বাস কন্ডাক্টরের ছেলে থেকে কোটিপতি শিল্পার স্বামী

অনলাইন ডেস্ক

বাস কন্ডাক্টরের ছেলে থেকে কোটিপতি শিল্পার স্বামী

বলিউডের টক অব দ্য টাউন এখন শিল্পা শেঠি ও তার স্বামী রাজ কুন্দ্রা। পর্ন ভিডিও বানানো এবং তা প্রচারের অভিযোগে রাজকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। আদালতের নির্দেশে তিনি রয়েছেন কারাগারে। অন্যদিকে শিল্পাও এই কর্মকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত আছেন বলে শোনা যাচ্ছে।

এমনই সময়ে একটি ভারতীয় গণমাধ্যমে প্রকাশিত হয়েছে রাজ-শিল্পার সম্পদের চিত্র। সেখানে বলা হয়েছে, রাজ কুন্দ্রা প্রায় ৪ হাজার কোটি রুপির মালিক! আর শিল্পা শেঠির নিজ নামেও রয়েছে অঢেল সম্পদ।

এদিকে এমন খবরে শিল্পার স্বামীর ইতিহাস জানতে অনেকেই উঠেপড়ে লেগেছেন। 

নেহায়েত দরিদ্র পরিবারের সন্তান রাজ কুন্দ্রা। এক সময় তার বাবা বালকৃষ্ণ ব্রিটেনে ছোটখাটো একজন বাস কন্ডাক্টর হিসেবে কাজ করতেন। যা বেতন পেতেন তা দিয়েই চলতো সংসার। অর্থাভাবে রাজ কুন্দ্রা তার কলেজের পড়াশোনা শেষ করতে পারেননি। আর সেই ব্যক্তি ২০০৪ সালে সাকসেস ম্যাগাজিনে এশিয়ান বংশোদ্ভূত ধনী ব্যক্তিদের তালিকায় ১৯৮তম স্থানে উঠে আসেন। 

মাত্র ২৯ বছর বয়সে এই তালিকায় উঠে আসা সর্বকনিষ্ঠ ব্যক্তি ছিলেন রাজ কুন্দ্রা।

মাত্র দেড় লাখ রুপি মূলধন দিয়ে ব্যবসা শুরু করেন রাজ। নেপালের পশমিনা শালই তার ভাগ্যের চাকা দ্রুত গতিতে ঘুরিয়ে দেয়। ১৯৯৪ সালে নেপাল ভ্রমণে যান রাজ। সেখান থেকে পশমিনা শাল নিয়ে ব্রিটেনে ফিরে আসেন। বড় বড় সব ব্রিটিশ ফ্যাশন হাউজগুলোতে শালগুলো দেখান। এরপর শুরু হয় ব্যবসা। কন্টেইনার ভর্তি করে পশমিনা শাল ব্রিটেনে নিয়ে দেদারসে বিক্রি করতে থাকেন। প্রথম বছরেই ২০ মিলিয়ন পাউন্ড লাভ করেছিলেন রাজ। এরপর আর পেছনে ফিরে তাকাতে হয়নি তাকে।

সামান্য বাস কন্ডাক্টরের ছেলে বিত্তশালী হয়ে ওঠেন দ্রুতই। শাল আমদানির ব্যবসা যখন তাকে একটি অবস্থানে এনে দেয় তখন হীরার ব্যবসায় হাত দেন। সেখানেও সফল হন। এরপর একে একে রাশিয়া, ইউক্রেন এবং সংযুক্ত আরব আমিরাতের মতো দেশগুলোর সঙ্গে খনিজ, রিয়েল এস্টেট এবং নবায়নযোগ্য জ্বালানির ব্যবসায় জড়িত হন রাজ। 

তবে ভারতীয় পুলিশের চোখে গত কয়েক বছর ধরেই রাজ অপরাধীর দৃষ্টিতে ছিলেন।

আরও পড়ুন:

রাস্তায় ফেলে চলে যাওয়া চামড়াগুলোতে পচন ধরে দুর্গন্ধ ছড়াচ্ছে

করোনায় প্রাণ গেলো একজন ভাষা সৈনিকের


 

সম্প্রতি এক মডেল-অভিনেত্রীর অভিযোগের ক্লু ধরে কেঁচো খুড়তে সাপ বেরিয়ে আসে। পর্নোভিত্তিক চলচ্চিত্র তৈরির মূল হোতা হিসেবে মুখোশ উন্মোচন হয়েছে শিল্পা শেঠির স্বামী রাজ কুন্দ্রার। 

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

বিকৃত যৌনাচারে ব্যবহৃত হত 'বিশেষ' খাট!

অনলাইন ডেস্ক

বিকৃত যৌনাচারে ব্যবহৃত হত 'বিশেষ' খাট!

রাজ মাল্টিমিডিয়া প্রোডাকশন হাউসের একটি কক্ষে সমন্বিত যৌনাচারে ব্যবহার্য বিভিন্ন সরঞ্জাম দেখে অভিযান পরিচালনাকারী কর্মকর্তারাও তাজ্জব বনে গেছেন। এসব বিষয়ে নজরুল রাজকে জেরা করা হয়েছে। 

এর আগে রাজ মাল্টিমিডিয়ার স্বত্বাধিকারী নজরুল ইসলাম রাজ ওরফে নজরুল রাজের বাসায় থেকে বিপুল পরিমাণ বিদেশি ব্র্যান্ডের দামি মদ, তিন প্যাকেট ইয়াবা, সিসা, সিসা সেবনের সামগ্রী, বেল্ট, দড়ি, ডাণ্ডা, মাদক সেবনের জন্য ব্যবহৃত বিশেষ কম্বলসহ বিভিন্ন সামগ্রী উদ্ধার করা হয়। 

ধারণা করা হচ্ছে, তিনি বাসাকে টর্চার সেল বানিয়েছিলেন। যার জন্য বেল্ট, দড়ি ও ডাণ্ডা মজুদ রেখেছেন।

অভিযানে অংশ নেওয়া একাধিক কর্মকর্তা জানান, বিকৃত যৌনাচারে অভ্যস্ত ছিলেন নজরুল রাজ। তার বাসা থেকে একাধিক নারী-পুরুষ একসঙ্গে যৌনাচারের জন্য ব্যবহৃত এবং বিশেষ কৌশলে তৈরি করা খাট পাওয়া গেছে। 

সংশ্লিষ্টরা ধারণা করছেন, তিনি বিশেষ উদ্দেশ্যে পর্নো ভিডিও তৈরি অথবা ব্ল্যাকমেইলিংয়ের কাজে এসব ব্যবহার করতেন।

গতকাল রাত সাড়ে ৮টার দিকে রাজধানীর বনানী থানার ৭ নম্বর সড়কের ৪১ নম্বর বাসায় অভিযান শুরু করে র‌্যাব। রাত সাড়ে ১০ টায় রাজকে একটি গাড়িতে তুলে র‌্যাব সদর দফতরে নেওয়া হয়। নজরুল রাজ প্রযোজক ও অভিনেতা।

সম্প্রতি কয়েকজন আলোচিত মডেল ফারিয়া মাহবুব পিয়াসা, মৌ ও নায়িকা পরীমণি গ্রেফতার হওয়ার পর তাদের জিজ্ঞাসাবাদে নজরুল রাজের নাম আসে। এ ছাড়া বহুল আলোচিত মিশু হাসানও নজরুল রাজ সম্পর্কে র‌্যাবের জিজ্ঞাসাবাদে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য দিয়েছে। 

রাজের বিরুদ্ধে বিভিন্ন অনৈতিক কর্মকাণ্ড পরিচালনা, মাদক ব্যবসা নিয়ন্ত্রণসহ নানা অভিযোগও রয়েছে। তিনি পরীমণি ও পিয়াসাকে মডেলিং জগতে নিয়ে আসেন। তাদের দিয়ে তদবির বাণিজ্যসহ বিভিন্ন কাজ হাসিল করতেন বলে অভিযান পরিচালনাকারী একাধিক দায়িত্বশীল কর্মকর্তা নিশ্চিত করেছেন।  

আরও পড়ুন:


পাবনায় মেডিকেল ছাত্রীকে খালি সিরিঞ্জ পুশের অভিযোগ

হলি আর্টিজানের ঘটনায় সিনেমা, জাহান কাপুরের অভিষেক

দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টিতেও অস্ট্রেলিয়াকে হারালো টাইগাররা

রাজের বাসায় বিকৃত যৌনাচারের সরঞ্জামাদি,চলত পর্নোগ্রাফি (ভিডিও)


news24bd.tv / কামরুল 

পরবর্তী খবর

টাকার জন্য ব্ল্যাকমেইলিং ও পর্নোগ্রাফি জগতে প্রবেশ করে পরীমণি

অনলাইন ডেস্ক

টাকার জন্য ব্ল্যাকমেইলিং ও পর্নোগ্রাফি জগতে প্রবেশ করে পরীমণি

র‍্যাবের হাতে আটক চিত্রনায়িকা পরীমণি ব্ল্যাকমেইলিং ও মাদক ব্যবসার পাশাপাশি নিষিদ্ধ পর্নো ব্যবসায়ও জড়িয়েছেন। মূলত টাকার নেশায় সিনেমা জগতের আড়ালে নিষিদ্ধ পর্নো ব্যবসায় যোগ দেন আলোচিত এই অভিনেত্রী।
 
জানা গেছে, পরীমণি ছাড়াও বেশ কয়েকজন মডেল-অভিনেত্রীর বিরুদ্ধে নিষিদ্ধ পর্নোগ্রাফির অভিযোগ পাওয়া গেছে।

আরও পড়ুন


সিনেমায় আসার আগে রাজ-পরীমণি একসঙ্গে থাকতেন

৫ আগস্ট: ইতিহাসে আজকের এই দিনে

টি-স্পোর্টসে আজকের খেলা

মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রীর পদত্যাগে অস্বীকৃতি

এদিকে, কয়েকটি ব্যাংকে পরীমণির মোটা অঙ্কের টাকা রয়েছে। যার বেশিরভাগই তিনি পেয়েছেন শুভাকাঙ্ক্ষীদের সঙ্গে ঘনিষ্ঠতার সুবাদে। পরী তার ঘনিষ্ঠ মডেলদের মাধ্যমে একটি চক্র গড়ে তোলেন। উঠতি মডেল এবং চিত্রনায়িকাদের পর্নোছবি তুলে পাঠানো হতো কথিত হাই-প্রোফাইলদের কাছে। তার মাধ্যমে অনেকে ব্ল্যাকমেইলিংয়েরও শিকার হয়েছেন।

news24bd.tv রিমু 

পরবর্তী খবর

বেরিয়ে আসছে পরীমনির অন্ধকার জগতের চাঞ্চল্যকর তথ্য

অনলাইন ডেস্ক

বেরিয়ে আসছে পরীমনির অন্ধকার জগতের চাঞ্চল্যকর তথ্য

র‍্যাবের হাতে গ্রেপ্তার হওয়ার পর থেকেই বেরিয়ে আসছে পরীমনির অন্ধকার জগতের চাঞ্চল্যকর তথ্য। বুধবার রাতে বনানীর বাসা থেকে অভিনেত্রীকে গ্রেফতার করা হয়।

এ সময় তার বাসা থেকে বিপুল মাদক উদ্ধার করা হয়। সূত্র বলছে, সিনেমা শুটিংয়ের আড়ালে পরীমনি মূলত প্রভাবশালীদের ঘনিষ্ঠ হতেই বেশি পছন্দ করতেন। রাজধানীর পাঁচতারকা হোটেলে তাকে লাস্যময়ী ভঙ্গিতে দেখা যায়। প্রায় প্রতিদিনই গভীর রাত পর্যন্ত পার্টি শেষে মদ্যপ অবস্থায় বের হতেন তিনি।

এছাড়া তার ফ্ল্যাটে বিদেশি সিগারেট ও মদের বিশাল সংগ্রহ রয়েছে। বলা যায় ছোটখাটো বার। তার ফ্ল্যাট থেকে রাশিয়ান ভদকা, জিন, টাকিলা, হুইস্কি ও বহু মূল্যবান রেড ওয়াইন উদ্ধার করা হয়েছে। 

সূত্র বলছে, কয়েকটি ব্যাংকে পরীর মোটা অঙ্কের টাকা রয়েছে। যার বেশিরভাগই তিনি পেয়েছেন শুভাকাঙ্ক্ষীদের সঙ্গে ঘনিষ্ঠতার সুবাদে। টাকার নেশা তাকে ছাড়ে না। একপর্যায়ে নাম লেখান পর্নোগ্রাফির নিষিদ্ধ জগতে।

এজন্য পরী তার ঘনিষ্ঠ মডেলদের মাধ্যমে একটি চক্র গড়ে তোলেন। উঠতি মডেল এবং চিত্রনায়িকাদের পর্নোছবি তুলে পাঠানো হতো কথিত হাই-প্রোফাইলদের কাছে। তার মাধ্যমে অনেকে ব্ল্যাকমেইলিংয়ের শিকার হন।

পরীর ঘনিষ্ঠদের তালিকায় আছেন- পুলিশ কর্মকর্তা, ব্যবসায়ী, আমলা, রাজনীতিবিদসহ অনেক প্রভাবশালীর নাম। এদের কেউ কেউ দেশের বাইরে পরীর সঙ্গে ঘুরতে যান। একটি বেসরকারি ব্যাংকের চেয়ারম্যান তাকে হ্যারিয়ার গাড়ি উপহার দেন। চেয়ারম্যানকে নজরদারিতে রাখা হয়েছে। এছাড়া পরীর বেশ কয়েকটি ব্যাংক হিসাব জব্দ করা হয়েছে।

আরও পড়ুনঃ

অসংখ্য তরুণীর পর্নো ভিডিও পরীর গডফাদার রাজের মোবাইলে

দক্ষিণ চীন সাগরে বেশ কয়েকটি যুদ্ধজাহাজ মোতায়েন করেছে ভারত

পর্নোগ্রাফি: আঁচল-নায়লা নাঈম ও শিলাসহ অনেকেই র‍্যাবের নজরদারিতে


সূত্রে আরও জানা গেছে, পরীমনিকে গ্ল্যামার জগতে নিয়ে আসেন রাজ মাল্টিমিডিয়ার কর্ণধার কথিত চলচ্চিত্র প্রযোজক নজরুল ইসলাম রাজ। সিনেমায় নাম লেখানোর আগে দীর্ঘদিন তার কাছেই থাকতেন পরী।

র‌্যাব বলছে, পরীমনি ছাড়াও ঢাকার শোবিজ জগতের ডজনখানেক মডেল-অভিনেত্রী নিষিদ্ধ পর্নো ব্যবসায় জড়িত।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে র‌্যাবের গোয়েন্দা শাখার পরিচালক লে. কর্নেল খায়রুল ইসলাম বলেন, পরীমনি ছাড়াও বেশ কয়েকজন মডেল-অভিনেত্রীর বিরুদ্ধে নিষিদ্ধ পর্নোগ্রাফির অভিযোগ পাওয়া গেছে।

news24bd.tv/ নকিব

পরবর্তী খবর

পর্নোগ্রাফি: আঁচল-নায়লা নাঈম ও শিলাসহ অনেকেই র‍্যাবের নজরদারিতে

অনলাইন ডেস্ক

পর্নোগ্রাফি: আঁচল-নায়লা নাঈম ও শিলাসহ অনেকেই র‍্যাবের নজরদারিতে

পর্নোগ্রাফি ও মাদক সংশ্লিষ্টতার অভিযোগে একের পর এক র‍্যাবের হাতে আটক হচ্ছেন বিনোদন জগতের মডেল ও অভিনেত্রীরা। গতকাল বুধবার এই তালিকায় যুক্ত হল ঢাকাই চলচ্চিত্রের আলোচিত নায়িকা ও কথিত প্রযোজক নজরুল ইসলাম রাজ।

এদিকে বিনোদন জগতের আরও অনেক মডেল-অভিনেত্রীর ওপর র‍্যাবের বিশেষ নজরদারি রয়েছে বলে জানা গেছে। সেই তালিকায় আছেন চিত্রনায়িকা আঁচল আঁখি, শিরিন শিলা, মডেল অহনা, মৃদুলা ও বিতর্কিত মডেল নায়লা নাঈমসহ অনেকে।

গুঞ্জন আছে, ক্যাসিনো কাণ্ডে গ্রেপ্তার হওয়া বহিস্কৃত যুবলীগ নেতা আরমানের বান্ধবী ছিলেন চিত্রনায়িকা শিরিন শিলা। এরপর আরেক নেতা সম্রাটের সঙ্গেও নাকি তার সখ্যতা গড়ে ওঠে। এমনকি সিঙ্গাপুর থেকে মূল্যবান গহনা এনেও শিলাকে দিয়েছিলেন।

র‍্যাবের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, সন্দেহজনক এসব মডেল-নায়িকা কড়া নজরদারিতে রয়েছেন। যেকোনো সময় তাদেরকে গ্রেপ্তার করা হতে পারে।

আরও পড়ুন


অসংখ্য তরুণীর পর্নো ভিডিও পরীর গডফাদার রাজের মোবাইলে

দক্ষিণ চীন সাগরে বেশ কয়েকটি যুদ্ধজাহাজ মোতায়েন করেছে ভারত

আজ খোলা থাকছে ব্যাংক

৫ আগস্ট: ইতিহাসে আজকের এই দিনে


এদিকে শুধু নায়িকা বা নারী মডেল নন, কয়েকজন কথিত নায়কও আছেন সন্দেহভাজনের তালিকায়। তার মধ্যে একজনের নাম হাসান। যিনি বছর দশেক আগেই সিনেমা থেকে দূরে সরে গেছেন। তবে গত কয়েক বছর ধরে অবৈধ পর্নগ্রাফির মাধ্যমে বিলাসবহুল জীবনযাপন করছেন।

এ প্রসঙ্গে র‍্যাবের গোয়েন্দা শাখার পরিচালক লে. কর্নেল খায়রুল ইসলাম বলেছেন, ‘পরীমণি ছাড়াও বেশ কয়েকজন মডেল-অভিনেত্রীর বিরুদ্ধে নিষিদ্ধ পর্নোগ্রাফির অভিযোগ পাওয়া গেছে।’

news24bd.tv এসএম

পরবর্তী খবর

অসংখ্য তরুণীর পর্নো ভিডিও পরীর গডফাদার রাজের মোবাইলে

অনলাইন ডেস্ক

অসংখ্য তরুণীর পর্নো ভিডিও পরীর গডফাদার রাজের মোবাইলে

কথিত চলচ্চিত্র প্রযোজক ও অভিনেতা নজরুল ওরফে রাজের বিরুদ্ধে তরুণীদের পর্নো ভিডিও রাখার অভিযোগ উঠেছে। রাজ পরীমণি ও পিয়াসার গডফাদার হিসেবেই পরিচিত। গ্রেপ্তারের পর রাজের মোবাইল ফোনে অসংখ্য তরুণীর পর্নো ভিডিও পাওয়া গেছে।

র‍্যাব বলছে, একেক সময় একেক পরিচয়ে চলাফেরা করেন পরীমণির গডফাদার হিসাবে পরিচিত নজরুল রাজ। কখনও চিত্রপরিচালক, কখনও ব্যবসায়ী আবার কখনও রাজনীতিবিদ। প্রতারণার মাধ্যমে তিনি অঢেল টাকার মালিক বনে গেছেন।

পরীকে গ্ল্যামার জগতে নিয়ে আসেন কথিত সিনে প্রযোজক নজরুল ওরফে রাজ নামের এক ব্যবসায়ী। সিনেমায় নাম লেখানোর আগে দীর্ঘদিন তার কাছেই থাকতেন পরী। আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় আসার পর নজরুল নিজের জেলার পরিচয়ে বেপরোয়া হয়ে ওঠেন।

নিজের জেলায় একাধিক ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানও গড়ে তুলেছেন। শহরের নতুন রেলস্টেশনের পাশে তার ৫ তলা আবাসিক হোটেলের নির্মাণ কাজ চলছে। এছাড়া ঠিকাদারি ব্যবসা রয়েছে তার।

নজরুল তার প্রতারণা ও পর্নো ব্যবসায় দুই তরুণীকে ব্যবহার করে আসছেন। এদের একজনের ডাক নাম সেমি এবং অপরজন কাঁকন। দুজনই তার সার্বক্ষণিক সঙ্গী। এ দুই তরুণীকে দিয়ে তিনি ব্ল্যাকমেইলিংয়ের কাজ করতেন।

আরও পড়ুন


দক্ষিণ চীন সাগরে বেশ কয়েকটি যুদ্ধজাহাজ মোতায়েন করেছে ভারত

আজ খোলা থাকছে ব্যাংক

৫ আগস্ট: ইতিহাসে আজকের এই দিনে

টি-স্পোর্টসে আজকের খেলা


পাশ্চাত্য পোশাকে অভ্যস্ত সেমি এবং কাঁকনকে নিয়ে হাজির হতেন সরকারি কর্মকর্তাদের ফ্ল্যাটে অথবা বাসায়। একপর্যায়ে অনেকেই তাদের প্রেমে পড়ে যেতেন। যে কোনো মূল্যে তাদের সান্নিধ্য পেতে চাইতেন।

এমন দুর্বলতার সুযোগ কাজে লাগিয়ে সরকারি কাজ বা তদবিরের টোপ ফেলতেন নজরুল। কোটি টাকা ঘুসের চেয়ে দ্রুততার সঙ্গে তার কাজ হয়ে যেত। এছাড়া এ দুই তরুণীকে ব্যবহার করে তিনি ক্যাসিনো সম্রাট ইসমাইল চৌধুরীর কাছাকাছি পৌঁছে যান।

ঠিকাদারি কাজের ডন হিসাবে পরিচিত জিকে শামীমের সঙ্গেও তার সখ্য গড়ে ওঠে। সম্প্রতি তিনি জিকে শামীমকে কারাগারে বিশেষ সুবিধা পাইয়ে দিতে তদবির করছিলেন। শামীমের বোন সুবর্ণা মোস্তাফার সঙ্গে তিনি প্রতি সপ্তাহে নানা বিষয়ে শলা-পরামর্শ করেন।

news24bd.tv এসএম

পরবর্তী খবর