অবৈধ সম্পদ অর্জন ও তাওবা
অবৈধ সম্পদ অর্জন ও তাওবা

অবৈধ সম্পদ অর্জন ও তাওবা

Other

হালাল উপার্জনের উপর নির্ভর করা এবং হারাম উপার্জন বর্জন করা মুসলিমের জন্য অন্যতম ফরয ইবাদত। শুধু তাই নয়, এর উপর নির্ভর করে তার অন্যান্য ফরয ও নফল ইবাদত আল্লাহর নিকট কবুল হওয়া বা না হওয়া। হারাম উপার্জনের দ্বরা আপনি বাড়ি-গাড়ি, জায়গা-জমি, ব্যাংক ব্যালেন্স করে ফেলেছেন। এখন আপনার হুঁশ হয়েছে পরকালের আযাবকে ভয় করে আপনি তাওবা করে সকল হারাম বর্জন করে পরিশুদ্ধ হতে চান।

মহান আল্লাহর পথে ফিরে আসতে চান। নিশ্চয়ই মহান রব তাওবা কবুলকারী। বান্দা অপরাধ করে অনুতপ্ত হয়ে বিশুদ্ধ নিয়তে, এই অপরাধ আর হবে না এই দৃঢ় সংকল্প করে তাওবা করলে নিশ্চয়ই মহান রব তা কবুল করবেন। কিন্তু অনেকেই মনে করেন তাওবার মাধ্যমে তার অবৈধ উপায়ে সম্পদও হালাল বা বৈধ হয়ে গিয়েছে। এটি সম্পূর্ণ ভুল ধারণা।

আপনি আল্লাহ তা’য়ালা ও রাসূল (সা.) এর নির্দেশ অমান্য করে অবৈধ পন্থায় আয়-রোজগার করেছেন। আপনার এই অবৈধ কাজের জন্য তাওবা কবুল হতে পারে, এর দ্বারা অবৈধ উপায়ে অর্জিত সম্পদ কখনই হালাল হবে না। এটি যদি ইসলামে অনুমোদিত হতো তাহলে  অবৈধ উপায়ে সম্পদ অর্জন মহামারি আকার ধারণ করতো। তখন সবাই মনে করতো আগে রোজগার করে ফেলি পরে তাওবা করে বেশি বেশি ইবাদত করে আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জন করতে পারবো। এমন ধারণা চরম ভ্রান্তির। কারণ ঐ অবৈধ সম্পদের হকদার অন্য কেউ। যেমন রাষ্ট্রের সম্পত্তি আত্মসাৎ করলে তার হকদার রাষ্ট্রের জনগণ। আর ঠিকাদারের কাছ থেকে ঘুষ নিলে এই অর্থের হকদার ঠিকাদার ও তার পরিবারের সদস্যরা। ঠিকাদারের কাছ থেকে ঘুষ নেয়ার কারণে সে কাজের মানে ফাঁকি দিয়েছে এবং আপনি তা দেখেও কোন ব্যবস্থা নেন নি। এই অপরাধের জন্য তাওবা কবুল হতে পারে, ঘুষ হালাল হবে না। অবৈধ উপার্জনের অন্যতম পদ্ধতি ঘুষ।  

অনেকে মনে করেন হারাম পথে উপার্জন করে সেখান থেকে কিছু সদকা করে দিলে আল্লাহ ক্ষমা করে দেবেন। কিন্তু ব্যাপারটা এরকম নয়। ইবনু আব্বাস (রা) কে প্রশ্ন করা হয়, ‘একব্যক্তি একটি প্রশাসনিক দায়িত্বে ছিল। তখন সে যুলুম করে ও অবৈধভাবে ধনসম্পদ উপার্জন করে। পরে সে তাওবা করে এবং সেই সম্পদ দিয়ে হজ্জ করে, দান করে এবং বিভিন্ন জনকল্যাণমূলক কাজে ব্যয় করে। ’ তখন ইবন আব্বাস বলেন, ‘হারাম বা পাপ কখনো পাপমোচন করে না। বরং হালাল টাকা থেকে ব্যয় করলে পাপ মোচন হয়। ’

ইবনু উমার (রা.) কে বসরার এক গভর্ণর প্রশ্ন করেন, আমরা যে এত জনহিতকর কাজ করি এর জন্য কি কোনো সাওয়াব পাব না? তিনি উত্তরে বলেন, আপনি কি জানেন না যে, কোনো পাপ কখনো কোনো পাপমোচন করতে পারে না?’

আব্দুল্লাহ ইবনু উমার (রা) বলেন, ‘রাসূলুল্লাহ (সা.) ঘুষ গ্রহীতা ও ঘুষদাতা উভয়কে লানত করেছেন। (তিরমিযি ) বিভিন্ন হাদীস থেকে আমরা জানতে পারি, কোনো পাপ দিয়ে অন্য পাপ মোচন করা যায় না। রাসূলুল্লাহ (সা.)বলেন ‘যে ব্যক্তি অবৈধভাবে সম্পদ সঞ্চয় করে এরপর তা দান করবে, সে এই দানের জন্য কোনো সাওয়াব পাবে না এবং তার পাপ তাকে ভোগ করতে হবে। ’ (ইবনু হিব্বান) অন্য হাদীসে রাসূল (সা.) বলেন, ‘বৈধ জীবিকার ইবাদত ছাড়া কোনো প্রকার ইবাদত আল্লাহর নিকট উঠানো হয় না। ’(বুখারী) রাসূল (সা.) আরো বলেন ‘ওযু-গোসল ছাড়া কোনো নামায কবুল হয় না, আর অবৈধ সম্পদের কোনো দান কবুল হয় না। ’ (বুখারী)

হারাম ভক্ষণ করে ইবাদত করলে তা কবুল হয়না। রাসূল (সা.) বলেছেন, ‘আল্লাহ তাআলা পবিত্রতা ছাড়া কোনো সালাত কবুল করেন না এবং অবৈধভাবে অর্জিত সম্পদের সদকা গ্রহণ করেন না। ’ (নাসায়ি)

রাসূলুল্লাহ (স.) বলেন, ‘হে মানুষেরা, নিশ্চয় আল্লাহ পবিত্র। তিনি পবিত্র (বৈধ) ছাড়া কোনো কিছুই কবুল করেন না। নিশ্চয় আল্লাহ মুমিনগণকে সেই নির্দেশ দিয়েছেন যে নির্দেশ তিনি নবী ও রাসূলগণকে দিয়েছেন … এরপর তিনি একজন মানুষের কথা উল্লেখ করেন, যে ব্যক্তি (হজ্ব, উমরা ইত্যাদি পালনের জন্য, আল্লাহর পথে) দীর্ঘ সফরে রত থাকে, ধূলি ধূসরিত দেহ ও এলোমেলো চুল, তার হাত দু’টি আকাশের দিকে বাড়িয়ে দিয়ে সে দোয়া করতে থাকে, হে প্রভু! হে প্রভু ! কিন্তু তার খাদ্য হারাম, তার পোশাক হারাম, তার পানীয় হারাম এবং হারাম উপার্জনের জীবিকাতেই তার রক্তমাংস গড়ে উঠেছে। তার দোয়া কিভাবে কবুল হবে!’ (মুসলিম)

আরও পড়ুন


নাটোরে ধর্ষণ মামলার আসামি ও এক মানবপাচারকারী গ্রেপ্তার

সেনবাগে বিকাশ প্রতারক চক্র হাতিয়ে নিচ্ছে শিক্ষার্থীদের টাকা

অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে টাইগারদের সম্ভাব্য একাদশ

অভিনব কায়দায় গরুর মাধ্যমে ইয়াবা নিয়ে আসতো মডেল পিয়াসা


মহান রব বলেছেন,“হে রাসূলগণ, তোমরা পবিত্র বস্তু হতে আহার কর এবং সৎকর্ম কর। তোমরা যা কর সে বিষয়ে আমি অবহিত। ”(সুরা মুমিন ৫১)

হারাম ও হালাল সম্পদ মিশ্রিত হয়ে গেলে তা অনুমান করে আলাদা করতে হবে। হারাম উপার্জনের থেকে তাওবা করে বিশুদ্ধ হতে হলে হারাম সম্পদ যে কোন প্রকারে তার মালিক কিংবা তার উত্তরাধিকারীকে ফেরত দিতে হবে। লজ্জা লাগলে তাদের ব্যাংক একাউন্টে জমা দেয়া যেতে পারে। মালিক চেনা না গেলে তার পক্ষ থেকে দান করে দিতে হবে কিংবা অন্য কোন জনকল্যাণমূলক কাজে ব্যয় করতে হবে। তাওবা করার পর হারাম সম্পদের বাড়ি-গাড়ি, জায়গা-জমি, ব্যাংক ব্যলেন্সের সুবিধা গ্রহণ করতে থাকলে আপনার অবস্থা ঐ ব্যক্তির ন্যায় যিনি কাদা মাখা শরীর ধূয়ে সাফ-সুতরো হয়ে আবার পরক্ষণেই কাদা ঘাঁটতে শুরু করলেন।

মনে রাখবেন, তাওবা করে অবৈধ উপায়ে অর্জিত সম্পদ বিলিয়ে দেয়া যত কঠিন জাহান্নামের আগুন তার চেয়ে আরও অনেক অনেক বেশি ভয়ংকর।

news24bd.tv এসএম