সূরা বাকারা: আয়াত ৫-৭, প্রধান দুটি শিক্ষা
সূরা বাকারা: আয়াত ৫-৭, প্রধান দুটি শিক্ষা

সূরা বাকারা: আয়াত ৫-৭, প্রধান দুটি শিক্ষা

অনলাইন ডেস্ক

সূরা বাকারা পবিত্র কুরআনের দ্বিতীয় সূরা। সবচেয়ে বড় ও গুরুত্বপূর্ণ একটি সূরা যা মদিনায় অবতীর্ণ। এতে মোট ২৮৬টি আয়াত আছে। আজকের পর্বে সূরা আল-বাকারা’র ৫ থেকে ৭ নম্বর আয়াতের ব্যাখ্যা তুলে ধরা হল।

এই সূরার পঞ্চম আয়াতে মহান আল্লাহ বলেছেন:

أُولَئِكَ عَلَى هُدًى مِنْ رَبِّهِمْ وَأُولَئِكَ هُمُ الْمُفْلِحُونَ (5

‘‘তারাই নিজেদের পালনকর্তার পক্ষ থেকে সুপথপ্রাপ্ত, আর তারাই যথার্থ সফলকাম। ’’ (২:৫)

ঈমানদার মুত্তাকীদের বর্ণনা দেয়ার পর এই আয়াতে বলা হয়েছে - ‘‘ওই মুমিন ব্যক্তিরা তাদের প্রতিপালকের নির্দেশিত পথে রয়েছে এবং তারাই সফলকাম। ’’ এই আয়াতে পরহেজগার ব্যক্তিদের পরিণাম ‘‘সফলতা’’ বলে বর্ণনা করা হয়েছে। তারা আল্লাহর নির্দেশিত পথে চলেই এ সফলতায় পৌঁছায়।

সফলতা মানে প্রবৃত্তির কামনা-বাসনা থেকে মুক্ত হওয়া এবং নৈতিক উৎকর্ষ অর্জন করা। আরবী ভাষায় কৃষককে বলা হয় ‘‘ফাল্লাহ্‌’’। কারণ কৃষক তার পরিশ্রমের মাধ্যমে মাটির তলদেশ থেকে বীজের অঙ্কুরোদ্‌গম এবং ফসল বেড়ে ওঠার ব্যবস্থা করে। সফলতা মানুষের পূর্ণতার সর্বোচ্চ পর্যায়। কারণ কোরআনের আয়াত অনুযায়ী সৃষ্টিজগত মানুষের জন্যই সৃষ্টি করা হয়েছে। মানুষ এবাদতের জন্য এবং এবাদত হলো তাকওয়ায় পৌঁছার জন্য। আর এ আয়াতে বলা হয়েছে- ‘‘মুত্তাকী ও পরহেজগার ব্যক্তিরা সফলকাম হবেন। ’’

এ আয়াত আমাদেরকে দু’টি প্রধান বিষয় শিক্ষা দেয়।

প্রথমত: কল্যাণ ও সৌভাগ্যবান হতে হলে আল্লাহর নির্দেশিত পথ অনুযায়ী চলতে হবে।

দ্বিতীয়ত: চেষ্টা ছাড়া কল্যাণ অর্জন সম্ভব নয়। জ্ঞান ও বিশ্বাসের যেমন দরকার আছে তেমনি কাজ ও উত্তম আমলেরও প্রয়োজন আছে।

এরপর সূরা বাকারা’র ৬ নম্বর আয়াতে বলা হয়েছে-

إِنَّ الَّذِينَ كَفَرُوا سَوَاءٌ عَلَيْهِمْ أَأَنْذَرْتَهُمْ أَمْ لَمْ تُنْذِرْهُمْ لَا يُؤْمِنُونَ (6

‘‘যারা অবিশ্বাস করেছে অর্থাৎ কাফের হয়েছে আপনি তাদেরকে সতর্ক করুন আর নাই করুন, তাদের জন্য উভয়ই সমান, তারা বিশ্বাস করবে না। ’’ (২:৬)

মুত্তাকী ও পরহেজগার ব্যক্তিদের বৈশিষ্ট্য তুলে ধরার পর এই আয়াতে কাফেরদের পরিচয় তুলে ধরা হয়েছে। সত্য প্রত্যাখ্যানকারী কাফেররা বিরুদ্ধাচরণ করতে করতে এমন বিদ্বেষী হয়ে পড়ে যে সত্য কথা তাদের মধ্যে কোন প্রভাব ফেলে না এবং তারা ঈমান আনে না। আরবী ভাষায় ‘কুফর' শব্দের অর্থ হলো ঢেকে ফেলা, উপেক্ষা করা। সুতরাং কাফের মানে ওই ব্যক্তি যে সত্য গোপন করে এবং সত্যকে উপেক্ষা করে। আল্লাহ যদি চাইতেন তাহলে সব মানুষ ঈমান আনতে বাধ্য হতো। কিন্তু চাপিয়ে দেয়া বিশ্বাসের কোন মূল্য নেই। আল্লাহই চান মানুষ যাতে স্বেচ্ছায় ঈমান আনে। তাই সব মানুষ পরহেজগার, ঈমানদার ও মুত্তাকী হয়ে যাবে-এমনটি আশা করা আমাদের উচিৎ নয়।

সূরা বাকারা’র ৬ নম্বর আয়াত থেকে আমরা যে কয়েকটি বিষয়ে শিক্ষা লাভ করছি তা হলো-

প্রথমত: কুফরী, বিদ্বেষ- মানুষকে পাথরের মত কঠিন করে ফেলে। তাই কোন উপদেশ বা ভালো কথাও তার মধ্যে কোন প্রভাব ফেলে না।

দ্বিতীয়ত: যদি মানুষ সত্য গ্রহণে ইচ্ছুক না হয় তাহলে নবীদের আহ্বান কাজে আসবে না। নবীদের আহ্বান হলো বৃষ্টির মত। যদি উর্বর মাটিতে পড়ে তাহলে ফুল ফোটে, আর যদি নোনা ও শক্ত মাটিতে পড়ে তাহলে জংলী আগাছা আর কাঁটাযুক্ত ঝোপঝাড় জন্মায়।

তৃতীয়ত: যদিও আমরা জানি যে কাফেররা ঈমান আনবে না, কিন্তু তবুও আমাদের দায়িত্ব পালন করে যেতে হবে এবং তাদেরকে সদুপদেশ দিতে হবে।

আরও পড়ুন


হেলেনার বাসায় মদের সাথে আর যা পেল র‌্যাব

টি-টোয়েন্টিতে ভারত ৮১ রানে অলআউট!

হেলেনা আটক, নেয়া হচ্ছে র‍্যাব সদর দফতরে

আরও বাড়লো শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছুটি


এরপরের আয়াতে বলা হয়েছে-

خَتَمَ اللَّهُ عَلَى قُلُوبِهِمْ وَعَلَى سَمْعِهِمْ وَعَلَى أَبْصَارِهِمْ غِشَاوَةٌ وَلَهُمْ عَذَابٌ عَظِيمٌ (7

‘‘আল্লাহ তাদের হৃদয় ও কান মোহর করে দিয়েছেন। তাদের চোখের ওপর আবরণ রয়েছে এবং তাদের জন্য রয়েছে মহা শাস্তি। ’’ (২:৭)

মানুষ হিসাবে কাফেরদেরও বিবেক-বুদ্ধি, চোখ ও কান আছে। কিন্তু খারাপ কাজ, অযৌক্তিক বিদ্বেষ, একগুঁয়ে ও হিংসার কারণে এমন পর্দা সৃষ্টি হয় যে তারা সত্য দেখা, শোনা ও উপলদ্ধির শক্তি হারিয়ে ফেলে। এটি হলো দুনিয়াতেই আল্লাহর পক্ষ থেকে তাদের জন্য নির্ধারিত শাস্তি। তাছাড়া কেয়ামতে তাদের জন্য অপেক্ষা করছে কঠিন শাস্তি। এখানে একটি প্রশ্ন দেখা দেয়, আর তা হলো আল্লাহ যদি নিজেই কাফেরদের চোখ,কান বন্ধ করে দেয় তাহলে খোদাদ্রোহিতার ক্ষেত্রে তাদেরতো কোন দোষ নেই। কারণ তারা বাধ্য হয়েই কাফের হয়েছেন। এ প্রশ্নের উত্তর আল্লাহ তা'লা কোরআনেই স্পষ্টভাবে দিয়েছেন। সূরা মুমিনের ৩৫ নম্বর আয়াতে বলা হয়েছে-"আল্লাহ প্রত্যেক উদ্ধত ও অত্যাচারী ব্যক্তির হৃদয় মোহর করে দেন। "

সূরা নিসার ১৫৫ নম্বর আয়াতে বলা হয়েছে-"সত্য প্রত্যাখ্যানের জন্য আল্লাহ তাদের হৃদয় মোহর করে দিয়েছেন। প্রকৃতপক্ষে এসব আয়াতে মানুষ সম্পর্কে আল্লাহর নির্ধারিত নিয়ম বর্ণনা করা হয়েছে। যদি মানুষ সত্যের সামনে ঔদ্ধত্য, গর্ব ও একগুঁয়েমি দেখায় তাহলে শেষ পর্যন্ত তার মধ্যে সত্যকে চেনার শক্তি লোপ পাবে, সত্যকে সে উল্টো দেখতে পাবে এবং দুনিয়া ও আখেরাতে কঠিন পরিণতির শিকার হবে।

সূরা বাকারাহ'র ৭ম আয়াতের দু''টি প্রধান শিক্ষণীয় বিষয় হলো-কেউ জেনে শুনে সত্য প্রত্যাখ্যান করলে আল্লাহপাকও তার অন্তর্চক্ষু ঢেকে দেন এবং এটি আল্লাহর শাস্তি। এছাড়াও জীব-জন্তুর ওপর মানুষের মর্যাদার কারণ হলো তার বিবেক-বুদ্ধি, উপলদ্ধি ক্ষমতা এবং সঠিক দৃষ্টিভঙ্গী। কিন্তু মানুষ সত্য প্রত্যাখ্যান এবং আল্লাহ ও তার নিদর্শনাবলী অবিশ্বাসের মাধ্যমে এই মর্যাদা হারিয়ে ফেলে।

news24bd.tv এসএম