সিগারেট চুরির অভিযোগে গাছে বেঁধে নির্যাতন, ছাড়াতে গিয়ে স্ত্রী লাঞ্ছিত

রাহাত খান, বরিশাল

সিগারেট চুরির অভিযোগে গাছে বেঁধে নির্যাতন, ছাড়াতে গিয়ে স্ত্রী লাঞ্ছিত

বরিশালের হিজলা উপজেলায় কাউরিয়া বাজারে এক যুবককে গাছে বেঁধে নির্মমভাবে নির্যাতনের অভিযোগ উঠেছে স্থানীয় এক ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে। স্বামীকে বাঁচাতে গেলে তার স্ত্রীকেও শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করা হয়। আজ শনিবার সকাল ১০টার দিকে হিজলার কাউরিয়া বাজারে এই ঘটনা ঘটে।

নির্যাতিত ব্যক্তির নাম নির্মল চন্দ্র দাস। তিনি ওই উপজেলার বড়জালিয়া ইউনিয়নের শ্রীপুর গ্রামের বিজয় দাসের ছেলে। অভিযুক্ত ব্যবসায়ীর নাম সালাম সরদার। তিনি কাউরিয়া বাজারের একজন মুদি ব্যবসায়ী।

দুই প্যাকেট সিগারেট চুরির অভিযোগে তাকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা করে ৭ দিনের মধ্যে এলাকা ছাড়ার নির্দেশ দেয়া হয়।

নির্যাতনের একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে। ১৬ সেকেন্ডের ভিডিওটিতে দেখা যায়, নির্মলের দুই হাত পিঠমোড়া করে সুপারি গাছের সাথে বেঁধে লাঠি দিয়ে পেটাচ্ছেন অভিযুক্ত ব্যবসায়ী সালাম সরদার। তাদের ঘিরে দাড়িয়ে আছেন উৎসুক জনতা। তবে তাদের কেউ নির্মলকে বাঁচাতে এগিয়ে আসেনি।

খবর পেয়ে নির্মলের স্ত্রী রূপা দাস তার স্বামীকে রক্ষা করতে গেলে তাকেও ধাক্কা দিয়ে ফেলে দেয় সে। পরে নির্মলকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা করে ৭ দিনের মধ্যে এলাকা ছেড়ে চলে যাওয়ার শর্তে ছেড়ে দেয় ব্যবসায়ী সালাম।

স্থানীয়রা জানায়, ব্যবসায়ী সালামের সাথে নির্মলের সুসম্পর্ক রয়েছে। এই সুবাদে নির্মল প্রায়ই সালামের দোকানে আড্ডা দেয়।

ব্যবসায়ী সালামের দোকানের সিসি ক্যামেরার ফুটেজে দেখা যায়, আজ সকাল ৮ টার দিকে নির্মল ওই দোকানে যায়। এ সময় সালাম ক্যাশকাউন্টার ফাঁকা রেখে অন্যত্র ব্যস্ত ছিলেন। এই সুযোগে নির্মল ওই দোকানে ব্যাগের মধ্যে লুকিয়ে রাখা ২ প্যাকেট সিগারেট কোমড়ে লুঙ্গিতে গুজে সটকে পড়ে।

নির্মলের স্ত্রী রূপা দাস বলেন, আজ সকালে ব্যবসায়ী সালাম সরদার তার স্বামীকে বাড়ি থেকে খবর দিয়ে বাজারে ডেকে নিয়ে গাছে বেঁধে নির্যাতন করে। তিনি ছাড়াতে গেলে তাকেও ধাক্কা দিয়ে পেলে দেয় সালাম সরদার।

রূপা বলেন, তার স্বামী চুরি করলে তাকে পুলিশের হাতে সোপর্দ করা উচিত ছিলো। কিন্তু সেটা না করে তাকে গাছে বেঁধে নির্যাতনের ঘটনায় বিচার দাবী করেন তিনি।

কাউরিয়া বাজারের ব্যবসায়ী সালাম সরদার বলেন, দোকান খোলা রেখে ব্যক্তিগত কাজে একটু বাইরে গিয়েছিলেন তিনি। দোকানে ফিরে ক্যাশ কাউন্টার এলোমেলো এবং সিগারেট রাখার ব্যাগ যথাস্থানে না দেখে তার সন্দেহ হয়। পরে সিসি ক্যামেরা ফুটেজে দেখেন নির্মল তার দোকান থেকে ২ প্যাকেট সিগারেট চুরি করে নিয়েছে। এ কারণে তাকে ধরে মারধর করার কথা স্বীকার করেন তিনি।

আরও পড়ুন:

বাংলাদেশসহ চার দেশে দুবাইগামী ফ্লাইট বন্ধ ৭ আগস্ট পর্যন্ত

চীন ও অস্ট্রেলিয়ায় করোনা পরিস্থিতি নিয়ে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার হুশিয়ারি

করোনা বিধিনিষেধ শিথিল করে বিপাকে যুক্তরাজ্য

সেনাবাহিনীতে বিভিন্ন বেসামরিক পদে ছয় শতাধিক নিয়োগ


এদিকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে গাছে বেঁধে নির্যাতনের ভিডিও ভাইরাল হওয়ার পর বিকেলে হিজলা থানার পরিদর্শক (তদন্ত) তারেক হাসান রাসেল ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।

মুঠোফোনে পুলিশ পরিদর্শক তারেক হাসান রাসেল বলেন, এক যুবককে গাছে বেঁধে নির্যাতনের অভিযোগে ব্যবসায়ী সালাম সরদারকে আজ বিকেল ৪টার দিকে আটক করা হয়েছে। এ ঘটনায় লিখিত অভিযোগ পেলে মামলা দায়ের সহ আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার কথা বলেন তিনি।

news24bd.tv/ নকিব

পরবর্তী খবর

দিনাজপুরে অভিযানে জঙ্গি সন্দেহে আটক ৪৫

অনলাইন ডেস্ক


দিনাজপুরে অভিযানে জঙ্গি সন্দেহে আটক ৪৫

দিনাজপুরে বিভিন্ন মসজিদে অভিযান চালিয়ে জঙ্গি সন্দেহে ৪৫ জনকে আটক করেছে পুলিশের অ্যান্টি টেররিজম ইউনিট। গতকাল রাতে সদর উপজেলা ও বিরল উপজেলা থেকে তাদের আটক করা হয়। আটক সবাই দিনাজপুরে পুলিশি হেফাজতে আছেন।

অভিযানে মেধ্যাপাড়ার বাইতুল ফালাহা জামে মসজিদ থেকে ১২ জন, বিরল উপজেলার বিরল বাজার জামে মসজিদ থেকে ১৭, বোচাগঞ্জ উপজেলার আটগাঁও বড়ুয়া গ্রামের জামে মসজিদ থেকে সাত ও দিনাজপুর সদর উপজেলার একটি মসজিদ থেকে নয়জনকে আটক করা হয়। 

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) সুজন সরকার বলেন, ঢাকা থেকে অ্যান্টি টেররিজমের একটি ইউনিট গতকাল দিনাজপুরে আসে। ইউনিটটি রাতে বিভিন্ন মসজিদে অভিযান চালায়। স্থানীয়ভাবে আমাদের সহযোগিতা চেয়েছিল, আমরা আমাদের ফোর্স দিয়ে সহযোগিতা করেছি।

অভিযানে থাকা নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক পুলিশের এক কর্মকর্তা বলেন, তাবলিগ জামাতে আসা একটি দল নাশকতার পরিকল্পনা করছে- এমন তথ্যের ভিত্তিতে ঢাকার কাউন্টার টেররিজম ইউনিটের সঙ্গে স্থানীয় পুলিশ যৌথভাবে অভিযান পরিচালনা করে। জেলার বেশ কয়েকটি মসজিদে অভিযান পরিচালনা করে মোট ৪৫ জনকে আটক করা হয়। আটক ব্যক্তিরা জেলা পুলিশের হেফাজতে রয়েছে।

আরও পড়ুন:


একবার বিদ্রোহী হলে আজীবন নৌকা থেকে বঞ্চিত

ফিফা র‍্যাঙ্কিংয়ে শীর্ষ পাঁচে নেই আর্জেন্টিনা

করোনায় স্কুল বন্ধ থাকায় শ্রেণিকক্ষে সপরিবারে বসবাস

রোহিঙ্গা ইস্যুতে কমনওয়েলথের সহায়তা চাইলেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী


বাইতুল ফালাহ জামে মসজিদের খাদেম আব্দুর রাজ্জাক বলেন, বৃহস্পতিবার ২২ জন মানুষ ঢাকা থেকে আসেন। তাদের মধ্যে ১২ জন এখানে অবস্থান করে বাকিরা অন্য মসজিদে থাকার কথা বলে চলে যান। রাতে এশার নামাজের পর আমরা বাসায় চলে গেলে তারা মসজিদেই অবস্থান করছিল। পরে রাতে শুনতে পারি তাদের পুলিশ ধরে নিয়ে গেছে। 

এ ব্যাপারে দিনাজপুরের পুলিশ সুপার আনোয়ার হোসেন জানান, রাতে ঢাকার কাউন্টার টেররিজম ইউনিট দিনাজপুর শহর, বিরল ও বোচাগঞ্জ উপজেলার একাধিক মসজিদে অভিযান পরিচালনা করেছে। আমরা তাদের সহযোগিতা করেছি। তবে কতজন আটক হয়েছে, তা এখন জানানো সম্ভব হচ্ছে না। যাচাই-বাছাই শেষে পরে বিস্তারিত জানানো হবে।

news24bd.tv নাজিম

পরবর্তী খবর

কুমিল্লায় খুতবার সময় সংঘর্ষ, নিহত ১

অনলাইন ডেস্ক

কুমিল্লায় খুতবার সময় সংঘর্ষ, নিহত ১

কুমিল্লার মুরাদনগরে মসজিদে জুমার খুতবার সময় মুসিল্লদের মধ্যে সংঘর্ষে একজন নিহত হয়েছেন। এসময় আহত হয়েছেন সাতজন।

শুক্রবার (১৭ সেপ্টেম্বর) দুপুরে উপজেলার কুড়াখাল গ্রামের বাইতুন নুর জামে মসজিদে এ ঘটনা ঘটে।

বিস্তারিত আসছে...

news24bd.tv নাজিম

পরবর্তী খবর

নাটোরে অজ্ঞাত মহিলার লাশ উদ্ধার

নাটোর প্রতিনিধি:

নাটোরে অজ্ঞাত মহিলার লাশ উদ্ধার

নাটোর নবাব সিরাজ-উদ-দৌলা সরকারি কলেজ মাঠের পাশ থেকে বৃহস্পতিবার রাতে এক অজ্ঞাত মহিলার (৬০) লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। 

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, রাত সাড়ে ১১টার দিকে ব্যাটারিচালিত অটোরিকশা চালানোর সময় সদরের গুনারীগ্রামের অটো চালক শান্ত আলী সরকারি কলেজ মাঠের সামনে রাস্তার পাশে কোন রক্তাক্ত মহিলাকে পড়ে থাকতে দেখে নাটোর আধুনিক সদর হাসপাতালে নিয়ে যান। কর্তব্যরত চিকিৎসক এ সময় মধ্য বয়সী অজ্ঞাত ঐ রক্তাক্ত মহিলাকে মৃত বলে ঘোষণা করেন।

আরও পড়ুন:


কিশোরীকে আটকে রেখে পতিতাবৃত্তিতে বাধ্য করায় নারী আটক

করোনায় স্কুল বন্ধ থাকায় শ্রেণিকক্ষে সপরিবারে বসবাস

বগুড়ায় বাসের ধাক্কায় অটোরিকশার দুই নারী যাত্রী নিহত

যশোরের ১৮টি রুটে দাপিয়ে বেড়াচ্ছে


প্রাথমিক ভাবে চিকিৎসকের ধারণা কোন যানবাহন এই মহিলাকে ধাক্কা দিয়ে ফেলে রেখে চলে গেছে। মাথায় আঘাত লাগার কারণে তার মৃত্যু হয়েছে। 

আজ শুক্রবার দুপুরে নাটোর থানার এস আই বেলাল হোসেন জানান, বিকেল তিনটা পর্যন্ত লাশের কোন পরিচয় পাওয়া যায়নি। 

NEWS24.TV / কামরুল

পরবর্তী খবর

সুদবিহীন লাভের তকমা দিতে প্রচারণা

১৬ হাজার গ্রাহকের ৩শ’কোটি টাকা এহসান গ্রুপের পকেটে

রিপন হোসেন

যশোরের ১৬ হাজার গ্রাহকের ৩শ’কোটি টাকা এহসান গ্রুপের প্রতারকদের পকেটে। ভুক্তভোগীদের অভিযোগ, মাসে এক লাখে ১৬শ’ টাকা মুনাফার প্রতিশ্রুতি দিয়ে টাকা জমা নেয় প্রতিষ্টানটি। আর এ কাজে বিভিন্ন মসজিদের ইমাম ও মুয়াজ্জিনদের মাধ্যমে প্রচারণা চালায়। 

সাধারণ মানুষ সরল বিশ্বাসে তাদের গচ্ছিত কাড়ি কাড়ি টাকা ব্যবসায় লগ্নি করে। আর লভ্যাংশ ও বিনিয়োগের টাকা ফেরত না পেয়ে দিশেহারা হয়ে পড়েছেন তারা।

যশোর শহরের মিশনপাড়ার আফসার। ছিলেন এয়ারফোর্সের ক্লার্ক। পেনশনের পাওয়া ১২ লাখ ৫০ হাজার টাকা ২০১১ সালের শেষের দিকে লগ্নি করেছিলেন এহসান এসে। দুই বছর মুনাফা পেলেও তারপরই বন্ধ হয়ে যায়। এরপর অনেক ঘুরেও লভ্যাংশ ও বিনিয়োগের টাকা আর ফেরত পাননি। এখন যে চিকিৎসা করবে সেই টাকাও নেই।

শুধু আফসার উদ্দিনই নন, তার মত ১৬ হাজার গ্রাহক জমি বিক্রি, পেনশনের টাকা তুলে দিয়েছেন এহসান গ্রুপের হাতে। এখন লাভের টাকা তো দুরের কথা আসল টাকা না পেয়ে বিপাকে পড়েছেন তারা।

এহসান রিয়েল এস্টেট অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট লিমিটেডের চেয়ারম্যানসহ ২৬ জনের বিরুদ্ধে আদালতে ২টি মামলা দায়ের হয়েছে। গ্রাহকের টাকা প্রত্যারণার সত্যতাও পেয়েছে পিবিআই।

অবশ্য এহসান ইসলামি মাল্টিপারপাস কো-অপারেটিভ সোসাইটি ভাইস চেয়ারম্যান বলেছেন, তাদের গ্রাহকের টাকা টাকা দ্রুত সময়ের মধ্যে পরিশোধ করে দিবেন।

এহসান গ্রুপের এহসান সোসাইটি, এহসান রিয়েল এস্টেট অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট লিমিটেড, এহসান ইসলামি মাল্টিপারপাস কো-অপারেটিভ সোসাইটি, আল এহসান নামে চারটি প্রতিষ্ঠান রয়েছে। দ্রুত এসব প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি ভুক্তভোগীদের।

আরও পড়ুন:


কিশোরীকে আটকে রেখে পতিতাবৃত্তিতে বাধ্য করায় নারী আটক

করোনায় স্কুল বন্ধ থাকায় শ্রেণিকক্ষে সপরিবারে বসবাস

বগুড়ায় বাসের ধাক্কায় অটোরিকশার দুই নারী যাত্রী নিহত

যশোরের ১৮টি রুটে দাপিয়ে বেড়াচ্ছে


NEWS24.TV / কামরুল

পরবর্তী খবর

রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের আশঙ্কা

আদালতের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে ঘর নির্মাণের অভিযোগ

শেখ রুহুল আমিন, ঝিনাইদহ :

আদালতের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে ঘর নির্মাণের অভিযোগ

আদালতের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে ঝিনাইদহের ভুটিয়ারগাতী গ্রামে বিবাদপূর্ণ সম্পত্তিতে জবরদখল করে ঘর নির্মানের অভিযোগ উঠেছে। এতে উভয় পক্ষের মধ্যে যেকোন সময় রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের আশঙ্কা করছেন এলাকাবাসী।

এদিকে বাদী শহীদ মুক্তিযোদ্ধা আনছার উদ্দিনের ছেলে আব্দুল্লাহ পুলিশের দারস্থ হয়েও পাচ্ছেন না কোন প্রতিকার। পুলিশের ভূমিকা রহস্যজনক বলেও মন্তব্য করেন তিনি। বিষয়টি তদন্তপূর্বক ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য প্রশাসনের উদ্ধর্তন কর্তৃপক্ষ ও আদালতের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন অসহায় ভুক্তভোগী। 

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, আদালতের ১৪৪ ধারা জারি ও পৌরসভার নিষেধাজ্ঞা থাকা সত্ত্বেও সেটি আমলে না নিয়ে ক্ষমতার দাপট দেখিয়ে শহরের পূর্ব খাজুরা গ্রামের ইছাহাক আলীর ছেলে রাশেদুজ্জামান বৃহস্পতিবার ঘরের ছাদ ঢালাই কাজ সম্পন্ন করেছেন এবং শুক্রবারও শ্রমিক লাগিয়ে নির্মাণ কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন।

এ ব্যাপারে সদর থানার অফিসার ইনচার্জ ওসি শেখ মোহাম্মদ সোহেল রানা জানান, পুলিশের কাজ পুলিশ পালন করেছে। আদালতের আদেশক্রমে ওই জায়গায় গিয়ে ১৪৪ ধারা জারি করে আসা হয়েছে। যদি তারা কাজ করেই থাকে তাহলে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

আরও পড়ুন:


কিশোরীকে আটকে রেখে পতিতাবৃত্তিতে বাধ্য করায় নারী আটক

করোনায় স্কুল বন্ধ থাকায় শ্রেণিকক্ষে সপরিবারে বসবাস

বগুড়ায় বাসের ধাক্কায় অটোরিকশার দুই নারী যাত্রী নিহত

যশোরের ১৮টি রুটে দাপিয়ে বেড়াচ্ছে


NEWS24.TV / কামরুল

পরবর্তী খবর