গাড়ি কিনেও মালিকানার নাম পরিবর্তন করেননি পিয়াসা, নাম জটিলতায় ব্যবসায়ীর হাহাকার
গাড়ি কিনেও মালিকানার নাম পরিবর্তন করেননি পিয়াসা, নাম জটিলতায় ব্যবসায়ীর হাহাকার

গাড়ি কিনেও মালিকানার নাম পরিবর্তন করেননি পিয়াসা, নাম জটিলতায় ব্যবসায়ীর হাহাকার

অনলাইন ডেস্ক

কথিত মডেল ফারিয়া মাহবুব পিয়াসাকে গ্রেপ্তার করার পর তার বাসা থেকে বিএমডব্লিউ এস ২০৯ মডেলের সিলভার রঙের এবং মাজদা এক্সেলা ব্র্যান্ডের নীল রঙের গাড়ি জব্দ করা হয়। তবে এরই মধ্যে জানা গেছে, কথিত মডেল পিয়াসার কাছ থেকে জব্দ করা বিলাসবহুল মাজদা এক্সেলা গাড়িটির মালিক পিয়াসা নিজেই। তার নামেই গাড়িটির নিবন্ধন আছে। কিন্তু বিআরটিএ-এর তথ্য মতে - অপর বিএমডব্লিউ গাড়িটির মালিক পিয়াসা নন।

তাহলে এই বিএমডব্লিউ গাড়ির মালিক কে?

বিএমডব্লিউ এস ২০৯ মডেলের সিলভার রঙের গাড়িটির নম্বর প্লেট ঢাকা মেট্রো-গ-৩৯-৮৫৭৪। গাড়িটির মালিকের জায়গায় ‘দি রিলায়েবল বিল্ডার্স’ নামে একটি প্রতিষ্ঠানের নাম রয়েছে। বিআরটিএ থেকে এই গাড়ির নম্বরপ্লেট ইস্যু করা হয় ২০১৫ সালের ১২ জুলাই।

news24bd.tv

এদিকে বিএমডব্লিউ গাড়িটি যে মালিকের বলা হচ্ছে - সেই ‘দি রিলায়েবল বিল্ডার্সের’ মালিক শফিকুল আলম মিথুনের একটি ইন্টারভিউ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে। সেখানে তিনি দাবি করেছেন ২০১৮ সালের মার্চ মাসেই তিনি ‘এ অ্যান্ড এ’ কার সেন্টার নামে একটি প্রতিষ্ঠানের কাছে গাড়িটি বিক্রি করে দেন। ট্যাক্সফাইল থেকেও তিনি গাড়িটা রিডাকশন করে দিয়েছেন। এ অ্যান্ড এ কার সেন্টার পরে তারই ছোট ভাই ওটিবিএল-এর পরিচালক জনাব মানামের কাছে গাড়িটি বিক্রি করে।
 
শফিকুল আলম মিথুন আরো জানান, মানাম গাড়িটা বিক্রি করেছে নিড ফর স্পিডের কাছে ২০১৯ সালে। নিড ফোর স্পিড গাড়িটি বিক্রি করেছে কথিত মডেল পিয়াসার কাছে। নিড ফর স্পিডও পিয়াসার নামে বিআরটিএ-তে গাড়ির নাম ট্রান্সফার করে দিয়েছে।

news24bd.tv

শফিকুল আলম মিথুন বলেন, যে জিনিস তিনি ২০১৮ সালে বিক্রি করে দিয়েছেন সেই জিনিসে কেন আজও তার নাম থাকবে? পিয়াসাকে গ্রেপ্তারের পর গাড়ির মালিক হিসেবে তার নাম আসায় শফিকুল আলম মিথুন পারিবারিক ও সামাজিকভাবে হেয় হয়েছেন। পিয়াসাকে তিনি সামনা সামনি দেখেননি উল্লেখ করে, তিনি বলেন, আমার মান ইজ্জত সব চলে গেল। আমার কি অন্যায় ভাই বলেন। ’’ আমিতো নিয়ম মেনে গাড়ি বিক্রি করে দিয়েছি। আমার কেন এই ভোগান্তি হল।

news24bd.tv

নিড ফর স্পিড কি বলছে?

নিড ফোর স্পিডের মালিক আতিক জানান, ২০২০ সালের এপ্রিল মাসে তারা রিফাত বিন আলম নামের একজনের কাছ থেকে ঢাকা মেট্রো-গ-৩৯-৮৫৭৪ নম্বরের বিএমডব্লিউ এস২০৯ মডেলের সিলভার রঙের একটি গাড়িটি এক্সচেঞ্জ করি।

কাগজে-কলমে তারা একটি বিএমডব্লিউ গাড়ি কিনেন আরেকটি পাজেরো গাড়ি বিক্রি করি। রিফাত বিন আলমের সঙ্গে ১০০ টাকার স্ট্যাম্পে গাড়ি বিক্রির চুক্তিনামাও করা হয়। এর কয়েক দিনের মধ্যেই পিয়াসা নামের মেয়ে লকডাউনের মধ্যেই গাড়িটি কিনে নেয়। গাড়ি বিক্রির কাগজপত্রও তাদের কাছে আছে।

ভিডিও দেখতে ক্লিক করুন

এদিকে বিআরটিএ-এর এই বিষয়ে জানতে চাওয়া হলে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক কর্মকর্তা জানান, আমাদের সার্ভারে এখনো বিএমডব্লিউ ঢাকা মেট্রো-গ-৩৯-৮৫৭৪ নম্বরের গাড়িটি দ্য রিলায়েবল বিল্ডার্স নামেই নিবন্ধিত আছে। ২০২০ সালে এটার মালিকানা পরিবর্তন হওয়ার পরেও আমাদের কাছে আসতে অনেক সময় লেগেছে। তবে এত দিন পরে বিআরটিএ তে আসার জন্য দায়ী তিনিই, যিনি গাড়িটি কিনেছেন। কোনো অনিয়ম হলে সেটা পিয়াসা করেছেন। কারণ এতদিন নাম পরিবর্তন না করে তিনি বেআইনি কাজ করেছেন।

news24bd.tv এসএম

;