মাদারীপুরে ঘুমের ঔষধ খাইয়ে অচেতন করে স্বামীকে হত্যা, স্ত্রীর দায় স্বীকার

মাদারীপুর প্রতিনিধি:

মাদারীপুরে ঘুমের ঔষধ খাইয়ে অচেতন করে স্বামীকে হত্যা, স্ত্রীর দায় স্বীকার

মাদারীপুরের কালকিনিতে স্বামীকে ঘুমের ঔষধ খাইয়ে অচেতন করে হত্যার ঘটনা ঘটেছে। ঘটনার একমাস ১১ দিন পর স্বামী হত্যার দায় স্বীকার করেছে নিহতের স্ত্রী রুবি বেগম (২৩)। ঘটনাটি ঘটেছে কালকিনি উপজেলার পূর্ব এনায়েতনগর এলাকার পূর্ব আলিপুর গ্রামে।

পুলিশ ও ভুক্তভোগী সুত্রে জানা যায়, কালকিনির পূর্ব এনায়েতনগর এলাকার পূর্ব আলিপুর গ্রামের মান্নান কাজীর ছেলে মো. নাজিমুদ্দিন কাজীর (২৫) সঙ্গে একই এলাকার মো. কামাল সিকদারের মেয়ে রুবি বেগমের পারিবারিক ভাবে বিয়ে হয়। তাদের সংসারে চার বছর বয়সের একটি ছেলে সন্তান রয়েছে। কিন্তু গত ২১ জুন রাতে স্বামী মো. নাজিমুদ্দিন স্ট্রোক করে মারা যায় বলে এলাকায় প্রচার করে স্ত্রী রুবি বেগম। 

করোনার প্রকোপের কারণে তরিঘরি করে তার লাশ স্বাভাবিক মৃত্যু হিসেবে দাফন করা হয়। নিহতের বাবা মা নেই। তবে নিহতের অন্য আত্মীয়দের সন্দেহ হয়। তাদের ধারণা পরকীয়ার জের ধরেই তাকে হত্যা করা হয়েছে। 

গত শনিবার নাজিমুদ্দিনের ফুফু মতি বেগম থানায় মামলা করার জন্য গেলে কালকিনি থানা পুলিশ মামলা না নিয়ে তাদের মাদারীপুর কোর্টে মামলা করতে বলেন।

রোববার বিকালে স্থানীয় এলাকাবাসির তোপের মুখে এ হত্যার দায় স্বীকার করেন ওই স্ত্রী। ইউপি চেয়ারম্যানের রেহানা নেয়ামুলের স্বামী নেয়ামুল আকন বিষয়টি কালকিনি থানা পুলিশকে অবহিত করেন। পুলিশ সন্ধ্যার পরে ঘটনা স্থালে গিয়ে ঘাতক স্ত্রী রুবি বেগমকে আটক করেন।

ঘাতক রুবি বেগম স্বীকারোক্তিতে জানান, আলিপুর মোল্লারহাট বাজারের ঔষধের দোকানের চিকিৎসক আব্দুল আলির কাজ থেকে ঘুমের ওষুধ এনে দুধের সাথে মিশিয়ে স্বামী মো. নাজিমুদ্দিনকে খাইয়ে অচেতন করে হত্যা করে।

নিহতের ভাই নাইম ও ফুফু মতি বেগম বলেন, আমাদের আগেই সন্দেহ হয়েছিল নাজিমুদ্দিন মারা যায়নি তাকে হত্যা করা হয়েছে। আমরা থানায় মামলা করতে গেলে থানা পুলিশ মামলা নেয়নি। আমাদের মাদারীপুর কোর্টে গিয়ে মামলা দিতে বলে। পরে এলাকার লোকজন নিয়ে রুবিকে জিজ্ঞাসাবাদ করলে রুবি ঘুমের ওষুধ খাইয়ে হত্যা করেছে বলে স্বীকার করে।

এ ব্যাপারে কালকিনি থানার ওসি ইসতিয়াক আশফাক রাসেল বলেন, ভুক্তভোগী পরিবার রোববার রাতে থানায় হত্যা মামলা করেছে। জিজ্ঞাসাবাদের স্বামীকে হত্যার কথা স্বীকার করেছে। মামলার আসামী রুবিকে আটক শেষে সোমবার মাদারীপুর জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে।

আরও পড়ুন:


চট্টগ্রামে করেনা ও উপসর্গ নিয়ে ১১ জনের মৃত্যু

পিয়াসা ও মৌ উচ্চবিত্তদের বাসায় ডেকে ব্ল্যাকমেইল করত : হারুন

৯৯৯ এ ফোন কলেবারান্দার কার্নিশ আটকে পড়া কিশোরী উদ্ধার

পোশাকের নেমপ্লেট খুলে চাঁদাবাজির অভিযোগে এসআই স্ট্যান্ড রিলিজ


news24bd.tv / কামরুল 

পরবর্তী খবর

আস্থা গেটওয়ে লিমিটেড হাতিয়ে নিয়েছে কোটি কোটি টাকা

মৌ খন্দকার

প্রতিষ্ঠানের নাম ‘আস্থা গেটওয়ে লিমিটেড’। সরকারি-বেসরকারি বিভিন্ন চাকরি পাইয়ে দেয়ার কথা বলা হলেও অর্থ হাতিয়ে নেয়াই ছিল মূল উদ্দেশ্য। প্রতিষ্ঠান সংশ্লিষ্টরা দীর্ঘদিন ধরে বিভিন্ন পদে চাকরির মিথ্যা প্রলোভন দেখিয়ে জাল নিয়োগপত্র প্রদান করে হাতিয়ে নিয়েছেন কোটি কোটি টাকা।

বুধবার রাজধানীর ভাটারায় ওই প্রতিষ্ঠানটিতে অভিযান চালিয়ে দুইজনকে গ্রেফতার করে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি)।

এসময় তাদের কাছ থেকে ইমেক্স ম্যানপাওয়ার রিক্রুটিং এজেন্সি বাংলাদেশ লিমিটেডের ২৪টি ভুয়া নিয়োগপত্র, বিভিন্ন চাকরি প্রার্থীদের আবেদন ফরম, চাকরি প্রার্থীদের নিবন্ধন ফরম, জীবন বৃত্তান্ত, ভিজিটিং কার্ডসহ বিভিন্ন মালামাল উদ্ধার করা হয়।

গ্রেফতার দুইজনসহ মোট পাঁচজনকে আসামি করে ভাটারা থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার  দুপুরে রাজধানীর মালিবাগে সিআইডির প্রধান কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা জানান অতিরিক্ত ডিআইজি ইমাম হোসেন।

তিনি বলেন, তারা দেশের চাকরিপ্রার্থী বিপুল পরিমাণ ভুক্তভোগীর কাছ থেকে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছে।

 news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

ইভ্যালির সিইও রাসেল ও চেয়ারম্যান নাসরীন গ্রেপ্তার (ভিডিও)

প্লাবন রহমান

শেষমেষ প্রতারণার অভিযোগে করা মামলায় গ্রেপ্তার হলেন ই-কমার্স প্ল্যাটফর্ম ইভ্যালির এমডি এবং চেয়ারম্যান। বৃহস্পতিবার বিকেলে ঢাকার মোহাম্মদপুরে এমডি রাসেলের বাসায় অভিযান চালিয়ে তাদের দুজনকে গ্রেপ্তার করা হয়। এমন অবস্থায়- অনিশ্চয়তায় পড়েছেন লাখ লাখ টাকা বিনিয়োগ করা গ্রাহকরা। সুরাহা চেয়েছেন সরকারের কাছে।

বাংলাদেশের ই-কমার্সের অন্য নাম হয়ে হয়ে উঠেছিল ইভ্যালি। কম দামে পন্য ডেলিভারির মাধ্যমে অল্প দিনেই জনপ্রিয় হয়ে ওঠে এই ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান। বিভিন্ন অফারের প্রলোভন দেখিয়ে লাখ লাখ গ্রাহকের কোটি কোটি টাকা বিনিয়োগ পায় ইভ্যালি।

কিন্তু সময়মত পন্য না দেয়া, সম্পদ-দেনার ব্যাপক ফারাকে সমালোচনায় পড়ে ইভ্যালি। এমন অবস্থায়-‌প্রতারণার অভিযোগে গত বুধবার রাতে আরিফ বাকের নামের এক গ্রাহক গুলশান থানায় প্রতারণা ও অর্থ আত্মসাতের অভিযোগে ইভ্যালির মো. রাসেল ও তাঁর স্ত্রী চেয়ারম্যান শামীমা নাসরিনের বিরুদ্ধে মামলা করেন। সেই মামলায় বৃহস্পতিবার বিকেলে ইভ্যালির এমডি চেয়ারম্যানের বাসায় অভিযান শুরু করে র‌্যাব। পরে তাদের দুজনকে গ্রেপ্তার করে নিয়ে যায় র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটেলিয়ন র‌্যাব।

তথ্য বলছে-আলোচিত ই-কমার্স প্ল্যাটফর্ম ইভ্যালির মোট দেনার পরিমাণ ৫৪২ কোটি ৯৯ লাখ ৫৮ হাজার ৪৮২ টাকা। এই দেনার বিপরীতে তাদের দৃশ্যমান সম্পদ মাত্র ৬৫ কোটি টাকা। এমন অবস্থায় নিজেদের বিনিয়োগ নিয়ে অনিশ্চয়তা দেশের প্রায় ৫০ লাখ গ্রাহক।

আরও পড়ুন: 


রাসেলের বাসায় র‌্যাবের অভিযান চলছে

স্ত্রী হত্যার অভিযোগ, স্বামী-শ্বশুর পলাতক

চীনে ১০ কি.মি. গভীরতার শক্তিশালী ভূমিকম্পের হানা

দুবলার চর থেকে খুলনা কাঁকড়া পরিবহনে বাধা নেই: হাইকোর্ট


 

প্রতিষ্ঠানটির সিইও এবং চেয়ারম্যান গ্রেপ্তার হওয়ার সময় গ্রাহকরা নিজেদের দুরাবস্থার কথা জানিয়ে সরকারের কাছে সমাধান চেয়েছেন।

২১ অক্টোবরের মধ্যে ইভ্যালির বিরুদ্ধে অর্থ আত্মসাতের মামলার প্রতিবেদন দেয়ার নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

 news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

রাজশাহীতে পুকুরে মাছ ধরতে গিয়ে বজ্রপাতে জেলের মৃত্যু

রাজশাহী প্রতিনিধি

রাজশাহীতে পুকুরে মাছ ধরতে গিয়ে বজ্রপাতে জেলের মৃত্যু

রাজশাহীতে পুকুরে মাছ ধরতে গিয়ে বজ্রপাতে জেলের মৃত্যু হয়েছে।

বিস্তারিত আসছে...

আরও পড়ুন: 


রাসেলের বাসায় র‌্যাবের অভিযান চলছে

স্ত্রী হত্যার অভিযোগ, স্বামী-শ্বশুর পলাতক

চীনে ১০ কি.মি. গভীরতার শক্তিশালী ভূমিকম্পের হানা

দুবলার চর থেকে খুলনা কাঁকড়া পরিবহনে বাধা নেই: হাইকোর্ট


news24bd.tv তৌহিদ

পরবর্তী খবর

কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগ স্কুল শিক্ষিকার বিরুদ্ধে

ডেস্ক রিপোর্ট

হালাল উপার্জন আর বেশি লাভের প্রলোভন দেখিয়ে প্রতারণার অভিযোগ উঠেছে পাবনার এক স্কুল শিক্ষিকার বিরুদ্ধে। পাবনা শহরের শতাধিক মানুষের কাছ থেকে কয়েক কোটি টাকা আত্মসাত করেছেন বলে অভিযোগ স্থানীয়দের। পুলিশ এরইমধ্যে ওই নারীকে আটক করেছে। 

পাবনা পৌরসভার আটুয়া হাউজ পাড়ার চিত্র। প্রতারণার অভিযোগ এনে এক স্কুল শিক্ষিকার বাড়িতে ভিড় করেছেন স্থানীয় মানুষ। একবছর আগে সীমা আক্তার নামে এই শিক্ষিকা ব্যবসায় বিনিয়োগের কথা বলে বিভিন্ন জনের কাছ থেকে কোটি টাকা হাতিয়ে নেন বলে অভিযোগ।

এক পর্যায়ে ওই অর্থ নিয়ে গা ঢাকা দেন শিক্ষিকা। ৬ মাস পর নিজের বাড়িতে ফিরলে টাকার জন্য চাপ দেন প্রতারণার শিকার মানুষ।

কোনো ব্যবসা না থাকলেও, বিভিন্ন স্থানে বিনিয়োগের কথা বলে প্রতারণার বিষয়টি স্বীকার করেছেন সীমা আক্তার।

আরও পড়ুন


আশ্রয়ণ প্রকল্প: এটা তো দুর্নীতির জন্য হয়নি, এটা কারা করলো?

আগের স্ত্রীকে তালাক না দিয়েই মাহিকে বিয়ে করেছে রাকিব

আমরা কখনো জানতামও না যে এই সম্পদ আমাদেরই ছিলো


 

এ নিয়ে গেল মঙ্গলবার আটুয়া হাউজপাড়ায় উত্তপ্ত হয়ে ওঠে পরিস্থিতি। এক পর্যায়ে পুলিশে খবর দেন ভুক্তভোগিরা। পরে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী আটক করে সীমা আক্তারকে।

স্থানীয়রা জানান, সীমা আক্তারের প্রতারণার শিকার হয়েছেন পাবনা শহরের আটুয়া হাউজপাড়াসহ বিভিন্ন এলাকার শতাধিক মানুষ।

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

১০ টাকার ভাড়া নিয়ে বাগবিতণ্ডা, দা দিয়ে কুপিয়ে হত্যা চালককে

অনলাইন ডেস্ক

১০ টাকার ভাড়া নিয়ে বাগবিতণ্ডা, দা দিয়ে কুপিয়ে হত্যা চালককে

১০ টাকা ভাড়া বেশি চাওয়ায় অটোরিকশা চালককে কুপিয়ে হত্যা করেছেন এক যাত্রী! এ ঘটনায় অভিযুক্ত যাত্রী পলাতক রয়েছেন। নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ উপজেলায় ১০ টাকা বেশি ভাড়া চাওয়ায় এ হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। 

বৃহস্পতিবার (১৬ সেপ্টেম্বর) দুপুর দেড়টার দিকে নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ উপজেলার চৌমুহনী পৌরসভার গণিপুর গ্রামে ঘটনাটি ঘটে। 

বৃহস্পতিবার  দুপুর পৌনে ২টার দিকে রিকশাচালক আবুল হোসেন চৌমুহনী রেল স্টেশন থেকে এক ব্যক্তিকে নিয়ে গণিপুর গ্রামে যায়। একপর্যায়ে ওই যাত্রীর সঙ্গে ভাড়া নিয়ে তার বাগবিতণ্ডা হয়। পরে ওই যাত্রী ১০ টাকা রিকশা ভাড়া বেশি চাওয়ায় বাড়ি থেকে দা এনে রিকশাচালকের গলায় কোপ দেয়। এতে চালকের গলার শ্বাসনালী কিছু অংশ কেটে যায়। 

আরও পড়ুন


আশ্রয়ণ প্রকল্প: এটা তো দুর্নীতির জন্য হয়নি, এটা কারা করলো?

আগের স্ত্রীকে তালাক না দিয়েই মাহিকে বিয়ে করেছে রাকিব

আমরা কখনো জানতামও না যে এই সম্পদ আমাদেরই ছিলো

নাশকতার মামলায় নওগাঁর পৌর মেয়র সনিসহ বিএনপির ৩ নেতা কারাগারে


স্থানীয়রা আহত চালককে উদ্ধার করে নোয়াখালীর ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে ১ নম্বর ওয়ার্ডে ভর্তি করেন। চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান।

নিহত চালক আবুল হোসেন (৩৫) ওই গ্রামের চান মিয়ার ছেলে।

এবিষয়ে বেগমগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মুহাম্মদ কামরুজ্জামান শিকদার জানান, অভিযুক্ত আসামিকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চালাচ্ছে পুলিশ।

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর