মুনিয়ার মৃত্যুর সঙ্গে সায়েম সোবহান আনভীরের জড়িত থাকার প্রমাণ পায়নি পুলিশ

অনলাইন ডেস্ক

মুনিয়ার মৃত্যুর সঙ্গে সায়েম সোবহান আনভীরের জড়িত থাকার প্রমাণ পায়নি পুলিশ

বহুল আলোচিত মুনিয়ার মৃত্যুর ব্যাপারে চূড়ান্ত প্রতিবেদন দিয়েছে পুলিশ। গুলশান থানা মুনিয়ার আত্মহত্যা প্ররোচনার মামলায় পুলিশ চূড়ান্ত প্রতিবেদন দাখিল করেছে আদালতে। আগামী ২৯ জুলাই এই প্রতিবেদনের ওপর শুনানি অনুষ্ঠিত হবে। পুলিশের রিপোর্টে বলা হয়েছে যে, মুনিয়ার আত্মহত্যার প্ররোচনার জন্য যাকে আসামি অভিযুক্ত করা হয়েছে তিনি আদতেই অভিযুক্ত নন এবং আত্মহত্যার প্ররোচনার কোন ঘটনা ঘটেনি।

গত ২৬ এপ্রিল গুলশানের একটি বাড়িতে মারা যান মুনিয়া। মুনিয়ার মৃত্যুর পরপরই তড়িঘড়ি করে তার বোন নুসরাত তানিয়া আত্মহত্যার প্ররোচনার অভিযোগে একটি মামলা দায়ের করেন গুলশান থানায়। অভিযোগ একজনকেই তিনি অভিযুক্ত করেন। এরপর পুলিশ দীর্ঘ তদন্ত করে। প্রায় তিন মাস তদন্ত করে পুলিশ চূড়ান্ত প্রতিবেদন দাখিল করেছে যে চূড়ান্ত প্রতিবেদনে এই আত্মহত্যা প্ররোচনার জন্য সংশ্লিষ্ট অভিযুক্তর কোন দায় পাওয়া যায়নি।

উল্লেখ্য যে, নুসরাত শুরু থেকেই এই মামলাটি করেছিলেন উদ্দেশ্যমূলকভাবে এবং মামলা করতে গিয়ে তিনি অনেক প্রতারণার আশ্রয় নিয়েছিলেন বলেও অভিযোগ পাওয়া গেছে। বিশেষ করে যে সমস্ত অভিযোগ তিনি দিয়েছিলেন সেই সমস্ত অভিযোগগুলো সবই দুরভিসন্ধিমূলক, প্রতারণামূলক এবং বিশেষ ব্যক্তিকে হেয় প্রতিপন্ন করার জন্যই করেছিলেন বলে পুলিশ তদন্তে বেরিয়ে এসেছে। নুসরাত এই মামলাকে ব্যবহার করে সরকার এবং বিভিন্ন মহলকে চাপে ফেলার কৌশল গ্রহণ করেছিলেন। এই মামলায় তিনি যে সমস্ত তথ্য উপাত্ত দিয়েছিলেন তার অধিকাংশই অসম্পূর্ণ, মিথ্যা।

আইন বিশেষজ্ঞরা বলছেন যে, আত্মহত্যার প্ররোচনা মামলায় সুনির্দিষ্ট তথ্য প্রমাণ থাকতে হয়। এই তথ্য প্রমাণের মধ্যে রয়েছে, যিনি আত্মহত্যা করেছেন তার সঙ্গে সর্বশেষ কার কথোপকথন হয়েছে, তিনি সরাসরি ওই ব্যক্তির কাছে গিয়েছিলেন কিনা। যার বিরুদ্ধে আত্মহত্যার প্ররোচনার অভিযোগে তিনি সরাসরি আত্মহত্যাকারীর সঙ্গে দেখা করেছিলেন কিনা, কথা বলেছিলেন কিনা এবং এমন কোন আলামত যেটি সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণ করে যে আত্মহত্যাকারী ব্যক্তি ওই বিশেষ ব্যক্তির প্ররোচনায় আত্মহত্যা করেছে।

 কিন্তু মুনিয়ার মামলা তদন্ত করতে যেয়ে পুলিশ দেখেছে যে, যার বিরুদ্ধে অভিযোগ উত্থাপন করা হয়েছে তার সঙ্গে মুনিয়ার মাস তিনেক সম্পর্ক ছিলই না। বরং মুনিয়ার বোন মুনিয়াকে বিভিন্নভাবে ব্যবহার করেছিলেন অনৈতিক কর্মকাণ্ডের জন্য এবং সে কারণে মুনিয়ার মধ্যে এক ধরনের হতাশা তৈরি হয়েছিল।

পুলিশের তদন্ত প্রতিবেদন দেখা যাচ্ছে যে, ২৬ এপ্রিল মুনিয়া মারা যাওয়ার পর প্রথম সেখানে আসেন মুনিয়ার বড় বোন নুসরাত তানিয়া। নুসরাত তানিয়াকে মুনিয়াই ডেকে নিয়ে আসেন কিন্তু সেই সময় নুসরাত তানিয়া বার বার বিলম্ব করছিলেন। কেন বিলম্ব করেছিলেন সেটি একটি বড় প্রশ্ন হয়ে উঠেছে। তাছাড়া, নুসরাত তানিয়া যে সমস্ত অভিযোগ করেছেন সে সমস্ত অভিযোগের কোনো সত্যতা পুলিশি তদন্তে পাওয়া যায়নি। একই সাথে মুনিয়ার বোন যে সমস্ত তথ্য উপাত্ত আলামত দিয়েছেন তার অধিকাংশই মিথ্যা, বানোয়াট এবং ভিত্তিহীন হিসেবে প্রমাণিত।

উল্লেখ্য যে, মুনিয়ার আত্মহত্যার ঘটনার পরপরই নুসরাত মাঠে নামেন এবং তিনি বিভিন্ন মহলকে নিয়ে একের পর এক সংবাদ সম্মেলন এবং নানারকম টকশোতে অংশগ্রহণ করে সরকারের বিরুদ্ধে এক ধরনের প্রচারণায় অংশগ্রহণ করেছিলেন। কিন্তু এখন মামলার তদন্ত শেষে দেখা গেল যে, নুসরাত তানিয়া ব্যক্তিগত অভিলাষ চরিতার্থ করার জন্য এবং কাউকে ফাঁসিয়ে নিজে লাভবান হওয়ার জন্য বা ব্ল্যাকমেইলিং-এর জন্যই এ ধরনের মামলা করতে উদ্বুদ্ধ হয়েছিলেন। এখন এই চূড়ান্ত প্রতিবেদনের ওপর শুনানি শেষে এই মামলার ভবিষ্যৎ নিষ্পত্তি হবে।

news24bd.tv/এমিজান্নাত

পরবর্তী খবর

দিল্লির প্রেসক্লাব ব্যবহার করতে পারবেন জাতীয় প্রেসক্লাবের সদস্যরা

অনলাইন ডেস্ক

দিল্লির প্রেসক্লাব ব্যবহার করতে পারবেন জাতীয় প্রেসক্লাবের সদস্যরা

এখন থেকে দিল্লি সফরকালে ‘প্রেস ক্লাব অব ইন্ডিয়া’ ব্যবহার করতে পারবেন জাতীয় প্রেসক্লাবের সদস্যরা। 

সম্প্রতি জাতীয় প্রেসক্লাব সভাপতি ফরিদা ইয়াসমিন দিল্লী সফর করেন। এসময় এব্যাপারে দুই ক্লাবের মধ্যে একটি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হয়। 

এতে করে উভয় ক্লাবের সদস্যরা ঢাকা ও দিল্লি সফরকালে দুই ক্লাবের সুযোগ সুবিধা গ্রহণ করতে পারবেন। 

আরও পড়ুন:


টাকার মান এখন পাকিস্তানি রুপির দ্বিগুণ

সিলেটে বাসার ছাদ থেকে আপন দুই বোনের মরদেহ উদ্ধার

ক্ষমতায় থাকছেন ট্রুডো, তবে গঠন করতে হবে সংখ্যালঘু সরকার


আজ ফরিদা ইয়াসমিন জাতীয় প্রেসক্লাবের ব্যবস্থাপনা কমিটির সভায় সমঝোতা স্মারকপত্রটি ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ইলিয়াস খানের কাছে হস্তান্তর করেন। 

এসময় ব্যবস্থাপনা কমিটির পক্ষ থেকে ফরিদা ইয়াসমিনকে ধন্যবাদ জানানো হয়।

news24bd.tv নাজিম

পরবর্তী খবর

শনাক্তের হার ৫ শতাংশের নিচে

অনলাইন ডেস্ক

শনাক্তের হার ৫ শতাংশের নিচে

মহামারী করোনা ভাইরাসে দেশে গেলো ২৪ ঘণ্টায় আরও ২৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে মোট মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২৭ হাজার ২৭৭ জনে। আর এরই মধ্যে দিয়ে দীর্ঘ দিন পর করোনা শনাক্তের হার পাঁচ শতাংশের নিচে নেমেছে।

একই সময়ে নতুন করে করোনা শনাক্ত হয়েছে ১ হাজার ৫৬২ জনের। এতে মোট শনাক্ত রোগীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৫ লাখ ৪৫ হাজার ৮০০ জনে। 

আজ বিকেলে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, সোমবার সকাল ৮টা থেকে পরবর্তী ২৪ ঘণ্টায় র‍্যাপিড অ্যান্টিজেন ও আরটি-পিসিআর পদ্ধতিতে ৩৩ হাজার ৩২৭টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়। পরীক্ষা বিবেচনায় শনাক্তের হার ৫ দশমিক ৬৭।

গতকালও দেশে করোনা আক্রান্ত হয়ে ২৬ জন মারা গিয়েছিল। তবে, শনাক্তের হার ছিল ৫ দশমিক ৬৭ শতাংশ।

আজ বিজ্ঞপ্তিতে আরও জানানো হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় মারা যাওয়া ২৬ জনের মধ্যে ১৬ জন পুরুষ ও ১০ জন নারী।

আরও পড়ুন:


টাকার মান এখন পাকিস্তানি রুপির দ্বিগুণ

সিলেটে বাসার ছাদ থেকে আপন দুই বোনের মরদেহ উদ্ধার

ক্ষমতায় থাকছেন ট্রুডো, তবে গঠন করতে হবে সংখ্যালঘু সরকার


এই সময়ে সর্বোচ্চ ১৫ জনের মৃত্যু হয়েছে ঢাকা বিভাগে। এ ছাড়া, চট্টগ্রাম ও রাজশাহী বিভাগে ৩ জন করে, খুলনা ও সিলেট বিভাগে ২ জন করে এবং ময়মনসিংহ বিভাগে ১ জন মারা গেছেন।

২৪ ঘণ্টায় দেশে সুস্থ হয়েছেন ১ হাজার ৬০৩ জন। মোট সুস্থ হয়েছেন ১৫ লাখ ৪ হাজার ৭০৯ জন।

বিজ্ঞপ্তির তথ্য অনুযায়ী, দেশে এখন পর্যন্ত মোট পরীক্ষা বিবেচনায় শনাক্তের হার ১৬ দশমিক ২৭ শতাংশ। মোট শনাক্ত বিবেচনায় সুস্থতার হার ৯৭ দশমিক ৩৪ শতাংশ ও মৃত্যুর হার ১ দশমিক ৭৬ শতাংশ।

# করোনায় দেশে আরও ২৬ জনের মৃত্যু

২৪ ঘণ্টায় বাড়লো শনাক্ত

news24bd.tv নাজিম

পরবর্তী খবর

সঞ্চয়পত্রে মুনাফার হার কমলো

অনলাইন ডেস্ক

সঞ্চয়পত্রে মুনাফার হার কমলো

সঞ্চয়পত্রে মুনাফার হার কমিয়ে দিয়েছে সরকার। যার যত বেশি বিনিয়োগ, সঞ্চয়পত্রে তার মুনাফার হার হবে তত কম। তবে ১৫ লাখ টাকার কম বিনিয়োগের মুনাফা একই থাকছে।

আজ মঙ্গলবার অর্থ মন্ত্রণালয়ের অভ্যন্তরীণ সম্পদ বিভাগ এ নিয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করেছে।

প্রজ্ঞাপনে উল্লেখ রয়েছে, যারা নতুন করে সঞ্চয়পত্র কিনবেন, শুধু তাদের জন্য পরিবর্তিত এই হার কার্যকর হবে। আগের কেনা সঞ্চয়পত্রের মেয়াদ শেষ হওয়ার পর সেটি পুনঃবিনিয়োগ করলে তখন নতুন মুনাফার হার কার্যকর হবে। ব্যক্তি ও প্রাতিষ্ঠানিক উভয়ের জন্য নতুন এই মুনাফার হার প্রযোজ্য হবে।

পাঁচ বছর মেয়াদি বাংলাদেশ সঞ্চয়পত্রে বর্তমানে মেয়াদ শেষে ১১ দশমিক ২৮ শতাংশ মুনাফা পাওয়া যায়। নতুন নিয়মে যাদের এই সঞ্চয়পত্রে ১৫ লাখ টাকার বেশি বিনিয়োগ রয়েছে তারা মেয়াদ শেষে মুনাফা পাবেন ১০ দশমিক ৩০ শতাংশ হারে। আর ৩০ লাখ টাকার বেশি বিনিয়োগ থাকলে মুনাফার হার হবে সাড়ে ৯ শতাংশ।

অবসরভোগীদের জন্য নির্ধারিত পাঁচ বছর মেয়াদি পেনশনার সঞ্চয়পত্রে মেয়াদ শেষে এত দিন ১১ দশমিক ৭৬ শতাংশ হারে মুনাফা পাওয়া যেত। এখন এই সঞ্চয়পত্রে যাদের বিনিয়োগ ১৫ লাখ টাকার বেশি তারা মেয়াদ শেষে মুনাফা পাবেন ১০ দশমিক ৭৫ শতাংশ হারে। আর ৩০ লাখ টাকার বেশি বিনিয়োগ থাকলে এই হার হবে ৯ দশমিক ৭৫ শতাংশ।

দেশে পাঁচ বছর মেয়াদি পরিবার সঞ্চয়পত্রে মেয়াদ শেষে মুনাফার হার ১১ দশমিক ৫২ শতাংশ। এখন এই সঞ্চয়পত্রে ১৫ লাখ টাকার বেশি বিনিয়োগে মুনাফার হার কমিয়ে করা হয়েছে সাড়ে ১০ শতাংশ। আর ৩০ লাখ টাকার বেশি বিনিয়োগের ক্ষেত্রে এই হার সাড়ে ৯ শতাংশ।

তবে ডাকঘর সঞ্চয় ব্যাংকের সাধারণ হিসাবে বর্তমানে মুনাফার সাড়ে ৭ শতাংশ।

ডাকঘর সঞ্চয় ব্যাংকে তিন বছর মেয়াদি হিসাবে বর্তমানে মুনাফার হার ১১ দশমিক ২৮ শতাংশ। এখন ১৫ লাখ টাকার বেশি বিনিয়োগে মুনাফার হার হবে ১০ দশমিক ৩০ শতাংশ। আর ৩০ লাখ টাকার বেশি বিনিয়োগে হবে ৯ দশমিক ৩০ শতাংশ।


আরও পড়ুন

পুলিশের পোশাকে টিকটক ভিডিও শেয়ারে নিষেধাজ্ঞা

সুদানে ষড়যন্ত্রকারীদের শনাক্ত করা হয়নি

বঙ্গবন্ধুর নামে জাতিসংঘের বাগানে বেঞ্চ উৎসর্গ


news24bd.tv/এমি-জান্নাত   

পরবর্তী খবর

পুলিশের পোশাকে টিকটক ভিডিও শেয়ারে নিষেধাজ্ঞা

অনলাইন ডেস্ক

পুলিশের পোশাকে টিকটক ভিডিও শেয়ারে নিষেধাজ্ঞা

টিকটক-লাইকির ভিডিও শেয়ারে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে পুলিশ সদরদপ্তর। বাংলাদেশ পুলিশের পোশাকে এগুলো শেয়ার করা যাবে না। পুলিশের বিভিন্ন ইউনিটে এ নির্দেশনা পাঠিয়েছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি)।

আজ মঙ্গলবার বিষয়টি সংশ্লিষ্ট সূত্র নিশ্চিত করেছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক শর্তে ডিএমপির অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (এডিসি) বলেন, বিভিন্ন সময়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পুলিশের পোশাক পরিধান করে ভিডিও শেয়ার করা হয়েছে। এই বিষয়ে ডিএমপির একটি আলোচনা সভা হয়েছে। সভায আলোচনার বিষয়গুলোর মধ্যে কিছু সিদ্ধান্ত নির্দেশনা আকারে আমাদের কাছে পাঠানো হয়েছে।


আরও পড়ুন

সুদানে ষড়যন্ত্রকারীদের শনাক্ত করা হয়নি

বঙ্গবন্ধুর নামে জাতিসংঘের বাগানে বেঞ্চ উৎসর্গ


নির্দেশনায় প্রতিটি ফোর্সের ইনচার্জদের সহকর্মীদের সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম ব্যবহারের বিষয়টি পর্যবেক্ষণ করতে বলা হয়েছে।

news24bd.tv/এমি-জান্নাত   

পরবর্তী খবর

২৪ ঘণ্টায় বাড়লো শনাক্ত

অনলাইন ডেস্ক

২৪ ঘণ্টায় বাড়লো শনাক্ত

মহামারী করোনা ভাইরাসে গেলো ২৪ ঘণ্টায় শনাক্ত হয়েছে ১ হাজার ৫৬২ জন। গতকাল যা ছিলো ১ হাজার ৫৫৫ জনে।

একই সময়ে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ২৬ জন।

আজ বিকেলে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে পাঠানো করোনাবিষয়ক নিয়মিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

বিস্তারিত আসছে... 

news24bd.tv নাজিম

পরবর্তী খবর