আফগানিস্তান থেকে মার্কিন সেনা প্রত্যাহারের করবে না বাইডেন প্রশাসন
আফগানিস্তান থেকে মার্কিন সেনা প্রত্যাহারের করবে না বাইডেন প্রশাসন

আফগানিস্তান থেকে মার্কিন সেনা প্রত্যাহারের করবে না বাইডেন প্রশাসন

Other

অবশেষে রাজধানী কাবুলে প্রবেশ করেছে তালেবান। এরআগে আফগানিস্তানের ৩৪টি প্রদেশের ২৮টির দখল নেয় এই স্বশস্ত্র সংগঠনটি। এই পরিস্থিতিতে রক্তপাত এড়াতে শান্তিপূর্ণভাবে ক্ষমতা হস্তান্তরের প্রক্রিয়া চলছে বলে জানিয়েছে দেশটির স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। সেইসঙ্গে মন্ত্রী আশ্বস্ত করেন, ক্ষমতা বদলের পরও কাবুল ঝুঁকিমুক্ত থাকবে।

তালেবান নেতারা বলছেন, শান্তিপূর্ণ ক্ষমতা হস্তান্তরের অপেক্ষায় তারা। আর যুক্তরাষ্ট্র বলছে, কোন অবস্থাতেই  আফগানিস্তান থেকে মার্কিন সেনা প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত বদলাবে না বাইডেন প্রশাসন।  

রাজধানী কাবুল দখলের ছক কষেই এগুচ্ছিলো তালেবান। যদিও আফগান সরকার তা প্রতিরোধে বিস্তুর নিরাপত্তা বলয় তৈরীর দাবি করেছিলো। তবে সশস্ত্র সংগঠনটির বিপক্ষে সে বলয় মোটেও পর্যাপ্ত ছিলো না । তাইতো রোববার কিছু বিচ্ছিন্ন ঘটনা ছাড়া অনেকটাই নির্বিঘ্নে রাজধানী কাবুলে ঢুকে…শহরটি নিয়ন্ত্রণে নেয় তালেবান যোদ্ধরা। এর আগে দেশটির ৩৪টি প্রদেশের মধ্যে অর্ধেকের বেশি গুরুত্বপূর্ণ প্রাদেশিক রাজধানী নিজেদের কব্জায় দেয় তালেবান বিদ্রোহীরা।

এই পরিস্থিতিতে অস্থায়ী সরকারের কাছে প্রেসিডেন্ট আশরাফ ঘানির ক্ষমতা হস্তান্তর  প্রক্রিয়া চলছে। ক্ষমতা বদলের পরও কাবুল নিরাপদ থাকবে বলে জানান দেশটির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী।

কাবুলের নিরাপদ থাকবে এটা মোটামুটি নিশ্চিত। এখানে আর কোন হামলা হবে না। এখন তৃতীয় আরেকটি দলের কাছে হস্তান্তর করা হচ্ছে। তবে তা সাময়িক।   আপনারা কেউ আতঙ্কিত হবেন না।

তালেবান ও আফগান বাহিনীর লড়াইয়ে পড়ে প্রাণ বাঁচাতে এবং বিদ্রোহীদের প্রতিশোধমূলক হামলার আশঙ্কায় হাজার হাজার মানুষ কাবুল ছাড়তে শুরু করেছে। অনেকে পরিবার নিয়ে শহরটির সড়কে খোলা আকাশের নিচে রাত কাটাচ্ছে।

তবে তালেবানের শীর্ষ নেতারা জানান, যারা কাবুল ছাড়তে চান, তাদের কোন রকম বাঁধা দিবে না   তাদের যোদ্ধারা।   আফিগানবাসীর ওপর তালেবান প্রতিশোধমূলক কোন আচরণ করবেনা বলেও অঙ্গীকার করেন।

এদিকে, তালেবানরা কাবুলে প্রবেশের পরেই কাবুল দূতাবাস থেকে মার্কিন কর্মীদের সরিয়ে নেওয়া শুরু করেছে যুক্তরাষ্ট্র। সেপ্টেম্বরের মধ্যে তাদের  সব সেনা ফিরিয়ে আনতে আরও ৫ হাজার সেনা পাঠানো হবে বলেও জানায় বাইডেন প্রশাসন। ব্রিটিশ সরকারও তাদের নাগরিকদের নিরাপদে সরিয়ে নিতে, ৬শ সেনা মোতায়েন করছে। বিশ্লেষকরা  বলছেন,  এসব ঘটনা আফগানিস্তানকে ক্রমেই  একটি ব্যর্থ রাষ্ট্রে পরিণত ও গৃহযুদ্ধে পতিত হওয়ার দিকে ঠেলে দিচ্ছে।  

news24bd.tv/এমি-জান্নাত

;