশিয়ে নিন। যে শ্যাম্পু আপনি সবসময় ব্যবহার করেন সেটা দিয়েই চুল ধুয়ে নিন। চুল থেকে অতিরিক্তি পানি ঝরিয়ে নিন। এরপর মাউথওয়াশের পানি দিয়ে চুল ধুয়ে ফেলুন। কয়েক দিন ব্যবহার করার পর পরিবর্তনটা আপনি নিজেই বুঝতে পারবেন।

news24bd.tv নাজিম

পরবর্তী খবর

সিলিং ফ্যান পরিষ্কারের সহজ উপায়

অনলাইন ডেস্ক

সিলিং ফ্যান পরিষ্কারের সহজ উপায়

সিলিং ফ্যান পরিষ্কার করা বেশ ঝামেলার। তবে কিছু কৌশল জানা থাকলে কাজটি সহজ হয়ে যায়। চলুন তবে জেনে নেয়া যাক এমন কিছু উপায়, যার মাধ্যমে খুব সহজেই পরিষ্কার করতে পারবেন আপনার সিলিং ফ্যান-

১. প্রথমেই বিছানার উপর একটা বাতিল চাদর পেতে ফেলুন। এতে ময়লা পরিষ্কার করার সময় বিছানাতে ময়লা পড়বে না। এবার হাতে নিন শুকনো কাপড়। প্রথমে হালকা হাতে পরিষ্কার করে নিন ফ্যানের ব্লেড।

২. শুকনো কাপড় দিয়ে ব্লেড মোছার পরই ভেজা কাপড় ব্যবহার করবেন। না হলে ব্লেড পরিষ্কার তো হবেই না, উল্টো ময়লা আটকে থাকবে।

৩. পুরনো বালিশের কভারের মধ্যে ফ্যানের ব্লেড ঢুকিয়ে দিন। তারপর কাপড়ের মুখ চেপে নিয়ে হালকা করে টেনে নিন। দেখবেন ময়লা সব কভারের মধ্যে পড়ে ব্লেড পরিষ্কার হয়ে গেছে।

আরও পড়ুন:


হজে প্রথমবারের মতো নিরাপত্তার দায়িত্বে সৌদি নারী সেনা

ফরজ গোসল অবহেলার শাস্তি

আমেরিকাকে প্রতিহত করতেই রাশিয়া হাইপারসোনিক ক্ষেপণাস্ত্র নির্মাণ করছে: পেসকভ

৫০ হাজার টাকা বেতনে লোক নেবে আকিজ বিড়ি ফ্যাক্টরি


৪.ফ্যানের ব্লেড পরিষ্কার করতে ব্যবহার করুন খবরের কাগজ। প্রথমে শুকনো কাপড় দিয়ে ময়লা পরিষ্কার করে নিয়ে, খবরের কাগজ অল্প জলে ভিজিয়ে ব্লেড পরিষ্কার করুন।

৫. ফ্যানের ব্লেড পরিষ্কার করার সময় ডিটারজেন্টের সঙ্গে অল্প খাবার সোডা মিশিয়ে নিন। এতে ঝকঝকে হবে আপনার ফ্যানের ব্লেড।

অবশ্যই মনে রাখবেন, সিলিং ফ্যান পরিষ্কার করতে গিয়ে ঝুঁকি নেবেন না। এর জন্য ছোট মই ব্যবহার করুন।

news24bd.tv নাজিম

পরবর্তী খবর

লেবুর শরবতের ৫ উপকারিতা

অনলাইন ডেস্ক

লেবুর শরবতের ৫ উপকারিতা

এই গরমে এক গ্লাস লেবুর শরবত আমাদের শরীরে এনে দেয় পরম প্রশান্তি। স্বাস্থ্যবিষয়ক একটি ওয়েবসাইট রিডার্স ডাইজেস্ট লেবুর শরবতের ৫টি উপকারিতার কথা জানিয়েছে। 

আসুন সেগুলো একটু জেনে নেই।

১. লেবু পানি পান করলে শরীরে জমে থাকা টক্সিন বা বিষাক্ত পদার্থ দূর হয়।

২. শরীর পরিশোধিত করে ওজন কমানোর সব থেকে কার্যকর এবং প্রাকৃতিক উপায় নিয়মিত লেবুর রস পান করা।

৩. প্রতিদিন লেবুর শরবত পান করলে ত্বকের আর্দ্রতার মাত্রা বজায় থাকে।

আরও পড়ুন:


ফরজ গোসল অবহেলার শাস্তি

আমেরিকাকে প্রতিহত করতেই রাশিয়া হাইপারসোনিক ক্ষেপণাস্ত্র নির্মাণ করছে: পেসকভ


৪. দেহের ভিটামিন সি এর অভাব পূরণে লেবুর জুড়ি নেই। এক কাপের ১/৪ ভাগ লেবুর শরবতের মধ্যে ২৩ দশমিক ৬ মিলিগ্রাম ভিটামিন সি থাকে। প্রতিদিন এক গ্লাস লেবুর শরবত আমাদের শরীরের ভিটামিন সি এর চাহিদা বেশ ভালোভাবে পূরণ করে। ভিটামিন সি একটি শক্তিশালী এন্টি-অক্সিডেন্ট যা আমাদের শরীরের কোষগুলোকে ফ্রি-র‌্যাডিকেলের বিরুদ্ধে লড়াই করতে এবং ক্যান্সার  ও হৃদরোগ প্রতিরোধে ব্যাপক সাহায্য করে। তাছাড়া আমরা সবাই জানি ভিটামিন সি 'স্কার্ভি' রোগ প্রতিরোধে সাহায্য করে। 

৫. নিয়মিত লেবুর শরবত পান করার ফলে আপনার চেহারা থেকে বয়স্কের ছাপ দূর হবে। এই শরবতটি আমাদের ত্বকের জন্য খুবই উপকারী। লেবুতে থাকা ভিটামিন সি ত্বকের বলিরেখা কমাতে সাহায্য করে। ভিটামিন সি কোলাজেন নামক রাসায়নিককে সক্রিয় করে আমাদের ত্বকের নিচে থাকা কানেক্টিভ টিস্যুগুলো মেরামতে সাহায্য করে।

news24bd.tv নাজিম

পরবর্তী খবর

ভুঁড়ি সংরক্ষণের সঠিক পদ্ধতি

অনলাইন ডেস্ক

ভুঁড়ি সংরক্ষণের সঠিক পদ্ধতি

কোরবানীর ঈদে গরু কিংবা খাসির ভুঁড়ি নিয়ে ঝামেলায় পড়েন অনেকেই। তবে ভুঁড়ি সংরক্ষণের সঠিক পদ্ধতি জানা থাকলে এটি কোনো সমস্যাই নয়। ভুঁড়ি সংরক্ষণের সঠিক পদ্ধতিটি জেনে নেই।

সংরক্ষণ পদ্ধতি:

পরিষ্কার করা ভুঁড়ি সিদ্ধ করে ডিপ ফ্রিজে সংরক্ষণ করতে পারেন। এভাবে অনেক দিন পর্যন্ত ভুঁড়ি ভালো থাকবে। এজন্য সিদ্ধ হওয়ার পর পানি ঝরিয়ে কয়েকবার ঠাণ্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে নিন।

আরও পড়ুন:


যেভাবে উদ্ধার হলো পরিকল্পনামন্ত্রীর আইফোন

কোরবানির পশু জবাইয়ের নিয়ম ও দোয়া

বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়কে ২৫ কিলোমিটার যানজট

সুনামগঞ্জে স্পিডবোট-বাল্কহেড সংঘর্ষে মা-মেয়ে নিহত


পুরোপুরি ঠাণ্ডা হয়ে গেলে ছোট জিপলক ব্যাগ কিংবা মুখবন্ধ বাটিতে করে ফ্রিজে রেখে দিন।

news24bd.tv নাজিম

পরবর্তী খবর

পশু কোরবানীর আগে ও পরে কিছু সতর্কতা

অনলাইন ডেস্ক

পশু কোরবানীর আগে ও পরে কিছু সতর্কতা

ত্যাগের মহিমায় আজ বুধবার (২১ জুলাই) দেশব্যাপী পালিত হবে পবিত্র ঈদুল আজহা। ঈদের নামাজ শেষে মহান আল্লাহর সন্তুষ্টি লাভের উদ্দেশ্যে পশু কোরবানী করবেন সামর্থ্যবান মুসলমানরা।

কোরবানীর পশু কেবল জবাই দিলেই হবে না। জানতে হবে পশু কোরবানির আগে ও পরে কিছু সতর্কতা। চলুন তবে এই বিষয়ে বিস্তারিত জেনে নেয়া যাক-

কোরবানীর আগে যা করবেন

>> পশু কেনার সময় লক্ষ্য রাখতে হবে, আগে থেকেই গরুর চামড়ায় কোনো গভীর ক্ষত চিহ্ন বা দাগ যেন না থাকে।

>> ঈদের দিন সকাল থেকেই পশুকে খাবার (খড়, ভুসি, কাঁচা ঘাস প্রভৃতি) দেয়া থেকে বিরত থাকুন। তবে পানি বা তরল খাবার খাওয়াতে পারেন। এতে কোরবানির পর পশুর চামড়া ছাড়ানো অনেক সহজ হবে।

>> পশু কোরবানীর জন্য দক্ষ লোক নিয়োগ করুন। নইলে কোরবানির পশুর সমস্যা গতে পারে। জবাইকৃত গরু উঠে দৌঁড় দিতে পারে। তাছাড়া পশুর অতিরিক্ত কষ্ট হতে পারে।

>> কোরবানীর জন্য শোয়ানো অবস্থায় পশুটিকে যেন টানাহেঁচড়া না করা হয় সেদিকে লক্ষ্য রাখতে হবে।

>> কোরবানীর পশু জবাই করার কাজে বড় ও চামড়া ছাড়ানোর কাজে ধারালো মাথা ছুরি ব্যবহার করতে হবে।

কোরবানীর পরে যা করবেন

>> প্রাণীর ধমনী যাতে পুরোপুরি কাটা যায়, সেদিকে লক্ষ্য রাখতে হবে। প্রাণী জবাইয়ের পর পুরোপুরি ব্লিডিং হওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে। জবাইয়ের সঙ্গে সঙ্গে মাংস কাটা শুরু করা হলে মাংসের ভেতর রক্ত থেকে যাবে। এ ধরনের মাংস মোটেও স্বাস্থ্য সম্মত নয়, কারণ রক্তে অনেক ধরনের জীবাণু থাকতে পারে।

>> সাধারণত ব্যাকটেরিয়ার আক্রমণে চামড়ার ক্ষতি ও গুণগত মান নষ্ট হয়ে থাকে। ব্যাকটেরিয়ার হাত থেকে পশুর চামড়াকে রক্ষা করতে বর্তমান বিশ্বে সাধারণত ড্রাই ট্রিটমেন্ট, সল্ট ট্রিটমেন্ট ও ফ্রিজিং করে চামড়া সংরক্ষণ করা হয়।

>> কোনো এলাকার লোকজন বিচ্ছিন্ন স্থানে কোরবানী না দিয়ে বেশ কয়েকজন মিলে একস্থানে কোরবানী করা ভালো।

>> কোরবানীর জায়গাটি যেন খোলামেলা হয়। আর জায়গাটি রাস্তার কাছাকাছি হলে বর্জ্যের গাড়ি পৌঁছানো সহজ হবে। কোরবানীর পর পশুর রক্ত ও তরল বর্জ্য খোলা স্থানে রাখা যাবে না। এগুলো গর্তের ভেতরে পুঁতে মাটিচাপা দিতে হবে। কারণ রক্ত আর নাড়িভুঁড়ি কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই দুর্গন্ধ ছড়ায়। আর যদি রক্ত মাটি থেকে সরানো সম্ভব না হয়, তাহলে পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলতে হবে।

>> যারা চামড়া কিনবেন, তারা কোনো বদ্ধ পরিবেশে চামড়া পরিষ্কার না করে এমন খোলামেলা স্থানে করতে পারেন, যেখানে ময়লা জমে দুর্গন্ধ হবে না। আর চামড়ার বর্জ্য অপসারণের জন্য জমিয়ে রাখতে হবে।

>> সর্বশেষে কোরবানীর পশুর বর্জ্য নিজের উদ্যোগে পরিষ্কার করুন। তবেই পরিবেশ ভালো থাকবে। সুস্থ থাকবেন আপনিও।

news24bd.tv নাজিম

পরবর্তী খবর