বাগেরহাটে মটরসাইকেল চোর সিন্ডিকেটের ২ সদস্য গ্রেপ্তার
বাগেরহাটে মটরসাইকেল চোর সিন্ডিকেটের ২ সদস্য গ্রেপ্তার

বাগেরহাটে মটরসাইকেল চোর সিন্ডিকেটের ২ সদস্য গ্রেপ্তার

Other

বাগেরহাট ডিবি পুলিশ অভিযান চালিয়ে আন্ত:জেলা মটরসাইকেল চোর সিন্ডিকেটের দুই সদস্যকে গ্রেপ্তার করে তাদের দেয়া তথ্যমতে ক্রেতাদের কাছ থেকে ৩টি চোরাই মটরসাইকেল উদ্ধার করেছে।  

শনিবার দুপুরে জেলা পুলিশ অফিসে প্রেস ব্রিফিং করে বাগেরহাটের পুলিশ সুপার কে এম আরিফুল হক এতথ্য জানিয়েছেন।

বাগেরহাটের পুলিশ সুপার জানান, শুক্রবার রাতে বাগেরহট কেন্দ্রীয় বাস ট্যার্মিনাল থেকে ডিবি পুলিশের সদস্যরা সন্দেহজনত গতিবিধির দেখে মো. রাজু হাওলাদার (২৪) নামে এক যুবককে আটক করে। আটক রাজু বাগেরহাটের শরণখোলা উপজেলা সদরের রায়েন্দা পাঁচরাস্তার মোড়ের কামরুলের গ্যারেজের মেকানিক ও একই উপজেলার চালরায়েন্দা গ্রামের রাজ্জাক হাওলাদারের ছেলে।

 

আটককের পর রাজু ডিবি পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে স্বীকার করে সে আন্ত:জেলা মটরসাইকেল চোর সিন্ডিকেটের সদস্য। একই উপজেলার পূর্ব রাজাপুর গ্রামের তার নেতা মাওলানা ইউসুফ মুন্সি’র (৬৫) চাহিদা মতো ২০১৭ সাল থেকে বাগেরহাটের বিভিন্ন উপজেলা থেকে মটরসাইকেল চুরি করে তার কাছে পৌঁছে দিতো।  

পরে ইউসুফ মুন্সি চোরাই মটরসাইকেলগুলো কাগজপত্র ছাড়াই বিক্রি করে তাকে ভাগের টাকা দিতো। এ তথ্য জানান পর রাতেই শরণখোলা উপজেলার পূর্ব রাজাপুর গ্রামের আজিজ মুন্সির ছেলে মাওলানা ইউসুফ মুন্সিকে তার বাড়ি থেকে আটক করে।  

আটকের পর মাওলানা ইউসুফ মুন্সি নিজেকে গেজেভূক্ত বীর মুক্তিযোদ্ধা বলে পরিচয় দিয়ে নিজেকে নির্দোশ বলে দাবি করার পর আটক রাজুকে সামনে আনার পর মটরসাইকেল চুরির সাথে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে। পরে এই দুইজনের দেয়া তথ্যে ওই রাতেই ২০১৭ সালে চুরি করার পর বিক্রি করে ৩ টি চোরাই মটররসাইকেল শরণখোলার বিভিন্ন এলাকা থেকে ক্রেতাদের কাছ থেকে উদ্ধার করে। গ্রপ্তারকৃত রাজুর নামে বাগেরহাটের বিভিন্ন থানায় ৮টি মামলা রয়েছে।

পুলিশ জানায়, উদ্ধারকৃত ৩ টি মটরসাইকেলের মধ্যে ২০১৭ সালের ৮ নভেম্বর মোরেলগঞ্জ উপজেলার দৈবজ্ঞহাটি কৃষি ব্যাংকের ব্যবস্থাপক গোলাম মোস্তফিজুর রহমানের বাইকটি সিড়ি রুম থেকে ও একই দিন রামপাল উপজেলার ভাগা বাজার থেকে দুলাল হাওলাদারের বাইকটি চুরি করে রাজু। একই বছরের ২০ সেপ্টেম্বর বাগেরহাট শহরের আমলাপাড়া থেকে অষুধ কোম্পানীর বিক্রয় প্রতিনিধি শেখ সোহাগ হোসেনের বাইকটি চুরি করে বাজু। এই ৩টি বাইকের প্রকৃত মালিকদের খুজে পেয়েছে পুলিশ।  

এই দুই সদস্যকে গ্রেপ্তার দেখিয়ে বিকালে আদালতের মাধ্যমে রিমান্ডে এনে জিজ্ঞাসাবাদ করলে এই চোর সিন্ডিকেটের গডফাদারসহ জড়িতদের গ্রেপ্তার ও আরও চোরাই মোটরসাইকেল উদ্ধার করা সম্ভব হবে।  

জেলা পুলিশের এই প্রেস ব্রিফিংএ পুলিশ সুপার ছাড়াও অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধও প্রশাসন) মো. আসাদুজ্জামান, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (হেড কোয়াটার) মো. মিজানুর রহমান, ওসি ডিবি রেজাইল করিম, ওসি সদর কে এম আজিজুল ইসলামসহ সাংবাদকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।   

আরও পড়ুন:


দেশে একদিনে করোনায় মৃত্যু বাড়ল

দক্ষিণের পথে পথে ঢাকামুখি মানুষের স্রোত

বগুড়ায় করোনা ও উপসর্গে ৯ জনের মৃত্যু

বাংলাবান্ধা স্থলবন্দর ১২ দিন পর চালু


news24bd.tv / কামরুল 

;