সুস্থের চেয়েও বেশি সংক্রমণ
সুস্থের চেয়েও বেশি সংক্রমণ

সুস্থের চেয়েও বেশি সংক্রমণ

Other

গেল ১০ দিনের করোনা গ্রাফ ঈদের খুশিকে মলিন করতে পারে নিমেষেই। মাত্র দশ দিনে করোনায় আক্রান্ত শনাক্ত হয়েছে ১ লাখের বেশী। আর মৃত্যু পেরিয়ে দুই হাজার। এভাবে রোগী বাড়তে থাকলে হাসপাতাল গুলোর সক্ষমতা বৃদ্ধি করা অসম্ভব হয়ে পড়বে বলছেন জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা।

দেশের জেলা সদর হাসপাতাল গুলোতে কোভিড শয্যা বৃদ্ধির পাশাপাশি জনবল বৃদ্ধির পরামর্শ দিচ্ছে কোভিড ১৯ জাতীয় কমিটি।

রাজধানীর হাসপাতাল গুলোর করোনা ওয়ার্ডের চিত্র দেখলে বোঝার উপায় নেই রাত পোহালেই ঈদ। নগরবাসী যখন নাড়ির টানে বাড়ি ফেরায় ব্যস্ত তখন করোনা ওয়ার্ড গুলোতে হাই ফ্লো নেজাল ক্যানোলা পরাতে হচ্ছে রোগীদের অক্সিজেন স্বল্পতায় ভুগতে থাকা রোগীদের।

এমন বাস্তবতায় ঈদের খুশিতে করোনা ভাইরাস যেন শুধুই দু:খের সংবাদ। গেল ১০ দিনে করোনা সংক্রমিত করেছে দেশের এক লাখের বেশী মানুষকে। যার মধ্যে আছে এ যাবত কালের সর্বোচ্চ সংক্রমণ।

শুধু তা্ই নয় একই সাথে মৃত্যুর গ্রাফটাও উঠতির দিকে। মাত্র ১০ দিনেই মৃত্যু ছাড়িয়েছে ২ হাজার। আর পাওয়া গেছে সর্বোচ্চ মৃত্যুর সংখ্যাও।


আরও পড়ুন

কুঁড়িতেই জীবনের ইতি টানলেন ইসলামী সংগীতশিল্পী মাহফুজুল আলম

আর নেই সড়কে দুর্ভোগ!

না ফেরার দেশে বাংলাদেশের বন্ধু, সাংবাদিক সায়মন ড্রিং

যেভাবে উদ্ধার হলো পরিকল্পনামন্ত্রীর আইফোন


স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের এমআইএস শাখার তথ্য অনুযায়ী দেশে গড়ে প্রতি ১০ লাখে এখন আক্রান্ত হচ্ছেন ৬ হাজারের উপর যার তুলনায় সুস্থতা মাত্র ৫ হাজারের উপরে। তবে চোখ রাঙাচ্ছে গড়ে ১০৭ জনের মৃত্যু। জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা বলছেন, সংক্রমণ কমানো না গেলে পুরোপুরি সক্ষমতা হারাবে হাসপাতাল গুলো।

যে হারে রোগী বৃদ্ধি পাচ্ছে সে হারে হাসপাতাল গুলোর জনবল ও জেলা সদরে শয্যা সংখ্যা বৃদ্ধি করার পরামর্শ দিচ্ছে কোভিড-১৯ জাতীয় কমিটি।

করোনার সংক্রমণের উর্ধ্বমূখী গ্রাফ নামিয়ে আনতে সরকার-জনগন উভয় পক্ষকেই দ্বায়িত্বশীলতার পরিচয় দিতে হবে বলছেন বিশেষজ্ঞরা।

news24bd.tv/এমিজান্নাত