পশ্চিম ইউরোপে ভয়াবহ বন্যায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে ১৭০

অনলাইন ডেস্ক

পশ্চিম ইউরোপে ভয়াবহ বন্যায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে ১৭০

এর আগে এমন ভয়াবহ বন্যা খুব কমই দেখেছে পশ্চিম ইউরোপের দেশগুলি। ভয়াবহ এই বন্যায় মৃতের সংখ্যা ক্রমেই বাড়ছে। এখন পর্যন্ত পশ্চিম ইউরোপের কয়েকটি দেশে মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৭০ জনে। এখন নিখোঁজ রয়েছেন অনেকে।

এদিকে বন্যায় মৃতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে জানা গেছে। উদ্ধার অভিযান চালাচ্ছে উদ্ধারকর্মীরা। বন্যায় সৃষ্ট জলাবদ্ধতা ও ময়লা-আবর্জনা অপসরণে কাজ শুরু করেছেন সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত জার্মানি এবং বেলজিয়ামের বাসিন্দারা। তবে, ঠিক কি পরিমাণ ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে তা এখনও জানা যায়নি।

পরিদর্শকরা বলছেন, জার্মান শহরের দক্ষিণ-পশ্চিমে একটি বাঁধের বড় অংশের অবস্থা নাজুক। তাই নদীর কূলবর্তী বাসিন্দাদের সরিয়ে নেওয়া হয়েছে। অনেককে বাড়ি ছেড়ে অন্যত্র যেতে বলা হয়েছে।

স্মরণকালের এ বন্যায় সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে জার্মানি। দেশটির পশ্চিমাঞ্চলে ঝড়, ভারী বৃষ্টিপাত ও বন্যায় ১৩৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। এছাড়া বেলজিয়ামে ২৭ জনের বেশি মানুষের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে।

আরও পড়ুন


রাজশাহী মেডিকেলে আজও ১৭ জনের মৃত্যু

করোনায় আ.লীগের সাবেক সংসদ সদস্য আফাজের মৃত্যু

সিরিজ জয়ের লক্ষ্যে আজ মাঠে নামবে টাইগাররা, সম্ভাব্য একাদশ

রংপুরে দুই বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে শিশুসহ নিহত ৬


আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমগুলো বলছে, জার্মানিতে বন্যায় নিমেষেই মৃত্যুপুরীতে পরিণত হয়েছে কয়েকটি শহর। যাতে এখনও নিখোঁজ রয়েছে কয়েকশ মানুষ। ধারণা করা হচ্ছে, মৃতের সংখ্যা আরও বাড়বে।

জার্মানির বিদায়ী চ্যান্সলার এঙ্গেলা মার্কেল জলবায়ু পরিবর্তনের এরূপ পরিস্থিতির বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করেছেন।

গত বুধবার সারা দিন ও বৃহস্পতিবার রাতজুড়ে প্রচণ্ড বৃষ্টির কারণে রাইন ও মোজেল নদীর শাখা পাহাড়ি নদীগুলোর দুই কূল উপচে যায়। খরস্রোতা নদীর পানি ছোট ছোট শহরগুলোতে ঢুকে পড়ে। বাসিন্দারা কিছু বোঝার আগেই নদীগুলোর পানি রাস্তা ও ঘরবাড়িতে ঢুকে পড়ে এ পাণহানির ঘটনা ঘটে।

news24bd.tv এসএম

পরবর্তী খবর

বন্যা ও ভূমিধসে মহারাষ্ট্রের বিভিন্ন অঞ্চলে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ১৫৯

অনলাইন ডেস্ক

বন্যা ও ভূমিধসে মহারাষ্ট্রের বিভিন্ন অঞ্চলে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ১৫৯

মুষলধারে বৃষ্টিতে সৃষ্ট বন্যা ও ভূমিধসে ভারতের মহারাষ্ট্রের বিভিন্ন অঞ্চলে এখন পর্যন্ত ১৫৯ জনের প্রাণহানির খবর পাওয়া গেছে। স্থানীয় কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে দিয়ে এ তথ্য দিয়েছে বার্তা সংস্থা এপি। 

সংবাদমাধ্যমটি জানায়, বন্যা ও ভূমিধসে সৃষ্ট কাদা আর ধ্বংসস্তূপের মধ্যে চাপা পড়াদের উদ্ধারে অনেক ক্ষেত্রেই উদ্ধারকর্মীদের বেগ পেতে হচ্ছে। পানিতে তলিয়ে যাওয়া ঘরবাড়ি থেকেও উদ্ধারের চেষ্টা চলছে দুর্গতদের। এখনও নিখোঁজ রয়েছে বহু মানুষ।

এদিকে, চীনে ভয়াবহ বন্যার পর পূর্ব উপকূলে আছড়ে পড়েছে ঘূর্ণিঝড় ইন-ফা। ঘূর্ণিঝড়ের আশংকায় আগেই বাতিল করে দেয়া হয়েছে সাংহাইয়ের বিভিন্ন বিমানবন্দরের বিমান চলাচল। দেশটির মধ্যাঞ্চলে রেকর্ড বন্যায় এখন পর্যন্ত ৫৮ জনের মৃত্যু হয়েছে।

আরও পড়ুন:

জাহান্নাম থেকে মুক্তির ১০টি আমল

সূরা ফাতিহার ফজিলত

মেয়র সেলিনা হায়াৎ আইভীর মায়ের মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রীর শোক

১০ আগস্ট থেকে বিদেশি মুসল্লিদের জন্য চালু হচ্ছে পবিত্র ওমরাহ

অন্যদিকে, গেল কয়েক দশকের মধ্যে ভয়াবহ বন্যার কবলে পড়েছে বেলজিয়াম। এখন পর্যন্ত ৩৭ জনের মৃত্যু হয়েছে দেশটিতে। বজ্রপাত ও ভারী বৃষ্টিপাতে সৃষ্ট বন্যায় ডুবে গেছে উত্তর ও পূর্ব লন্ডনের রাস্তাঘাট।

কোস্টা রিকাতেও একই ধরণের প্রাকৃতিক দুর্যোগে ক্ষতিগ্রস্থ হয়ে পড়েছে শত শত বাড়িঘর।

news24bd.tv রিমু 

পরবর্তী খবর

১০ আগস্ট থেকে বিদেশি মুসল্লিদের জন্য চালু হচ্ছে পবিত্র ওমরাহ

অনলাইন ডেস্ক

১০ আগস্ট থেকে বিদেশি মুসল্লিদের জন্য চালু হচ্ছে পবিত্র ওমরাহ

ফাইল ছবি

অবশেষে বিদেশি মুসল্লিদের জন্য চালু হচ্ছে পবিত্র ওমরাহ পালন। আগামী ১০ আগস্ট থেকে বিদেশিদের সৌদি আরবে গিয়ে ওমরাহ করার অনুমতি দেবে দেশটি।  

সৌদির হজ ও ওমরাহ বিষয়ক জাতীয় কমিটির সদস্য হানি আল-আমিরি বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, ওমরা পালনে বিদেশ থেকে আগতদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে করোনাভাইরাস সংক্রান্ত সব ধরনের সাবধানতা এবং নিয়ম-কানুন কঠোরভাবে মেনে চলতে হবে।

আরও পড়ুন:

চীনে বন্যা পরিস্থিতির অবনতি, মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৫৮

সূরা ফাতিহার ফজিলত

মেয়র সেলিনা হায়াৎ আইভীর মায়ের মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রীর শোক

বিদেশি মুসল্লিদের ওমরা পালনকে কেন্দ্র করে দেশটির ৫০০টি কোম্পানি এবং প্রতিনিধিদের সকল ধরনের প্রস্তুতি গ্রহণের নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। বিশ্বব্যাপী করোনা টিকা প্রদানের পরিস্থিতি দেখে মহররম থেকে ওমরা পালনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে কর্তৃপক্ষ।

news24bd.tv রিমু 

পরবর্তী খবর

পাথর পড়ে ব্রিজ ধসে প্রাণ গেল ৯ জনের (ভিডিও)

অনলাইন ডেস্ক

পাথর পড়ে ব্রিজ ধসে প্রাণ গেল ৯ জনের (ভিডিও)

ভারতের হিমাচল প্রদেশে ভূমিধসের কারণে পাহারের পাথর ধসে পড়ে ব্রিজের ওপর। এতে ব্রিজটি ভেঙে ৯ পর্যটক নিহত হয়। স্থানীয় সময় রোববার দুপুরে হিমাচল প্রদেশে এই দুর্ঘটনা ঘটে বলে ভারতীয় গণমাধ্যমগুলো জানায়।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ১২ জন যাত্রী নিয়ে হিমাচল প্রদেশের বাতসেরি ব্রিজ দিয়ে কিন্নৌরের দিকে যাচ্ছিল একটি গাড়ি। হঠাৎ পাহাড় থেকে ভূমিধসের কারণে বড় বড় পাথর ব্রিজের ওপর পড়তে শুরু করে। পাথরগুলো ব্রিজের ওপর থাকা গাড়িটিকে ধাক্কা দিলে এ হতাহতের ঘটনা ঘটে। পাথরের আঘাতে ব্রিজটি পুরোপুরি ভেঙে যায়।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ওই সময়কার ভিডিও ভাইরাল হয়েছে।ঘটনাস্থলে উদ্ধার কাজ শুরু করেছেন ইন্দো-টিবেট বর্ডার পুলিশের (আইটিবিপি) সদস্যরা।

এই দুর্ঘটনাকে ‘হৃদয় বিদারক’ হিসেবে অভিহিত করেছেন হিমাচল প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী জয়রাম ঠাকুর। হতাহতদের পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানিয়েছেন তিনি। সেখানে উদ্ধার তৎপরতা শুরু হয়েছে বলেও জানান মুখ্যমন্ত্রী।

এই ঘটনায় শোক প্রকাশ করে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি আহতদের দ্রুত সুস্থতা কামনা করেছেন।

ভিডিও দেখতে ক্লিক করুন

পরবর্তী খবর

দার্জিলিং, সিকিমে ও গ্যাংটকে শক্তিশালী ভূমিকম্প

অনলাইন ডেস্ক

দার্জিলিং, সিকিমে ও গ্যাংটকে শক্তিশালী ভূমিকম্প

রিখটার স্কেলে ৪ মাত্রার ভূমিকম্প আঘাত হেনেছে ভারতের বেশ কিছু অঞ্চলে। আজ রোববার স্থানীয় সময় রাত আটটা নাগাদ ভূমিকম্পে কেঁপে উঠে উত্তর-পূর্ব ভারতের দার্জিলিং, সিকিমে ও গ্যাংটক!

তবে এখনও পর্যন্ত ক্ষয়ক্ষতির কোনো খবর পাওয়া যায়নি।

যদিও আচমকা কেঁপে ওঠায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে পাহাড়বাসীর মধ্যে। 

জানা গেছে, পূর্ব সিকিমের কাছে কম্পনের উৎপত্তিস্থল। রাজধানী গ্যাংটক থেকে ১২ কিলোমিটার পশ্চিমে এর কেন্দ্র। সেখান থেকেই কেঁপে উঠেছে মাটি।

ভারতীয় গণমাধ্যম বলছে,  রোববার সাড়ে ৮টা নাগাদ আচমকা কেঁপে ওঠে দার্জিলিং, সিকিমের পার্বত্য অঞ্চল। প্রায় ৫ সেকেন্ড ধরে কম্পন অনুভূত হয়। পাহাড়ের বাসিন্দারা বেশ ভালই তা টের পেয়েছেন।

আরও পড়ুন:


ডিএমপির ৯ পুলিশ কর্মকর্তার পদায়ন 

ফুলবাড়িয়ায় হাতকড়াসহ পালানো আসামি সাড়ে পাঁচ ঘণ্টা পর গ্রেপ্তার

পিরোজপুরে প্রতিবন্ধী কিশোরীকে গণধর্ষণ, গ্রেপ্তার ২

 news24bd.tv তৌহিদ

পরবর্তী খবর

মার্কিন সেনাদের প্রয়োজন নেই: ইরাকি প্রধানমন্ত্রী

অনলাইন ডেস্ক

মার্কিন সেনাদের প্রয়োজন নেই: ইরাকি প্রধানমন্ত্রী

উগ্র সন্ত্রাসী গোষ্ঠী দায়েশের বিরুদ্ধে লড়াই করার জন্য মার্কিন সেনাদের তার দেশে প্রয়োজন নেই বলে জানিয়েছেন ইরাকের প্রধানমন্ত্রী মুস্তাফা আল-কাজেমি।

তিনি বলেছেন, মার্কিন সেনা প্রত্যাহারের ব্যাপারে আনুষ্ঠানিক সময়সীমা ঘোষণা হবে চলতি সপ্তাহে মার্কিন কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠকের ফলাফলের পর।

বার্তা সংস্থা এপি-কে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে মুস্তাফা আল-কাজেমি এসব কথা বলেছেন।

তার এ সাক্ষাৎকার আজ (রোববার) প্রকাশিত হয়েছে।

আগামীকাল হোয়াইট হাউসে মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী কাজেমির বৈঠক করার কথা রয়েছে।

এর আগে এপি-কে দেওয়া সাক্ষাৎকারে তিনি এসব কথা বললেন।

ইরাকি প্রধানমন্ত্রী বলেন, প্রশিক্ষণ এবং সামরিক গোয়েন্দা তথ্য সংগ্রহের জন্য ইরাক এখনো আমেরিকার কাছে সহযোগিতা চায় তবে কম্ব্যাট ট্রুপ প্রত্যাহার করার ব্যাপারে আমেরিকার কাছ থেকে সুনির্দিষ্ট সময়সীমা চাইবে। গত এপ্রিল মাসে ওয়াশিংটন এবং বাগদাদের মধ্যে আলোচনার পর আমেরিকা ইরাক থেকে সেনা প্রত্যাহারের কথা ঘোষণা করেছিল।

ইরাকের মাটি থেকে মার্কিন সেনাদের বহিষ্কারের ব্যাপারে প্রধানমন্ত্রী মুস্তাফা আল- কাজেমি সরকারের ওপর দিন দিন চাপ বাড়ছে বিশেষ করে দেশটির প্রতিরোধকামী সংগঠনগুলো এই চাপ সৃষ্টি করেছে।

এসব সংগঠন মনে করে মার্কিন সেনাদের উপস্থিতির কারণে ইরাকের ভেতরে অনেক সমস্যা তৈরি হচ্ছে। বহু সংগঠন প্রকাশ্যে বলেছে, মার্কিন সেনারা ইরাকের স্বার্থ বাদ দিয়ে ইসরাইলের স্বার্থ রক্ষা করছে।

আরও পড়ুন:


ডিএমপির ৯ পুলিশ কর্মকর্তার পদায়ন 

ফুলবাড়িয়ায় হাতকড়াসহ পালানো আসামি সাড়ে পাঁচ ঘণ্টা পর গ্রেপ্তার

পিরোজপুরে প্রতিবন্ধী কিশোরীকে গণধর্ষণ, গ্রেপ্তার ২

 news24bd.tv তৌহিদ

পরবর্তী খবর