এসপির বিরুদ্ধে নারী পুলিশ পরিদর্শকের ধর্ষণ মামলা
Breaking News
এসপির বিরুদ্ধে নারী পুলিশ পরিদর্শকের  ধর্ষণ মামলা

এসপির বিরুদ্ধে নারী পুলিশ পরিদর্শকের ধর্ষণ মামলা

অনলাইন ডেস্ক

পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (পিবিআই) এসপি মোক্তার হোসেনের বিরুদ্ধে এক নারী পুলিশ পরিদর্শক ধর্ষণের অভিযোগ এনে মামলা করেছেন।  

তাঁর অভিযোগ, ২০১৯ সালে সুদানের দারফুরে জাতিসংঘ শান্তি মিশনে থাকাকালে এবং পরে দেশে ফেরার পর ঢাকার উত্তরার একটি হোটেলে তাঁকে কয়েক দফা ধর্ষণ করেন পুলিশ কর্মকর্তা মোক্তার।

বৃহস্পতিবার ঢাকার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-৭-এর বিচারক বেগম মোছা. কামরুন্নাহারের আদালতে ওই নারী পুলিশ পরিদর্শক মামলাটি আবেদন করেন। বিচারক প্রায় দেড় ঘণ্টা বাদীর জবানবন্দি গ্রহণ করেন।

পরে বিচারক অভিযোগটি সরাসরি এজাহার হিসেবে গণ্য করতে ঢাকার উত্তরা পূর্ব থানাকে নির্দেশ দেন। বাদীপক্ষের আইনজীবী সালাহ উদ্দিন খান এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।  

জানা যায়, অভিযোগ আনা পুলিশ সুপার মোক্তার হোসেন বর্তমানে বাগেরহাটে পিবিআইয়ে কর্মরত রয়েছেন।

টেলিফোনে চেষ্টা করেও অভিযোগের বিষয়ে তাঁর বক্তব্য জানা সম্ভব হয়নি।  

মামলার অভিযোগে বলা হয়, এসপি মোক্তার হোসেন ২০১৯ সালের মে মাসে সুদানে জাতিসংঘের শান্তি মিশনে বাংলাদেশ পুলিশের কন্টিনজেন্টের কমান্ডার হিসেবে যোগ দেন। বাদী আগে থেকেই সেখানে কর্মরত থাকায় মিশনসংক্রান্ত বিভিন্ন বিষয় সম্পর্কে পূর্ব অভিজ্ঞতা ছিল। সে কারণে বিভিন্ন অজুহাতে সহযোগিতার নামে তাঁর সঙ্গে যোগাযোগ করেন মোক্তার। সেখানে তাঁদের মধ্যে সম্পর্ক গড়ে ওঠে। ২০১৯ সালের ২০ ডিসেম্বর দুপুরে আসামি বাদীর বাসায় গিয়ে ধর্ষণ করেন।  

এ ঘটনা কাউকে না জানাতে বিভিন্নভাবে ভয়ভীতি ও হুমকি-ধমকি দেন। ওই বছরের ২২ ডিসেম্বর ওই বাসায় গিয়ে আসামি প্রথমে ‘ভুল হয়েছে’ বলে ক্ষমা চান এবং তার পরই আবারও ধর্ষণ করেন। ২০২০ সালের ৩ জানুয়ারি আসামি ‘মুখে মুখে কলেমা পড়ে বিয়ের প্রলোভন’ দেখিয়ে বাদীকে আবারও ধর্ষণ করেন। পরে আসামি সুদান ও বাংলাদেশে আরও কয়েক দফা বাদীকে ধর্ষণ করেন বলে অভিযোগে উল্লেখ করা হয়েছে।   

মামলার অভিযোগে আরও বলা হয়, দেশে ফেরার পর বাদী বিয়ে নিবন্ধনের তাগিদ দিলে আসামি অশোভন আচরণ শুরু করেন এবং বাদীকে এড়িয়ে যেতে থাকেন। এ অবস্থায় বাদী গত ২১ এপ্রিল আসামি এসপি মোক্তার হোসেনের রাজারবাগের বাসায় গিয়ে আশ্বাস অনুযায়ী বিয়ের কাবিননামা সম্পন্ন করার তাগিদ দিলে আসামি অস্বীকৃতি জানান।  

এক পর্যায়ে মোক্তার হোসেন, তাঁর স্ত্রী ও পরিবারের সদস্যরা উত্তেজিত হয়ে বাদীকে মারধর করেন এবং হুমকি দেন। গত ১০ আগস্ট বাদী উত্তরা পূর্ব থানায় মামলা করতে গেলে থানা কর্তৃপক্ষ মামলা গ্রহণ না করে আদালতে মামলা করার জন্য বলে। এ জন্য আদালতে মামলা করেছেন বলে অভিযোগে উল্লেখ করেন বাদী। সূত্র: কালের কণ্ঠ।

আরও পড়ুন


রাজশাহী মেডিকেলে করোনায় মৃত্যু আরও ১৩

নওগাঁয় নেসকোর কন্ট্রোল রুমে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ড

অবশেষে মেসিকে স্বাগত জানালেন এমবাপ্পে

পরীমণির পক্ষে দাঁড়িয়েছেন দেশের ১৭ বিশিষ্ট নাগরিক


NEWS24.TV / কামরুল

;