জিন্স পরায় কিশোরীকে পিটিয়ে মারলো দাদা ও কাকা!

অনলাইন ডেস্ক

জিন্স পরায় কিশোরীকে পিটিয়ে মারলো দাদা ও কাকা!

ফাইল ছবি

'ছেঁড়া জিন্সের' পোশাক ভারতে একই সঙ্গে নৈতিক স্খলনের কারণ এবং লক্ষণ। ছেলে-মেয়েদের, বিশেষ করে মেয়েদের এরকম পোশাক পরতে দেয়ার জন্য তিনি বাবা-মা‌'দের সমালোচনা  করেন ভারতের উত্তরাখণ্ড রাজ্যের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী  তীরাথ সিং রাওয়াত। এদিকে জিন্স ভারতে বরাবরই পুরুষতন্ত্রের ঝাল ঝাড়ার লক্ষ্যবস্তু। এটিকে ভারতের পিতৃতান্ত্রিক সমাজের অধিপতিরা প্রায় নিয়মিতই তরুণদের নৈতিক অবক্ষয়ের কারণ হিসেবে দায়ী করেন। আর তাইতো এবার জিন্স পরার অপরাধে নিজেরই নাতনিকে পিটিয়ে মেরেছেন এক দাদা। আর অপরাধ ঢাকতে মরদেহ ফেলা দেয়া হয় পানিতে। কিন্তুএত কিছু করেও  শেষরক্ষা হয়নি। শেষ পর্যন্ত জেলে যেতেই হলো।

এমনই অমানবিক ঘটনা ঘটেছে ভারতের উত্তরপ্রদেশে। 

১৭ বছরের ওই কিশোরী তার বাবার সঙ্গে লুধিয়ানায় থাকতো। কিন্তু সম্প্রতি সে গ্রামের বাড়িতে থাকতে এসেছিল। তার শহুরে পোশাক পছন্দ ছিল না বাড়ির লোকজনের। জিন্স, টপ, ট্রাউজারেই অভ্যস্ত কিশোরীকে তার কাকা ও দাদা কথায় কথায় পোশাক নিয়ে ধমকাতো।এই ধরনের পোশাক সে যেন আর না পরে, এমনই হুমকি দেয়া হচ্ছিল। 

স্থানীয় বাসিন্দাদের দাবি, কোনও হুমকিকেই পাত্তা দিতো না ওই কিশোরী। সে নিজের মতোই থাকতো। এই সপ্তাহের শুরুতেও তীব্র কথা কাটাকাটি হয়। তারপরও জিন্সেই পরছিল ওই কিশোরী। বৃহস্পতিবারও তাই করে। আর তাতেই যেন আগুনে ঘি পড়ে।

এরপর তাদের কথা অমান্য করে জিন্স পরায় মেয়েটিকে বেধড়ক মারতে থাকে তার দাদা ও কাকা। কিছুক্ষণের মধ্যেই অচেতন হয়ে লুটিয়ে পড়ে মেয়েটি। অবস্থা বেগতিক দেখে দ্রুত তাকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে আত্মীয়রা। কিন্তু পথেই মারা যায় ওই কিশোরী।

কিশোরীর মৃত্যুতে এরপর ভয় পেয়ে যায় অভিযুক্তরা। নিজেদের অপরাধ ঢাকতে কাছের এক সেতু থেকে ছুড়ে ফেলে দেয়া হয় মৃতদেহটি। কিন্তু দেহটি নিচে না পড়ে মাঝপথে ঝুলতে থাকে। খবর পেয়ে দ্রুত ঘটনাস্থলে হাজির হয় পুলিশ। এরপর কিশোরীর দেহ ময়নাতদন্তের জন্য পাঠানো হয়।

খবর পেতেই কিশোরীর মামা থানায় অভিযোগ দায়ের করেন। ইতোমধ্যেই পুলিশ কিশোরীর দাদা এবং এক অটো চালককে গ্রেপ্তার করেছে। 

আরও পড়ুনঃ


দ. কোরিয়ার কোন গালিও দেয়া চলবে না উত্তর কোরিয়ায়

তালেবানের হাত থেকে ২৪ জেলা পুনরুদ্ধারের দাবি

কাছাকাছি আসা ঠেকাতে টোকিও অলিম্পিকে বিশেষ ব্যবস্থা


 

প্রঙ্গগত, ভারতের গ্রামে-গঞ্জে পোশাক পরা নিয়ে, বিশেষ করে মেয়েদের বেলায় নানা বিধিনিষেধের কথা প্রায়শই শোনা যায়। ভারতীয় সমাজে এখনো পুরুষশাসিত। কিছুদিন আগে  উত্তর প্রদেশ রাজ্যের একটি গ্রামের পরিষদ বলেছে, মেয়েরা জিন্স বা স্কার্ট এবং ছেলেরা শর্টস পরলে তাদের সামাজিকভাবে বয়কট করা হবে।

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

যুবতীকে ধর্ষণ শেষে গাড়ি থেকে ফেলে দেয় উবার চালক!

অনলাইন ডেস্ক

যুবতীকে ধর্ষণ শেষে গাড়ি থেকে ফেলে দেয় উবার চালক!

এক নারী তার বন্ধুর বাড়ি থেকে নিজের বাড়ি ফিরছিলেন ভোর রাতে। কিন্তু এত রাতে বাড়ি ফেরার সময়ে ওই নারী যাত্রীকে একা পেয়ে গাড়ির ভেতরেই ধর্ষণের অভিযোগ এক উবার চালকের বিরুদ্ধে।

অভিযোগের সূত্রে জানা যায়, এইচএসআর লেআউট থেকে মুরুগেশ পাল্যা ফেরার জন্য উবার ভাড়া করেছিলেন তিনি। গন্তব্যে পৌঁছনোর আগে গাড়ির দরজা বন্ধ করে দিয়ে তার ওপর অত্যাচার চালায় উবার চালক। পরে তাকে গাড়ি থেকে ফেলে দেওয়া হয়।

অভিযুক্ত চালককে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। এমন খবর দিয়েছে আনন্দবাজার পত্রিকা।

আরও পড়ুন:

অবশেষে ব্রিটেনের লাল তালিকা থেকে বাদ পড়ছে বাংলাদেশ

বেড়াতে গিয়ে অতিরিক্ত মদ পানে দুই ছাত্রলীগ কর্মীর মৃত্যু

আর কোনো তত্ত্বাবধায়ক সরকার হবে না, জানালেন কৃষিমন্ত্রী

ইভ্যালির সঙ্গে আর সম্পর্ক নেই তাহসানের


 

বেঙ্গালুরুর অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার মুরুগান গণমাধ্যমকে বলেছেন, নির্যাতিত ওই নারীর বাড়ি ঝাড়খণ্ডে। বেশ কয়েক বছর ধরেই বেঙ্গালুরুতে বসবাসের পাশাপাশি সেখানকার একটি বেসরকারি সংস্থায় চাকরি করেন তিনি। অভিযুক্ত উবার চালকের বাড়ি দেশটির দক্ষিণাঞ্চলীয় রাজ্য অন্ধ্রপ্রদেশে। গত দু’বছর ধরে তিনি বেঙ্গালুরু শহরে উবার চালক হিসেবে কাজ করছিলেন।

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

সংসার ভাঙার খুশিতে ডিভোর্স পার্টি!

অনলাইন ডেস্ক

সংসার ভাঙার খুশিতে ডিভোর্স পার্টি!

অদ্ভুত এই বিশ্বের নানা প্রান্তে প্রতিদিন কতই না বিচিত্র সব ঘটনা ঘটে। এমনই এক বিচিত্র ঘটনা হলো ডিভোর্সের খুশিতে পার্টির আয়োজন। যুক্তরাষ্ট্রের এক নারী বিয়ে থেকে মুক্তি পাওয়ার খুশিতে ডিভোর্স পার্টি দিয়েছেন। আর এতেই তিনি ইতি টেনেছেন ১৭ বছর পর বিবাহিত জীবনের।

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম মিরর বলছে, যুক্তরাষ্ট্রের বাসিন্দা সোনিয়া গুপ্ত নামে ৪৫ বছর বয়সী ওই নারী নিজের বিবাহিত জীবনের আনুষ্ঠানিক সমাপ্তি উপলক্ষে ডিভোর্স পার্টিতে মজেছেন। সেখানে আমন্ত্রণ জানিয়েছেন পরিবারের সদস্য ও বন্ধুদের।

এক ছবিতে দেখা যায় দুই সন্তানের জননী ওই নারী ঝলমলে রঙিন পোশাকের ওপর লিখেছেন ’ফাইনালি ডিভোর্স।’পার্টিতে আগত অতিথিদের ঝলমলে ও উজ্জ্বল পোশাক পরে আসতে বলেছেন সোনিয়া।

তিনি নিজেকে একজন খোলামনের মানুষ হিসেবে অভিহিত করেছেন। কিন্তু তার স্বামী ছিলেন পুরোপুরি তার বিপরীত।

২০০৩ সালে ভারতে বিয়ে হয় সোনিয়ায়। বিয়ের পরই তিনি অনুধাবন করেন, তার বিবাহিত জীবন সুখের নয়। এরপর বহু বছর ধরে বিয়ে টিকিয়ে রাখার চেষ্টা করেন তিনি। অবশেষে তিনি চূড়ান্ত বিচ্ছেদের পথেই হেঁটেছেন। শুধু ডিভোর্স দিয়েই থামেননি তিনি। তাইতো খুশিতে দিয়েছেন ডিভোর্স পার্টি।

পরবর্তী খবর

বিশ্বে প্রতি বছর শুধু বায়ুদূষণেই অকাল মৃত্যু হচ্ছে ৭০ লাখ মানুষের

আসমা তুলি

বিশ্বে প্রতি বছর শুধু বায়ুদূষণেই ৭০ লাখ মানুষের অকালমৃত্যু হচ্ছে। ১৬ বছর পর বুধবার এয়ার কোয়ালিটি গাইডলাইনস –একিউজিএস প্রকাশ করে এই তথ্য জানিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। সেইসঙ্গে সব দেশের প্রতি একিউজিএসের নির্দেশিকা মানার আহ্বান জানিয়েছেন সংস্থার মহাপরিচালক টেড্রস আধানম গেব্রিয়েসাস।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা-সবশেষ একিউজিএস প্রকাশ করে ২০০৫ সালে। এরপর ১৬ বছর ধরে সংগ্রহ করা তথ্য–উপাত্ত পর্যালোচনা বলছে, অবিলম্বে বায়ুদূষণ প্রতিরোধে কার্যকর পদক্ষেপ নেয়া জরুরি। এ সংকট নিরসনে বিশ্বজুড়ে বায়ুর মান উন্নত করতে এয়ার কোয়ালিটি গাইডলাইনস -একিউজিএস জোরদারেরও বিকল্প নেই।

বায়ুর মানের নতুন গাইডলাইন বায়ুদূষণের ক্ষতিকর প্রভাব থেকে লাখো মানুষকে সুরক্ষা দেবে। একই সঙ্গে এটি বিভিন্ন দেশকে বায়ুদূষণের বিরুদ্ধে লড়তে মানবিষয়ক আইনি সীমা নির্ধারণে সহায়ক হবে।

তবে ডব্লিউএইচও প্রধান বলেন, গাইডলাইনগুলো কোনো নির্দিষ্ট দেশ কিংবা অঞ্চলভেদে নয়, পুরোবিশ্বের জন্য প্রযোজ্য। সতর্ক করেন, বিশ্বজুড়ে বায়ুর মানের সব সূচক এখন নিম্নমুখী। জনস্বাস্থ্যে এর বিরূপ প্রভাব পড়ছে। এমনকি অস্বাস্থ্যকর খাবার ও ধূমপানের চেয়েও বায়ুদূষণ বেশি স্বাস্থ্যগত ঝুঁকি তৈরি করেছে।

এসব তথ্য ও নির্দেশিকা চলতি বছরের নভেম্বরে অনুষ্ঠেয় জাতিসংঘের জলবায়ু পরিবর্তন সম্মেলন কপ-২৬ সামিটেও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে বলে মনে করছে সংস্থাটি।

NEWS24.TV / কামরুল

পরবর্তী খবর

বছরে বায়ুদূষণেই অকালমৃত্যু হচ্ছে ৭০ লাখ মানুষের

আসমা তুলি, ডেস্ক রিপোর্ট

বিশ্বে প্রতি বছর শুধু বায়ুদূষণেই ৭০ লাখ মানুষের অকালমৃত্যু হচ্ছে। ১৬ বছর পর বুধবার এয়ার কোয়ালিটি গাইডলাইনস –একিউজিএস প্রকাশ করে এই তথ্য জানিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। সেইসঙ্গে সব দেশের প্রতি একিউজিএসের নির্দেশিকা মানার আহ্বান জানিয়েছেন সংস্থার মহাপরিচালক টেড্রস আধানম গেব্রিয়েসাস। 

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা-সবশেষ একিউজিএস প্রকাশ করে ২০০৫ সালে। এরপর ১৬ বছর ধরে সংগ্রহ করা তথ্য–উপাত্ত পর্যালোচনা বলছে, অবিলম্বে বায়ুদূষণ প্রতিরোধে কার্যকর পদক্ষেপ নেয়া জরুরি। এ সংকট নিরসনে বিশ্বজুড়ে বায়ুর মান উন্নত করতে এয়ার কোয়ালিটি গাইডলাইনস -একিউজিএস জোরদারেরও বিকল্প নেই।

বায়ুর মানের নতুন গাইডলাইন বায়ুদূষণের ক্ষতিকর প্রভাব থেকে লাখো মানুষকে সুরক্ষা দেবে। একই সঙ্গে এটি বিভিন্ন দেশকে বায়ুদূষণের বিরুদ্ধে লড়তে মানবিষয়ক আইনি সীমা নির্ধারণে সহায়ক হবে।

আরও পড়ুন:

অবশেষে ব্রিটেনের লাল তালিকা থেকে বাদ পড়ছে বাংলাদেশ

বেড়াতে গিয়ে অতিরিক্ত মদ পানে দুই ছাত্রলীগ কর্মীর মৃত্যু

আর কোনো তত্ত্বাবধায়ক সরকার হবে না, জানালেন কৃষিমন্ত্রী

ইভ্যালির সঙ্গে আর সম্পর্ক নেই তাহসানের


 

তবে ডব্লিউএইচও প্রধান বলেন, গাইডলাইনগুলো কোনো নির্দিষ্ট দেশ কিংবা অঞ্চলভেদে নয়, পুরোবিশ্বের জন্য প্রযোজ্য। সতর্ক করেন, বিশ্বজুড়ে বায়ুর মানের সব সূচক এখন নিম্নমুখী। জনস্বাস্থ্যে এর বিরূপ প্রভাব পড়ছে। এমনকি অস্বাস্থ্যকর খাবার ও ধূমপানের চেয়েও বায়ুদূষণ বেশি স্বাস্থ্যগত ঝুঁকি তৈরি করেছে।

এসব তথ্য ও নির্দেশিকা চলতি বছরের নভেম্বরে অনুষ্ঠেয় জাতিসংঘের জলবায়ু পরিবর্তন সম্মেলন কপ-২৬ সামিটেও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে বলে মনে করছে সংস্থাটি।

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

ভেসে আসা তিমির ওজন ৩০ কেজি, দৈর্ঘ ৪০ ফুট

অনলাইন ডেস্ক

ভেসে আসা তিমির ওজন ৩০ কেজি, দৈর্ঘ ৪০ ফুট

৪০ ফুট দীর্ঘ এবং ৩০ হাজার কেজি ওজনের বিশালাকার তিমি ভেসে এসেছে ভারতের মুম্বাইয়ের সাগরপাড়ে। এব বড় প্রাণী দেখতে সৈকতে জড়ো হয়েছেন স্থানীয়রা।

আনন্দবাজার পত্রিকার প্রকাশিত হয়েছে এ খবর।

বলা হয়েছে, ভারতের মহারাষ্ট্রের ভাসাই এলাকার সমুদ্র সৈকতে ভেসে এসেছে এই বিশাল তিমি। দেখতে ভিড় জমিয়েছিলেন সাধারণ মানুষ।

বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছিলেন, এটি সম্ভবত আরব সাগরের। সম্ভবত আগস্টের মাঝামাঝি এটির মৃত্যু হয়।

আরও পড়ুন: 


চাকরিচ্যুত সংবাদিকদের কাজে ফিরিয়ে নিতে আহ্বান তথ্যমন্ত্রীর

কুয়াকাটা সৈকতে ভেসে এল মৃত ডলফিন

জাফরুল্লাহ এরশাদের দোসর: রিজভী

গুলশান লেকে নৌকাডুবি, যাত্রীরা সাঁতরে উঠে গেল পাড়ে


স্থানীয়রা জানায়, তিমির দেহ কিছুক্ষণ সাগর পাড়ে থাকার পড়েই তা পচতে শুরু করে। তৈরি হয় তীব্র দুর্গন্ধ।

ভারতের প্রশাসনিক কর্মকর্তারা জানান, আকারে বড় তিমিটি কোথাও নিয়ে যাওয়ায় প্রায় অসম্ভব। সে কারণে সৈকতেই পুঁতে দেওয়া হয়। ২৪ ঘণ্টার চেষ্টায় ৫ ফুট গভীর, ৪০ ফুট দীর্ঘ গর্ত খোঁড়া হয়। সেখানেই সমাধি হয় তিমির।

news24bd.tv তৌহিদ

পরবর্তী খবর