টিকা সংকটে অনেক স্থানে গণটিকা স্থগিত

টিকা সংকটে অনেক স্থানে গণটিকা স্থগিত

Other

টিকা সংকটে দেশের বিভিন্ন স্থানে স্থগিত করে দেয়া হচ্ছে গণটিকা কাযক্রম। র্দীঘ সময় ধরে অপেক্ষার পরও টিকা না পেয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছে সাধারণ মানুষ। ছয়দিনে ৩২ লাখ টিকা দেয়ার লক্ষ্যমাত্রা ঠিক করে গণটিকা কাযক্রম শুরু হলেও মানুষের চাপে তিনদিনেই দেয়া হয়েছে প্রায় পয়তাল্লিশ লাখ। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের  মহাপরিচালক নিউজ টোয়েন্টিফোরকে জানিয়েছেন, চলতি মাসে টিকার বড় চালান আসলে ফের চালু হতে পারে গণটিকার কাযক্রম।

 

কাকডাকা ভোর থেকে অপেক্ষার পরো টিকা না পেয়ে গেলো তিনদিন ধরে ক্ষোভ প্রকাশ করে আসছে  সাধারণ মানুষ। গণটিকার প্রত্যেক কেন্দ্রে দিনে মাত্র সাড়ে তিনশো ডোজ নির্ধারিত থাকায় অপেক্ষামান   বেশিরভাগ মানুষ ফিরে যেতে হয়েছে। রাজধানীতে গণটিকার প্রত্যেক কেন্দ্রে ছিলো প্রায় এমন অভিন্ন অবস্থা।

তবে ভয়াবহ পরিস্থিতি তৈরি হয় রাজধানীর বাহিরে। চট্রগ্রাম-রাজশাহী-সিলেটসহ অনেক জেলায় টিকার মজুদ শেষ হয়ে যায় গণটিকা কাযক্রমের দ্বিতীয় দিনেই। এখন শুধু চালু আছে দ্বিতীয় ডোজের   কাযক্রম।

আরও পড়ুন:

যতক্ষণ না পুলিশ আসবে, মিডিয়া আসবে লাইভ চলবে: পরীমনি

আবারও মুখোমুখি ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা

একসঙ্গে দুই ছেলে ও দুই মেয়ের জন্ম


 

৩২ লাখ টিকা দেয়ার লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করে সাত আগষ্ট থেকে শুরু হয় বহুল কাঙ্খিত গণটিকার কাযক্রম। কিন্তু সেইদিনই সারাদেশে টিকা নেন প্রায় ৩১ লাখ মানুষ। ৮ আগষ্ট সেই সংখ্যা অনেকটা কমে  দাড়ায় প্রায় সাড়ে সাত লাখে। ৯ তারিখ টিকা নেন প্রায় ৬ লাখ একত্রিশ হাজার মানুষ। তিনদিনে মোট সংখ্যা প্রায় ৪৫ লাখ। এনিয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক নিউজটুয়েন্টিফোরকে বলেন, মানুষের চাপ সামলাতে  লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে বেশি ডোজ ব্যবহার করা ছাড়া উপায় ছিলো না।

মঙ্গলবার রাতে দেশে আসছে চীন থেকে সতেরো লাখ সিনোফার্মের টিকা।

news24bd.tv/আলী