পশুর শিং ভেঙে বা ফেটে গেলে কোরবানী হবে কি?
পশুর শিং ভেঙে বা ফেটে গেলে  কোরবানী হবে কি?

পশুর শিং ভেঙে বা ফেটে গেলে কোরবানী হবে কি?

অনলাইন ডেস্ক

আর মাত্র কয়েকদিন পরেই দেশব্যাপী উদযাপিত হবে পবিত্র ঈদুল আজহা। আর এই ঈদে সামর্থ্যবানরা পশু কোরবানী করে থাকেন। কোরবানী দেওয়া ওয়াজিব।  

যে পশুটি কোরবানী দেওয়া হবে অবশ্যই সেটিকে সুস্থ হতে হবে।

অন্যথায় কোরবানী হবে না ইসলামের নির্দেশনা এটাই। এখন প্রশ্ন হলো যেসব পশুর শিং ভেঙে বা ফেটে গেছে, সেগুলো দিয়ে কুরবানি আদায় করা যাবে?

উত্তর: যে পশুর শিং একেবারে গোড়া থেকে ভেঙে গেছে, যে কারণে মস্তিষ্ক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে; সে পশুর কুরবানি জায়েজ নয়। কিন্তু শিং ভাঙার কারণে মস্তিষ্কে যদি আঘাত না পৌঁছে, তা হলে সেই পশু দ্বারা কুরবানি জায়েজ। তাই যে পশুর অর্ধেক শিং বা কিছু শিং ফেটে বা ভেঙে গেছে বা শিং একেবারে উঠেইনি, সে পশু দ্বারা কুরবানী করা জায়েজ।  

তথ্যসূত্র: জামে তিরমিজি ১/২৭৬; সুনানে আবু দাউদ, হাদিস ৩৮৮; বাদায়েউস সানায়ে ৪/২১৬; রদ্দুল মুহতার ৬/৩২৪; আলমগিরি ৫/২৯৭

news24bd.tv নাজিম