বৃহস্পতিবার, ১৪ নভেম্বর, ২০১৯ | আপডেট ০৩ মিনিট আগে

জন্মজয়ন্তীতে কবিগুরুর স্মৃতি বিজড়িত পতিসরে নানা আয়োজন

বাবুল আখতার রানা • নওগাঁ প্রতিনিধি

জন্মজয়ন্তীতে কবিগুরুর স্মৃতি বিজড়িত পতিসরে নানা আয়োজন

‘সেদিন আমার জন্মদিন। প্রভাতের প্রণাম লইয়া, উদয়দিগন্ত-পানে মেলিলাম আঁখি, দেখিলাম সদ্যস্নাত উষা আঁকি দিল আলোকচন্দনলেখা, হিমাদ্রির হিমশুভ্র পেলব ললাটে’ নিজের জন্মদিন উপলক্ষে এটা রবীন্দ্রনাথের লেখা কবিতা। 

আজ ২৫শে বৈশাখ, বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ১৫৭তম জন্মজয়ন্তী। এ উপলক্ষে জমকালো আয়োজনের মধ্য দিয়ে নওগাঁর আত্রাই উপজেলার কবিগুরুর স্মৃতি বিজড়িত পতিসরের কাছাড়ি বাড়িতে দিনব্যাপী আয়োজন করা হয়েছে নানা অনুষ্ঠানের। 

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন জাতীয় সংসদের ডেপুটি স্পিকার ফজলে রাব্বী মিয়া এমপি। অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন পাট ও বস্ত্র মন্ত্রী মুহাম্মদ ইমাজ উদ্দিন প্রামাণিক।

আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিশিষ্ট রবীন্দ্র গবেষক আহমেদ রফিক, নওগাঁ সরকারী কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ শরিফুর ইসলাম খান। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জাতীয় সংসদের হুইপ শহীদুজ্জামান সরকার, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মালেক, সাধারণ সম্পাদক সাধান চন্দ্র মজুমদার, ইসরাফিল আলম এমপি, ছলিম উদ্দীন তরফদার এমপি, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এ্যাডভোকেট একেএম ফজলে রাব্বী বকু, পুলিম সুপার ইকবাল হোসেন। 

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন জেলা প্রশাসক মিজানুর রহমান।

এদিকে, রবীন্দ্রনাথের ১৫৭তম জন্মজয়ন্তী পালনের জন্য আগে থেকেই রাঙিয়ে তোলা হয়েছিল কবির আত্রাইয়ের পতিসরের কাছাড়ি বাড়ি। প্রতিবারের মতো এবারও কবিগুরুর নিজস্ব জমিদারি ও তার স্মৃতি বিজড়িত কাছাড়ি বাড়ি প্রাঙ্গণে আয়োজন করা হয়েছে দিনব্যাপী নানা অনুষ্ঠানের।এইবারো এখানে নেমেছে রবীন্দ্রভক্তদের ঢল। পতিসর পরিণত হয়েছে মানুষের মহামিলনমেলায়। 

সরকারিভাবে একদিনের কর্মসূচি নিলেও এই মিলনমেলা চলবে সপ্তাহজুড়ে। দূর-দূরান্ত থেকে কবিভক্তরা ছুটে আসছেন এখানে। একে অপরের সান্নিধ্যে এসে স্মৃতিচারণে মগ্ন হচ্ছেন কবিভক্তরা। 

এবার কবির ৭৬ বছর বয়সের একটি উন্মুক্ত ভাস্কর্য স্থাপন করা হয়েছে পতিসরে। স্থাপন করা হয়েছে রবীন্দ্র সংগ্রহশালা। এই কাছাড়ি বাড়িতে সংরক্ষণ করে রাখা হয়েছে কবির ব্যবহৃত বিভিন্ন আসবাবপত্র।

বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের নওগাঁর আত্রাইয়ের এই পতিসরে এসে তার কাছাড়ি বাড়ির পাশ দিয়ে বয়ে যাওয়া আঁকাবাঁকা নাগর নদকে নিয়ে লিখেছিলেন, ‘আমাদের ছোট নদী চলে বাঁকে বাঁকে, বৈশাখ মাসে তার হাঁটু জল থাকে’। এছাড়াও তার বিখ্যাত কবিতা- তাল গাছ এক পায়ে দাঁড়িয়ে, দুই বিঘা জমি, সন্ধ্যাসহ অসংখ্য সাহিত্যকর্ম রচনা করেছেন এই পতিসরের কাছাড়ি বাড়িতে বসে। 

কবির নিজস্ব জমিদারি নওগাঁর পতিসর যেন পর্যটনের অপার সম্ভাবনার দুয়ার খুলে দিয়েছে। পর্যটন মন্ত্রণালয় তথা সরকার উদ্যোগ গ্রহণ করলে পতিসর হয়ে উঠতে পারে দেশের অন্যতম আকর্ষণীয় পর্যটন কেন্দ্র। 

রানা/অরিন/নিউজ টোয়েন্টিফোর

মন্তব্য