হজে প্রথমবারের মতো নিরাপত্তার দায়িত্বে সৌদি নারী সেনা
হজে প্রথমবারের মতো নিরাপত্তার দায়িত্বে সৌদি নারী সেনা

হজে প্রথমবারের মতো নিরাপত্তার দায়িত্বে সৌদি নারী সেনা

অনলাইন ডেস্ক

সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান। যার হাত ধরে দেশটিতে চলছে সামাজিক ও অর্থনৈতিক সংস্কার কার্যক্রম। এরই মধ্যে ‘ভিশন ২০৩০’ নামের একটি সংস্কার পরিকল্পনা করেছেন তিনি। সেই পরিকল্পনার অংশ হিসেবে সৌদি নারীদের জীবন বদলে দিতে বেশ কিছু সাহসী উদ্যোগ নিয়েছেন সালমান।

অভিভাবক ছাড়া ভ্রমণ করা, একাকী থাকা, গাড়ি চালানো, স্টেডিয়ামে গিয়ে খেলা দেখাসহ আরও কিছু যুগান্তকারী অধিকার পেয়েছেন রক্ষণশীল সৌদি আরবের নারীরা। এবার পবিত্র মক্কা নগরীতে হাজীদের নিরাপত্তায় প্রথমবারের মতো নারী সেনাদের দেখা গেছে। গত এপ্রিল থেকেই সৌদির বেশ কয়েকজন নারী সেনাসদস্য মক্কা ও মদীনায় কাজ করেন।

খাকি রঙের সামরিক পোশাক, লম্বা জ্যাকেট, ঢিলেঢালা ট্রাউজার, মাথায় কালো ক্যাপ আর কালো কাপড়ে মুখ ঢেকে এ গুরু দায়িত্ব পালন করেছেন তারা।

মূলত সংস্কার পরিকল্পনার অংশ হিসেবেই সৌদি সেনাবাহিনীতে নারীদের অংশগ্রহণ নিশ্চিত হয়েছে। পবিত্র হজের সময় হাজিদের নিরাপত্তার দায়িত্বও নারী সেনাদের হাতে দেওয়া হয়েছে।  


পবিত্র মক্কা নগরীতে হাজীদের নিরাপত্তায় প্রথমবারের মতো নারী সেনাদের নিয়োগ দিয়েছে সৌদি আরব। গত এপ্রিল থেকেই সৌদির বেশ কয়েকজন নারী সেনাসদস্য মক্কা ও মদীনায় কাজ করেন।

আরও পড়ুন:


ফরজ গোসল অবহেলার শাস্তি

আমেরিকাকে প্রতিহত করতেই রাশিয়া হাইপারসোনিক ক্ষেপণাস্ত্র নির্মাণ করছে: পেসকভ


এবারের হজের সময় হাজীদের নিরাপত্তার দায়িত্বে পুরুষদের পাশপাশি সৌদি সেনাবাহিনীর নারী সদস্যদেরও দেখা গেছে। এবারই প্রথম হাজিদের নিরাপত্তায় মক্কা ও মদিনায় নারী সেনা নিয়োগ করেছে সৌদি আরব সরকার। গত এপ্রিল থেকে নিরাপত্তা রক্ষার এই কাজ করেছেন নারী সেনারা।

খাকি রঙের সামরিক পোশাক, লম্বা জ্যাকেট, ঢিলেঢালা ট্রাউজার, মাথায় কালো ক্যাপ আর কালো কাপড়ে মুখ ঢেকে এ গুরু দায়িত্ব পালন করেছেন তারা।

news24bd.tv নাজিম