রবিবার, ২২ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ | আপডেট ০৮ ঘন্টা ৩০ মিনিট আগে

সেই জাহেদার কবর খুঁজে পেয়েছে পুলিশ

নিউজ টোয়েন্টিফোর ডেস্ক

সেই জাহেদার কবর খুঁজে পেয়েছে পুলিশ

চাকরির প্রলোভন দেখিয়ে ফেনীর ফুলগাজীর জাহেদা খাতুনকে(২১) অপহরণ করে ধর্ষণের পর হত্যা করা হয়। দেড় মাস পর পুলিশ সেই তরুণীর কবর শনাক্ত করেছে চট্টগ্রামের সীতাকুন্ডে। এ ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে চট্টগ্রামের ফৌজদারহাট এলাকা থেকে মো. হেলাল উদ্দিন(৫৩) ও বিবি কুলসুমা আকতার(২৬) নামের এক দম্পতিকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। অভিযুক্তরা মঙ্গলবার বিকালে ফেনীর আদালতে স্বীকারোক্তিমুলক জবানবন্দি দিয়েছে।

ফুলগাজী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. হুমায়ুন কবির জানান, মোবাইল ফোনের সূত্র ধরে গত সোমবার সীতাকুন্ড থেকে মোঃ হেলাল উদ্দিন ও বিবি কুলসুমা আকতার নামে এক দম্পতিকে আটক করে পুলিশ। তাদের দেয়া স্বীকারোক্তি অনুযায়ী জাহেদা বেগমের কবর সনাক্ত করা হয়। এ ঘটনায় নিহতের বাবা মোখলেছুর রহমান বাদী হয়ে ফুলগাজী থানায় ধর্ষণ পরবর্তী হত্যা মামলা দায়ের করেছেন।

আটককৃত নারী বিবি কুলসুমা আক্তার পুলিশ হেফাজতে বলেন, আমি তাকে নিয়ে নুর আলমের কাছে দিয়েছি। নুর আলম নিজে তার সঙ্গে খারাপ কাজ করেছে তারপর মানুষ দিয়ে করিয়েছে। সে তাকে খোকনের হাতে দিয়েছে। সেখানে সে অজ্ঞান হয়ে গেলে তাকে চট্টগ্রামের ফৌজদারহাট সংক্রমণব্যাধি হাসপাতালে নিয়ে যাই। হাসপাতালের এন্ট্রি খাতায় তার স্বামী হেলাল উদ্দিন নিজের নাম জসিম উদ্দিন উল্লেখ করে বোন পরিচয় দিয়ে জাহেদা খাতুনের নাম সাহেদা আকতার লেখা হয়। হাসপতালে দুইদিন থাকার পর জাহেদা খাতুন মারা গেলে তার লাশ চট্টগ্রাম জেলার ফৌজদারহাটের ফকিরহাট এলাকার একটি পুকুর পাড়ে পুঁতে ফেলি।

ফুলগাজী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোঃ হুমায়ুন কবির বলেন, আমরা যাদের গ্রেপ্তার করেছি তাদের কাছে চাঞ্চল্যকর তথ্য পাওয়া পেয়েছি। তারা কিভাবে অপহরণ করেছে, কোথায়, কারা ধর্ষণ করেছে। ধর্ষণের পর অসুস্থ অবস্থায় হাসপাতালে নেয়া হয়েছে এবং মারা যাওয়ার পর যেখানে তার লাশ পুঁতে ফেলা হয় সেই জায়গাটাও আমাদের দেখিয়েছে। পরবর্তী সময়ে আইনগত প্রক্রিয়ায় আমরা লাশ উঠানোর ব্যবস্থা করবো।’

তিনি আরও বলেন, মঙ্গলবার বিকালে ফেনীর বিচারিক হাকিম আদালতে অপহরণ, ধর্ষণ ও হত্যার দায় স্বীকার করে হেলাল উদ্দিন ও তার স্ত্রী বিবি কুলসুমা আক্তার জবানবন্দি দিয়েছে। গ্রেপ্তারকৃতদের কাছ থেকে স্বীকারোক্তি নেয়ার পর জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।

 

(নিউজ টোয়েন্টিফোর/কেআই)

 

মন্তব্য