ফকির আলমগীরের মৃত্যুতে কানাডায় শোকের ছায়া

লায়লা নুসরাত, কানাডা

ফকির আলমগীরের মৃত্যুতে কানাডায় শোকের ছায়া

একুশে পদকপ্রাপ্ত জনপ্রিয় গণসংগীতশিল্পী ফকির আলমগীরের মৃত্যুতে পুরো কানাডায় শোকের ছায়া নেমে আসে।

তাঁর মৃত্যুর খবর বিভিন্ন গনমাধ্যম ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ার সাথে সাথে বিভিন্ন ব্যক্তি, বুদ্ধিজীবী সাংবাদিক, সাহিত্যিক, সামাজিক, রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন গভীর ভাবে শোক প্রকাশ করেছেন।

শোক প্রকাশ করতে যেয়ে কানাডার "নতুন দেশ" পত্রিকার প্রধান সম্পাদক ও সাংবাদিক শওগাত আলী সাগর বলেন--তার মৃত্যু বাঙালি জাতির জীবনে এক অপূরণীয় ক্ষতি। তাঁর কর্মের মাধ্যমে তিনি বেঁচে থাকবেন আমাদের হৃদয়ে। মরহুমের শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করছি।

কানাডার "প্রবাস বাংলা ভয়েস" এর প্রধান সম্পাদক আহসান রাজীব বুলবুল বলেন- প্রথিতযশা এই শিল্পীর মৃত্যু আমাদের জন্য অপূরণীয় ক্ষতি। গণজাগরণ আর গানের মাধ্যমে জাগরিত করা জাতির আলো যেন ধীরে ধীরে নিভে যাচ্ছে। মরহুমের শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করছি।

বাংলাদেশ কানাডা অ্যাসোসিয়েশন অফ ক্যালগেরির সভাপতি মোঃ রশিদ রিপন বলেন--আমরা এক গুণী ব্যক্তিত্ব ও অভিভাবককে হারালাম। তাঁর কর্মের মাধ্যমে তিনি বেঁচে থাকবেন আমাদের মাঝে। মরহুমের শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করছি।

বাংলাদেশ কানাডা অ্যাসোসিয়েশন অফ ক্যালগেরির সহ-সভাপতি মোঃ কাদির বলেন--এ এক অপূরণীয় ক্ষতি। সংগীতে ও বাংলাদেশের জন্য তার অবদান জাতি সারা জীবন মনে রাখবে। মরহুমের শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করছি।

বিশিষ্ট কমিউনিটি ব্যক্তিত্ব প্রকৌশলী ও রিয়েল এস্টেট ব্যবসায়ী আবদুল্লা রফিক বলেন-স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্র ও স্বাধীনতা যুদ্ধে তাঁর অবদানের জন্য তিনি জাতির কাছে চিরদিন স্মরণীয় হয়ে থাকবেন। মরহুমের বিদেহী আত্মার শান্তি কামনা করছি।

সিলেট এসোসিয়েশন অফ ক্যালগেরির সভাপতি রূপক দত্ত বলেন--তার মূতুতে দেশের সংস্কৃতি অঙ্গনের এক নক্ষত্রের পতন হলো। তার বিদেহী আত্মার শান্তি কামনা করছি।

কমিউনিটি ব্যক্তিত্ব ও রিয়েল এস্টেট ব্যবসায়ী কিরন বনিক শংকর বলেন-- ঋষিজ শিল্পীগোষ্ঠীর প্রতিষ্ঠাতা , জনপ্রিয় গনসংগীতশিল্রী ফকির আলমগীর আমার মাঝে আর নেই বিশ্বাস করতে পারছি না। বাংলাদেশের প্রতিটি গনতান্ত্রিক আন্দোলনে তার ভূমিকা আর তার অনবদ্য সকল গানের মাধ্যমে ফকির আলমগীর আমাদের মধ্যে চিরস্মরণীয় হয়ে থাকবেন। আমাদের সাংস্কৃতিক অঙ্গনে এটি একটি অপূরনীয় ক্ষতি। তার বিদেহী আত্মার শান্তি কামনা করছি আর শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জানাচ্ছি।

কমিউনিটি ব্যক্তিত্ব ও বিশিষ্ট সঙ্গীত শিল্পী সোহাগ হাসান বলেন--স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্র ও গণ জাগরণের পথিকৃৎ ফকির আলমগীর এর মৃত্যু সঙ্গীত অঙ্গনের অপূরণীয় ক্ষতি। শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা ও কালজয়ী এই শিল্পীর বিদেহী আত্মার শান্তি কামনা করছি।


আরও পড়ুন:

পিএসজির সঙ্গে চুক্তির মেয়াদ বাড়ল পচেত্তিনোর

মুখ্যমন্ত্রীকে গরুর মাংস উপহারের ইচ্ছা পোষণ, নারী গ্রেপ্তার

হাইতি প্রেসিডেন্টের সৎকার অনুষ্ঠান থেকে পালিয়েছে মার্কিন প্রতিনিধিদল

মাছের ড্রামে যারা ঢাকা যাচ্ছে, তাদের নিয়ে ট্রল করাটা ঠিক হচ্ছে না


বিশিষ্ট কলামিস্ট উন্নয়ন গবেষক ও সমাজতাত্ত্বিক বিশ্লেষক মোঃ মাহমুদ হাসান বলেন-- একটি নক্ষত্রের বিদায়। স্বাধীনতা থেকে প্রতিটি অধিকার আদায়ের আন্দোলন সংগ্রামে গনজাগরণ সৃষ্টিতে অসামান্য অবদানের মাধ্যমে তিনি আজীবন জাতির হ্রদয়ে বেঁচে থাকবেন। আমি তার বিদেহী আত্মার শান্তি কামনা করছি, সাথে সাথে প্রার্থনা করি পরম করুণাময় যেন তাঁর পরিবারকে সেই শোক কাটিয়ে উঠার শক্তি দান করেন।

এছাড়াও কানাডায় ফকির আলমগীরের মূতু্তে বিভিন্ন সংগঠন শোক প্রকাশ করেছেন ও তাঁর শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন।

news24bd.tv/ নকিব

পরবর্তী খবর

বাংলাদেশে আরও বিনিয়োগে আগ্রহী সৌদি

অনলাইন ডেস্ক

বাংলাদেশে আরও বিনিয়োগে আগ্রহী সৌদি

সৌদি বিনিয়োগমন্ত্রী বাংলাদেশে আরও বেশি সৌদি বিনিয়োগের সম্ভাবনা আছে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন। ১৯ সেপ্টেম্বর সৌদি বিনিয়োগমন্ত্রী খালিদ আল ফালিহ সৌদি সফররত প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগবিষয়ক উপদেষ্টা সালমান এফ রহমানের সঙ্গে বৈঠককালে এ আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

বৈঠকে সালমান এফ রহমান বিদেশি বিনিয়োগ আকর্ষণে বর্তমান সরকারের গৃহীত পদক্ষেপসমূহ বর্ণনা করেন। পাশাপাশি সৌদি বিনিয়োগকারীদের জন্য প্রধানমন্ত্রীর প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী একটি বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল নির্ধারণ করার প্রস্তাব দেন।

সৌদি বিনিয়োগমন্ত্রী বাংলাদেশের এ প্রস্তাবকে স্বাগত জানান। প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা সরকারি-বেসরকারি অংশীদারিত্ব ব্যবস্থায় সৌদি বিনিয়োগের সুযোগ সৃষ্টির লক্ষ্যে খসড়া সমঝোতা স্মারকটি চূড়ান্ত করার জন্য অনুরোধ করেন।

উপদেষ্টা আরও বলেন, সমঝোতা স্মারকটি স্বাক্ষরিত হলে বাংলাদেশের অবকাঠামোসহ বিভিন্ন খাতে সৌদি বিনিয়োগের সুযোগ প্রসারিত হবে।

এ সময় সৌদি বিনিয়োগমন্ত্রী জানান, সমঝোতা স্মারকটি চূড়ান্ত পর্যায়ে রয়েছে এবং তা দ্রুত স্বাক্ষর হবে বলে তিনি প্রত্যাশা করেন।

আলোচনাকালে সৌদি মন্ত্রী বিশেষায়িত অর্থনৈতিক অঞ্চল খাতভিত্তিক বিনিয়োগ বিষয়ে সহযোগিতা চুক্তি বা সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরের ওপর গুরুত্বারোপ করেন।

রও পড়ুন:

ধীর জীবন মানেই অলস জীবন নয়

একটি হটডগ আয়ু কমাতে পারে ৩৬ মিনিট পর্যন্ত!

ইভ্যালি ধরলেও সমস্যা, ছাড়লেও সমস্যা! কোথায় যাবেন ফারিয়া?

তৃতীয় স্বামীর কাছে শুধু বিচ্ছেদই নয়, খরচও চাইলেন শ্রাবন্তী


 

উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান দুই দেশের ব্যবসায়ীদের মধ্যে প্রতিনিধিদল বিনিময়ের গুরুত্ব তুলে ধরে সৌদি বিনিয়োগমন্ত্রীকে আগামী নভেম্বরের ২৮ ও ২৯ তারিখে বাংলাদেশে অনুষ্ঠিতব্য আন্তর্জাতিক বিনিয়োগ শীর্ষ সম্মেলনে যোগদানের অনুরোধ জানালে মন্ত্রী খালিদ আল ফালিহ তা সাদরে গ্রহণ করেন।

সালমান এফ রহমানের সভাগুলোতে সৌদি আরবে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত ড. মোহাম্মদ জাবেদ পাটোয়ারী বিপিএম (বার) উপস্থিত ছিলেন।এ ছাড়া বাংলাদেশের প্রতিনিধিদলের সদস্য বাংলাদেশ বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের নির্বাহী চেয়ারম্যান মো. সিরাজুল ইসলাম, বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষের নির্বাহী চেয়ারম্যান শেখ ইউসুফ হারুন ও বাংলাদেশ সরকারি-বেসরকারি অংশীদারিত্ব কর্তৃপক্ষের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সচিব) সুলতানা আফরোজসহ অন্যান্য কর্মকর্তা উপস্থিত ছিলেন।

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

পরীক্ষা ছাড়াই বাংলাদেশীদের ড্রাইভিং লাইসেন্স দেবে মালদ্বীপ

মো: এমরান হোসেন তালুকদার, মালদ্বীপ

পরীক্ষা ছাড়াই বাংলাদেশীদের ড্রাইভিং লাইসেন্স দেবে মালদ্বীপ

প্রবাসী বাংলাদেশীদের মধ্যে যাদের বাংলাদেশের  বৈধ লাইসেন্স আছে,  ড্রাইভিং টেস্ট পরীক্ষা ছাড়াই  মালদ্বীপে একটি স্থায়ী ড্রাইভিং লাইসেন্স ইস্যু করার অনুমতি দিয়েছে,  মালদ্বীপের পরিবহন মন্ত্রণালয়। এমন সুযোগ আগে বাংলাদেশের নাগরিকদের ছিলো না, এই দেশের পরিবহন মন্ত্রণালয়ের জুলাই মাসের প্রকাশিত তালিকায় ও বাংলাদেশের নাগরিকদের নাম ছিলোনা, জুলাই মাসে  ২৫টি  দেশের নাম  ছিলো। সেপ্টেম্বর মাসে ২৬তম নামের তালিকায় বাংলাদেশের নাম যুক্ত হয়েছে।

বাংলাদেশের নাম যুক্ত হওয়ার পিছনে বর্তমান দূতাবাসের রাষ্ট্রদূত রিয়ার এডমিরাল মোহাম্মদ নাজমুল  হাসান এর  অগ্রণী ভূমিকা আছে বলে মনে করেন সাধারণ প্রবাসীরা । মালদ্বীপের পরিবহন মন্ত্রণালয়ের আগের  আইন অনুযায়ী বাংলাদেশের নাগরিকদের ড্রাইভিং লাইসেন্স সংগ্রহ করতে একটি ড্রাইভিং স্কুলে ভর্তি হয়ে টেস্টের মাধ্যমে ড্রাইভিং লাইসেন্স সংগ্রহ করতে হতো,  যা অনেক ব্যয়বহুল ছিলো প্রবাসী বাংলাদেশী দের জন্য।

রও পড়ুন:

ধীর জীবন মানেই অলস জীবন নয়

একটি হটডগ আয়ু কমাতে পারে ৩৬ মিনিট পর্যন্ত!

ইভ্যালি ধরলেও সমস্যা, ছাড়লেও সমস্যা! কোথায় যাবেন ফারিয়া?

তৃতীয় স্বামীর কাছে শুধু বিচ্ছেদই নয়, খরচও চাইলেন শ্রাবন্তী


পরিবহন মন্ত্রণালয় আইন অনুযায়ী লাইসেন্সের আবেদন করার সময় – মালদ্বীভিয়ান দের জন্য  ন্যাশনাল  আইডি কার্ড এর কপি, ও একটি পাসপোর্টের কপি জমা দিতে হবে । বিদেশিদের ক্ষেত্রে বৈধ  ভিসার কপি, পাসপোর্টের কপি এবং আবেদনকারীর নীজ দেশের বৈধ  লাইসেন্সের  কপি জমা দিতে হবে – জমা দেওয়া লাইসেন্স কপি সহ অন্যান্য কাগজপত্রের অবশ্যই মেয়াদ থাকতে হবে। এই লাইসেন্সের বৈধতা অনলাইনের যাচাই বাছাই করা হবে। যদি বিদেশীদের  লাইসেন্স অনলাইনে যাচাই করা না যায় – তাহলে নিজদেশের দূতাবাস থেকে একটি যাচাইকরণ নথি সংগ্রহ করতে হবে।

news24bd.tv/ নকিব

পরবর্তী খবর

রোমে বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্টের উদ্বোধন

ইতালি প্রতিনিধি:

রোমে বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্টের উদ্বোধন

বাংলাদেশ ক্রীড়া সংস্থা ইতালির আয়োজনে এবং বাংলাদেশ দূতাবাস রোমের সার্বিক সহযোগিতায় মুজিব বর্ষ উপলক্ষে বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট ২০২১ বর্ণাঢ্য উদ্বোধন করা হয়েছে।

রোমের একটি  মাঠে এই টুর্নামেন্টের উদ্বোধন করা হয়। জাতীয় ক্রীড়া সংস্থা ইতালির সভাপতি হাজী জসিম উদ্দিনের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রশিদের পরিচালনায় প্রধান অতিথি ছিলেন ইতালিতে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মো. শামীম আহসান।

আরও পড়ুন:


কনক সারোয়ারের সাথে বিএনপি নেতার কথোপকথন (অডিও) ফাঁস!

বিয়ের দিন সকালেই ধর্ষণের শিকার তরুণী, রাতে ভেঙে গেল বিয়ে!

সোমবার যে আমলটি করলে মনের আশা পূরণ হবে!

ট্রফি জয়ের ঘোষণা দিয়ে বিশ্বকাপে যাব: তামিম


বিশেষ অতিথি ছিলেন ইতালি আওয়ামী লীগের সভাপতি হাজী মো. ইদ্রিস ফরাজী, সাধারণ সম্পাদক হাসান ইকবাল। 

এ সময় বক্তব্য রাখেন ক্রীড়া সংস্থার পরিচালক সাজ্জাদুল কবির, সিনিয়র সহ সভাপতি আবু তাহের সহ রোমের রাজনৈতিক ও সামাজিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ। 

মোট ১০টি দল অংশগ্রহণ করেন। রাষ্ট্রদূত প্রধান অতিথির বক্তব্যে বলেন, খেলাধুলা সহ প্রবাসীদের সকল ভাল কাজের সাথে দূতাবাস বীগতদিনে সম্পৃক্ত ছিল আগামীতেও থাকবে। 

NEWS24.TV / কামরুল

পরবর্তী খবর

শুরু হচ্ছে টরন্টো ৪র্থ মাল্টিকালচারাল ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল

লায়লা নুসরাত, কানাডা

শুরু হচ্ছে টরন্টো ৪র্থ মাল্টিকালচারাল ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল

কানাডায় বসবাসরত বাংলাদেশি চলচ্চিত্রসেবীদের সংগঠন টরন্টো ফিল্ম ফোরাম আয়োজিত ৪র্থ মাল্টিকালচারাল ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল, টরন্টো-২০২১ আগামী ২৩ সেপ্টেম্বর শুরু হচ্ছে । করোনাপরিস্থিতির কারনে এবারের চলচ্চিত্র উৎসব অনলাইন এ অনুষ্ঠিত হবে। ৬ দিনের এই উৎসব আগামী ২৮ সেপ্টেম্বর শেষ হবে। 

গত শুক্রবার ৩০০০ ড্যানফোর্থ এভিনিউ’র ৪ নং ইউনিটের টরন্টো ফিল্ম ফোরাম এর মাল্টিকালচারাল ফিল্ম স্ক্রীনিং সেন্টারে এক ‘মিট দ্য প্রেস’ এ ফোরামের সভাপাতি এনায়েত করিম বাবুল ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল সম্পর্কীত বিভিন্ন বিষয় তুলে ধরেন। 

ফিল্ম ফোরামের সভাপাতি এনায়েত করিম বাবুল সাংবাদিকদের জাজান, টরন্টো ফিল্ম ফোরাম প্রতি বছর কানাডার দ্বিতীয় প্রাচীনতম প্রেক্ষাগৃহ ২২৩৬ কুইন স্ট্রীট ইস্টের ‘ফক্স থিয়েটার’ এ মাল্টিকালচারাল ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল আয়োজন করে। করোনাজনিত বিধি নিষেধের কারণে এবার এ উৎসব অনলাইনে করতে হচ্ছে।

তিনি জানান, এ বছর ১২৩টি দেশের প্রায় সাড়ে তিন হাজার প্রামাণ্য চলচ্চিত্র, স্বল্প দৈর্ঘ্য কাহিনী চলচ্চিত্র এবং পূর্ণ দৈর্ঘ্য কাহিনী ফেস্টিভ্যালে দেখানোর জন্য জমা পড়েছে। জমাকৃত চলচ্চিত্র থেকে বাছাই করে ১১০টি দেশের ৩০০টি বিভিন্ন ধরনের চলচ্চিত্র দর্শকদের জন্য উৎসবের ছয় দিন উন্মুক্ত থাকবে। এনায়েত করিম বাবুল উল্লেখ করেন, ছয় দিনের উৎসবের দ্বিতীয় দিন অর্থাৎ ২৪শে সেপ্টেম্বর থাকবে ‘কানাডা প্যানারোমা’ যে দিন শুধু মাত্র কানাডার ৩২টি বিভিন্ন ধরনের চলচ্চিত্র দেখানো হবে। 

সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে ফিল্ম ফোরাম সভাপতি জানান, ছয় দিনব্যাপী এই চলচ্চিত্র উৎসবের ছবিগুলো দেখার জন্য দর্শকদের কোন অর্থ ব্যয় বা রেজিস্ট্রেশন করতে হবে না। চলচ্চিত্র উৎসবের ছবিগুলো দেখার ওয়েব সাইট লিংক এ ক্লিক করলেই যে কেউ পৃথিবীর যে কোন প্রান্ত থেকে বিশেষ দিনের চলচ্চিত্রগুলো উপভোগ করতে পারবেন।

রও পড়ুন:

ধীর জীবন মানেই অলস জীবন নয়

একটি হটডগ আয়ু কমাতে পারে ৩৬ মিনিট পর্যন্ত!

ইভ্যালি ধরলেও সমস্যা, ছাড়লেও সমস্যা! কোথায় যাবেন ফারিয়া?

তৃতীয় স্বামীর কাছে শুধু বিচ্ছেদই নয়, খরচও চাইলেন শ্রাবন্তী


উল্লেখ্য, কানাডায় বসবাসরত বাংলাদেশী স্বাধীন চলচ্চিত্র নির্মাতা এবং চলচ্চিত্রপ্রেমীদের উদ্যেগে ২০১৪ সালে টরন্টোতে টরন্টো ফিল্ম ফোরাম গঠিত হয়। এই ফোরাম গঠনের একটি প্রধানতম লক্ষ্য ছিল, পৃথিবীর বহুজাতিক স্বাধীন এবং বিকল্পধারার চলচ্চিত্র নির্মাতাদের চলচ্চিত্রের প্রদর্শন করা। মাল্টিকালচারাল ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল আয়োজনের মধ্য দিয়ে টরন্টো ফিল্ম ফোরামের সদস্যরা মনে করেন, বহু ভাষা ও বহু জাতির মানুষের সৌহার্দ্যপূর্ণ সহাবস্থানই পারে আমাদের এই পৃথিবীকে আরও সুন্দর ও শান্তিময় করে তুলতে। 

ফোরামের সভাপতি ছাড়াও উপস্থিত সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তর দেন সংগঠনটির কার্যকরী সদস্য ফয়েজ নুর ময়না, চলচ্চিত্র স্ক্রীনিং সম্পাদক রেজিনা রহমান, সাংগঠনিক সম্পাদক জগলুল আজিম রানা এবং সাধারণ সম্পাদক মনিস রফিক।

news24bd.tv/ নকিব

পরবর্তী খবর

নিউইয়র্কে আওয়ামী লীগ-বিএনপি মারপিট (ভিডিও)

লাবলু আনসার, যুক্তরাষ্ট্র:

নিউইয়র্কে আওয়ামী লীগ-বিএনপি মারপিট (ভিডিও)

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সফরের পক্ষে ও বিপক্ষে গত শনিবার দিনভর কর্মসূচি চলার সময় নিউইয়র্ক সিটির জ্যাকসন হাইটস রণক্ষেত্রে পরিণত হয়। এ সময় দফায় দফায় হামলা, পাল্টা হামলা, ধাক্কা-ধাক্কি আর কিল-ঘুষির ঘটনা ঘটেছে। 

এদিন একদিকে আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, শ্রমিক লীগ এবং আরেকদিকে বিএনপি, যুবদল, জাসাসের নেতা-কর্মীরা নিজ নিজ ব্যানার-ফেস্টুন নিয়ে পরস্পরবিরোধী স্লোগানের মধ্যদিয়ে কর্মসূচি শুরু করেন।

তখনই দফায় দফায় সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এক পর্যায়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করার চেষ্টা করে। তবে উভয় পক্ষই পুলিশ বেষ্টনীর মধ্যে আক্রমণাত্মক স্লোগান দিতে থাকে। এর ফলে সন্ধ্যা সাড়ে ৮টা থেকে ১০টা নাগাদ পুরো এলাকায় যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকে।

আরও পড়ুন:


কনক সারোয়ারের সাথে বিএনপি নেতার কথোপকথন (অডিও) ফাঁস!

বিয়ের দিন সকালেই ধর্ষণের শিকার তরুণী, রাতে ভেঙে গেল বিয়ে!

সোমবার যে আমলটি করলে মনের আশা পূরণ হবে!

ট্রফি জয়ের ঘোষণা দিয়ে বিশ্বকাপে যাব: তামিম


জানা গেছে, বিকালে ডাইভার্সিটি প্লাজায় নিউইয়র্ক স্টেট বিএনপির উদ্যোগে ‘যেখানে হাসিনা-সেখানেই প্রতিরোধ’ কর্মসূচি চলাকালে আওয়ামী লীগের একদল কর্মী সেখানে হামলার চেষ্টা করে। এ সময় নেতাদের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি বেশি দূর গড়াতে পারেনি। 

এর ঘণ্টা দেড়েক পর ডাইভার্সিটি এলাকা থেকে শেখ হাসিনাকে নিউইয়র্কে ‘শুভেচ্ছা-স্বাগত’ স্লোগানে যুবলীগের একটি র‌্যালি ৭৩ স্ট্রিট দিয়ে ৩৭ এভিনিউর দিকে যাওয়ার সময় আশপাশে দাঁড়িয়ে থাকা বিএনপি নেতা-কর্মীরা শেখ হাসিনাকে প্রতিহত করার স্লোগান দেন। 

এরপর র‌্যালিটি এলাকা প্রকম্পিত করে ‘বিএনপি-জামায়াত প্রতিরোধে’র স্লোগান দিতে দিতে ৩৭ এভিনিউর কর্নারে যাওয়ার পরই রাস্তার অপর পাশে বিএনপির মানববন্ধনের সঙ্গে সংঘাত বেধে যায়। উভয় পক্ষের শত শত নেতা-কর্মী-সমর্থক প্রথমে উত্তপ্ত বাক্য-বিনিময়, এরপর ধাক্কা-ধাক্কি থেকে মারপিটে লিপ্ত হন।

যুবলীগ এবং আওয়ামী লীগের কর্মী-সমর্থকেরা ‘যেখানে রাজাকার-সেখানেই প্রতিরোধ’ স্লোগানে ঝাঁপিয়ে পড়েন বিএনপির নেতা-কর্মীদের ওপর।

বিস্তারিত ভিডিওতে দেখুন: 

NEWS24.TV / কামরুল

পরবর্তী খবর