আজ শেরপুরের সোহাগপুর গণহত্যা দিবস

মাত্র দুই ঘণ্টায় হত্যা করা হয় ১৮৭ জন পুরুষকে

জুবাইদুল ইসলাম, শেরপুর

মাত্র দুই ঘণ্টায় হত্যা করা হয় ১৮৭ জন পুরুষকে

আজ ২৫ জুলাই, শেরপুরের নালিতাবাড়ীর ঐতিহাসিক সোহাগপুর গণহত্যা দিবস। ১৯৭১ সালের এই দিনে মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে নৃশংস গণহত্যা সংঘটিত হয়েছিল নালিতাবাড়ী উপজেলার কাঁকরকান্দি ইউনিয়নের সোহাগপুর গ্রামে।

পাকিস্তানি সেনাবাহিনী ও তাদের দোসর রাজাকার-আলবদররা এদিন ভারত সীমান্তঘেঁষা ওই গ্রামের সব পুরুষ মানুষকে হত্যা করে। মাত্র ২ ঘণ্টার মধ্যে গ্রামের ১৮৭ জন পুরুষকে হত্যা করা হয়। সেই থেকে সোহাগপুর গ্রামের নাম হয় বিধবা পল্লী।

জানা যায়, বৃহত্তর ময়মনসিংহের তৎকালীন আলবদর কমান্ডার জামায়াত নেতা কামারুজ্জামানের প্রত্যক্ষ মদদে ও স্থানীয় রাজাকার কাদের ডাক্তারের সহায়তায় ১৯৭১ সালের ২৫ জুলাই নালিতাবাড়ী উপজেলার কাকরকান্দি ইউনিয়নের নিভৃত পল্লী সোহাগপুর গ্রামে ঘটে এক ঐতিহাসিক ট্র্যাজেডি।

সেদিন ওই গ্রামে মুক্তিযোদ্ধারা আশ্রয় নিয়েছে- এমন সংবাদের ভিত্তিতে রাজাকার আলবদরদের সহায়তায় ১৫০ জনের পাকিস্তানী হানাদার বাহিনী স্থানীয় প্রফুল্লের দিঘি থেকে সাধুর আশ্রম পর্যন্ত এলাকা ঘিরে ফেলে। হায়েনার দল অর্ধ দিনব্যাপী তান্ডব চালিয়ে খুঁজতে থাকে মুক্তিযোদ্ধাদের ও তাদের আশ্রয়দাতাদের।

ওই সময় প্রাণের মায়া ত্যাগ করে সামনের দিকে এগিয়ে যান স্থানীয় কৃষক আলী হোসেন ও জমির আলী। কিন্তু তারা বেশীদূর এগুতে পারেননি। এক রাজাকার গুলি করে দু’জনকেই হত্যা করে। এরপর শুরু হয় নারকীয় তান্ডব। মাঠে কর্মরত রমেন রিছিল, চটপাথাং ও সিরিল গাব্রিয়েল নামে ৩ গারো আদিবাসীকে হত্যা করে।

তারপর একে একে হত্যা করে আনসার আলী, লতিফ মিয়া, ছফর উদ্দিন, শহর আলী, হযরত আলী, রিয়াজ আহমেদ, রহম আলী, সাহেব আলী, বাবর আলী, উমেদ আলী, আছমত আলী, মহেজ উদ্দিন, সিরাজ আলী, পিতা-পুত্র আবুল হোসেনসহ প্রায় ১৮৭ জন নিরীহ পুরুষ মানুষকে।

একইসাথে ওইসময় হায়েনাদের পাশবিক নির্যাতনের শিকার হন ১৩ জন নারী। সেদিন কলাপাতা, ছেড়া শাড়ী আর মশারী দিয়ে কাফন পড়িয়ে ৪/৫ টি করে লাশ এক একটি কবরে দাফন করা হয়েছিল। আবার কোন কোন কবরে ৭/৮টি করে লাশও এক সাথে কবর দেওয়া হয়েছিল।

ওই নারকীয় হত্যাকান্ডের জীবন্ত স্বাক্ষী রয়েছেন অনেকেই। সেদিন সোহাগপুর গ্রামের সকল পুরুষ মানুষকে হত্যা করায় পরবর্তীতে ওই গ্রামের নাম হয় ‘বিধবা পল্লী’।

এ পল্লীতে স্বাধীনতা পরবর্তী সময়ে ৫৬ জন বিধবা বেঁচে ছিলেন। বর্তমানে ২৩ জন বিধবা বেঁচে আছেন। বর্তমান সরকার ক্ষমতায় আসার পর বিধবাদের ভাগ্য বদল হয়েছে। উন্নয়নের ছোঁয়া লেগেছে সোহাগপুর গ্রামে।

ইতোমধ্যেই ২৯ বিধবাকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ১১ লাখ টাকা মূল্যের একটি করে পাকাবাড়ি উপহার দিয়েছেন। ১৪ জন বীরাঙ্গনাকে মুক্তিযোদ্ধার স্বীকৃতি দেওয়া হয়েছে। বিধবাপল্লীতে পাকা সড়ক হয়েছে। কাকরকান্দির বুরুয়াজানি গ্রামে শহীদদের স্মরণে শহীদ মুক্তিযোদ্ধা কলেজ, প্রাথমিক ও মাধ্যমিক বিদ্যালয় করে দিয়েছেন স্থানীয় সংসদ সদস্য, আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য, সাবেক কৃষিমন্ত্রী বেগম মতিয়া চৌধুরী। সুদীর্ঘ ৫০ বছর পর শহীদদের স্মৃতি রক্ষার জন্য জেলা পুলিশ বিভাগের সদস্যরা তাদের বেতনের টাকা দিয়ে বিধবাদের জমি ক্রয় করে দিয়েছেন। এছাড়া বিধবাপল্লীতে শহীদদের স্মরণে স্মৃতিস্তম্ভের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করা হয়েছে।

এসবের কৃতজ্ঞতা স্বীকার করে বিধবা হাফিজা বেওয়া বলেন, ‘স্বামী-স্বজনগরে মাইরা হালানির পরে আমরা ভিক্ষা কইরাও ভাত খাইছি। শেখ হাসিনা ও মতিয়া চৌধুরী আমগরে লাইগা অনেক করছে। আমরা মুক্তিযোদ্ধার পদবী পাইছি। ভাতা পাইতাছি। পাক্কাঘরে শান্তিতে ঘুমাইতাছি। আমগরে চাওয়া পাওয়ার আর কিছু নাই। শুধু দোয়া করি হাসিনারে আল্লাহপাক বাঁচাইয়া রাখুক।’


আরও পড়ুন:

চীনে গুদামে অগ্নিকাণ্ডে নিহত ১৪

এনএসও'র দাবি পেগাসাস স্পাইওয়্যার ব্যবহারে বিশ্বের লাখো মানুষ ঘুমাতে পারছে

পিএসজির সঙ্গে চুক্তির মেয়াদ বাড়ল পচেত্তিনোর

হাইতি প্রেসিডেন্টের সৎকার অনুষ্ঠান থেকে পালিয়েছে মার্কিন প্রতিনিধিদল


ওই গ্রামের আন্তর্জাতিক যোদ্ধাপরাধ ট্রাইবুনালের সাক্ষী ও শহীদ মুক্তিযোদ্ধা ছফির উদ্দিনের ছেলে জালাল উদ্দিন (৫০) বলেন, বিধবারা সুখের মুখ দেখলেও তাদের সন্তানরা কষ্টে চলেন। তাদের জন্য সরকারিভাবে কর্মসংস্থানের দাবি জানান তিনি। এদিকে দিবসটি পালন উপলক্ষে কোরানখানি, দোয়া ও মিলাদ মাহফিলের আয়োজন করা হয়েছে।

news24bd.tv/ নকিব

পরবর্তী খবর

লেকের তলদেশে ২৩ হাজার বছর আগের মানুষের পায়ের ছাপ!

অনলাইন ডেস্ক

লেকের তলদেশে ২৩ হাজার বছর আগের মানুষের পায়ের ছাপ!

যুক্তরাষ্ট্রের নিউ মেক্সিকোতে ২৩ হাজার বছর আগের আদি মানুষের যে পায়ের ছাপ পাওয়া গিয়েছিল সে সম্পর্কে একটি গবেষণা প্রকাশিত হয়েছে। গবেষকেরা ওই ছাপকে মানুষের উপস্থিতির নিদর্শন বলে উল্লেখ করেছেন। বৃহস্পতিবার 'সায়েন্স' জার্নালে এই গবেষণাটি প্রকাশিত হয়েছে।

হোয়াইট স্যান্ডস ন্যাশনাল পার্কে একটি শুকনো লেকের তলদেশে ওই পায়ের ছাপ পাওয়া গিয়েছিলো। ২০০৯ সালে এক পার্ক ম্যানেজার প্রথম এই ছাপ দেখতে পান। 

মার্কিন জিওলজিক্যাল সার্ভের বিজ্ঞানীরা সম্প্রতি এই পদচিহ্নের জীবাশ্মের বয়স যাচাই করেন দেখেছেন। তাতে দেখা যায় ২২ হাজার ৮০০ থেকে ২১ হাজার ১৩০ বছর আগেকার এই জীবাশ্ম।

এশিয়াকে আলাস্কার সঙ্গে স্থলভূমির এক বিস্তীর্ণ অংশ যুক্ত করেছিল বলে বেশিরভাগ বিজ্ঞানী বিশ্বাস করেন। পরে ওই স্থলভূমি সমুদ্রের নিচে হারিয়ে যায়। 

পাথরের তৈরি সরঞ্জাম, জীবাশ্মের হাড় এবং জেনেটিক বিশ্লেষণ সহ বিভিন্ন প্রমাণের উপর ভিত্তি করে গবেষকরা জানিয়েছেন, প্রায় ১৩ হাজার থেকে ২৬ হাজার বছর আগে উত্তর আমেরিকায় মানুষের আগমন হয়েছিল। উত্তর আমেরিকায় ঠিক কোন সময়ে মানুষের উপস্থিতি ছিল, তার সঠিক প্রমাণ দেয় এই সর্বশেষ গবেষণা। 

রও পড়ুন:

সব ফোনের একই চার্জার তৈরির প্রস্তাব, অ্যাপলের আপত্তি

প্রেমের স্বীকৃতি না পেয়ে প্রেট্রোল ঢেলে আগুন দিলেন নারী!

শরীর আর আগের মতো ছিলো না, বিচ্ছেদের কারণ জানিয়ে রোশান

নতুন নায়িকা কোলে নিয়ে শাহরুখকে মনে করালেন জায়েদ খান


গবেষকরা বলছেন, 'সাংস্কৃতিক নিদর্শন, উদ্ধার করা হাড় বা অন্যান্য প্রচলিত জীবাশ্মের তুলনায় জীবাশ্ম পদচিহ্নগুলি আরও প্রত্যক্ষভাবে প্রমাণ দেয়।' 

news24bd.tv/ নকিব

পরবর্তী খবর

বলাকইড় বিলে গোলাপি ও সাদা রঙের হাজারো পদ্ম

মুন্সী মোহাম্মদ হুসাইন

পদ্মকে বলা হয় জলজ ফুলের রানী। গোপালগঞ্জের বলাকইড় বিলে ফুটেছে গোলাপি ও সাদা রঙের হাজারো পদ্ম। এই ফুলের সৌন্দর্য উপভোগ করতে প্রতিদিনই দূর-দূরান্ত থেকে আসছেন প্রকৃতি প্রেমীরা। নৌকায় ঘুরে বিলের সৌন্দর্য উপভোগ করেন তারা। 

প্রতি বছর বর্ষা মৌসুমে গোপালগঞ্জ সদর উপজেলার বলাকইড় বিলে প্রাকৃতিকভাবে পদ্মফুল জন্মে। এখন এটি পদ্মবিল নামে পরিচিত হয়ে উঠেছে। বিস্তীর্ণ এলাকা জুড়ে গোলাপি ও সাদা রঙের পদ্ম দেখলে মন জুড়িয়ে যায়। আর প্রতিদিনই এমন অপরূপ দৃশ্য দেখতে বন্ধু ও পরিবার নিয়ে ভিড় করে দর্শনার্থীরা। 

আরও পড়ুন:


অবশেষে ব্রিটেনের লাল তালিকা থেকে বাদ পড়ছে বাংলাদেশ

বেড়াতে গিয়ে অতিরিক্ত মদ পানে দুই ছাত্রলীগ কর্মীর মৃত্যু

আর কোনো তত্ত্বাবধায়ক সরকার হবে না, জানালেন কৃষিমন্ত্রী

ইভ্যালির সঙ্গে আর সম্পর্ক নেই তাহসানের


তাদের অভিযোগ, ভাঙাচোরা রাস্তার কারণে ভোগান্তিতে পড়তে হয়। রাস্তা সংস্কার ও পযটন বান্ধব পরিবেশ গড়ে তোলার দাবী দর্শনার্থীদের। 

পযটন বান্ধব পরিবেশ গড়ে তোলার জন্য ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানিয়েছেন জেলা প্রশাসক। এ বিল থেকে পদ্মফুল তুলে বাজারে বিক্রির মাধ্যমে জীবিকা নির্বাহ করছে স্থানীয় শত শত দরিদ্র পরিবার। 

NEWS24.TV / কামরুল

পরবর্তী খবর

ফুটপাতে দুই টাকার মাল বিক্রি করে যেভাবে লাখপতি রাজু!

অনলাইন ডেস্ক

ফুটপাতে দুই টাকার মাল বিক্রি করে যেভাবে লাখপতি রাজু!

ফুটপাত ও রাস্তার গলিতে দুই টাকার বিভিন্ন প্লাস্টিকপণ্য বিক্রি করে লাখ টাকার মালিক হয়েছেন মোহাম্মদ রাজু (৩৯)। তার বাড়ি গাইবান্ধা জেলার সাঘাটা উপজেলার কৈচড়া গ্রামে। তিনি রাজধানী ঢাকার ফুটপাত অলিতে-গলিতে ভ্যানে প্লাস্টিকের সরঞ্জাম বিক্রি করে সংসার চালান।

জানা যায়, ২০১১ সালে মাত্র ৭০০ টাকা পুঁজি নিয়ে দুই টাকার প্লাস্টিকের সরঞ্জাম বিক্রি শুরু করেন তিনি। বর্তমানে ৫০০ টাকার পর্যন্ত মালামাল পাওয়া যাচ্ছে তার ভ্যারাইটিজ আইটেমের ভ্যান গাড়িতে। যেখানে রয়েছে ৮ শতাধিক আইটেমের পণ্য।

রও পড়ুন:


জন্মদিনে সৃজিতের কাছে কী চাইলেন মিথিলা?

বায়ু দূষণের তালিকায় বাংলাদেশ প্রথম, ঢাকা তৃতীয়

৪৫ মিনিট পর হাসপাতালে অলৌকিকভাবে বেঁচে উঠলেন নারী!

গাড়ি সাইড দেয়ায় ব্যবসায়ীকে মারধর করলেন এমপি রিমন!


মো. রাজু জানায়, করোনা প্রাদুর্ভাবের আগে প্রতিদিন তিন থেকে সাড়ে তিন হাজার টাকা বেচাকেনা করতাম। এখন তা ১২শ’ থেকে ১৫শ’ টাকায় নেমে এসেছে। কারণ স্কুল-কলেজ খোলার পর সবারই ছেলে-মেয়েদের জামা-কাপড়, স্কুলের জিনিসপত্র কেনা লাগছে- তাই এসব সাংসারিক ভ্যারাইটিজ মালের চাহিদা একটু কমে গেছে। আশাকরি আস্তে আস্তে সব আবার আগের জায়গায় চলে আসবে ইনশাআল্লাহ।

তিনি আরও জানান, আমার এখানে সুই-সুতা থেকে শুরু করে ৫০০ টাকারও জিনিস পাওয়া যায়। শুধু চাকরির অপেক্ষা না করে কেউ যদি যে কোনো একটা কাজ শুরু করে, তবে একদিন না একদিন নিজের পায়ে দাঁড়াতে পারবে, তাতে কোনো সন্দেহ নেই।

মো. রাজু বলেন, ঢাকায় বউ-বাচ্চা নিয়ে থাকি। ছেলে ৭ম শ্রেণিতে পড়ে।   ভ্রাম্যমাণ এই দোকান (ভ্যান গাড়ি) তৈরি করতে এক লাখ টাকা খরচ হয়েছে। এ ব্যবসা করে গ্রামে জায়গা কিনে একটা টিনের ঘর তৈরি করেছি মায়ের জন্য। প্রতি মাসে বাড়িতে তিন হাজার টাকা পাঠাই মায়ের জন্য। সব মিলিয়ে আল্লাহর রহমতে ভালো আছি।

NEWS24.TV / কামরুল

পরবর্তী খবর

বায়ু দূষণের তালিকায় বাংলাদেশ প্রথম, ঢাকা তৃতীয়

অনলাইন ডেস্ক

বায়ু দূষণের তালিকায় বাংলাদেশ প্রথম, ঢাকা তৃতীয়

প্রতি বছর বায়ুদূষণ বিশ্বজুড়ে মানুষের স্বাস্থ্য উপর ব্যাপক প্রভাব ফেলছে। প্রতি বছর প্রায় ৭০ লক্ষ মানুষের অকালমৃত্যুর কারণ এই বায়ুদূষণ। ফলে ২০০৫ সালের পর বায়ুদূষণ সংক্রান্ত নীতিমালায় কড়াকড়ি আরোপ করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। খবর আল জাজিরার।

বিশ্বে সবচেয়ে দূষিত বাতাসের দেশের মধ্যে প্রথম অবস্থানে রয়েছে বাংলাদেশ। আর সবচেয়ে দূষিত বাতাসের শহরের তালিকায় রাজধানী ঢাকার অবস্থান তৃতীয়। এই তালিকায় বাংলাদেশের পর রয়েছে দক্ষিণ এশিয়ার আরও দুটি দেশ ভারত ও পাকিস্তান। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সাম্প্রতিক গাইডলাইনের পরিপ্রেক্ষিতে বিভিন্ন তথ্য বিশ্লেষণ করে পরিবেশবাদী সংগঠন গ্রিনপিস এমনটা জানিয়েছে।

দূষিত শহরের তালিকায় তৃতীয় অবস্থানে থাকা ঢাকায় ২০২০ সালে বাতাসে ভাসমান সূক্ষ্ম কণার (পার্টিকুলেট ম্যাটার বা পিএম২.৫) মাত্রা ডব্লিউএইচও’র নির্ধারিত মাত্রার চেয়ে প্রায় ১৫ গুণ বেশি ছিল বলে জানিয়েছে আল জাজিরা।

শহরের মধ্যে প্রথম অবস্থানে রয়েছে দিল্লি ও দ্বিতীয়তে রয়েছে লাহোর। শহর দুটিতে ২০২০ সালে বাতাসে পিএম২.৫ এর মাত্রা ডব্লিউএইচও এর মাত্রার চেয়ে যথাক্রমে ১৭ ও ১৬ গুণ বেশি ছিলো।

রও পড়ুন:

লালন শাহ সেতুতে বাসচাপায় শ্রমিকের মৃত্যু

বৃহস্পতিবার ঢাকার যে এলাকায় মার্কেট বন্ধ

মাল্টা চাষে মডেল উজিরপুরের কৃষক শ্যামল, বছরে লাখ টাকা আয়

গাড়ি সাইড দেয়ায় ব্যবসায়ীকে মারধর করলেন এমপি রিমন!


ডব্লিউএইচও প্রণীত নতুন নীতিমালায় বাতাসে ভাসমান কণা পিএম১০ ও পিএম২.৫, ওজোন, নাইট্রোজেন ডাই-অক্সাইড, সালফার ডাই-অক্সাইড, কার্বন মনো-অক্সাইড ইত্যাদির বিষয়ে পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।

news24bd.tv/ নকিব

পরবর্তী খবর

পর্যটকদের পদচারণায় মুখর হয়ে উঠেছে সুনামগঞ্জের টাঙ্গুয়ার হাওর

মো.বুরহান উদ্দিন

পর্যটকদের পদচারণায় মুখর হয়ে উঠেছৈ সুনামগঞ্জের টাঙ্গুয়ার হাওর-যাদুকাটা-নিলাদ্রী-হাওর বিলাস সহ বিভিন্ন পর্যটন কেন্দ্র। ভারতের মেঘালয় পাহাড়ের কুলঘেষা এই জনপদকে যেন নিজ হাতেই নৈসর্গিক অপরূপ সাজে সাজিয়েছে প্রকৃতি।

তবে করোনার সংক্রমণ রোধে পর্যটকদের স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার কথা বলা হলেও তা উপেক্ষা করছেন অনেকেই। অবশ্য জেলা প্রশাসক বলছেন, পর্যটকদের শতভাগ স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিতে নানা উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।

করোনা সংক্রমণের হার নিম্নমুখী হওয়ায় প্রায় ৫ মাস বন্ধ থাকার পর গেল ১৯ আগস্ট থেকে শর্ত সাপেক্ষে সারাদেশে খুলে দেয়া হয় পর্যটন ও বিনোদন কেন্দ্রগুলো। এর পর থেকেই সুনামগঞ্জে টাঙ্গুয়ার হাওর-যাদুকাটা-নিলাদ্রীসহ বিভিন্ন পর্যটনকেন্দ্রে আসছে পর্যটকরা।

আরও পড়ুন


ছাড়পত্র পেলেন তামিম, খেলতে যাবেন নেপাল

‘শিশুবক্তা’ খ্যাত রফিকুলের হাইকোর্টে জামিন আবেদন

বঙ্গবন্ধুর খুনি রাশেদ চৌধুরীকে ফেরত দেবে: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

কুয়েত ও সুইডেনের প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে শেখ হাসিনার বৈঠক


সুনামগঞ্জের টাঙ্গুয়ার হাওর। ভারতের মেঘালয় পাহাড়ের কোলঘেঁষে এই হাওরের অবস্থান।   অনুন্নত যোগাযোগ ব্যবস্থা সত্ত্বেও হাওরের বিস্তীর্ণ স্বচ্ছ নীল জলরাশি আর প্রকৃতির অপার সৌন্দর্য উপভোগ করতে প্রতিদিন অসংখ্য পর্যটক আসেন এই হাওরে। তবে করোনাকালে স্বাস্থ্য বিধি উপেক্ষা করেই চলছেন অনেকে।

স্বর্গীয় সৌন্দর্যে ভরা জায়গাটা কাশ্মীর নয় নীলাদ্রি লেক। এর নামটা যেমন সুন্দর এর রূপটাও তেমনই মোহনীয়। পানির রং এতটা নীল আর প্রকৃতির এক মায়াবি রূপ হয় কী করে। তা চোখে না দেখলে বোঝা যায় না। আর তাইতো প্রকতির এই সৌন্দর্য দেখতে দুর-দুরান্ত থেকে ছুটে আসেন প্রকৃতি প্রেমিরা।

বিশ্বভপুরে ‘পাহাড় বিলাস’ নামে পর্যটনকেন্দ্র থেকে করচার হাওরের পরিবেশ উপভোগ করেন পর্যটকরা। তবে পর্যটকদের শতভাগ স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিতে নানা উদ্যোগ নেয়ার কথা জানালেন জেলা প্রশাসক।

সড়কপথের উন্নয়নের পাশাপাশি পর্যটকদের জন্য মানসম্মত আবাসিক হোটেল ও স্বাস্থ্যসম্মত রেস্তোরাঁ গড়ে তোলা হলে সুনামগঞ্জ হতে পারে দেশের অন্যতম সেরা পর্যটন ‘হাব’ এমনটা মনে করেন সংশ্লিস্টরা।

NEWS24.TV / কামরুল

পরবর্তী খবর