করোনা: যে চারটি আরব দেশে বাতিল হলো ঈদের নামাজ

অনলাইন ডেস্ক

করোনা: যে চারটি আরব দেশে বাতিল হলো ঈদের নামাজ

প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাসের তাণ্ডবে বিপর্যস্ত গোটা বিশ্ব। কোনাভাবেই থামছে না মৃত্যুর মিছিল। সংক্রমণের সংখ্যাও আঁতকে উঠার মতো। বিপর্যস্ত এই পরিস্থিতির মাঝেই দরজায় কড়া নাড়ছে পবিত্র ঈদুল আজহা। আর তাই করোনার বিষয়টি মাথায় রেখে ঈদুল আজহার নামাজ বাতিল ঘোষণা করেছে চার আরব রাষ্ট্র।

রাষ্ট্রগুলে হলো:- মরিতানিয়া, মরোক্কো, ওমান এবং তিউনিসিয়া। বার্তা সংস্থা আনাদোলু এক প্রতিবেদন থেকে এ খবর জানা যায়। 

সংবাদমাধ্যমটি বলছে, সতর্কতামূলক ব্যবস্থা হিসেবে এ সিদ্ধান্ত বলে জানিয়েছে দেশগুলোর সরকার। 

আরও পড়ুনঃ


দ. কোরিয়ার কোন গালিও দেয়া চলবে না উত্তর কোরিয়ায়

তালেবানের হাত থেকে ২৪ জেলা পুনরুদ্ধারের দাবি

কাছাকাছি আসা ঠেকাতে টোকিও অলিম্পিকে বিশেষ ব্যবস্থা

গাবতলী হাটকে ১০ লাখ টাকা জরিমানা, এক ঘণ্টা হাসিল বন্ধ


আগামীকাল মঙ্গলবার (২০ জুলাই) আরব বিশ্বসহ অনেক দেশেই মুসলিমদের অন্যতম বড় ধর্মীয় উৎসব পবিত্র ঈদুল আজহা অনুষ্ঠিত হবে। বাংলাদেশ, পাকিস্তান ও ভারতসহ উপমহাদেশে ঈদ অনুষ্ঠিত হবে পরদিন বুধবার।

news24bd.tv নাজিম

পরবর্তী খবর

গুলি করে ফিলিস্তিনি শিশুর বুক ঝাঁজরা করে দিল ইসরাইলি বাহিনী

অনলাইন ডেস্ক

গুলি করে ফিলিস্তিনি শিশুর বুক ঝাঁজরা করে দিল ইসরাইলি বাহিনী

আবারও বর্বরতার চরম পর্যায়ে ইসরাইলি বাহিনী। ফিলিস্তিনের অধিকৃত পশ্চিমতীরে ১২ বছরের এক ফিলিস্তিনি শিশুকে গুলি করে নির্মমভাবে হত্যা করেছে ইসরাইলি দখলদার বাহিনী।

সংবাদ সংস্থা রয়টার্স ফিলিস্তিনি কর্মকর্তাদের বরাত দিয়ে এ তথ্য জানিয়েছে। সংবাদ মাধ্যমটির খবরে বলা হয়েছে বুধবার গুলির সময় শিশুটি গাড়িতে তার বাবার সঙ্গে ছিল।

পশ্চিমতীরের দক্ষিণে বেইত উম্মার গ্রামের কাছে গাড়িতে থাকা শিশুটিকে গুলি করে বুক ঝাঁজরা করে দেওয়া হয় বলে জানিয়েছে ফিলিস্তিনের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়। কাছের হাসপাতালে নেওয়ার কয়েক ঘণ্টা পর তার মৃত্যু হয়।

ইসরাইলের সামরিক বাহিনী দাবি করেছে - ‘সন্দেহজনক কর্মকাণ্ডে’ জড়িত ওই গাড়ির চাকা লক্ষ্য করে গুলি ছোড়ে তাদের এক সেনাসদস্য। তবে ইসরাইলের এই বক্তব্য প্রত্যাখ্যান করেছে ফিলিস্তিন কর্তৃপক্ষ।

ইসরাইলের সামরিক বাহিনীর বিবৃতিতে বলা হয়েছে - ঘটনাটি খতিয়ে দেখছেন জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তারা।

ইসরাইলের সামরিক বাহিনী জানিয়েছে, ঘটনাস্থলে থাকা সেনারা দেখতে পান একটি গাড়ি ওই এলাকায় প্রবেশ করেছে এবং দুজন গাড়ি থেকে বের হয়ে মাটি খুঁড়ে এরপর আবার গাড়িতে ফিরে যায়। সেনারা ওই স্থানে গিয়ে দুটি ব্যাগ পায়, যার একটিতে এক নবজাতকের মৃতদেহ ছিল।

আরও পড়ুন


কুমিল্লায় বালু বোঝাই ট্রাক্টরে কাভার্ডভ্যানের ধাক্কা, নিহত ৩

কলাপাড়ায় ধারালো অস্ত্র দিয়ে ছাত্রলীগ নেতার কবজি কেটে নিল প্রতিপক্ষ

‘যুক্তরাষ্ট্র পরমাণু সমঝোতাকে পণবন্দি হিসেবে ব্যবহার করছে’

বগুড়ায় একদিনে ১৩০০ পরিবারকে ত্রাণ দিল বসুন্ধরা গ্রুপ


বেইত উম্মারের মেয়র নাসরি সাবারনেহ ফিলিস্তিনের সরকারি সংবাদ সংস্থা ওয়াফাকে জানান, বুধবার সকালের দিকে গ্রামের একটি পরিবার মৃত নবজাতককে ওই এলাকায় দাফন করেছিল। দাফনের ঘণ্টাখানেকের মধ্যেই ইসরাইলি সেনারা সেখানে পৌঁছায় এবং নবজাতকের মৃতদেহ তুলে ফেলে।

তবে ইসরাইলের দাবি - তাদের সেনারা ধারণা করেছিল সকালে যে গাড়িটি দাফনের সময় দেখা গিয়েছিল, বিকালে গুলি করা গাড়িই সেটি। সেনারা প্রথমে নিয়ম অনুসরণ করে চিৎকার করে ও ফাঁকা গুলি ছুড়ে গাড়িটি থামানোর চেষ্টা করে, পরে গাড়ির চাকা লক্ষ্য করে গুলি চালায়।

news24bd.tv এসএম

পরবর্তী খবর

সরকারের সমালোচনা করায় চীনা বিলিয়নারের ১৮ বছরের জেল-জরিমানা

অনলাইন ডেস্ক

সরকারের সমালোচনা করায় চীনা বিলিয়নারের ১৮ বছরের জেল-জরিমানা

বিবাদ ও উত্তেজনা উস্কে দেয়ার অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় চীনে এক বিলিয়নিয়ার ব্যবসায়ীকে ১৮ বছরের কারাবাসের শাস্তি দিয়েছে দেশটির সরকার। সাজাপ্রাপ্ত ব্যবসায়ীর নাম সান দাও (৬৭)। কারাবাসের পাশাপাশি তাকে ৩ দশমিক ১১ ইয়ান অর্থদণ্ড দেয়া হয়েছে বলেও জানিয়েছে ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি।

সরকারের বিরুদ্ধে উস্কানি ছাড়াও তার বিরুদ্ধে অবৈধভাবে জমি দখল, সরকারি স্থাপনায় হামলার জন্য লোক জমায়েত এবং সরকারি কর্মকর্তাদের কাজে বাধা দেয়ার অভিযোগও আনা হয়েছে।

সান দাও চীনের হেবেই প্রদেশের উত্তরাঞ্চলের সবচেয়ে বড় প্রাইভেট এগ্রিকালচারাল ফার্মের মালিক। মাংস প্রক্রিয়াজাতকরণ থেকে শুরু করে দেশব্যাপী পেটফুড সাপ্লাইয়ের ব্যবসা তার।

 ‘অবৈধভাবে তহবিল সংগ্রহের’ অভিযোগে ২০০৩ সালেও তাকে কারাদণ্ড দেয়া হয়। তবে অধিকারকর্মী ও দেশটির জনগণের চাপে ওই মামলা থেকে রেহাই পান তিনি।

চীনের ভিন্নমতাবলম্বী রাজনৈতিক  ব্যক্তিদের সঙ্গে সানের যোগাযোগ রাখার অভিযোগ রয়েছে। অতীতে বিভিন্ন সময়ে তিনি প্রান্তিক পর্যায়ে সরকারের নীতির সমালোচনা করেছেন।

তিনি ২০১৯ সালে আফ্রিকান সোয়াইন ফ্লুর বিস্তারের সরকারের ভূমিকা নিয়ে প্রকাশ্যে চীনা সরকারের সমালোচনাকারীদের মধ্যে একজন। সে সময়ে তার কোম্পানিও ক্ষতিগ্রস্ত হয়। পরে দেশটির অর্থনীতিতে তা ব্যাপক প্রভাব ফেলে।

সরকার পরিচালিত একটি ফার্মের সঙ্গে জমি সংক্রান্ত ঝামেলার জেরে গত বছর সান দাওকে আটক করা হয়। সেসময় তার ২০ আত্মীয় ও ব্যবসায়ী সহযোগীকেও আটক করা হয়। সেসময় সান দাও বলেন, ‘ওই ঘটনায় পুলিশের সঙ্গে ঝামেলায় তার বেশ কয়েকজন কর্মী আহত হন।’


আরও পড়ুন:

চীনে গুদামে অগ্নিকাণ্ডে নিহত ১৪

এনএসও'র দাবি পেগাসাস স্পাইওয়্যার ব্যবহারে বিশ্বের লাখো মানুষ ঘুমাতে পারছে

পিএসজির সঙ্গে চুক্তির মেয়াদ বাড়ল পচেত্তিনোর

হাইতি প্রেসিডেন্টের সৎকার অনুষ্ঠান থেকে পালিয়েছে মার্কিন প্রতিনিধিদল


বলা হয়ে থাকে চীনের ভিন্নমতাবলম্বী রাজনৈতিক ব্যক্তিদের সঙ্গে সানের যোগযোগ রয়েছে। তবে নিজেকে কমিউনিস্ট পার্টির সক্রিয় সদস্য দাবি করা এই ব্যবসায়ী ইতিমধ্যেই তার বেশকিছু ভুলের কথা স্বীকার করেছেন। এরই মধ্যে রয়েছে অনলাইনে বার্তা পাঠিয়ে নিজের ওপর দায় নিয়ে অন্যদের মুক্তি দেয়ার আহ্বান জানিয়েছেন তিনি।

সূত্রঃ বিবিসি

news24bd.tv/ নকিব

পরবর্তী খবর

‘যুক্তরাষ্ট্র পরমাণু সমঝোতাকে পণবন্দি হিসেবে ব্যবহার করছে’

অনলাইন ডেস্ক

‘যুক্তরাষ্ট্র পরমাণু সমঝোতাকে পণবন্দি হিসেবে ব্যবহার করছে’

আইএইএ’তে নিযুক্ত ইরানের স্থায়ী প্রতিনিধি কাজেম গরিবাবাদি অস্ট্রিয়ার রাজধানী ভিয়েনায় পাশ্চাত্যের সঙ্গে ইরানের চলমান পরমাণু সমঝোতা পুনরুজ্জীবনের আলোচনার একাংশ উন্মোচন করেছেন। তিনি বলেছেন, ওয়াশিংটন তেহরানকে ক্ষেপণাস্ত্র কর্মসূচি ও মধ্যপ্রাচ্য বিষয়ক আলোচনায় বসতে বাধ্য করার জন্য পরমাণু সমঝোতাকে পণবন্দি হিসেবে ব্যবহার করছে।

গতকাল বুধবার এক সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, মার্কিনীরা দাবি করছে যে, তারা পরমাণু সমঝোতায় ফিরে আসতে এবং ওই সমঝোতার সঙ্গে সাংঘর্ষিক সব নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করতে প্রস্তুত। কিন্তু ভিয়েনা সংলাপে তাদের শর্ত আরোপের চেষ্টা এর উল্টো চিত্র তুলে ধরছে।

গরিবাবাদি বলেন, ক্ষেপণাস্ত্র কর্মসূচি ও মধ্যপ্রাচ্যে নিজের প্রভাব ইরানের শক্তিমত্তার উপকরণ এবং এই দুই বিষয়ে তেহরান কখনো আলোচনা করবে না।

ইরানের এই কূটনীতিক বলেন, যুক্তরাষ্ট্র এখন পর্যন্ত তার দেশের ওপর থেকে নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করতে এবং সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের মতা পরমাণু সমঝোতা থেকে আবার বেরিয়ে না যাওয়ার গ্যারান্টি দিতে অস্বীকৃতি জানিয়েছে। এছাড়া, এই সমঝোতা নিয়ে চলমান অচলাবস্থার জন্য আমেরিকার বিদ্বেষী ও ধ্বংসাত্মক আচরণই যে দায়ী সেকথা স্বীকার করতেও ওয়াশিংটন রাজি হচ্ছে না।

আরও পড়ুন


বগুড়ায় একদিনে ১৩০০ পরিবারকে ত্রাণ দিল বসুন্ধরা গ্রুপ

আফগানিস্তান পরিস্থিতিকে নাজুক করে দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র: ইমরান খান

করোনায় আক্রান্ত মরিয়ম নওয়াজ

ইরান ও সিরিয়া সন্ত্রাসবাদের মূলোৎপাটন পর্যন্ত লড়বে: আসাদ


ইরানের সর্বোচ্চ নেতা আয়াতুল্লাহিল উজমা খামেনেয়ীর বুধবারের এক ভাষণের পর গরিবাবাদি এসব কথা বললেন।  সর্বোচ্চ নেতা তার ভাষণে বলেন, ভিয়েনায় পরমাণু সমঝোতা পুনরুজ্জীবনের সংলাপ প্রসঙ্গে বলেন, “মার্কিনীরা নির্লজ্জভাবে মিথ্যা বলে ও প্রতিশ্রুতি ভঙ্গ করে।চুক্তি ভঙ্গ করতে তাদের জুড়ি নেই এবং এ কাজ করতে তাদের হাত বিন্দুমাত্র কাঁপে না। কোনো ধরনের লোকলজ্জার ভয় না করেই তারা পরমাণু সমঝোতা থেকে বেরিয়ে গেছে। এবার পরমাণু সমঝোতা পুনরুজ্জীবনের সংলাপে যখন বলা হচ্ছে, ভবিষ্যতে তোমরা আবার যে এ সমঝোতা লঙ্ঘন করবে না তার প্রতিশ্রুতি দাও। কিন্তু তারা সে প্রতিশ্রুতি দিতে পরিষ্কারভাবে অস্বীকার করছে।”

সর্বোচ্চ নেতার এ বক্তব্যে একথার ইঙ্গিত পাওয়া যায় যে, ভিয়েনা সংলাপে অবমাননাকর কোনো শর্ত মেনে পরমাণু সমঝোতা পুনরুজ্জীবিত করতে রাজি হবে না ইরান।

২০১৫ সালে ইরানের সঙ্গে পরমাণু সমঝোতায় সই করে আমেরিকাসহ ছয় বিশ্বশক্তি। কিন্তু ২০১৮ সালে বিনা কারণে সেই সমঝোতা থেকে আমেরিকা বেরিয়ে যায়। এখন তাতে ফিরে আসার জন্য উল্টো নির্লজ্জভাবে ইরানের ওপর শর্ত আরোপের চেষ্টা করছে ওয়াশিংটন। সূত্র: পার্সটুডে।

news24bd.tv এসএম

পরবর্তী খবর

আফগানিস্তান পরিস্থিতিকে নাজুক করে দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র: ইমরান খান

অনলাইন ডেস্ক

আফগানিস্তান পরিস্থিতিকে নাজুক করে দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র: ইমরান খান

আফগানিস্তানের পরিস্থিতি আগে থেকে খারাপ ছিল এবং যুক্তরাষ্ট্র যথাযথ অর্থেই এই পরিস্থিতিকে আরো খারাপ করে রেখে গেছে বলে মন্তব্য করেছেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। গতকাল বুধবার মার্কিন নিউজ চ্যানেল পিবিএস’কে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে এই মন্তব্য করেন।

তিনি বলেন, তালেবানের সঙ্গে তখন আলোচনা করতে হতো যখন আফগানিস্তানে ন্যাটো জোটের দেড় লাখ সেনা মোতায়েন ছিল। ইমরান খান বলেন, এখন যখন ১০ হাজারেরও কম সেনা রয়েছে এবং তাদেরও চলে যাওয়ার তারিখ চূড়ান্ত হয়েছে তখন তালেবানকে রাজনৈতিক সমঝোতায় বাধ্য করা দুরূহ ব্যাপার; কারণ, তালেবান এ যুদ্ধে নিজেদেরকে বিজয়ী ভাবছে।

দুই সপ্তাহ আগে আফগান প্রেসিডেন্ট মোহাম্মাদ আশরাফ গনি অভিযোগ করেছিলেন, সাম্প্রতিক সময়ে পাকিস্তান থেকে প্রায় ১০ হাজার জঙ্গি আফগানিস্তানে প্রবেশ করেছে। এ সংক্রান্ত প্রশ্নের জবাবে ইমরান খান বলেন, পাকিস্তানে প্রায় ৩০ লাখ আফগান নাগরিক বসবাস করে যাদের অনেকেই তালেবানের জাতিগোষ্ঠীর লোক; বিশেষ করে পশতুন জনগোষ্ঠী।আফগানরা পাকিস্তানের যেসব ক্যাম্পে বসবাস করে সেগুলোতে ৫০ হাজার থেকে এক লাখ পর্যন্ত মানুষের বসবাস। পাকিস্তানের পক্ষে কীভাবে তাদের খোঁজখবর রাখা সম্ভব?

আরও পড়ুন


করোনায় আক্রান্ত মরিয়ম নওয়াজ

ইরান ও সিরিয়া সন্ত্রাসবাদের মূলোৎপাটন পর্যন্ত লড়বে: আসাদ

সম্পাদক পরিষদ থেকে পদত্যাগের কারণ জানালেন নঈম নিজাম

জিম্বাবুয়ে সফল মিশন শেষ করে দেশে পৌঁছেছে টাইগাররা


পাক প্রধানমন্ত্রী বলেন, এখন আফগান সংকট সমাধানের একমাত্র উপায়ে দেশটির সরকারের সঙ্গে তালেবানের একটি রাজনৈতিক সমঝোতায় উপনীত হওয়া। তিনি বলেন, আফগানিস্তানে যুদ্ধ চলতে থাকলে পাকিস্তানকে দু’টি বিষয়ের মোকাবিলা করতে হবে। এক, আবার পাকিস্তানে আফগান শরণার্থীদের ঢল নামবে কিন্তু সেরকম পরিস্থিতি সামাল দেয়ার মতো অর্থনৈতিক পরিস্থিতি পাকিস্তানের নেই। দ্বিতীয় বিষয় হচ্ছে, পাকিস্তানে আফগানিস্তানের চেয়ে বেশি পশতুন বসবাস করে। যুদ্ধ চলতে থাকলে পাকিস্তানি পশতুনরা বসে থাকবে না বরং তাদের এ যুদ্ধে জড়িয়ে যাওয়ার জোর সম্ভাবনা রয়েছে।

সাম্প্রতিক সময়ে আফগান সরকার অভিযোগ করছে যে, দেশটির সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে যুদ্ধে তালেবানকে পৃষ্ঠপোষকতা দিচ্ছে পাকিস্তান; কিন্তু এই অভিযোগ কঠোর ভাষায় প্রত্যাখ্যান করেছে ইসলামাবাদ। সূত্র: পার্সটুডে।

news24bd.tv এসএম

পরবর্তী খবর

অ্যান্টনি ব্লিনকেন: আফগানিস্তানে সেনা প্রত্যাহারের পর নৃশংসতা চালাচ্ছে তালেবান

অনলাইন ডেস্ক

অ্যান্টনি ব্লিনকেন: আফগানিস্তানে সেনা প্রত্যাহারের পর নৃশংসতা চালাচ্ছে তালেবান

আফগানিস্তান থেকে বিদেশি সেনা প্রত্যাহার থেকেই সেখানে সাধারণ মানুষকে লক্ষ্য করে নৃশংসতা চালাচ্ছে তালেবান। তালেবান যে কর্মকাণ্ড শুরু করেছে তা খুবই মর্মান্তিক বলে মন্তব্য করেছেন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিনকেন। 

মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী সতর্ক করে বলেন, অব্যাহত নৃশংসতা চালিয়ে গেলে আফগানিস্তান অস্পৃশ্য দেশে পরিণত হবে।

হুঁশিয়ারি দিয়ে তিনি আরও বলেন, তালেবান যোদ্ধারা জোর করে ক্ষমতা দখল করলে তারা কখনোই আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি পাবে না। আফগানিস্তান থেকে সেনা প্রত্যাহারের পর সেখানে নিরাপত্তা ক্রমেই ভেঙে পড়ছে। অনেক সীমান্ত ক্রসিং এবং একের পর এক জেলা তালেবান দখল করে নিচ্ছে। 

আরও পড়ুন:


আজ বিকেলে ঢাকায় আসছে অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট দল

ব্যবসায়িক চুক্তিভঙ্গের অভিযোগে রাজ-শিল্পাকে জরিমানা

টি-স্পোর্টসে আজকের খেলা

পেন্টাগনের তথ্যমতে, আফগানিস্তানের জেলাগুলোর অর্ধেকের বেশিই তালেবানের নিয়ন্ত্রণে চলে গেছে।

এদিকে, চীনে সফরে রয়েছে আফগান তালেবান গোষ্ঠীর ৯ সদস্যের একটি  দল। সেখানে গোষ্ঠীটি জানায়, আফগানিস্তানের মাটি চীনের বিরুদ্ধে ব্যবহার করতে দেওয়া হবে না।

news24bd.tv রিমু  

পরবর্তী খবর