৫ আগস্টের পর হোটেল-রেস্তোরাঁ খুলতে চায় মালিক সমিতি

অনলাইন ডেস্ক

৫ আগস্টের পর হোটেল-রেস্তোরাঁ খুলতে চায় মালিক সমিতি

চলতি মাসের ২৩ তারিখ থেকে দেশব্যাপী চলছে কঠোর বিধিনিষেধ। যা চলবে আগামী ৫ আগস্ট পর্যন্ত। দীর্ঘ ১৪ দিনের এই লকডাউন শেষে স্বাস্থ্যবিধি মেনে স্বাভাবিক নিয়মে হোটেল-রেস্তোরাঁ খোলা রাখতে চান মালিকরা। সম্ভব না হলে আপাতত ৫০ শতাংশ আসন খালি রেখে হোটেল-রেস্তোরাঁ খুলতে চান তারা। 

আজ দুপুরে রাজধানীর সেগুনবাগিচায় ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে (ডিআরইউ) এক সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশ রেস্তোরাঁ মালিক সমিতি এ দাবি জানায়।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, করোনাভাইরাসের আঘাতে রেস্তোরাঁ সেক্টরটি সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। গতবছরের ৮ মার্চ থেকে করোনাভাইরাসজনিত কারণে সরকারি পরিপত্র অনুযায়ী রেস্তোরাঁ ব্যবসা কখনও ৫০ শতাংশ আসনে বসিয়ে আবার কখনও অনলাইন/টেকএওয়ের মাধ্যমে ব্যবসা সীমিত রেখেছি। আমাদের রেস্তোরাঁ ব্যবসা শুধুমাত্র অনলাইন ডেলিভারি/টেকএওয়ের ওপর নির্ভরশীল হয়ে চালানো সম্ভব নয়। রেস্তোরাঁ ব্যবসায়ীরা বর্তমানে নানা সমস্যায় জর্জরিত।

এতে জানানো হয়, সারাদেশে ৬০ হাজার রেস্তোরাঁয় ৩০ লাখ কর্মকর্তা-কর্মচারী এবং প্রায় দুই কোটি মানুষ প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে জড়িত রয়েছে, যারা এখন মানবেতর জীবনযাপন করছে। সারাদেশে শতকরা ৮০ ভাগ রেস্তোরাঁ বন্ধ রয়েছে। প্রতিদিন দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে কেন্দ্রীয় নেতাদের কাছে হাহাকারের টেলিফোন আসছে। রেস্তোরাঁ বন্ধ থাকায় সংশ্লিষ্ট মালিকপক্ষ ও কর্মকর্তা-কর্মচারীরা যে হৃদয়বিদারক কষ্ট করছে, তা ভাষায় বোঝানো সম্ভব নয়।

রেস্তোরাঁ মালিকরা জানান, বর্তমানে টেকএওয়ে, পার্সেল ও অনলাইন ডেলিভারি করছে এমন প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা হোটেল-রেস্তোরাঁ অনুপাতে মাত্র ২ থেকে ৩ শতাংশ। আমরা মনে করি, বর্তমানে শুধু অনলাইন ডেলিভারির সুযোগ দিয়ে রেস্তোরাঁ বন্ধ রাখার ঘোষণাটি দুরভিসন্ধিমূলক ও দেশীয় ব্যবসায়ীদের কোণঠাসা করার পথও বটে। এখানে দেশি-বিদেশি স্বার্থান্বেষী মহলের হাত রয়েছে।

প্রধানমন্ত্রীর কাছে রেস্তোরাঁ মালিক সমিতির দাবি-

১. পচনশীল (পেরিশেবল) পণ্য বিক্রি করার ক্ষেত্রে লোন দেওয়া যাবে না বলে বাংলাদেশ ব্যাংকের লোন দেওয়ার নির্দেশনা রয়েছে। তাই কোনো ব্যাংক-ই হোটেল-রেস্তোরাঁ খাতে লোন দিচ্ছে না।

২. জাতীয় রাজস্ব খাতে রেস্তোরাঁ সেক্টরের অনেক অংশীদারিত্ব এবং পর্যটন শিল্পের প্রধান নিয়ামক শক্তি হওয়া সত্ত্বেও শিল্পের মর্যাদা পাওয়া যাচ্ছে না।

৩. হোটেল রেস্তোরাঁ ব্যবসাকে চলমান রাখার জন্য রানিং ক্যাপিটাল হিসেবে এসএমই খাত থেকে এই সেক্টরে ২০ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ দিয়ে সহজ শর্তে, স্বল্প সুদে জামানত বিহীন এবং দীর্ঘমেয়াদি ঋণ দিতে হবে।

৪. যেহেতু রেস্তোরাঁ খাতটি একটি সেবা খাত, সেহেতু হোটেল-রেস্তোরাঁ মালিক-শ্রমিকদের অগ্রাধিকার ভিত্তিতে করোনার টিকা দেওয়া জরুরি। এ ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় সু-দৃষ্টি দেবেন, এটি আমাদের প্রাণের দাবি।

৫. হোটেল-রেস্তোরাঁ খাতে কর্মরত শ্রমিকদের প্রণোদনা দিতে হবে। এক্ষেত্রে শ্রমিকদের মোবাইলের মাধ্যমে নগদ অর্থ অথবা নির্দিষ্ট কার্ড দেওয়ার মাধ্যমে মাসিকভাবে খাদ্য সাহায্য দেওয়া যেতে পারে।

৬. হোটেল-রেস্তোরাঁ খাতকে শিল্পের মর্যাদা দিতে হবে। যেহেতু হোটেল-রেস্তোরাঁ খাতটি পর্যটন শিল্পের প্রধান নিয়ামক শক্তি। এছাড়া ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প কারখানা পরিচালনা করতে যে পরিমাণ নিয়মনীতি বাস্তবায়ন প্রয়োজন তার চেয়ে অধিক নিয়মনীতি বাস্তবায়ন হয়ে থাকে হোটেল-রেস্তোরাঁ খাতে।

আরও পড়ুন:


করোনায় আক্রান্ত কনডেম সেলের ফাঁসির আসামি

টিকা নিলে কমে মৃত্যু ঝুঁকি: আইইডিসিআর

করোনা: কুষ্টিয়ায় একদিনে ৯ জনের মৃত্যু

অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার দ্বিতীয় ডোজ টিকা প্রয়োগ শুরু


৭. হোটেল-রেস্তোরাঁ খাতকে একাধিক মন্ত্রণালয়ের অধীনে না রেখে একটি নির্দিষ্ট মন্ত্রণালয়ের অধীনে নিয়ে শিল্পের মর্যাদা দিতে হবে ও মনিটরিং ব্যবস্থা চালু করতে হবে।

৮. চালু করা ই-কমার্স টেকএওয়ে, পার্সেল ও অনলাইন ডেলিভারির ক্ষেত্রে বহির্বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে সর্বোচ্চ ১০ শতাংশ কমিশন করা ও একটি সুষ্ঠু নীতিমালা প্রণয়ন করে তাদের নিয়ন্ত্রণ করা। বর্তমানে ডেলিভারি কোম্পানিগুলো স্বেচ্ছাচারীভাবে ব্যবসা পরিচালনার মাধ্যমে নৈরাজ্যকর পরিস্থিতি সৃষ্টি করছে, যা আমাদের ব্যবসায়িক স্বাধীনতার স্বকীয়তা বিনষ্ট করছে এবং আমরা মনে করি, এতে সার্বভৌমত্ব ভূলুণ্ঠিত হচ্ছে বা করছে। যেটিকে ইস্ট ইন্ডিয়ার নীল চাষের সঙ্গে তুলনা করা যেতে পারে। ইতোমধ্যে অনলাইনে পণ্য ডেলিভারির ক্ষেত্রে সরকার একটি নির্দেশনা দিয়েছে, যা অতি জরুরি ছিল। সে অনুযায়ী হোটেল-রেস্তোরাঁর ই-ফুড ডেলিভারির ক্ষেত্রেও সু-নির্দিষ্ট নীতিমালা দেওয়া জরুরি ও মনিটরিং ব্যবস্থা জোরালোভাবে করতে হবে, যাতে উভয়পক্ষের স্বার্থ সংরক্ষিত হয়।

news24bd.tv নাজিম

পরবর্তী খবর

সেই শওকত বললেন, ‘চাইলে ১০টি মোটরসাইকেল নিতে পারি’

অনলাইন ডেস্ক

সেই শওকত বললেন, ‘চাইলে ১০টি মোটরসাইকেল নিতে পারি’

সম্প্রতি রাজধানীর বাড্ডায় ‘মামলা দেওয়ায়’ নিজের মোটরসাইকেলে আগুন দিয়ে পুড়িয়ে প্রতিবাদের ঘটনা এখন দেশজুড়ে আলোচনায়।

সোমবারের (২৭ সেপ্টেম্বর) ওই ঘটনার পর সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে বিষয়টি ছড়িয়ে পড়ে।

এরপর তা গণমাধ্যমে প্রকাশ হলে নড়েচড়ে বসে প্রশাসন। ঘটনার পর পুড়ে যাওয়া মোটরসাইকেল ও চালক শওকত আলম সোহেলকে বাড্ডা থানায় নিয়ে যায় পুলিশ হয়। পরে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদ শেষে তাকে ছেড়ে দেওয়া হয়।

এরপর থেকেই সেই মোটরসাইকেল চালককে ‘ক্ষতিপূরণ হিসেবে’ এবং ‘মানবিকতার জায়গা’ থেকে মোটরসাইকেল উপহার দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন অনেকে। এরমধ্যে আছেন শিক্ষক, প্রকৌশলী এবং ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও ডাকসুর সাবেক জিএস গোলাম রাব্বানী।

তারা সবাই শওকত আলমের সাথে যোগাযোগও করেছেন। কিন্তু শওকত আলম কারো কাছ থেকেই মোটরসাইকেল নিতে চান না। শুধু মোটরসাইকেল না, কোনো প্রকার সহযোগিতাই তিনি নিতে চান না। প্রতিবাদের অংশ হিসেবে তিনি তার মোটরসাইকেলে আগুন ধরিয়ে জ্বালিয়ে দিয়েছেন বলে সময় সংবাদকে জানান।

মঙ্গলবার (২৮ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যায় শওকত আলম সোহেলের সাথে কথা হয় এ প্রতিবেদকের।

এসময় তিনি বলেন, ‘ওই ঘটনার পর অনেকেই আমার সাথে যোগাযোগ করেছেন। তারা মোটরসাইকেল দিতে চেয়েছেন। কিন্তু আমি তো মোটরসাইকেল পাওয়ার জন্য আগুন দেইনি। আমি আগুন দিয়েছি প্রচলিত সিস্টেমকে বদলাতে। পুলিশ প্রশাসন থেকে শুরু করে রাইড শেয়ার অ্যাপসভিত্তিক যে অরাজকতা চলছে, আমি এই সিস্টেমের পরিবর্তন চাই।’

তিনি বলেন, ‘আজকে আমি যদি মোটরসাইকেল নেই তাহলে দেশের কোনো পরিবর্তন হবে না। আজকে আমি ভুক্তভোগী হয়েছি, কালকে আরেকজন হবে। কিন্তু এভাবে তো একটি সিস্টেম চলতে পারে না। পুলিশের এই স্বেচ্ছাচারী মামলা যতদিন বন্ধ না হবে ততদিন আমি প্রতিবাদ চালিয়ে যাব।’

‘এখন চাইলে ১০টি মোটরসাইকেল নিতে পারি’ জানিয়ে শওকত আলম বলেন, ‘অনেক মানুষ আমাকে মোটরসাইকেল দিতে চাচ্ছে, আমি চাইলে ১০টি মোটরসাইকেল নিতে পারব। তারা সবাই উপহারের কথা বলছে, কিন্তু সিস্টেম বদলানো নিয়ে কেউ কোনো কথা বলে না।’

‘আমি তাদের কাছ থেকে মোটরসাইকেল নিয়ে রাস্তায় নামলে কালকে আবারও একইভাবে মামলা দেওয়া হবে। দিনের পর দিন এভাবে চলতে থাকবে। তাহলে কোনো সমাধান তো আসল না। আমি মোটরসাইকেল চাই না, একটি সিস্টেমের পরিবর্তন চাই, যাতে কেউ হয়রানি না হয়।’

রাইড শেয়ারিং অ্যাপস ভিত্তিক কোম্পানিগুলোর সমালোচনা করে শওকত আলম সোহেল বলেন, 'আমার রাগ পুলিশের ওপর না, রাগ রাইড শেয়ারিং অ্যাপের ওপর। অ্যাপ ব্যবহার করে যা আয় করি তার বেশিরভাগই তারা নিয়ে যায়।'

তিনি বলেন, 'আমি পেটের দায়ে রাইড শেয়ারিং করি। কিন্তু যা আয় করি তা যদি মামলার জরিমানা হিসেবে দেই, তাহলে সব কাগজপত্র ঠিক রেখে লাভ কি। তাই রাগ থেকে মোটরসাইকেল পুড়িয়ে দিয়েছি।'

এদিকে ময়মনসিংহের আনসারুল হক নামে একজন স্কুল শিক্ষক সোমবার (২৭ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যায় এক ফেসবুক স্ট্যাটাসে ভুক্তভোগী শওকত আলমকে একটি মোটরসাইকেল উপহার দেওয়ার কথা জানিয়েছিলেন।

তবে আনসারুল হক দাবি করেন, ‘শওকত আলমের সাথে আমাদের কথা হয়েছে। তিনি আমাদের উপহার গ্রহণ করবেন। কিন্তু তিনিও একইভাবে সিস্টেমের পরিবর্তনের কথা আমাদের জানিয়েছেন। বলেছেন, আমি মোটরসাইকেল নিলে মানুষ বলবে আমি একটি পাওয়ার জন্য পুড়িয়ে দিয়েছি। কিন্তু আমি সিস্টেম বদলাতে ক্ষোভ থেকেই এটা করেছি। তাই শুরুতে তিনি উপহার নিতে চাননি। পরে, অনেক বুঝানোর পর তিনি রাজি হয়েছেন।’ তার জন্য মোটরসাইকেল কেনা হয়ে গেছে বলেও জানান এই শিক্ষক।

পরবর্তী খবর

অনিবন্ধিত নিউজ পোর্টাল বন্ধের প্রক্রিয়া স্থগিত

অনলাইন ডেস্ক

অনিবন্ধিত নিউজ পোর্টাল বন্ধের প্রক্রিয়া স্থগিত

সারা দেশে অনিবন্ধিত নিউজ পোর্টাল বন্ধের প্রক্রিয়া আপাতত স্থগিত করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন ডাক ও টেলিযোগাযোগমন্ত্রী মোস্তফা জব্বার। মঙ্গলবার ( ২৮ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যায় গণমাধ্যমকে তিনি বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

মোস্তফা জব্বার বলেন, আদালতের নির্দেশনা অনুযায়ী আজকেই শেষ দিন ছিল অনিবন্ধিত নিউজ পোর্টালগুলো বন্ধের জন্য। তবে বিটিআরসি'র তালিকা ধরে নিউজ পোর্টালগুলো বন্ধের প্রক্রিয়া শুরু হয়েছিলো যেখানে বেশকিছু ত্রুটি আছে।

আরও পড়ুন:


দুই মেয়েসহ মা নিখোঁজ উৎকন্ঠায় পরিবার

রশি দিয়ে বাধা প্রতিবন্ধী শহিদের বন্দী জীবন

বাগেরহাটে সড়ক দুর্ঘটনায় ক্রিকেটার রিদু নিহত

স্কুল খোলার পর যেভাবে চলবে প্রাথমিকের ক্লাস!


 

তাই আপাতত অনিবন্ধিত নিউজপোর্টাল বন্ধের প্রক্রিয়া স্থগিত করা হয়েছে।

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

অনিবন্ধিত নিউজ পোর্টাল বন্ধের প্রক্রিয়া শুরু

অনলাইন ডেস্ক

অনিবন্ধিত নিউজ পোর্টাল বন্ধের প্রক্রিয়া শুরু

সারা দেশে অনিবন্ধিত নিউজ পোর্টাল বন্ধের প্রক্রিয়া শুরু করেছে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি)। ডাক ও টেলিযোগাযোগমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার মঙ্গলবার ২৮ সেপ্টেম্বর গণমাধ্যমকে এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

মোস্তাফা জব্বার বলেন, অনিবন্ধিত নিউজ পোর্টাল বন্ধের জন্য তো হাইকোর্টের রায় রয়েছে। এগুলো আমাদের ফলোআপ করতে হবে। সেই রায় অনুপাতে আমরা তালিকা তৈরি করে যেগুলো নিবন্ধনহীন সেগুলো বন্ধ করছি।

মন্ত্রী আরও বলেন, তবে এই বন্ধ প্রক্রিয়ায় যদি কোনো ভুল হয়, ভুলে যদি কোনো পোর্টাল বন্ধ করা হয় তাহলে সংশ্লিষ্ট পোর্টাল কর্তৃপক্ষ বিটিআরসির সঙ্গে যোগাযোগ করে নিবন্ধনের তথ্য প্রমাণ দিলে সেসব সাইট খুলে দেওয়া হবে।

আরও পড়ুন:


দুই মেয়েসহ মা নিখোঁজ উৎকন্ঠায় পরিবার

রশি দিয়ে বাধা প্রতিবন্ধী শহিদের বন্দী জীবন

বাগেরহাটে সড়ক দুর্ঘটনায় ক্রিকেটার রিদু নিহত

স্কুল খোলার পর যেভাবে চলবে প্রাথমিকের ক্লাস!


 

এ বিষয়ে জানতে চাইলে বিটিআরসির চেয়ারম্যান শ্যাম সুন্দর সিকদার বলেন, অনিবন্ধিত নিউজ পোর্টালগুলো বন্ধ করার প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে।

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

কী বলে সোশ্যাল মিডিয়ায় ঝড় তোলেন মুফতি ইব্রাহিম?

অনলাইন ডেস্ক

কী বলে সোশ্যাল মিডিয়ায় ঝড় তোলেন মুফতি ইব্রাহিম?

আজ মঙ্গলবার ভোরে রাজধানীর মোহাম্মদপুরের জাকির হোসেন রোড থেকে মুফতি ইব্রাহিমকে আটক করা হয়। ওয়াজ নসিহতের নামে উদ্ভট ও ভুল তথ্য ছড়ানোর অভিযোগে মুফতি কাজী ইব্রাহিমকে আটক করেছে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)।


আরও পড়ুন

দুই পরীক্ষা বাতিল নিয়ে যা বললেন শিক্ষামন্ত্রী

পাশের রুম থেকে দুর্গন্ধ ছড়ানোর পরে ছেলে টের পেলো বাবা মারা গেছেন!

বিয়ে বন্ধ করতে কনে নিজেই থানায়!

শেখ হাসিনার জন্মদিনে নড়িয়ায় দোয়া ও দুই হাজার কোরআন বিতরণ


ডিএমপির সাইবার অ্যান্ড স্পেশাল ক্রাইম ও ডিবি-উত্তরের যুগ্ম কমিশনার মোহাম্মদ হারুন-অর-রশীদ জানিয়েছেন, মুফতি ইব্রাহিম বিভিন্ন মাধ্যমে বাংলাদেশের মানুষকে হিন্দুস্তানের দালাল ও র-এর এজেন্ট বলছেন। কেন তিনি এসব বলছেন, তা জানতেই তাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) হেফাজতে নেওয়া হয়েছে। জিজ্ঞাসাবাদে মুফতি ইব্রাহিম সন্তোষজনক বক্তব্য দিতে না পারলে মামলা হবে এবং তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

news24bd.tv/এমি-জান্নাত   

পরবর্তী খবর

করোনায় মৃত্যু-শনাক্ত দুটোই বেড়েছে

অনলাইন ডেস্ক


করোনায় মৃত্যু-শনাক্ত দুটোই বেড়েছে

করোনাভাইরাস সংক্রমণে সর্বশেষ ২৪ ঘণ্টায় (সোমবার সকাল ৮টা থেকে আজ মঙ্গলবার সকাল ৮টা পর্যন্ত) দেশে ৩১ জনের মৃত্যু হয়েছে। গতকাল যা ছিলো ২৫ জনে। এখন পর্যন্ত এই ভাইরাসে দেশে মোট মৃত্যুর সংখ্যা দাঁড়াল ২৭ হাজার ৪৭০ জনে।

গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে করোনা শনাক্ত হয়েছে ১ হাজার ৩১০ জনের। এ পর্যন্ত মোট শনাক্ত রোগীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৫ লাখ ৫৩ হাজার ৮৭৩ জনে। গতকাল শনাক্ত হয়েছিলো ১ হাজার ২১২ জন।

আজ বিকেলে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে পাঠানো করোনাবিষয়ক নিয়মিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, গেলো ২৪ ঘণ্টায় করোনা থেকে সুস্থ হয়েছেন ১ হাজার ১৯৫ জন। এ পর্যন্ত মোট সুস্থ হয়েছেন ১৫ লাখ ১৩ হাজার ৮৭৬ জন।

গেলো ২৪ ঘণ্টায় ২৯ হাজার ৫০৫ জনের নমুনা সংগ্রহ করা হয়। পরীক্ষা করা হয় ২৯ হাজার ১৮৬টি নমুনা। পরীক্ষার বিপরীতে রোগী শনাক্তের হার ৪ দশমিক ৪৯ শতাংশ। এ পর্যন্ত মোট ৯৬ লাখ ৭৬ হাজার ১২৩টি নমুনা পরীক্ষায় শনাক্তের হার ১৬ দশমিক ০৬ শতাংশ। শনাক্ত বিবেচনায় সুস্থতার হার ৯৭ দশমিক ৪৩ শতাংশ এবং মৃত্যুর হার ১.৭৭ শতাংশ। 

আরও পড়ুন:


মুফতি কাজী ইব্রাহীমকে আটক করেছে ডিবি

ইতিহাসের প্রয়োজনেই বঙ্গবন্ধু কন্যার জন্ম: ওবায়দুল কাদের

৫ ঘণ্টা পর মিলল ড্রেনে পড়ে নিখোঁজ সেই তরুণীর মরদেহ

ইউটিউবারদের আয়ের উপর কর, মিশরে মিশ্র প্রতিক্রিয়া


গেলো ২৪ ঘণ্টায় যে ৩১ জন মারা গেছেন তাদের মধ্যে পুরুষ ১৭ জন এবং নারী ১৪ জন। এ সময় ঢাকা বিভাগে ১৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। চট্টগ্রামে ৫, রাজশাহীতে ২, খুলনায় ৫, বরিশালে ২, রংপুরে ২ ও ময়মনসিংহে ২ জনের মৃত্যু হয়েছে।

গত বছরের ৮ মার্চ দেশে প্রথম ৩ জনের দেহে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়। এর ১০ দিন পর ওই বছরের ১৮ মার্চ দেশে এ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে প্রথম একজনের মৃত্যু হয়।

news24bd.tv নাজিম

পরবর্তী খবর