করোনায় সরকারের সমালোচনা করা ছাড়া বিএনপির কোনো কাজ নেই: হানিফ

অনলাইন ডেস্ক

করোনায় সরকারের সমালোচনা করা ছাড়া বিএনপির কোনো কাজ নেই: হানিফ

সরকারের সমালোচনা করা ছাড়া করোনায় বিএনপির কোনো কাজ নেই বলে মন্তব্য করে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল আলম হানিফ বলেছেন, দেশের উন্নয়ন, অগ্রগতি মানতে বিএনপির কষ্ট হয়। ব্যর্থতা, অযোগ্যতা আর দুর্নীতির কারণে তারা দেশের উন্নয়ন করতে পারেনি। বিএনপি না পারলেও দেশের জন্য আমরা কাজ করছি, আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে দেশের উন্নয়ন করছি।

এখন করোনার এই সংকটে তারা মানুষের পাশে না দাঁড়িয়ে জাতির সামনে মিথ্যাচার করছে, বিভ্রান্ত করছে। আমরা প্রত্যাশা করি বিএনপি নেতারা আমাদের সহায়তা না করলেও অন্তত নির্লজ্জ, বেহায়পনা করে মানুষকে বিভ্রান্ত করবেন না। 

সোমবার (২ আগস্ট) সকালে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজ কল্যাণ উপ-কমিটির উদ্যোগে মীরপুর গার্লস আইডিয়াল কলেজে শোকাবহ আগস্টে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ বাস্তবায়নে পরিস্থিতির শিকার মানুষদের কাছে উপহার সামগ্রী বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। 

তিনি আরো বলেন, বিএনপি এ যাবতকাল বলে আসছিলো সরকারের কোনো উন্নয়ন নাই, অগ্রগতি নাই, আমরা বলেছিলাম উন্নয়ন হচ্ছে। আজকে রাস্তা-ঘাট, ব্রিজ, কালভার্ট, ঢাকা মেট্রো রেল চালু হচ্ছে। পদ্মাসেতু, পায়রা বন্দর হচ্ছে। আমাদের বিদ্যুৎ উৎপাদন চার হাজার মেগাওয়াট থেকে ২৪ মেগাওয়াট হচ্ছে, কর্ণফুলি টানেল হচ্ছে, রূপপুর পারমানবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র হচ্ছে- এমন অজস্র উন্নয়নের প্রজেক্ট চলছে এবং শেষ পর্যায়ে রয়েছে। এগুলো কোনোটাই বিএনপির চোখে পড়ে না। তারা কোনো উন্নয়নই চোখে দেখে না। 

আগামী সাতদিনে এক কোটি মানুষকে টিকার আওতায় নিয়ে আসা হবে জানিয়ে হানিফ বলেন, আমাদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, এ দেশের অধিকাংশ জনগণের টিকা দেয়া হবে দ্রুত। আগামী ডিসেম্বরের মধ্যেই যেন ৮০ শতাংশ মানুষকে টিকা দিতে পারেন সে লক্ষ্য নিয়ে উনি কাজ করছেন। আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে ১ কোটি মানুষকে টিকা দেয়ার জন্য উদ্যোগ নিয়েছেন। সে অনুসারে সারা দেশে টিকাদান কার্যক্রম শুরু হয়েছে। এখানেও বিএনপি মিথ্যাচার করছে। তারা বলে ১ সপ্তাহে কী ১ কোটি লোককে টিকা দেয়া যায়? তাহলে ১ সপ্তাহে ১ কোটি লোককে টিকা দেয়া যাবে না কেন? আমাদের সে সক্ষমতা আছে। আমাদের টিকা মজুত আছে এবং টিকা দেয়ার মতো সে সক্ষমতা আছে। প্রত্যেকটা ইউনিয়নে ৫ হাজার করে টিকার আওতায় নিয়ে আসা হবে আগামী ১ সপ্তাহের মধ্যেই। সে হিসেবে আমাদের ১ কোটিরও বেশি মানুষকে টিকার আওতায় নিয়ে আসা যাবে।

তিনি বলেন,বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী বারবার দেশবাসীর কাছে অনুরোধ করছেন এই করোনাভাইরাস রোগটা ভয়াবহ রোগ। এটা থেকে একমাত্র বাঁচার উপায় হলো সংক্রমণ রোধ করা।  সরকার বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের পরামর্শ মেনে চলার জন্য বারবার অনুরোধ করছে। আমরা এখনো বলছি লকডাউন করোনা সংক্রমণ রোধের একমাত্র উপায় নয়। করোনা রোধ করতে হলে ভ্যাক্সিন নিতে হবে, শরীরে এন্টিবডি তৈরি করতে হবে। 

ঘরের বাইরে বের হলে মাস্ক পড়ার আহবান জানিয়ে তিনি বলেন, মাস্ক পরিধানের কোনো বিকল্প নেই। সবাইকে মাস্ক পড়তে হবে। হাত পরিস্কার রাখতে হবে। যাতে করে হাতের মধ্য দিয়ে ভাইরাসটা শরীরে প্রবেশ না করে। সচেতনতার কোনো বিকল্প নেই। আমরা গোটা দেশবাসীর কাছে অনুরোধ জানাচ্ছি প্রধানমন্ত্রী যেসব নির্দেশনা দিয়েছেন সেগুলো সবাই মেনে চলুন। এ সংক্রমণ রোধ করে আমরা সবাই যাতে ভয়াবহ রোগ থেকে জাতিকে রক্ষা করতে পারি। নিজেরা বাঁচতে পারি, পরিবার-পরিজনকে রক্ষা করতে পারি। 

করোনার এই সংকটে আওয়ামী লীগের ত্রাণ কার্যক্রম কাজ চলমান থাকবে জানিয়ে তিনি বলেন, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ একমাত্র দল যারা প্রতিষ্ঠার পর থেকে এই বাংলাদেশের দুর্যোগে, বিপদে-আপদে মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছে। যারা বিত্তবান আছেন আপনাদের অনুরোধ করবো আপনারা সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিন। এই ক্রান্তিকাল, কঠিন সময় করোনা মোকাবেলায় সরকারের পাশাপাশি প্রত্যেকে বেসরকারিভাবেও যার যেটুকু সামর্থ্য আছে সেটুকু দিয়েই অসহায় মানুষের পাশে, নিম্ন আয়ের মানুষকে যারা ঠিক মতো খেতে পারে না এমন মানুষের সাহায্যের হাত পারিয়ে দিন। মানবতা প্রকাশ করার এটাই সর্বোচ্চ সময়। মানবতা প্রকাশের চেয়ে এর চেয়ে ভাল কাজ আর হতে পারে না।

এর আগে অনুষ্ঠানের শুরুতে শোকাবহ বাংলার সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ট বাঙালি, স্বাধীন বাংলাদেশের স্থপতি, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে বিনম্র শ্রদ্ধায় স্মরণ করেন। এছাড়াও ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট জাতির পিতার পরিবারের শহীদ সদস্য ও জাতীয় চার নেতার আত্মার মাগফেরাত কামনা করেন।

প্রতিরক্ষা ও ধর্ম মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সদস্য ইলিয়াস উদ্দিন মোল্লাহ এমপির সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মীর্জা আজম এমপি, উপদেষ্টা একেএম রহমতুল্লাহ এমপি, ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক সুজিত রায় নন্দী, ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ বজলুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক এসএম মান্নান কচি, ওয়েষ্ট হেলথ এন্ড এডুকেশন ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান দেলওয়ার হোসেন ও ভাইস চেয়ারম্যান ইঞ্জি. সৈয়দ কুদরত উল্লাহ।

অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন ঢাকা মহানগর উত্তর যুবলীগ সহ সভাপতি ও কাউন্সিলর কাজী জহিরুল ইসলাম মানিক। উপহার সামগ্রী বিতরণ অনুষ্ঠানের সার্বিক সহযোগিতায় ছিলো ওয়েষ্ট হেলথ এন্ড এডুকেশন ফাউন্ডেশন।

news24bd.tv/এমিজান্নাত 

পরবর্তী খবর

বাংলাদেশ ঝুঁকিবিহীন বিনিয়োগে একটি নির্ভরযোগ্য নাম : ভূমিমন্ত্রী

অনলাইন ডেস্ক

বাংলাদেশ ঝুঁকিবিহীন বিনিয়োগে একটি নির্ভরযোগ্য নাম : ভূমিমন্ত্রী

পুঁজিবাজার শীগগিরই বাংলাদেশে দীর্ঘমেয়াদী অর্থায়নের প্রধান উৎস হিসেবে আবির্ভূত হবে বলে জানিয়েছেন ভূমিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী । 

২০ সেপ্টেম্বর সোমবার বাংলাদেশের পুঁজিবাজার উন্নয়নে প্রবাসী বাংলাদেশী ও বিদেশী বিনিয়োগকারীদের কাছে বাংলাদেশের পুঁজিবাজারে বিনিয়োগ সম্ভাবনা উপস্থাপনার লক্ষ্যে বাংলাদেশ সিকিউরিটি অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) আয়োজনে সুইজারল্যান্ডের জুরিখের এক হোটেলে ‘দ্য রাইজ অব বেঙ্গল টাইগার: পটেনশিয়ালস অব বাংলাদেশ ক্যাপিটাল মার্কেটস’ (বাংলার বাঘের উদয় - বাংলাদেশের পুঁজিবাজারের সম্ভাবনা) শীর্ষক রোডশো-এ বাংলাদেশের পুঁজিবাজারের উপর প্রথম বিনিয়োগ শীর্ষ সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে ভূমিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী এ কথা বলেন।

ভূমিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী উপস্থিত বিনিয়োগকারীদের আরও বলেন বাংলাদেশের অর্থনীতিতে সামষ্টিক ও ব্যষ্টিক অর্থনীতির মাঝে চমৎকার ভারসাম্য বিরাজ করছে, এর অর্থ আমরা ঠিক পথেই এগুচ্ছে। 

সাইফুজ্জামান চৌধুরী এসময় উপস্থিত ইউরোপীয় বিনিয়োগকারী ও ব্যবসায়ীদের আহবান করে বলেন, বাংলাদেশে ভ্রমণ করলে, বাংলাদেশে বিনিয়োগ করলেই আপনারা বুঝতে পারবেন সেখানে কেমন পরিবর্তন হয়েছে। বাংলাদেশে কাজ করলেই বোঝা যাবে যে এই পরিবর্তনের নেতৃত্বে আছে আমাদের বেসরকারি খাত। এক দশকেরও বেশি সময় ধরে রাজনৈতিকভাবে স্থিতিশীল বাংলাদেশ ঝুঁকিবিহীন বিনিয়োগে একটি নির্ভরযোগ্য নাম। আমাদের অর্থনীতি এই সময় জুড়ে দুর্দান্ত সাফল্য লাভ করেছে।

সুইস রাষ্ট্রদূত তার দেশের বিনিয়োগকারীদের উদ্দেশ্যে বলেন - বাংলাদেশের ক্রমবর্ধমান বিস্তৃত অর্থনীতি, ১৬.৮ কোটি মানুষ, বিশাল তরুণ জনগোষ্ঠী, প্রতিভাবান উদ্যোক্তাদের দিকে ভালো করে দেখুন; ভেবে দেখুন কিভাবে এই অসাধারণ সফলতার গল্পে বিনিয়োগের মাধ্যমে সংশ্লিষ্ট হতে পারেন।

এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশে নিযুক্ত সুইজারল্যান্ডের রাষ্ট্রদূত নাথালি শিউআখ্ ও পুজিঁবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) চেয়ারম্যান শিবলী রুবাইয়াত-উল-ইসলাম। 

রও পড়ুন:

ধীর জীবন মানেই অলস জীবন নয়

একটি হটডগ আয়ু কমাতে পারে ৩৬ মিনিট পর্যন্ত!

ইভ্যালি ধরলেও সমস্যা, ছাড়লেও সমস্যা! কোথায় যাবেন ফারিয়া?

তৃতীয় স্বামীর কাছে শুধু বিচ্ছেদই নয়, খরচও চাইলেন শ্রাবন্তী


 

সম্মেলনে অনাবাসী বাংলাদেশি এবং বিদেশী প্রাতিষ্ঠানিক এবং স্বতন্ত্র বিনিয়োগকারী এবং ব্যবসায়ী নেতারা উপস্থিত ছিলেন। বাংলাদেশের উচ্চ পর্যায়ের প্রতিনিধি দল তাঁদের সাথে আলোচনা ও মতবিনিময় করেছে এবং বাংলাদেশে শক্তিশালী অর্থনৈতিক বৃদ্ধি এবং বিনিয়োগের সম্ভাবনা প্রদর্শন করেছেন; বিশেষ করে সংস্কারকৃত পুঁজিবাজারে বিপুল সুযোগ এবং বিনিয়োগকে সহজতর করার জন্য অবকাঠামোগত উন্নয়ন ব্যাপারে তাঁরা আলোকপাত করেন।

অর্থ বিভাগের সিনিয়র সচিব আব্দুর রউফ তালুকদার, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের সিনিয়র সচিব এন এম জিয়াউল আলম , বেপজার নির্বাহী চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল মোঃ নজরুল ইসলাম, জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের সদস্য মোঃ আলমগীর হোসেন এবং বেসরকারি খাতের নেতৃবৃন্দ শীর্ষ সম্মেলনে অন্যান্যদের মধ্যে অংশ নেন।

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

আগামী প্রজন্মের ভবিষ্যতের জন্য সাহসী পদক্ষেপ নেওয়ার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

অনলাইন ডেস্ক

আগামী প্রজন্মের ভবিষ্যতের জন্য সাহসী পদক্ষেপ নেওয়ার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আগামী প্রজন্মের জন্য একটি টেকসই ভবিষ্যৎ রেখে যাওয়ার জন্য একটি ‘সার্বিক বৈশ্বিক’ উদ্যোগের মাধ্যমে গ্রহের জরুরি অবস্থা মোকাবেলার জন্য বিশ্ব নেতাদের প্রতি আশু সাহসী ও জোরালো পদক্ষেপ গ্রহণের আহ্বান জানিয়েছেন।

প্রধানমন্ত্রী নিউইয়র্কে স্থানীয় সময় সোমবার সকালে জলবায়ু পরিবর্তনের বিরূপ প্রভাব মোকাবেলা বিষয়ক নেতৃবৃন্দের এক রুদ্ধদ্বার বৈঠকে ছয়টি সুপারিশ পেশ করেছেন। যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন এবং জাতিসংঘ মহাসচিব অ্যান্তোনিও গুতেরেস স্থানীয় সময় সোমবার সকালে নিউইয়র্কে যৌথভাবে এ বৈঠকের আয়োজন করেন।

শেখ হাসিনা তার প্রস্তাবে বৈশ্বিক তাপমাত্রা বৃদ্ধি ১.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াসের নিচে রাখতে প্যারিস চুক্তির কঠোর প্রয়োগের আহ্বান জানিয়েছেন। তিনি উন্নত দেশগুলো কাছ থেকে বার্ষিক ১০০ বিলিয়ন ডলার জলবায়ু তহবিল আদায়ের ওপরও  জোর দেন। এ তহবিলের ৫০ শতাংশ বিশেষ করে জলবায়ু ঝুঁকিপূর্ণ দেশগুলোতে অভিযোজন ও স্থিতিস্থাপকতার জন্য ব্যবহার করা হবে। উন্নয়শীল দেশগুলোতে নতুন আর্থিক প্রক্রিয়া এবং সবুজ প্রযুক্তি হস্তান্তরের প্রয়োজনীয়তা তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে লোকসান এবং ক্ষয়ক্ষতির সমস্যা এবং সেইসাথে বৃহৎ আকারের জনসংখ্যার স্থানচ্যুতি মোকাবেলার আহ্বান জানান। 

তিনি বলেন, মহামারী ও দুর্যোগের দ্বৈত বিপদ মোকাবেলায় বিশেষ করে জলবায়ু-সৃষ্ট দুর্যোগের বর্ধিত পৌনপুনিকতা আক্রান্ত সিভিএফ দেশগুলোর সক্ষমতা বৃদ্ধিতে সহায়তা প্রয়োজন।

রও পড়ুন:

ধীর জীবন মানেই অলস জীবন নয়

একটি হটডগ আয়ু কমাতে পারে ৩৬ মিনিট পর্যন্ত!

ইভ্যালি ধরলেও সমস্যা, ছাড়লেও সমস্যা! কোথায় যাবেন ফারিয়া?

তৃতীয় স্বামীর কাছে শুধু বিচ্ছেদই নয়, খরচও চাইলেন শ্রাবন্তী


শেখ হাসিনা বলেন, জলবায়ু ঝুঁকিপূর্ণ দেশগুলোকে তাদের অভিযোজন ও প্রশমন প্রচেষ্টায় সহায়তা করার ক্ষেত্রে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের বিশেষ দায়িত্ব রয়েছে। 

জলবায়ু পরিবর্তনের বিরূপ প্রভাব তুলে ধরে তিনি বলেন, জলবায়ু ঝুঁকিপূর্ণ দেশগুলো বৈশ্বিক গ্রিন হাউস গ্যাস নির্গমনে সবচেয়ে কম অবদান রাখে, কিন্তু তারাই সবচেয়ে বেশি ভুক্তভোগী। প্রধানমন্ত্রী সাম্প্রতিক আইপিসিসি রিপোর্টেও উল্লেখ করে বলেন, এটি ভবিষ্যত সম্পর্কে একটি ভয়াবহ চিত্র তুলে ধরছে। কেননা বৈশ্বিক তাপমাত্রা ১.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াসের ওপরে চলে গেলে তারা স্থায়ী ক্ষতির সম্মুখীন হবে।

জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবেলায় তার সরকারের ভূমিকা সম্পর্কে তিনি উল্লেখ করেন যে বাংলাদেশ অভিযোজন ও স্থিতিস্থাপকতার ক্ষেত্রে বৈশ্বিক পথিকৃৎ হিসেবে আবির্ভূত হয়েছে।

সম্প্রতি, ইউএনএফসিসিসি’তে বাংলাদেশ একটি উচ্চাভিলাষী ও হালনাগাদ এনডিসি জমা দিয়েছে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, সরকার সবুজ প্রবৃদ্ধি, স্থিতিস্থাপক অবকাঠামো এবং নবায়নযোগ্য জ্বালানির ওপর দৃষ্টি নিবদ্ধ করে ‘'মুজিব জলবায়ু সমৃদ্ধি পরিকল্পনা’ গ্রহণ করেছে। 

তিনি এটা স্পষ্ট করেন যে সরকার জলবায়ু ঝুঁকি থেকে জলবায়ু স্থিতিস্থাপকতা এবং তা থেকে জলবায়ু সমৃদ্ধির পথে যাত্রা করেছে।   

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ক্লাইমেট ভালনারেবল ফোরাম (সিভিএফ) এবং ভি২০-এর চেয়ার হিসেবে তার সরকারের মূল লক্ষ্য জলবায়ু ঝুঁকিপূর্ণ দেশগুলোর স্বার্থ রক্ষা করা। তিনি আরও বলেন, বাংলাদেশ ঢাকাস্থ জিসিএ দক্ষিণ এশিয়ার আঞ্চলিক কার্যালযয়ের মাধ্যমে অন্যান্য জলবায়ু ঝুঁকিপূর্ণ দেশগুলোর সঙ্গে সর্বোত্তম অনুশীলন এবং অভিযোজন জ্ঞান শেয়ার করছে।

 সুত্র : বাসস

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

কাল থেকে ট্রাক-কাভার্ডভ্যান মালিকদের ৭২ ঘণ্টার কর্মবিরতি

অনলাইন ডেস্ক

কাল থেকে ট্রাক-কাভার্ডভ্যান মালিকদের ৭২ ঘণ্টার কর্মবিরতি

১৫ দফা দাবিতে ৭২ ঘণ্টা কর্মবিরতির ডাক দিয়েছেন পণ্যবাহী পরিবহনের মালিক-শ্রমিকরা। বাংলাদেশ কাভার্ডভ্যান-ট্রাক-প্রাইমমুভার মালিক অ্যাসোসিয়েশন এবং ট্রাকচালক শ্রমিক ফেডারেশনের পক্ষ থেকে এ ঘোষণা দেওয়া হয়।

কাভার্ডভ্যান-ট্রাক-প্রাইমমুভার মালিক অ্যাসোসিয়েশনের অফিস সেক্রেটারি মোহাম্মদ আবদুল্লাহ এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, মঙ্গলবার (২১ সেপ্টেম্বর) সকাল ৬টা থেকে এ কর্মবিরতি শুরু হবে। 

আরও পড়ুন:


২০৪১ সালের মধ্যে দেশে বিদ্যুৎ উৎপাদন লক্ষ্য ৬০ হাজার মেগাওয়াট

খালেদা জিয়ার সাজা স্থগিতের মেয়াদ বাড়ল

দুর্নীতি ও মানি লন্ডারিং মামলায় ডিআইজি পার্থ গোপাল কারাগারে

নতুন লুকে পর্দায় ফিরছেন শুভ!


বাংলাদেশ কাভার্ডভ্যান-ট্রাক-প্রাইমমুভার পণ্যপরিবহন মালিক অ্যাসোসিয়েশনের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি মকবুল আহমদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় বলে জানান তিনি।

news24bd.tv নাজিম

পরবর্তী খবর

৭২ ঘণ্টা চলবে না ট্রাক ও কাভার্ডভ্যান

অনলাইন ডেস্ক

৭২ ঘণ্টা চলবে না ট্রাক ও কাভার্ডভ্যান

আগামীকাল মঙ্গলবার সকাল ৬টা থেকে ৩ দিনের কর্মবিরতির ডাক দিয়েছেন পণ্যবাহী পরিবহনের মালিক-শ্রমিকরা। ১৫ দফা দাবি আদায়ের লক্ষ্যে বাংলাদেশ কাভার্ডভ্যান-ট্রাক-প্রাইমমুভার মালিক অ্যাসোসিয়েশন এবং ট্রাকচালক শ্রমিক ফেডারেশনের পক্ষ থেকে এ ঘোষণা দেওয়া হয়। তাদের এ কর্মবিরতি একটানা ৭২ ঘণ্টা চলবে।

সোমবার (২০ সেপ্টেম্বর) কাভার্ডভ্যান-ট্রাক-প্রাইমমুভার মালিক অ্যাসোসিয়েশনের অফিস সেক্রেটারি মোহাম্মদ আবদুল্লাহ এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। 

মোহাম্মদ আবদুল্লাহ জানান, মঙ্গলবার (২১ সেপ্টেম্বর) সকাল ৬টা থেকে ২৪ সেপ্টেম্বর সকাল ৬টা পর্যন্ত ৭২ ঘণ্টা এসব পরিবহনের সংশ্লিষ্টরা কর্মবিরতি পালন করবেন।

রও পড়ুন:

ধীর জীবন মানেই অলস জীবন নয়

একটি হটডগ আয়ু কমাতে পারে ৩৬ মিনিট পর্যন্ত!

ইভ্যালি ধরলেও সমস্যা, ছাড়লেও সমস্যা! কোথায় যাবেন ফারিয়া?

তৃতীয় স্বামীর কাছে শুধু বিচ্ছেদই নয়, খরচও চাইলেন শ্রাবন্তী


 

বাংলাদেশ কাভার্ডভ্যান-ট্রাক-প্রাইমমুভার পণ্যপরিবহন মালিক অ্যাসোসিয়েশনের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি মকবুল আহমদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় বলে জানান মোহাম্মদ আবদুল্লাহ।

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

দুর্গাপূজায় ভারতে যাচ্ছে ২০৮০ টন ইলিশ

অনলাইন ডেস্ক


দুর্গাপূজায় ভারতে যাচ্ছে ২০৮০ টন ইলিশ

দুর্গাপূজা উপলক্ষে ২ হাজার ৮০ টন ইলিশ রপ্তা‌নির অনুমোদন দিয়েছে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। ৫২‌টি প্রতিষ্ঠান ই‌লিশ সরবরাহ কর‌বে। প্রতিটি প্রতিষ্ঠান ৪২ টন করে ইলিশ সরবরাহ করতে পারবে।

আজ বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের রপ্তানি-২ শাখার এক চিঠিতে এই অনুমতি দেওয়া হয়। আমদানি ও রপ্তানি প্রধান নিয়ন্ত্রককে এ চিঠি পাঠানো হয়েছে।

এতে বলা হয়েছে, এ অনুমতির মেয়াদ আগামী ১০ অক্টোবর পর্যন্ত কার্যকর থাকবে। তবে সরকার মৎস্য আহরণ ও পরিবহণের ক্ষেত্রে কোনো ধরনের বিধিনিষেধ আরোপ করলে তা কার্যকর হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে এ অনুমতির মেয়াদ শেষ হবে; এ অনুমতি কোনোভাবেই হস্তান্তরযোগ্য নয়, অনুমোদিত রপ্তানিকারক ব্যতীত সাব কন্ট্রাক্টে রপ্তানি করা যাবে না।

আরও পড়ুন:


২০৪১ সালের মধ্যে দেশে বিদ্যুৎ উৎপাদন লক্ষ্য ৬০ হাজার মেগাওয়াট

খালেদা জিয়ার সাজা স্থগিতের মেয়াদ বাড়ল

দুর্নীতি ও মানি লন্ডারিং মামলায় ডিআইজি পার্থ গোপাল কারাগারে

নতুন লুকে পর্দায় ফিরছেন শুভ!


ইলিশ রপ্তানির শর্তে বলা হয়েছে, রপ্তানি নীতি ২০১৮-২০২১ এর বিধিবিধান অনুসরণ করতে হবে; শুল্ক কর্তৃপক্ষ দ্বারা রপ্তানি করা পণ্যের কায়িক পরীক্ষা করাতে হবে; প্রতিটি কনসাইনমেন্ট শেষে রপ্তানি সংক্রান্ত কাগজপত্র রপ্তানি-২ অধিশাখায় দাখিল করতে হবে; অনুমোদিত পরিমাণের চেয়ে বেশি ইলিশ পাঠানো যাবে না।

news24bd.tv নাজিম

পরবর্তী খবর