করোনায় মারা যাওয়া বাবার লাশ পর্যন্ত দেখতে আসেনি সন্তানেরা!
করোনায় মারা যাওয়া বাবার লাশ পর্যন্ত দেখতে আসেনি সন্তানেরা!

করোনায় মারা যাওয়া বাবার লাশ পর্যন্ত দেখতে আসেনি সন্তানেরা!

অনলাইন ডেস্ক

করোনায় আক্রান্ত হয়ে শুক্রবার সকালে চাঁপাইনবাবগঞ্জের নাচোল উপজেলার শ্রীরামপুর গ্রামের আব্দুল হক ওহাব (৬৫) নামের এক ব্যক্তি মারা যান। এ ঘটনাটি এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি করেছে।

বাবার মৃত্যুর খবর পেয়েও মরদেহ দেখতে আসেনি তার নিজের ছেলে-মেয়েরা। পরে স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন নাচোল মানবিক উন্নয়ন সোসাইটি তার দাফন কাজ সম্পন্ন করে।

স্থানীয়রা জানায়, গত ৭-৮ দিন আগে আব্দুল হক ওহাব করোনা আক্রান্ত হন। আক্রান্তের কথা শুনে একমাত্র ছেলে ভদু তার বাবাকে বাড়ি থেকে বের করে দেন। পরে কোথাও জায়গা না পেয়ে আব্দুল ওহাব পাশেই তার বোন নাসিমার কুঁড়েঘরে অবস্থান নেন। সেখানে শুক্রবার সকাল সাড়ে ১০টায় তিনি মৃত্যুবরণ করেন। তবে তার ছেলে ভদু ও মেয়ে শিউলি মৃত্যুর কথা শুনেও দেখতে আসেননি তার বাবাকে।

এগিয়ে আসেননি গ্রামবাসী এমনকি প্রতিবেশীরাও। ভয়ে মরদেহ দেখতে পর্যন্ত যাননি কেউ। খবর নেয়নি ওই ওয়ার্ড কাউন্সিলর পর্যন্ত।

আরও পড়ুন


তুরস্কের ভয়াবহ দাবানল নেভাতে সহযোগিতার আশ্বাস ইরানের

হেলেনাকে সম্মানের সঙ্গে ছাড়তে বললেন সেফুদা

আফগানিস্তানের জাতিসংঘের দপ্তরে হামলা, এক পুলিশ নিহত

হত্যা চেষ্টার অভিযোগে আসামের মুখ্যমন্ত্রীর বিরুদ্ধে মামলা মিজোরাম পুলিশের


এমন অমানবিক ঘটনার খবর পেয়ে ‘এনমাস’ - এর (নাচোল মানবিক উন্নয়ন সোসাইটি) সভাপতি শাকিল রেজা উপজেলা প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসনকে বিষয়টি জানান। পরে নাচোল মানবিক উন্নয়ন সোসাইটি সদস্যরা সুরক্ষা পোশাক পরে দাফনের ব্যবস্থা করেন। সন্ধ্যায় ৬টার দিকে মোমিনপাড়া গোরস্থানে আব্দুল ওহাবের মরদেহ দাফন করা হয়। দাফন সম্পন্ন করেন এনমাসের সদস্য ও নাচোল বাজার কেন্দ্রীয় মসজিদের ইমাম মাওলানা এনমাসের সভাপতি শাকিল রেজা ও সাগরসহ এনমাস টিমের সদস্যরা। এ জানাযায় ৭০-৮০ জন লোক অংশ নেন।

এনমাসের সভাপতি শাকিল রেজা জানান, খবর পাওয়া মাত্রই আমরা ইউএনও মহোদয় ও ওসি মহোদয়কে খবর দিয়েই মরদেহের কাছে যাই। পরে পুলিশের উপস্থিতিতে মোমিনপাড়া গোরস্থানে আব্দুল ওহাবকে দাফন করা হয়।

news24bd.tv এসএম

;