গলায় ওড়না পেঁচিয়ে শাবনুরের আত্মহত্যা
গলায় ওড়না পেঁচিয়ে শাবনুরের আত্মহত্যা

গলায় ওড়না পেঁচিয়ে শাবনুরের আত্মহত্যা

অনলাইন ডেস্ক

এক বছর আগে অটোরিকশা চালক আনোয়ার হোসেনের সাথে শাবনুর বেগমের বিয়ে হয়। কিন্তু বিয়ের এক বছর পার হতে না হতেই গলায় ওড়না পেঁচিয়ে ঘরের আড়ার সঙ্গে ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করেছে শাবনুর বেগম (২৩) নামের এক গৃহবধূ। তবে তার আত্মহত্যার কারণ এখন পর্যন্ত জানা যায়নি।

শনিবার (১৪ আগস্ট) কুড়িগ্রামের রৌমারী উপজেলার দাঁতভাঙ্গা ইউনিয়নের গুটলি গ্রামের বংশীরচর এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে সুরতহাল রিপোর্ট তৈরি করার পর সন্ধ্যার দিকে মরদেহ নিয়ে আসে।

এ সময় ওই গৃহবধূর স্বামী আনোয়ার হোসেন (২৬) এবং স্বামীর পরিবারের কাউকে পাওয়া যায়নি। তবে ওই গৃহবধূর ভাই তাজ উদ্দিন উপস্থিত ছিলেন বলে জানিয়েছেন রৌমারী থানার এসআই একরামুল হক সরকার।

দাঁতভাঙ্গা ইউনিয়ন পরিষদের ২ নম্বর সংরক্ষিত ওয়ার্ডের মেম্বার সারজিনা আক্তার জ্যোৎস্নার স্বামী রফিকুল ইসলাম জানান, এক বছর আগে বংশীরচর গ্রামের ছক্কু মিয়ার পুত্র ব্যাটারিচালিত অটোরিকশা চালক আনোয়ার হোসেনের সাথে একই ইউনিয়নের ছোট মনতোলা গ্রামের সাদ্দাম হোসেনের কন্যা শাবনুর বেগমের বিয়ে হয়।

শনিবার সকালে অটোরিকশা চালানোর জন্য বাড়ির বাইরে চলে যায় স্বামী আনোয়ার হোসেন। এর কিছুক্ষণ পর শ্বশুর-শাশুড়ি দিনমজুরি করার জন্য তারাও বাড়ি ছেড়ে চলে যান। এরপর দুপুর আড়াইটার দিকে জানা যায় ঘরের ভেতরে শাবনুর গলায় ফাঁস লটকানো অবস্থায় ঝুলছে। সঙ্গে সঙ্গে ঘটনাটি পুলিশকে জানানো হয়।

আরও পড়ুন:

যতক্ষণ না পুলিশ আসবে, মিডিয়া আসবে লাইভ চলবে: পরীমনি

আবারও মুখোমুখি ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা

একসঙ্গে দুই ছেলে ও দুই মেয়ের জন্ম


 

এসআই একরামুল হক সরকার জানান, রোববার (১৫ আগস্ট) ময়নাতদন্তের জন্য শাবনুর বেগমের মরদেহ জেনারেল হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হবে। এছাড়া অন্যান্য আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের প্রক্রিয়া চলছে বলেও জানান তিনি।

news24bd.tv/আলী

;