আইপি টিভির নাম ভাঙ্গিয়ে চলছে চাঁদাবাজি ও হয়রানি

রিশাদ হাসান

জাতীয় অনলাইন গণমাধ্যম নীতিমালা বলছে, আইপি টিভি কোন ধরনের সংবাদ প্রচার করতে পারবে না। অথচ সেই আইপি টিভির নাম ভাঙ্গিয়েই চলে চাঁদাবাজি, হয়রানি। এসব ভূঁইফোঁড় আইপি টিভির মালিকদের কেউ শিবিরকর্মী, কেউবা বিতর্কিত ফ্রীডম পার্টির নেতা। অনেকে তো আইপি টিভির নাম দিয়ে চালাচ্ছেন ইউটিউব চ্যানেল। 

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, দেশের স্বার্থেই আইপি টিভিগুলোকে নিয়ন্ত্রণে আনার সময় এসেছে। সঠিক ভাবে যাচাই বাছাই ছাড়া কোন অবস্থাতেই আইপিটিভি অনুমোদন দিতে চায় না তথ্য মন্ত্রণালয়।

বিটিআরসির তথ্য মতে দেশে এ পর্যন্ত সচল ইন্টারনেট প্রটোকল বা আইপি টেলিভিশন আছে ২৫টি। এ পর্যন্ত অনুমোদন প্রাপ্ত আইপি টিভির সংখ্যা ৬১টি। আর তথ্যমন্ত্রণালয়ে আবেদন জমা পড়েছে ৫৫৯টি। এর বাইরে ঠিক কি পরিমানে অবৈধ আইপি টিভি চলছে তার কোন সঠিক তথ্য পরিসংখ্যান নেই।

জনতা টিভির মালিক আতাউল্লাহ খানের আসল পরিচয় তিনি বিতর্কীত ফ্রিডম পার্টির নেতা। চট্টগ্রামের সি ভিশন আইপি টিভির মালিক আরিয়ান লেলিন চা্ঁদাবাজ ও এলাকার শীর্ষ সন্ত্রাসী। এছাড়াও সিটিজি ক্রাইমের মালিক টিনু অস্ত্র মামলার আসামী, ছাত্রদল নেতা। এই হলো আইপি টেলিভিশনের মালিকদের বাস্তবতা।

অথচ জাতীয় অনলাইন গণমাধ্যম নীতিমালা ২০২০ এ বলা হচ্ছে অইপি টিভি কোনরূপ সংবাদ প্রচার করতে পারবে না। নীতিমালাল ব্যত্যয় হলে রয়েছে নিবন্ধন বাতিলের বিধানও।

ডাক ও টেলিযোগযোগ মন্ত্রী বলছেন, ভবিষ্যতে আইপি টিভির নিবন্ধন, যাচাই বাছাই ও নিয়ন্ত্রণে কাজ করবে তথ্য মন্ত্রণালয়।

আইপি টিভি নিবন্ধন ও নিয়ন্ত্রনে আরও কঠোর হওয়ার কথা জানিয়েছিলেন তথ্যমন্ত্রী।

আরও পড়ুন:

যতক্ষণ না পুলিশ আসবে, মিডিয়া আসবে লাইভ চলবে: পরীমনি

আবারও মুখোমুখি ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা

একসঙ্গে দুই ছেলে ও দুই মেয়ের জন্ম


 

প্রযুক্তি বিশেষজ্ঞরা বলছেন, দেশের স্বার্থেই এখন থেকে নিয়ন্ত্রণ করতে হবে লাগামহীন আইপি টিভিগুলোকে।

কোন অবস্থাতেই অনুমোদনহীন আইপি টিভি যেন চলতে না পারে সেদিকে লক্ষ রাখার পরামর্শ দিচ্ছেন বিশেষজ্ঞরা।

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ২৪ ঘণ্টা নজরদারি করবে বিটিআরসি

অনলাইন ডেস্ক

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ২৪ ঘণ্টা নজরদারি করবে বিটিআরসি

ফেসবুক, টুইটার, ইউটিউবসহ অন্যান্য সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ২৪ ঘণ্টা নজরদারি চালাবে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি)। এই নজরদারির মাধ্যমে ব্যক্তিগত, সামাজিক, ধর্মীয় বা রাষ্ট্রীয় যে কোনো আপত্তিকর কনটেন্ট দ্রুত শনাক্ত ও অপসারণে দ্রুত পদক্ষেপ নেয়া যাবে বলে জানিয়েছে তারা।

এর আগে সাম্প্রতিক সময়ে পরীমণি ইস্যুতে পুলিশ কর্মকর্তা গোলাম সাকলায়েনের ব্যক্তিগত ভিডিও ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়ে। এছাড়া কলেজছাত্রী মুনিয়া ও জেকেজি হেলথকেয়ারের ডা. সাবরিনার ব্যক্তিগত ছবি ও ভিডিও ফাঁস হলে দেশজুড়ে তোলপাড় শুরু হয়। নাগরিকদের ব্যক্তিগত ছবি ও ভিডিও সামাজিক মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ার ঘটনায় বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের কড়া সমালোচনা করেন উচ্চ আদালত।

এই সমালোচনার মুখে ইন্টারনেটভিত্তিক সব ওয়েবসাইট ২৪ ঘণ্টা নজরদারির আওতায় আনার সিদ্ধান্ত বিটিআরসি। বিটিআরসি চেয়ারম্যান শ্যামসুন্দর বিশ্বাস বলেন, আমরা ইতোমধ্যেই সাইবার সিকিউরিটি সেল নামে একটি বিশেষ সেল গঠন করছি। নজরদারির চালানোর জন্য প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতি স্থাপন করছি।

আরও পড়ুন:

অবশেষে ব্রিটেনের লাল তালিকা থেকে বাদ পড়ছে বাংলাদেশ

বেড়াতে গিয়ে অতিরিক্ত মদ পানে দুই ছাত্রলীগ কর্মীর মৃত্যু

ছাত্রকে যৌন হয়রানি ২৭ বছরের তরুণীর, ২০ বছরের কারাদণ্ড

ইভ্যালির সঙ্গে আর সম্পর্ক নেই তাহসানের


শুধু নাগরিকদের ব্যক্তিগত ছবি ও ভিডিও নয়, এই সেলের মাধ্যমে সামাজিক মাধ্যম ও সব ওয়েবসাইটে সরকার ও রাষ্ট্রবিরোধী অপপ্রচারসহ সব ধরণের আপত্তিকর কনটেন্ট সবকিছুই নজরদারি করা হবে বলে জানিয়েছে সংস্থাটি।

প্রসঙ্গত, গত এক বছরে শুধুমাত্র ফেসবুক থেকেই প্রায় ৫ হাজার আপত্তিকর কনটেন্ট অপসারণ করেছে বিটিআরসি। এছাড়া ইউটিউবে ৪৩১ টি লিংক বন্ধের অনুরোধ করা হয় যার মধ্যে ৬২ টি লিংক বন্ধ করা হয়।

news24bd.tv/ নকিব

পরবর্তী খবর

প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানের হাতে জিম্মি রাষ্ট্র

নেট ব্যবহারকারী ৯০ শতাংশের বেশিরই তথ্য ফাঁস

রিশাদ হাসান

তথ্য প্রযুক্তির যুগে আপনার তথ্য কতটা নিরাপদ। ল্যানসেটের গবেষণা বলছে, বিশ্বব্যাপি ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর ৯০ শতাংশের বেশী মানুষ প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানগুলোর হাতে তুলে দিয়েছেন তাদের তথ্য। অথচ ব্যবহারকারী নিজেই জানেন না কবে আর কিভাবে দিয়েছেন এত তথ্য। 

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এতে করে ব্যক্তিগত স্বার্থ অক্ষুন্ন থাকলেও একটি রাষ্ট্রের সমষ্টিগত তথ্য জিম্মি হয়ে হয়ে পড়ছে গুটি কয়েক প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানের হাতে।

যখনই নিজের মুঠোফোন কোন এ্যাপ ডাউনলোড করা হচ্ছে, সেই অ্যাপ চেয়ে বসে লোকেশন, ফোনবুক, মাইক্রোফোন। তবে ক্ষেত্র বিশেষে অনুমতি চায় ব্যাক্তিগত মেসেজিং, গ্যালারিসহ বিভিন্ন তথ্য।

এসব তথ্য দিয়ে প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানগুলো ব্যক্তি, বয়স ও পছন্দ ভেদে বিভিন্ন বিজ্ঞাপন পাঠায়। তথ্যগুলো ছোট প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানের কাছেও বিক্রি হয় চড়া মূল্যে। সেই সাথে তারা বের করে সমষ্টিগত এমন কিছু তথ্য যা কোন রাষ্ট্রের কাছেও নেই।

আরও পড়ুন


আশ্রয়ণ প্রকল্প: এটা তো দুর্নীতির জন্য হয়নি, এটা কারা করলো?

আগের স্ত্রীকে তালাক না দিয়েই মাহিকে বিয়ে করেছে রাকিব

আমরা কখনো জানতামও না যে এই সম্পদ আমাদেরই ছিলো

নাশকতার মামলায় নওগাঁর পৌর মেয়র সনিসহ বিএনপির ৩ নেতা কারাগারে


 

একটি দেশ গুটি কয়েক প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানের কাছে জিম্মি হতে পারে না উল্লেখ করে বিশেষজ্ঞরা বলছেন, নিজস্ব সার্চ ইঞ্জিন, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ও ডেটা সেন্টার তৈরির মাধ্যমে দেশের তথ্য ও দেশেই রাখতে হবে।

 news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

বাজারে এলো আইফোন ১৩, যা আছে ফোনটিতে

অনলাইন ডেস্ক

বাজারে এলো আইফোন ১৩, যা আছে ফোনটিতে

অবশেষে বাজারে এলো আইফোন ১৩। বুধবার (১৫ সেপ্টেম্বর) ক্যালিফোর্নিয়ার অ্যাপল পার্কে উচ্চমানের পারফরম্যান্স সমৃদ্ধ এই আইফোনটির লঞ্চিং হয়।

গোলাপি, নীল, কালো (মিডনাইট), লাল (প্রোডাক্ট রেড) আর স্টারলেট এই পাঁচটি কালারে মিলবে আইফোনটি। দেখতে অনেকটা আইফোন ১২ মডেলের মতোই। তবে আগের মডেলের আইফোনগুলো থেকে ৫০ শতাংশ বেশি দ্রুত পারফরম্যান্স দেবে এবারের অ্যাপলের নতুন চিপ।

অ্যাপেল জানিয়েছে, আইফোন ১৩ ও আইফোন ১৩ মিনির পেছনে থাকছে ১২ মেগাপিক্সেলের দুটি ক্যামেরা। ক্যামেরায় দেওয়া হয়েছে সিনেম্যাটিক মোড। ভিডিও কনটেন্ট তৈরিতেও নতুন আইফোনে বেশ সুবিধা নিয়ে আসা হয়েছে।

এছাড়া নতুন আইফোনগুলো চলবে অ্যাপলের তৈরি এ১৫ বায়োনিক প্রসেসরে। যা আগের চেয়ে দ্রুতগতির। অপরদিকে স্টোরেজ ৫০০ জিবি। সর্বনিম্ন ৬৪ জিবির বদলে রয়েছে ১২৮ জিবি স্টোরেজ।

ডিসপ্লেতেও আনা হয়েছে বেশ পরিবর্তন। যা প্রায় ২০ শতাংশ বেশি উজ্জ্বল। অপরদিকে পুরোনো সিরিজের থেকে আড়াই ঘণ্টা বেশি ব্যাটারি ব্যাকআপ দেবে আইফোন ১৩।

এই সিরিজের রয়েছে কয়েকটি মডেল। যেমন- আইফোন ১৩, আইফোন ১৩ মিনি, আইফোন ১৩ প্রো এবং আইফোন ১৩ প্রো ম্যাক্স।

আইফোন ১৩ -এর দাম নির্ধারণ করা হয়েছে ৭৯৯ ডলার মার্কিন ডলার, আইফোন ১৩ মিনি ৬৯৯ ডলার, আইফোন ১৩ প্রোর দাম ৯৯৯ ডলার। আর আইফোন ১৩ প্রো ম্যাক্সের দাম পড়বে ১ হাজার ৯৯ ডলার।

আরও পড়ুন:


জামালপুরে মাদ্রাসা থেকে ৩ ছাত্রী উধাও, আজও মেলেনি খোঁজ

বার্সেলোনাকে উড়িয়ে দিলো বায়ার্ন

চেকের ছবি শেয়ার করে জায়েদ খান বললেন বিষয়টি অনেক গর্বের

কিয়ামতের দিন আল্লাহ যে তিন ব্যক্তির দিকে ফিরেও তাকাবেন না


‘অ্যাপল হাব’ ব্লগের তথ্যানুযায়ী আইফোন ১৩-র দাম হতে পারে ৭৯৯ মার্কিন ডলার। বাংলাদেশি মুদ্রায় যা প্রায় ৬৮ হাজার টাকা। তবে এটি বাংলাদেশে আসলে তার দাম আরও বাড়তে পারে।

news24bd.tv নাজিম

পরবর্তী খবর

এবার গুগলকে বড় অংকের জরিমানা করলো দক্ষিণ কোরিয়া

অনলাইন ডেস্ক

এবার গুগলকে বড় অংকের জরিমানা করলো দক্ষিণ কোরিয়া

মার্কিন প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান আলফাবেটের অঙ্গপ্রতিষ্ঠান গুগলকে নতুন আইনে ১৭৭ মিলিয়ন ডলার জরিমানা করলো দক্ষিণ কোরিয়া। আজ মঙ্গলবার (১৪ সেপ্টেম্বর) জরিমানার বিষয়টি জানিয়েছে কোরিয়া ফেয়ার ট্রেড কমিশন (কেএফটিসি)।

প্রযুক্তি বিশ্বের অন্যতম দুই জায়ান্ট গুগল ও অ্যাপলের আধিপত্যবাদী আচরণে লাগাম টানতে সম্প্রতি আইন পাস করে দক্ষিণ কোরিয়া, যেটি ১৪ সেপ্টেম্বর থেকে কার্যকর হয়েছে। সেই আইনের আওতায় জরিমানা করা হয়েছে গুগলকে। 

জরিমানার প্রতিক্রিয়ায় গুগল জানিয়েছে, তারা আপিল করবে।

অ্যান্ড্রয়েড নামে গুগলের জনপ্রিয় অপারেটিং সিস্টেম রয়েছে। সারা বিশ্বে ৮০ ভাগ মোবাইল ফোনে এটি ব্যবহার করা হয়। অ্যান্ড্রয়েড অপারেটিং সিস্টেমটি যাতে স্থানীয় স্মার্টফোন নির্মাতারা মডিফাই করতে না পারে তার সব ব্যবস্থা করে রেখেছে গুগল। এই বিষয়ে দক্ষিণ কোরিয়ার আপত্তি রয়েছে।

আরও পড়ুন:


দুই মেয়েসহ মা নিখোঁজ উৎকন্ঠায় পরিবার

রশি দিয়ে বাধা প্রতিবন্ধী শহিদের বন্দী জীবন

বাগেরহাটে সড়ক দুর্ঘটনায় ক্রিকেটার রিদু নিহত

স্কুল খোলার পর যেভাবে চলবে প্রাথমিকের ক্লাস!


 

মোবাইল অপারেটিং সিস্টেমের বাজার নিয়ন্ত্রণে গুগলের পরেই আছে আরেক মার্কিন প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান অ্যাপল। এই বিষয়ে দক্ষিণ কোরিয়ার আপত্তি রয়েছে।

তথ্যসূত্র : রয়টার্স, ব্লুমবার্গ।

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

শিগগির নিয়ন্ত্রণে আসছে ফেসবুক টুইটার ইউটিউব

অনলাইন ডেস্ক


শিগগির নিয়ন্ত্রণে আসছে ফেসবুক টুইটার ইউটিউব

ডাক ও টেলিযোগাযোগমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার

ফেসবুক, টুইটার, ইউটিউবসহ সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমগুলো এক সময় বাংলাদেশকে তেমন পাত্তা দিত না। এখন তারা আমাদের কথা শুনছে, নিয়মিত বৈঠক করছে। এমনকি বাংলাদেশের  আইন মেনে ভ্যাট-ট্যাক্সও দিচ্ছে তারা। সেদিন হয়তো বেশি দূরে নয়, যখন ফেসবুকসহ এসব সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম আমাদের নিয়ন্ত্রণে আসবে। যদিও বিষয়টি আমাদের জন্য বড় একটি চ্যালেঞ্জ। তারপরও এই চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় সর্বোচ্চ চেষ্টা করছে বর্তমান সরকার। ফেসবুকসহ সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমগুলোতে ‘সরকার ও রাষ্ট্রবিরোধী’সহ বিভিন্ন রকম ‘আপত্তিকর’ কনটেন্ট ছড়ানো হচ্ছে। 

এ বিষয়ে সরকার কী ধরনের পদক্ষেপ নিচ্ছে? এমন প্রশ্নের জবাবে গতকাল ডাক ও টেলিযোগাযোগমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার বাংলাদেশ প্রতিদিনকে উল্লিখিত কথাগুলো বলেন।

তথ্যপ্রযুক্তি বিশেষজ্ঞ এই মন্ত্রী আরও বলেন, ‘এসব বিষয়ে এখন আমরা অনেক দক্ষতা অর্জন করেছি। আমরা এখন জানি বিদেশ থেকে কারা এ ধরনের অপপ্রচার চালাচ্ছে। আমি দায়িত্ব নেওয়ার পর ২০১৮ সালের ফেব্রুয়ারিতে ফেজবুক কর্তৃপক্ষের সঙ্গে একটি আন্তর্জাতিক সম্মেলনে প্রথমবারের মতো আনুষ্ঠানিকভাবে কথা বলার সুযোগ হয়েছিল। সেখানে কিছু দাবি তুলে ধরাসহ সার্বিক বিষয়ে কথা হয়েছিল। তারাও এসব বিষয়ে ইতিবাচক মনোভাব দেখিয়েছে। বর্তমানে তাদের সঙ্গে আমাদের সম্পর্ক এমন পর্যায়ে এসেছে যে তারা প্রতি সপ্তাহে আমাদের সঙ্গে বৈঠক করে, প্রতিদিন কথা হচ্ছে। যে সব বিষয়ে রিপোর্ট করি সে বিষয়েও রেসপন্স করছে। ফেসবুকের বিষয়ে বাংলাদেশের দায়িত্বপ্রাপ্ত একজন মহিলা কর্মকর্তা রয়েছেন, সিঙ্গাপুর ও দিল্লিতে একজন করে কর্মকর্তা রয়েছেন তাদের প্রত্যেকের সঙ্গে আমাদের বিটিআরসির সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তার নানা বিষয়ে কথা হচ্ছে। এক সময় হয়তো তারা আমাদের কোনোটাই পাত্তা দিত না। এখন অনেক ভালো জায়গায় এসেছে।’

ফেসবুক কর্র্তৃপক্ষের এক সময় বাংলা বোঝার মতো লোক ছিল না উল্লেখ করে টেলিযোগাযোগমন্ত্রী বলেন, একসময় ফেসবুকের বাংলা ভাষা বোঝার মতো লোক ছিল না, বাংলা কনটেন্ট সরাতে পারত না। এখন তাদের বাংলা ভাষা বোঝার মতো লোক রয়েছে। তারা বাংলা কনটেন্ট বুঝতে পারে এবং তা সরাতেও পারছে। এখন তাদের সঙ্গে আমাদের সরাসরি ফোনেও যোগাযোগ হচ্ছে। আমরা মনিটরিং ব্যবস্থাটাকে সম্প্রসারণ করেছি বিটিআরসির মাধ্যমে। আরও কিছু যন্ত্রপাতি সংগ্রহের চেষ্টা করছি। এর ফলে আমি আশা করছি যে সেদিন হয়তো বেশি দূরে নয়, যখন আমরা মোটামুটি এদের ভালো নিয়ন্ত্রণের মধ্যে আনতে পারব। এখন যে অবস্থায় আছে, সেটা মোটামুটি একটা নিয়ন্ত্রণের ভিতর। কিন্তু আমাদের জন্য অত্যন্ত হুমকির বিষয় হলো জেএমবি, আইএস, তালেবান যাই বলি না কেন তারা প্লাটফরম হিসেবে এসব সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহার করছে। অনেকে ব্যক্তিগতভাবেই সরকারের শীর্ষ ব্যক্তি থেকে শুরু করে মন্ত্রী, এমপিসহ গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে অপপ্রচারের প্লাটফরম হিসেবে এসব ব্যবহার করছে। নিয়মিত গণমাধ্যমে এসব অপকর্ম করা যায় না। এসব নিয়ন্ত্রণে তাদের সঙ্গে আমাদের নিয়মিত কথা হচ্ছে। এক সময় পাত্তা না দিলেও এখন নিয়মিত যোগাযোগ হচ্ছে। তারা আমাদের ভ্যাট-ট্যাক্সও দিচ্ছে।
এই আইটি বিশেষজ্ঞ আরও বলেন-ফেসবুক, ইউটিউব, টুইটারসহ সোশ্যাল মিডিয়া এখন বিশ্বজুড়ে জনপ্রিয়। বাংলাদেশেও এর ব্যতিক্রম নয়। আমাদের দেশে ফেসবুকের প্রায় ৪ কোটি ইউজার রয়েছে। ইউটিউবের হয়তো এত নেই। বাংলাদেশ জন্মের শুরু থেকেই কিছু লোক বিরোধিতা করেছে, এখনো করছে। দেশের ভিতরে যেমন রয়েছে, তেমনি বিদেশেও রয়েছে। তারা কখনো নীরব ছিল না। তারা পরিকল্পিতভাবে সরকার ও সরকারের গুরুত্বপূর্ণ নেতাদের এবং সন্ত্রাস, নৈরাজ্য, সাম্প্রদায়িকতার বিষয়ে ইচ্ছামতো প্রচার-প্রচারণা চালাচ্ছে। দেশে এ ধরনের কাজ করলে সহজেই চিহ্নিত করে আইনের আওতায় আনতে পারি। কিন্তু যারা বিদেশে বসে এসব করছে তাদের ধরাই বড় চ্যালেঞ্জ। আবার এসব ব্যক্তির অ্যাকাউন্টও বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই ভুয়া হয়ে থাকে। ফলে তাদের শনাক্ত করাও কঠিন। তারা ইচ্ছামতো নাম দিয়ে অ্যাকাউন্ট খুলে এসব প্রচারণা চালাচ্ছে। ফলে এটি শনাক্ত করাও একটি বড় চ্যালেঞ্জ। তারপরও আমাদের আইসিটি ডিভিশন, বিটিআরসি, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীসহ সংশ্লিষ্টরা সর্বোচ্চ চেষ্টা করছে। কিছু বিষয়ে সুফলও পেয়েছি আমরা।

ইচ্ছা করলে টোটাল সোশ্যাল মিডিয়া ‘শাট ডাউন’ করতে পারি উল্লেখ করে মোস্তাফা জব্বার বলেন, ‘সরকার ও রাষ্ট্রবিরোধী’সহ বিভিন্ন রকম ‘আপত্তিকর’ কনটেন্ট প্রচারকারী, ওয়েবসাইট, পেজ বা অ্যাকাউন্ট আমরা বাংলাদেশে যে কোনো মুহূর্তে বন্ধ করতে পারি, কিন্তু বাইরের দেশে নয়। আমি দায়িত্ব নেওয়ার পর একটি প্রকল্পের মাধ্যমে ২২ হাজার পর্নো সাইট ও ৬ হাজার ভুয়া সাইট বন্ধ করেছি। এ ছাড়া ১১০০-এর বেশি ক্ষতিকর ওয়েবসাইট বন্ধ করা হয়েছে। সেগুলো দেশের অখন্ডতা রক্ষায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছে বলে মনে করি। দেশের কোনো অ্যাকাউন্ট, সাইট, ইউটিউব চ্যানেল থেকে দেশবিরোধী কনটেন্ট, ব্যক্তিবিরোধী, সম্মানহানিকর কোনো তথ্য বা এসব বিষয়ে সুনির্দিষ্ট অভিযোগ পেলে আমাদের আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীসহ সংশ্লিষ্ট সংস্থার মাধ্যমে আইনের আওতায় আনা হয়ে থাকে।

news24bd.tv নাজিম

পরবর্তী খবর