প্রধানমন্ত্রীর ঘর পেয়ে খুশি ৮০০ পরিবার
প্রধানমন্ত্রীর ঘর পেয়ে খুশি ৮০০ পরিবার

প্রধানমন্ত্রীর ঘর পেয়ে খুশি ৮০০ পরিবার

Other

নাটোরের সিংড়ায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দেওয়া সরকারি জমিসহ আশ্রয়ণ-২ প্রকল্পে নির্মিত সরকারি বাসগৃহ পেয়ে হাসি ফুটেছে অসহায় ভূমিহীন ও গৃহহীনদের মুখে।

এতে করে একদিকে প্রধানমন্ত্রী ও বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার প্রতিশ্র“ত আশ্রয়ণ-২ প্রকল্পের সুষ্ঠ বাস্তবায়িত হচ্ছে এবং অন্যদিকে বন্দোবস্তকৃত খাঁস জমির কবুলিয়তসহ সরকারি খরচে নির্মিত সেমিপাকা বাসগৃহ পেয়ে দীর্ঘদিনের স্বপ্ন পূরণ হওয়ায় খুশি হয়েছেন সুবিধাভোগী পরিবারগুলো।

সম্প্রতি একযোগে দেশের আরো সাড়ে ৫৩ হাজার পরিবারকে সরকারি জমিসহ নির্মিত বাসগৃহ উপহার দিয়েছেন মাননীয় শেখ হাসিনা। প্রকল্পটির আওতায় আইসিটি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক এমপির প্রচেষ্টায় সিংড়ায় ৮০০টি পরিবারকে বাসগৃহ বরাদ্দ দিয়েছে সরকার।

সরেজমিনে বিভিন্ন ইউনিয়ন ঘুরে দেখা যায়, ঘর গুলোর অধিকাংশ কাজ শেষ পর্যায়ে রয়েছে। পানি সরবরাহ ব্যবস্থা ও শুরু হয়েছে। বিদ্যুৎ সংযোগ হলে পুরোপুরিভাবে ভূমিহীন পরিবার ঘরে উঠতে পারবে। ইতোমধ্যে কোনো কোনো ভূমিহীন পরিবার ঘরে উঠতে শুরু করেছেন।

কয়েকজন ভূমিহীন এ প্রতিবেদককে বলেন, আমরা খুব খুশি যে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আমাদের জন্য ঘরের ব্যবস্থা করে দিয়েছেন।

সুকাশ নওদাপাড়ার হালিমা বেগম নামে একজন মহিলা বলেন, আমার মা ভিক্ষা করে জীবিকা নির্বাহ করে আসছে। তাঁর থাকার কোনো ঘর ছিলো না। কিন্তু মাননীয় প্রধানমন্ত্রী তাঁর মায়ের জন্য ঘরের ব্যবস্থা করেছেন।

চৌগ্রাম ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জাহিদুল ইসলাম ভোলা জানান, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশত বার্ষিকীতে তাঁরই সুযোগ্য কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা দেশের প্রায় প্রতিটি ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে সরকারি খরচে মাথা গোজার মতো নূন্যতম একটি করে আশ্রয়স্থল গড়ে দেয়ার যে প্রতিশ্র“তি করেছিলেন, সেই প্রতিশ্রুতির সুষ্ঠু বাস্তবায়ন করে চলেছেন তিনি। তাঁর এ উদ্যোগ বিশ্বে বিরল হয়ে থাকবে।

সিংড়ার উন্নয়নের রুপকার আইসিটি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক এমপির নির্দেশনায় উপজেলা প্রশাসনের সহযোগিতায় আমরা সততা ও নিষ্ঠার সাথে প্রকৃত ভূমিহীন পরিবার বাছাই করে তাদের ঘর বরাদ্দের ব্যবস্থা আমরা করেছি। প্রকৃত ভূমিহীন বাছাইয়ের সুবিধার্তে স্থানীয় নেতাকর্মী ও জনপ্রতিনিদের সহযোগিতা, পরামর্শ নিয়েছি আমরা।

উপজেলা সহকারী কমিশনার ভূমি রকিবুল হাসান বলেন, স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের সাথে নিয়ে আমরা পরিদর্শন করে জায়গা বরাদ্দ থেকে শুরু করে সরকারের নির্দেশনা মোতাবেক কাজ করছি। ভূমিহীনদের মাঝে দলিল হস্তান্তর ও করা হয়েছে। লকডাউনের কারণে কিছু দলিল হস্তান্তর করা সম্ভব হয়নি। দ্রুত তা সম্পন্ন করা হবে।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার এমএম সামিরুল ইসলাম এর তত্ত্বাবধানে উপজেলার ১২ ইউনিয়নের বিভিন্ন এলাকায় গৃহহীনদের জন্য বরাদ্দকৃত এসব সরকারি বাসগৃহের নির্মাণকাজ সুষ্ঠুভাবে বাস্তবায়িত হচ্ছে। এছাড়া করোনাকালীন সংকটময় পরিস্থিতি এবং বর্ষা মৌসুমের কারণে বাসগৃহের নির্মাণকাজ কিছুটা বিলম্বিত হচ্ছে সেগুলোও যথাসময়ে সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করতে উপজেলা প্রশাসন বদ্ধ পরিকর।

আরও পড়ুন:

আবারও মুখোমুখি ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা

একসঙ্গে দুই ছেলে ও দুই মেয়ের জন্ম

news24bd.tv তৌহিদ